লগইন রেজিস্ট্রেশন

প্রাপ্তবয়ষ্ক লোকের দুধপানের হুকুম ও একটি অপবাদের জওয়াব।

লিখেছেন: ' আল মাহমুদ' @ বৃহস্পতিবার, জুন ১০, ২০১০ (১২:২১ অপরাহ্ণ)

প্রথমেই বলতে হয় ইসলামের নামে আমাদের মুসলিম সমাজে অনেক বিভ্রান্তিকর- হাস্যকর ব্যাপার আছে যা মুলত কেবল ইলামের নামে প্রচার হয় অথচ এতে বৃহত্তর মুসলিম জাতির কোন ঐক্যমত তো নেই উপরন্তু এর বিরোধী সিদ্ধান্তে মুসলিম স্কলারদের এজমা রয়েছে । যেমন কিছুদিন আগে এই বয়ষ্কদের দুধপান করানোর মাসলার সাথে আরো একটি মাসলা দেখছিলাম একজন শিয়া আলেম বলছিলেন: কিভাবে ঘরের পরপরুষ চাকর বাকরদের সাথে পর্দা রক্ষা করা যায় । তিনি বলছিলেন আপনার ঘরে যদি কোন মেয়ে থাকে তাকে একদিন বা কয়েকঘন্টার জন্য সেই চাকরের সাথে বিয়েদিন তাহলেই সে আপনার কাছে মাহরাম হয়ে গেল এবং তারসাথে পর্দার প্রশ্নটি বাকী থাকলো না। !!! আবার কেউ হয়তো সুন্নীদের কথিত এই ফতোয়া, যেখানে দুই বছরের বেশী বয়স্ক অথবা সোজা কথায় একজন পূর্ন বয়ষ্ক লোকের ব্যাপারটি আসবে সে যদি কোন মহিলার দুধ পান করে তবে তার সাথে বৈবাহিক তাহরীমের হুকুম বা পর্দা না করার ব্যাপারটি আসবে কিনা।

এগুলো মুলত কিছু মোনাফিক, মুসতাশরিকদের গবেষণা থেকে ইসলামকে ক্রিটিসাইজ করার ব্যর্থ চেষ্টা, যারা ষ্পষ্ট হুকুমগুলোর ধারে কাছে না গিযে সন্দেহ ও সংশয়পূর্ন কিচু ঘটনা নিয়ে আলোচনা করে এবং এ নিয়ে বলে বেড়ায়। আমরা সকলেই অবগত ইসলাম প্রথমযূগে তার পরিপূর্ণ হুকুম সমেত উপস্থাপিত হয় নি, বেসিক কিছু আমরা সবাই জানি যে একসময় সাহাবগন শরাব খেয়েও নামাজে আসতেন, তখন শরাব হারাম হয়নি, মানুষের দীর্ঘদিনের অভ্যাষ থেকে আচমকাই ফিরিয়ে আনা সম্ভব নয়, তাই প্রয়োজনের খাতিরে সাময়িক কিছূ হরাম বিষয়কে বৈধ করা হয়েছিল, যা পরবর্তিতে মানুষের জন্য স্থায়ীভাবে হারাম করে দেয়া হয়। যেখানে প্রথমে সরাসরি শরাবকে নিষেধ করা হয়নি বরং পর্যায়ক্রমে তা হয়েছিল । যেমন যুদ্ধ ক্ষেত্রে মুতার বিষয়টিও প্রাথমিক ভাবে অনুমোদন এমন আরো অনেক বিষয় যা পরবর্তিতে স্পষ্ট কোরানের আয়াত, অথবা হাদীস বা এজমায়ে সাহাবার মাধ্যমে নিষিদ্ধ হয়। এবং সেই প্রয়োজন দ্বিতীয়বার ফিরে আসার কোন সুযোগ নেই।

সরাসরি সহিহ হাদিস যদি কোরানের কোন আয়াতের স্পষ্ট হুকুম বিরোধী হয় , আর সেই আয়াত মানসুখ হবার স্পষ্ট দলীল না থাকে তবে সেই হাদিসের উপর আমল করা হয় না বরং আয়াতর উপর আমল করা হয়। এ ক্ষেত্রে সহিহ হাদিসটিকে কয়েকভাবে ব্যাখা করা হয় যেমন খাস লিল হুকুম, খাস লি নাফছ, খাস লিয যারফ্ ইত্যাদি । অর্থাত কোনটি ব্যক্তির জন্য নির্দিষ্ট যেমন রসূল স এর বহুবিবাহ, এক সাহাবীর কাফ্ফারার পয়শা তিনি নিজে খাওয়ার অনুমতি প্রভৃতি হল ব্যক্তির জন্য নিদৃষ্ট বা খাস লি নাফছ এর উদহারণ। মুতার ব্যাপার টি যুরুফ বা সময়ের জন্য, এবং এ জাতিয় আরো অনেক বিশেষ কাজ বিশেষ ব্যক্তি ও সময়ের জন্য নির্ধরিত হবার প্রমান পাওয়া যায়।

