লগইন রেজিস্ট্রেশন

“বিভ্রান্তির বেড়াজালে ইসলাম” সূচনা পর্ব : মুসলিম জাতির অর্ন্তদ্বন্দের অন্তরালে। (১)

লিখেছেন: ' আল মাহমুদ' @ শুক্রবার, সেপ্টেম্বর ১৮, ২০০৯ (২:০০ অপরাহ্ণ)

রেফারেন্স কোডের ভিতরের বইটা ঠিক কার লেখা মনে আসছে না কিন্তু একটা বিষয় দীর্ঘদিন যাবত মাথায় চেপে আছে যে, আমাদের মুসলিম জাতির মধ্যে প্রচুরপরিমান অর্ন্তদন্দ আছে, এবং এসব দন্দের কারনে দুনিয়া এবং আখেরাতে আমাদের ব্যাপক ক্ষতি সাধন হচ্ছে এবং হবে। এতএব একটি বিষয় পরিষ্কার হওয়া খুবই জরুরী যে, কেন আমাদের এসব অর্ন্তদ্বন্দ এবং এ থেকে পরিত্রানের এবঙ উত্তরণের পন্থা কি? প্রিয় পাঠক! আপনি যদি আমার এ সাধারণ মতামতের সাথে একমত হয়ে থাকেন তবে আমি অনুরোধ করবো আমরা মুসলিমরা অতিরঞ্জনের পথ পরিহার করে একে অপরের সমালোচনামুলক্ আলোচনা বা আত্নসমালোচনাগুলো গুরুত্ব দিয়ে শুনা এবং তার যৌক্তিকতা বিচার করা পরিহার করতে পারি না। সুতরাঙ অনলাইনের ঔপেনসোর্স ব্লগি ্এবং সামাজিক বিশেষত ধর্মীয় ্ই পিস ইন ইসলামের সাহায্যে আমরা যে যেই দলেরই হইনা কেন আমাদের জাতীয় বৃহত্তর স্বথর্থে গঠনমুলক আলোচনা ও সমালোচনার জন্য একটি ফোরাম ও চক্র গড়ে তলতে পারি। সহজদৃষ্টিতে আমি কিছু যুক্তি পেশ করবো যাতে প্রতীয়মান হবে আমাদের আত্নশুদ্ধিমুলক গঠন মুলক সমালোচনা হওয়া খুবই জরুরী । মহান আল্লার ইরশাদ:أنما المؤمنون إخوة فأصلحوا بين أخويكم মুমিনরা একে অপরের ভাই, সুতরাং তোমরা ভাইদের মধ্যে কোন(আদর্শগত হোক বা অন্য কোন বস্তুগত ব্যাপারে বিভক্তি হোক) সমেঝতা ও সংশোধন করে দাও” উল্লেখ্য আমাদের অর্ন্তগত যতপ্রকার বিভেদ ও লড়ই ্আছে এর মৌলিক কারণ হল আমাদের আক্বীদা বা বিশ্বাসগত মতপার্থক্য- যার ফলশ্রুতিতে তৈরি হয়েছে হাজার হাজার সংগঠন, একে অপরের বিরুদ্ধে রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক, কুটনৈতিক এমনকি কাফেরদের সগোযগীতায়  সমরযুদ্ধেও লিপ্ত হচ্ছি। তাই ভেদাভেদের এই প্রচীরের মুল ভীত যে বিশ্বাস বা আক্বীদা সেগুলো নিয়ে আমাদের ব্যাপক্আলোচনা সমালোচনা হওয়া উচিত। এমনি কি কে কি বিশ্বাস ও আক্বীদা পোষণ করে তার লিখিত ও রেকডক্রত প্রমানসহ প্রস্তাবনা তৈরি হওয়া উচিত এবং এভাবে প্রত্যেকের বিশ্বাস ও আক্বীদার সপক্ষে কোরান -হাদীস এজমা তথা্আম মুসলিম জামাদের কি ধরনা এবঙ যুক্তি তর্ক কি সমর্থন করে তার ব্যাপক আলোচনা হওয়া আমি খু্ই গুরত্বপূর্ন মনে করি। আর বর্তমান অনলাইন যূগে কোন প্রকার মুখো মুখো লাঠা লাঠি না করে ব্লগিঙ ্র সাহায্যে কাজটি করতে পারলে বিষয়টি অনেক বাহ্যিক কলহ বিবাদ থেকে বিরত থাকতে পারবো ইনশা আল্লাহ । বক্ষমান সিরিয়ালে্আমি্একেক করে সংগঠনের নাম এবঙ তাদের মেনুফেষ্টা – গঠনতন্ত্র – অগ্রানোগ্রাম  – তাদের নিজস্ব রেফারেন ও ব্ই পুস্তক থেকে কপি করে আসার প্রয়াশ পাব যাতে  করে বিষয়টি গাজাখুরি অপবাদ এবং শ্রেফ বিভ্রান্তিকর পোষ্ট না হয়।
লক্ষনীয় এবং অনুরোধকৃত বিষয়: আপনি যে দল বা মত ধারণ করেন তার নাম দেখ্ই বিচলিত না হয়ে, আমার যুক্তি এবং রেফারেন্সগুরোর ভিত্তি চিন্তা করে দেখবেন। কারণ মহান আল্লাহর ইরশাদ: قولوا قولا سديدا يصلح لكم أعمالكم তোমরা সঠিক কথা বল, তবে আল্লাহ তোমাদের আমলকে শুধরে দিবেন। এবং ” তোমরা সাক্ষীকে গোপন করো না এমনকি তা তোমাদের নিজেদের ব্যাপারেই হোকনা কেন” আদেশের দিকে লক্ষ্য রেখে আসুন আমরা বিষয়টি চালিয়ে যাব। এখানে হাদীসে বর্নীত ৭২ ফেরকার নাম ধরে ধরে আলোচনা করা কিছুটা দুসাধ্য ব্যাপার হয়ে যাবে এবং একই হাদিসে সকল ফেরকার নাম উল্লেখ না থাকায় আমি দ্বিতীয় পন্থাটি অবলম্বন করে বিভিন্ন দলের নাম এবং তাদের বিশ্বাস আলোচনা করত তার সাথে কোরান সুন্নাহের এবং সবর্জনীন মুসলীম মনীষিদের ঐক্যমত কি এবং যৌক্তিকভাবে উক্ত দল সমূহের বিভ্রান্তিকর বিষয় আলোচনা করবো ইন শা আল্লাহ। ওমা তাউফিকি ইল্লা বিল্লাহ ।

Processing your request, Please wait....
  • Print this article!
  • Digg
  • Sphinn
  • del.icio.us
  • Facebook
  • Mixx
  • Google Bookmarks
  • LinkaGoGo
  • MSN Reporter
  • Twitter
১০৯ বার পঠিত
1 Star2 Stars3 Stars4 Stars5 Stars ( ভোট, গড়:০.০০)

১ টি মন্তব্য

  1. স্বাগতম, তবে গালাগালি না করে রেফারেন্স সমৃদ্ধ লেখা দেন, কোনো সমস্যা নেই , মনোযোগ দিয়ে পড়ব এবং বাত চিত করব।