আমি প্রথমেই দুধ পান করানোর ব্যাপারে কোরানের একটি আয়াত পেশ করবো:
وَالْوَالِدَاتُ يُرْضِعْنَ أَوْلاَدَهُنَّ حَوْلَيْنِ كَامِلَيْنِ “আর মাতৃজাত তাদের সন্তানদের পরিপূর্ণ দুই বসর দুধ পান করাবেন। ”
فعن ابن عباس قال : قال رسول الله صلى الله عليه وسلم “ لا يحرم من الرضاع إلا ما كان في الحولين ” وقد قال رسول الله صلى الله عليه وسلم : ” لا يتم بعد حلم ولا رضاع بعد فصال ” وقال صلى الله عليه وسلم ” إنما الرضاعة من المجاعة ” ইবনে আব্বাস রযি আনহু থেকে বর্নিত রসূল স: বলছেন রেযাআহ এর মাধ্যমে যে হারাম হবার হুকুম তা কেবল শিশু দু্ইবছরের ভিতরের রেযাআহ বা দুধপান” “ফেসাল বা দুধ ছাড়ানোর পরে তা রেযাআহ বলে ধর্তব্য নয়” “যখন বাচ্চাদের দুধের চাহিদার (দুধ ছাড়া অন্য সাধারণ খাবাএর উপযোগীতা না থাকা ) সময় থাকে তাকেই রেযাআহা বলা হবে” সুতরাং হাদীসের হুকুম খুবই ষ্পষ্ট, দুই বছরের বেশী দুধ পান না করানোকেও গুরুত্ব দিয়ে বলা হয়েছে। এসব স্পষ্ট হুকুম বাদ দিয়ে কিছু সন্দেহমূল বর্ননা যা আমি একটু পরো আলোচনা করবো তার পিছে পড়া নিশ্চয় গোমরাহী ও নেফাকের পরিচয়, আর রাফেজী-খারেজী ও মুসতাশরিক ও নাস্তিকরা মুলত এগুলো আলোচনা কে ইসলাম হেয় করার জন্য, কোন গ্রহণযোগ্য ধর্মীয় স্কলার কখনোই এগুলোর আলোকে কদর্যপূর্ন ফতোয়া প্রদান করেন না।

এরপর আসুন দুধপান করানোকে এখানে আরবীতে رضاعة রাদাআহ যে শব্দে বর্ননা করা হয়েছে তার অর্থ ও তাহকীক করি।
আহলুল লুগাহ বা আরবী ভাষাবিদগন স্পষ্টই বলছেন রদাআহ হলো স্তন চুষে দুধ খাওয়ানো বা খাওয়া । রাজাআহ এর অর্থ আমাদের পরিষ্কার বুঝতে হবে : ” স্তন থেকে চুষে কাউকে দুধ খেতে দেয়া” নতুবা আমরা সবাই গবাদী পশুর দুধ পান করি, এবং গবাদী পশুর দুধ পান করার কারনে একজন মেয়ের সাথে একজন ছেলের তাহরীম বৈবাহিক সম্বন্ধ নিষিদ্ধ হয় না। দুধকে কোন পাত্রে নির্গমন করে তা পান করারোনে আরবীতে তাহলিব বলা হয়, ইরজা বা রেজায়া হ বলা হয় না ।

অনুরুপ কোন মহিলার দুধ নিষ্কাষন করে কোন প্রাপ্ত বয়ষ্ক পুরুষ ও মহিলাকে পান করানো হলে তাদের মধ্যে তাহরীম বৈবাহিক নিষদ্ধতা প্রয়োগ হবে না। এবার প্রাপ্ত বয়ষ্ক মাহরাম পুরুষকে দুধ খাওয়ানোর ব্যাপারটিতো আরো পরিষ্কার হবার কথা। কারণ কোন প্রপ্ত বয়ষ্ক লোকের পক্ষে তার স্ত্রী ব্যতি অন্য কোন মাহরাম বা গায়রে মাহরাম মহিলার দুধ চোষা তো দুরের কথা দেখার প্রশ্নকে ও ইসলাম সম্মত ভাবার সুযোগ নেই। তারপরো ভেংঙ্গে আলোচনা করা প্রয়োজন মনে করি। যেহেতু হযরত আয়েশা রযি আনহা এর ব্যাপারে কয়েকটি বর্ণনা এভাবেই পাওয়া যাচ্ছে: سنن أبي داود:
1764 حَدَّثَنَا أَحْمَدُ بْنُ صَالِحٍ حَدَّثَنَا عَنْبَسَةُ حَدَّثَنِي يُونُسُ عَنِ ابْنِ شِهَابٍ حَدَّثَنِي عُرْوَةُ بْنُ الزُّبَيْرِ عَنْ عَائِشَةَ زَوْجِ النَّبِيِّ صَلَّى اللَّهم عَلَيْهِ وَسَلَّمَ وَأُمِّ سَلَمَةَ أَنَّ أَبَا حُذَيْفَةَ بْنَ عُتْبَةَ بْنِ رَبِيعَةَ بْنِ عَبْدِ شَمْسٍ كَانَ تَبَنَّى سَالِمًا وَأَنْكَحَهُ ابْنَةَ أَخِيهِ هِنْدَ بِنْتَ الْوَلِيدِ بْنِ عُتْبَةَ بْنِ رَبِيعَةَ وَهُوَ مَوْلًى لِامْرَأَةٍ مِنَ الْأَنْصَارِ كَمَا تَبَنَّى رَسُولُ اللَّهِ صَلَّى اللَّهم عَلَيْهِ وَسَلَّمَ زَيْدًا وَكَانَ مَنْ تَبَنَّى رَجُلًا فِي الْجَاهِلِيَّةِ دَعَاهُ النَّاسُ إِلَيْهِ وَوُرِّثَ مِيرَاثَهُ حَتَّى أَنْزَلَ اللَّهُ سُبْحَانَهُ وَتَعَالَى فِي ذَلِكَ ( ادْعُوهُمْ لِآبَائِهِمْ ) إِلَى قَوْلِهِ ( فَإِخْوَانُكُمْ فِي الدِّينِ وَمَوَالِيكُمْ ) فَرُدُّوا إِلَى آبَائِهِمْ فَمَنْ لَمْ يُعْلَمْ لَهُ أَبٌ كَانَ مَوْلًى وَأَخًا فِي الدِّينِ فَجَاءَتْ سَهْلَةُ بِنْتُ سُهَيْلِ بْنِ عَمْرٍو الْقُرَشِيِّ ثُمَّ الْعَامِرِيِّ وَهِيَ امْرَأَةُ أَبِي حُذَيْفَةَ فَقَالَتْ يَا رَسُولَ اللَّهِ إِنَّا كُنَّا نَرَى سَالِمًا وَلَدًا وَكَانَ يَأْوِي مَعِي وَمَعَ أَبِي حُذَيْفَةَ فِي بَيْتٍ وَاحِدٍ وَيَرَانِي فُضْلًا وَقَدْ أَنْزَلَ اللَّهُ عَزَّ وَجَلَّ فِيهِمْ مَا قَدْ عَلِمْتَ فَكَيْفَ تَرَى فِيهِ فَقَالَ لَهَا النَّبِيُّ صَلَّى اللَّهم عَلَيْهِ وَسَلَّمَ أَرْضِعِيهِ فَأَرْضَعَتْهُ خَمْسَ رَضَعَاتٍ فَكَانَ بِمَنْزِلَةِ وَلَدِهَا مِنَ الرَّضَاعَةِ فَبِذَلِكَ كَانَتْ عَائِشَةُ رَضِي اللَّهم عَنْهَا تَأْمُرُ بَنَاتِ أَخَوَاتِهَا وَبَنَاتِ إِخْوَتِهَا أَنْ يُرْضِعْنَ مَنْ أَحَبَّتْ عَائِشَةُ أَنْ يَرَاهَا وَيَدْخُلَ عَلَيْهَا وَإِنْ كَانَ كَبِيرًا خَمْسَ رَضَعَاتٍ ثُمَّ يَدْخُلُ عَلَيْهَا وَأَبَتْ أُمُّ سَلَمَةَ وَسَائِرُ أَزْوَاجِ النَّبِيِّ صَلَّى اللَّهم عَلَيْهِ وَسَلَّمَ أَنْ يُدْخِلْنَ عَلَيْهِنَّ بِتِلْكَ الرَّضَاعَةِ أَحَدًا مِنَ النَّاسِ حَتَّى يَرْضَعَ فِي الْمَهْدِ وَقُلْنَ لِعَائِشَةَ وَاللَّهِ مَا نَدْرِي لَعَلَّهَا كَانَتْ رُخْصَةً مِنَ النَّبِيِّ صَلَّى اللَّهم عَلَيْهِ وَسَلَّمَ لِسَالِمٍ دُونَ النَّاسِ.
উক্ত হাদীসে বলা হচ্ছে : ” হযরত আয়েশা ও হযরত উম্মে সালমা রযি: থেকে বর্নিত : আবু হুযায়ফা সালেমকে পালক ছেলে রেখেছিলেন, এবং তার ভাতিজি হিন্দ বিনতে ওয়ালিদের সাথে সালেমকে বিয়ে দিয়েছিলেন, আর (যে ওয়ালিদের কন্যার সাথে সালেমের বিয়ে হয় সেই ওয়লীদ ) এক আনসারী মহিলার মাওলা (দাসপ্রথার একটি হুকুম যা তখন প্রচলিত ছিল এ ব্যাপারে পরে বিস্তারিত বলা যাবে) ছিলেন। তাদর এই পোষ্য ব্যাপরটি ছিল রসূল স: এবং যায়েদের মত । আর তখনকার জাহেলী যূগে প্রথা এমন ছিল যে পোষ্য তার পালকের মীরাছ পেত , কিন্তু যখন আল্লাহ ( ادْعُوهُمْ لِآبَائِهِمْ ) إِلَى قَوْلِهِ ( فَإِخْوَانُكُمْ فِي الدِّينِ وَمَوَالِيكُمْ ) (তোমরা তাদেরকে তাদের পিতার পরিচয়ে ডাকবে) আয়াতের মাধ্যমে তা নিষিদ্ধ করে দিলেন তখন পোষ্যদেরকে তাদের আসল পিতার পরিচয়ে ডাকা হতো , আর যাদের পিতৃ পরিচয় পাওয়া যেত না তাদের মাওলা বলা হতো এবং দ্বীনের খাতিরে (সাধরণ মুসলিম ) ভাই বলা হত । অতপর সাহলা যিনি আবু হুযায়ফার স্ত্রী রসূল স: এর কাছ এসে বল্লেন: হে আল্লাহর রসূল আমরা তো সালেমকে নিজের ছেলের মতো জানতাম, এবং সে আমাদের কাছে আসা যাওয়া করতো, এখন আল্লাহ উক্ত হুকুম নাজিল করেছেন যা আপনি জানেন, এখন তাকে নিয়ে আমরা কি করবো? তখন রসূল স: বল্লেন: أَرْضِعِيهِ فَأَرْضَعَتْهُ خَمْسَ رَضَعَاتٍ فَكَانَ بِمَنْزِلَةِ وَلَدِهَا مِنَ الرَّضَاعَةِতুমি তাকে দুধ পান করাও, অতপর তিনি তাকে পাচবার দুধপান করালেন এবং তাদের মধ্যে মা ও ছেলের সম্পর্ক হলো দুধের দিক থেকে । ” আয়শা রযি: এই ঘটনার ভিত্তিতে তার ভাই ও বোনদের মেয়েদেরকে বলতেন তোমরা يُرْضِعْنَ مَنْ أَحَبَّتْ عَائِشَةُ أَنْ يَرَاهَا وَيَدْخُلَ عَلَيْهَا وَإِنْ كَانَ كَبِيرً তোমরা ছেলেদেরকে দুধ খাওয়াবে যদি তাদেরকে আমার কাছে পাঠাতে চাও যদিও তারা বড় হয়ে থাকে! আর উম্মে সালমা রযি সহ বাকি সকল উম্মাহাতুল মুমিনিন এ বিষয়টি মানতেন না, এবং উক্ত রেযাআর মাধ্যমে যারা মাহরাম হয়েছিল তাদেরকে নিজেদের কাছে আসতে দিতেন না। তারা কেবল কোলের বাচ্চার ব্যাপারেই অনুমতি দিতেন এবং হযরত আয়েশা রযি এর ব্যাপরে বলতেন وَاللَّهِ مَا نَدْرِي لَعَلَّهَا كَانَتْ رُخْصَةً مِنَ النَّبِيِّ صَلَّى اللَّهم عَلَيْهِ وَسَلَّمَ لِسَالِمٍ دُونَ النَّاسِ আল্লাহর কসম এটা রসূল সল্লাল্লাহু আল্ইহে ওয়াসাল্লামের পক্ষ থেকে দেয়া হযরত আয়শার জন্য ব্যক্তিগত সুযোগ, যা কেবলি তার জন্য খাস অন্য করাও জন্য নয়। ” আবুদউদ ১৭৬৪নং হাদীস।
সুতরাং বিষয়টি এই বর্ননায় অত্যন্ত পরিষ্কার যে ইসলামে বিশেষ ব্যক্তির জন্য অতিবিশেষ কেবলি তাদের ব্যক্তিগত প্রয়োজনের খাতিরে কিছু রুখসত বা সুযোগ দেয়া হয়েছে, যার আলোকে সেই হুকুম অন্য করারো জন্য সাব্যস্ত করার সুযোগ নেই।
সূত্র :
১। আহলুল হাদীস.কম ইমাম শাফেয়ী ও ইবন বায ও ওসায়মীন এর ফতোয়া
২। স্যন্ডরোজ ফোরাম/ বয়ষ্কদের দুধপান নিয়ে হাদীসের সংকলণ।

Processing your request, Please wait....
  • Print this article!
  • Digg
  • Sphinn
  • del.icio.us
  • Facebook
  • Mixx
  • Google Bookmarks
  • LinkaGoGo
  • MSN Reporter
  • Twitter
২,১১৫ বার পঠিত
1 Star2 Stars3 Stars4 Stars5 Stars (ভোট, গড়: ৪.৪৩)

২৪ টি মন্তব্য

  1. বি: দ্র: আহলে হাদীস ও সৌদি ফতোয়া ডিরেক্টর বায রহ: এবং বর্তমান উসাইমীনের ফতোয়া কোড করলাম যাতে ফুয়াদ ভাইয়ের পোস্টে সৌদিদের ব্যাপারে যে অমুলক ধারণার সঞ্চার হয়েছে তার নিরসণ হয় । এছাড়া হানাফি মাযহাব বা উপমহাদেশের দেওবন্দী আলেমদের মতামতো এর চাইতে ব্যতিক্রম নয় ।

    ফুয়াদ

    @বাংলা মৌলভী,

    ধন্যবাদ, হানেফি মাহজাবে এরকম কিছু আছে বলে জানা নেই। কিন্তু ৭৫ বছর বিধবা বৃদ্ধা কে কেন ৪০ দোররা এবং ৬ মাসে জেল দেওয়া হল, মাত্র তাকে কেউ রুটি এনে দেয় বলে? এব্যাপারে হানেফি মাহজাবের সমাধান কি?

  2. প্রাপ্তবয়স্কদের দুধ পান করানোটা (ABF: Adult Breast-feeding বা Adult Nursing) পশ্চিমের এক সর্ব সাম্প্রতিক যৌন বিকৃতি । সমকামীদের মতই এদের organized group রয়েছে – প্রচারণা ও প্রকাশনা রয়েছে।

    বাংলা মৌলভী

    @মুসলিম৫৫, জিওইস ইসলামিক সাইট! তারা কিভাবে সৌদি আলেমদের ব্যাপারে এমন তথ্য দিতে পারলো। আমি সৌদি আলেমদের সাইটগুলো খুজে তাদের রচিত এহেন ফতোয়া তো পেলাম না।

    মুসলিম৫৫

    @বাংলা মৌলভী, সত্যের সাক্ষ্য দেয়ার জন্য ধন্যবাদ!

    ফুয়াদ

    @বাংলা মৌলভী, সত্যের সাক্ষ্য দেয়ার জন্য ধন্যবাদ!

    হাফিজ

    @মুসলিম৫৫,

    প্রাপ্তবয়স্কদের দুধ পান করানোটা (ABF: Adult Breast-feeding বা Adult Nursing) পশ্চিমের এক সর্ব সাম্প্রতিক যৌন বিকৃতি । সমকামীদের মতই এদের organized group রয়েছে – প্রচারণা ও প্রকাশনা রয়েছে।

    ব্যাপারটা আগে জানতাম না , তথ্যের জন্য ধন্যবাদ ।

  3. সময়োপযোগী পোস্ট । সুন্দর লিখেছেন । জাজাকাল্লাহ ।

  4. ধন্যবাদ।
    আপনি এবং ব্লগের অন্য যে ভাই-বোনেরা আধুনিক আরবি পড়তে পারেন, তাঁরা অনুগ্রহ করে জানাবেন কি নিচের দু’টো সৌদি সংবাদপত্রে ঠিক কী লেখা হয়েছে এই সম্পর্কে ? অগ্রিম ধন্যবাদ।

    ১। দৈনিক আল ওয়াতান

    ২। দৈনিক আল রিয়াদ

    ফুয়াদ

    @মুসলিম,

    প্রথমটি গুগল দিয়ে, অন্যটি আপনি নিজেই গুগল ব্যাবহার করে বের করে নেনে।

    Adviser at the royal court, Sheikh Abdul Mohsen Bin Nasser Al Obeikan say that breast-feeding leave the great work “serious talk is not right.” He explained he did not speak on the issue of “big feed” only after it has been asked in a television program, and he must indicate the rule stifles legitimate and not science, and then did not say so only in response to a question from the audience.
    And increased Sheikh Obeikan, saying: It is not related to this advisory opinion to the foregoing has been talked about earlier in the opinion of one of the sheikhs, who passed the nursing major in the work directly.
    Adviser at the royal court, Sheikh Abdul Mohsen Bin Nasser Al Obeikan he did not speak on the issue of “big feed” not having been asked in a television program, and he must indicate the rule stifles legitimate and not science. Adding that he did not say so only in response to a question from a viewer.
    According to Sheikh Obeikan: it is unrelated to the advisory opinion of the above were talking about earlier in the opinion of one of the sheikhs, who passed the nursing major to work directly, saying that to say such words “serious and true.”
    The Obeikan: The origin of lactation to be in the first two years, ie not over the age of the infant two years the verse: (and mothers breastfeed their children for two full years for those who wanted to be breast) (Al-Baqarah verse 233), but passed some of the scholars feeding large in the case of in particular, is whether I need the people home to many grand entry for them and accommodation in their midst, and of course without being fed directly from the woman’s breasts, but exude him from her breast in the bowl and drink it five times until he had enough for a small as stated in the transport scientists, and this situation applies to the take people home from the shelter did not know his father or mother Voredua upbringing and that they like a child, or that the young man had no relatives except his brother and forced to dwell with him and his family and gets heavily critical entry and exit and the like.
    And Obeikan that those who went to the passport feeding large Aisha may Allah be pleased, and tells about Ali and the tab, God bless them, so state, in addition to statements, Layth ibn Sa’d and Ata ibn Abi Rabah, Abu Muhammad ibn Hazm, Shaykh al-Islam Ibn Taymiyyah, Ibn values and San’aani are sinning and Sheikh Mohammed Sidique Khan, Albanian and interstellar and others, these are all quoted saying the Almighty: (and mothers who Ordankm), (al-Nisa verse 23), and therefore the rule so absolute unrestricted time, and quoted the report narrated by Muslim in the chapter on breastfeeding of an adult Aisha, she was easy girl Suhail to the Prophet – peace be upon him – said, “O Messenger of God I see in the face of Abu Hudhayfah from entering Salem – an ally. The Prophet – peace be upon him – «Ordaih». Said and how breastfeed him a big man and admit the Messenger of Allah – peace be upon him – said «I know that that great man» In the novel from Aisha that safely freed slave of Abu Huzaifa was with my father Hudhayfah and his family in their home missed – means the daughter of Suhail – The Prophet – peace be upon him – said that the safe had reached as a men and mind is smart enough and that enters us and I think that in the same Abu Hudhayfah of these things. said to her, the Prophet – peace be upon him – «Ordaih deprive him and goes by the same Abu Hudhayfah». I checked, she said I had breastfed, who went in the same Abu Hudhayfah “” [Narrated by al-Bukhaari in his Saheeh, Kitaab al-Nikaah qualified in the religion section (no. 4800), and Muslim in his Saheeh (no. 1453) and others, and word of a Muslim]
    He said in a juristic choices Shaykh al-Islam Ibn Taymiyah (p. 408 – House of the capital): “The Azhar, dotted with integrity so as not to Ihchmon of the need for a story of Salim Mawla Abu Hudhayfah a certain view of Aisha and tender and the lion and David, who believed that publish privacy at all” a. E
    Qayyim said: “then so was Aa’ishah order daughters of her brothers and her sister’s daughters to breastfeed from loved Aisha, may Allah be pleased to see and enter, albeit by a major five times, and enter upon” (Zaad c / 5, p. 555) The hadeeth was narrated by Abu Dawood in married in 2061 and his trustworthy and attributed correctly.
    He also said: “third track: the modern easy not Bmnsuk, not ad hoc, not in the right of each one, but it is a license to the need for those who do not dispense with the entry of women, and find his invisibility him up like Salem, with the wife of Abu Huzaifa, such a big if breastfed to the need for the impact of breastfeeding, but as for everything else, it affects only dreams of small, and this course al-Islam Ibn Taymiyyah Almighty God’s mercy, conversations precluding breastfeeding in the great either absolute are recorded speech easy, or general conditions The allocation of this state, and realized this is better than copying and customization case someone specific, and closer to the action all the talk from both sides, and the rules of Islam see him “(Zaad c / 5, p. 593).
    Said San’aani Allah’s mercy “ways of peace” (3/405-406 Riyadh Press): It is better to combine casual and easy to talk: the words of Ibn Taymiyyah, he said: it is small in the breast only if called for by the great need Karzaa can not do without entering to the invisibility of women and building him up like a woman with Abu Salem Hudhayfah, such a great breastfed if the need for the impact of breastfeeding. But from everything else, it must be small. End quote. It brought together good conversations, and the realization of its non-violation of the prima facie jurisdiction, nor copy, nor the abolition of what it considered the language and showed him talk “a. E
    The imam said Shawkaani in Awtaar (c / 6 p. 373 – edition of Dar Al-Hadith), after mentioning the words the prohibition on breastfeeding of an adult reads: “To say IX: that breastfeeding is a small but called upon him the need Karzaa great can not do without entering to the women and it is hard invisibility to and from Shaykh al-Islam Ibn Taymiyyah This is the correct I fulfills the combination of conversations and by making the story of Salem mentioned dedicated to the pan (but feeding famine and breast-feeding except in the first two years, and breast-feeding except what fills the intestine before weaning and breastfeeding only what Oncz bone and the growth of flesh) and this through the medium between the way he quoted these conversations that there is no provision for breastfeeding of an adult at all and those who make the dreams of the great Karzaa small at all in the not free for every one of these methods of abuse, as will his statement and support this that the question of easy woman Abu Hudhayfah was after the verse of hijab is stating is not permissible to make decorations for non of the verse is not for them are not of those exempted by Allah but this issue Salem and was similar in that the illness is the need to lift the veil not be restricted and therefore need specific of needs and greater than to lift the veil of a person or persons not of age by unknown. has been proven in the hadeeth easy, she said to the Prophet peace be upon him: “The safe-bearded Ordaih said,” and should be breastfed five times “a. e.

    মুসলিম

    @ফুয়াদ,

    হা হা হা, গুগল অনুবাদের এ কী শোচনীয় হাল :) এর পাঠোদ্ধার করা দেখি হায়ারোগ্লিফিক্স পড়ার চাইতে কঠিন :)

    ফুয়াদ

    @মুসলিম,

    আন্দাজ কইরা নিতে হবে, তাছাড়া গুগল মামা মানুষের কথা বার্তা ভালই অনুবাদ করে, কিন্তু আল কুরান, হাদিস অনুবাদ করতে গেলেই দাদ ভেংগে যায়।

    বাংলা মৌলভী

    @মুসলিম, ধন্যবাদ ভাই মুসলিম। আমি পোস্টের শুরুর দিকে বলছি যে কিছু আলেম বিশেষত শিয়া ও রাফেজীদের একশভাগ এবং কিছু সুন্নীদেরও পাবেন বিতর্কিত এবং সর্বজনবিদিত নয় এবং বেশীরভাগ আলেম এমনকি শতকরা ৯৯%আলেম যা মেনে নিবেন না, এমনকি সাধারণ মুসলিম বে যে কোন মানুষেই সেটাকে বিবেকের দিকথেকে মেনে নিবে না এমন কিছু হাস্যকর বিষয়ে আমাদের কদাচিত কিছু আলোচনা চলে আসে । আপনার দেয়া লিংক পড়ে ঐ ব্যক্তির নাম ও পেশা সম্পর্কে নিশ্চিত হলাম। عبدالمحسن بن ناصر العبيكان আব্দুল মুহসিন বিন নাছির আল ইবকিয়ান একজন সরকরী রেজিস্টার্ড কনসালটেন্ট। ( খুব সম্ভবত আমার এক বন্ধু আছেন সাইকোলজিক্যল এন সোসাল কনসালটেন্ট যারা মুলত শরীয়া নিয়ে উচ্চতর গবেষনা করেন না বরং মনোরোগ এবং সামজিক বিষয় নিয়ে গবেষনা করে এ ডিপার্টমেন্টে কাজ করেন।) প্রথম কথা হলো শরয়ী সিদ্ধান্তের ব্যাপারে ওনাদের কোন ফতোয়া একসেপ্টেবল নয় । আমি গ্রান্ড সালেহ বিন ওসাইমীনের দীর্ঘ ফতোয়া, বিন বায রহ: এর ফতোয়া এবং আহলে হাদীস ফোরামে দীর্ঘ ফতোয়ার আলোকেই উক্ত পোস্ট লিখেছি যা মুলত তাদের ভাষ্য। তারা কঠিন ভাবে বিষয়টিকে অনেক আগেই নিষেধ করে আসছেন। অথচ আপনার লিংক পড়ে বুঝতে পারলাম ঐ সালেম যে আবু হোযাইফের কাছে পালক ছিলেন সেই হাদিসের ভিত্তিতেই এই আবকিয়ান সাহেব বিতর্কিত এই ফতোয়া দিয়েছেন । এখানে আরো বলা হলো ফতোয়াটি প্রথম পর্যায়ে তিনি মৌখিকভাবে দিয়েছেন পরবর্তিতে তা জানাজানি হলে আর রিয়াদ পত্রিকা ও বিভিন্ন গনমাধ্যম তার সাথে যোগাযোগ করলে তিনি বিষয়টি স্বীকার করেন।
    দ্বীতিয়টির ভাষ্যও এমন। এখানে বলা বাহুল্য ওনার এই ফতোয়ার পড়ে বিভিন্ন সৌদি নারীরা এর প্রতিবাদ করেছেন, এবং এটা নিয়ে সেখানে পরিবেশ গরম চলছে, তারা এও বলছেন ওনার ফতোয়া সঠিক হলেও এমতে আমল করার কোন সুযোগ নেই। এবং উক্ত পোস্টেই আরো দুজন ডক্টর ও উপদেষ্টার ছবি সমেত সাক্ষাতকরা দেয়া হয়েছে যারা শেখ আবকিয়ানের কড়া সমালোচনা করেছেন।
    এগুলোকে মুলত কিছু বিচ্ছিন্ন ঘটনা ছাড়া আর কিছু বলার সুযোগ নেই।

    মুসলিম

    @বাংলা মৌলভী,

    আবারও ধন্যবাদ। হ্যাঁ,এটা বিচ্ছিন্ন ঘটনাই বটে। কিন্তু এতে যে বড় রকমের ক্ষতি হয়ে গেল :( মুসলিম সমাজ এমনিতেই ধর্মের পথ থেকে দূরে সরে যাচ্ছে। এই ঘটনাতো ইসলামবিরোধীদের হাতে আরেকটা নতুন অস্ত্র তুলে দিলো !

    দ্য মুসলিম

    @মুসলিম,

    মুসলিম সমাজ এমনিতেই ধর্মের পথ থেকে দূরে সরে যাচ্ছে। এই ঘটনাতো ইসলামবিরোধীদের হাতে আরেকটা নতুন অস্ত্র তুলে দিলো !

    সহমত।

  5. চমৎকার তথ্যসমৃদ্ধ পোষ্ট। পড়ে অনেক উপকৃত হলাম। (F) তবে কয়েকটি বানান এডিট করে ঠিক করে দিলে আরও ভাল হত। আর আরবী লেখাগুলো বোল্ড করে দিলে স্পষ্ট বোঝা যায় এবং পড়তে সুবিধা হয়।

  6. গত দুইদিন আমার ব্লগে আর সামহোয়ারে এ সংক্রান্ত পোস্ট দেখে আমি বেকুব হয়ে গিয়েছিলাম। যদিও আমার এ ফতোয়া ভুল বলে মনে হয়েছে, কিন্তু আমি তো আর মুফতি না, তাই নিশ্চিত হতে পারছিলাম না। এ পোস্টটা খুব কাজে দিল।

    @ লেখক, আপনার কি ঐ দুটো ব্লগে আইডি আছে? তাহলে এ পোস্টটা ওখানেও দিয়ে দিন। আর না থাকলে অন্য কেউ যদি এগুলো ঐ দুটো ব্লগেও দিয়ে দেন, তাহলে খুব ভাল হতো। অনেকেই বিভ্রান্তি থেকে মুক্তি পেত।

    লেখককে অনেক ধন্যবাদ। আল্লাহ্‌ আপনার ভাল করুন।

    বাংলা মৌলভী

    @নাজনীন। আমারব্লগে এটা ছাপাবো। কিন্তু সামহয়ারে আমার লগ নেই। আপনি চাইলে বিষয় ঠিক রেখে এটার আলোকে লিখতে পারেন।

  7. http://www.somewhereinblog.net/blog/infamous_bd/29174255

    আমি সামহোয়ারের এ পোস্টে আপনার আর ফুয়াদের পোস্টের লিঙ্ক দিয়ে কিছু কথা বলেছি, এরপর তারা না শুনলে আমার আর কিছু করার নেই। বাকী আল্লাহ্‌র ইচ্ছা। ওহ্‌, আপনাদের অনুমতি ছাড়াই লিঙ্ক শেয়ার করেছি। আশা করি ভুল বুঝবেন না।

    বাংলা মৌলভী

    @নাজনীন, আমি ভাবছিলা আপনি পোস্টের আদলে নুতন পোস্ট দিয়েছেন। তাতো করেন নি কেবল লিংক টানলেন। আশা ছিল বিষয়টি ওখানে আলাদা পোস্ট দিবেন করে।

    বাংলা মৌলভী

    @বাংলা মৌলভী,ভাবছিলাম হবে