লগইন রেজিস্ট্রেশন

লেখক আর্কাইভ

 

একটি ভুল কাজ : কুরআন তিলাওয়াত চালু করে অন্য কাজ করা

লিখেছেন: ' kawsartex' @ মঙ্গলবার, ফেব্রুয়ারি ১৯, ২০১৩ (৩:০৭ অপরাহ্ণ)

অনেক মানুষকে দেখা যায় ক্যাসেট বা কম্পিউটারে কুরআন তিলাওয়াত চালু করে অন্য কাজ করতে থাকে। তিলাওয়াত একেবারেই শুনছে না বা কাজের কারণে তিলাওয়াতের প্রতি মনোযোগ দিতে পারছে না। বা একটা কিছু শুনতে শুনতে কাজ করার অভ্যাস তাই তিলাওয়াত ছেড়ে রেখেছে। শোনা উদ্দেশ্য নয়। এ কাজটি ঠিক নয়। কুরআন তিলাওয়াত শোনা একটি স্বতন্ত্র আমল। আল কুরআনুল কারীমে আল্লাহ তাআলা বলেছেন, (অর্থ) যখন কুরআন তিলাওয়াত হয় তখন তোমরা মনোযোগ সহকারে তা শ্রবণ কর এবং চুপ থাক। যাতে তোমাদের প্রতি অনুগ্রহ করা হয় .....

টি মন্তব্য  |  বিস্তারিত >>

নফসের সাথে বাহাছ

লিখেছেন: ' kawsartex' @ সোমবার, ফেব্রুয়ারি ১১, ২০১৩ (৮:৩৬ পূর্বাহ্ণ)

মাওলানা মুহাম্মাদ হেমায়েত উদ্দীন

মানুষের মনে অনেক ধরনের চিন্তা-ভাবনা জাগ্রত হয়। তাতে ভালো-মন্দ সব ধরনের চিন্তার সমাবেশ থাকে। ভালো চিন্তার পাশাপাশি জাগ্রত হয় মন্দ চিন্তা, আবার মন্দ চিন্তার পাশপাশি জাগ্রত হয় ভালো চিন্তা। ভালো আর মন্দ- এ দুটোর মধ্যে বাধে সংঘর্ষ অর্থাৎ বাহাছ-বিতর্ক। তাতে কখনও ভালো চিন্তার পক্ষ বিজয়ী হয় আবার কখনো বিজয়ী হয় মন্দ চিন্তার পক্ষ। যে পক্ষ বিজয়ী হয় শেষতক সে চিন্তা অনুসারেই ব্যক্তি সংশ্লিষ্ট কর্ম সম্পাদনে অগ্রসর হয়। এই ধরুন, মসজিদে গিয়ে জামাতের সাথে নামায আদায় করার মতো .....

টি মন্তব্য  |  বিস্তারিত >>

ফিতনা ফাসাদ ও তাবলীগ

লিখেছেন: ' kawsartex' @ বৃহস্পতিবার, জানুয়ারি ৩, ২০১৩ (৩:২৬ অপরাহ্ণ)

আবু তাসনিম

১. খারিজী, রাফেজী, মুতাজিলা , ক্বাদারিয়া , জাবারিয়া , জাহমিয়া , চিশতিয়া , মুজাদ্দেদীয়া , সাহরাওয়ার্দিয়া , আজমেরী, রেযাখানী , বাহাই , কাদিয়ানী ইত্যাদি যাবতীয় ফিতনার সাথে তাবলীগের যে সংযুক্তি দেখিয়েছেন সে প্রসংঙ্গে

খারিজী, রাফেজী, মুতাজিলা , ক্বাদারিয়া , জাবারিয়া , জাহমিয়া , চিশতিয়া , মুজাদ্দেদীয়া , সাহরাওয়ার্দিয়া , আজমেরী, রেযাখানী , বাহাই , কাদিয়ানী ইত্যাদির যে সংঙ্গা দিয়েছেন তার সাথে তাবলীগের মিল নেই।

কবরপূজা , দরগাহপূজা, নাবীদের জন্মদিবস পালনের সাথেও তাবলীগের সম্পর্ক নেই।

একটি .....

টি মন্তব্য  |  বিস্তারিত >>

ইসলামী শিক্ষার গুরুত্ব ও তাৎপর্য

লিখেছেন: ' kawsartex' @ মঙ্গলবার, জানুয়ারি ১, ২০১৩ (১২:৩৯ পূর্বাহ্ণ)

ইলম আরবী শব্দ। এর আভিধানিক অর্থ হলো জ্ঞান বা শিক্ষা (Knowledge বা Education)। ইসলামী শিক্ষা তথা কুরআনী শিক্ষার প্রতি গুরুত্বারোপ করে আল্লাহ তা‘আলা একদল লোককে এর জন্য নিয়োজিত হবার নির্দেশ দেন। ইরশাদ করেন,

[ فَلَوۡلَا نَفَرَ مِن كُلِّ فِرۡقَةٖ مِّنۡهُمۡ طَآئِفَةٞ لِّيَتَفَقَّهُواْ فِي ٱلدِّينِ وَلِيُنذِرُواْ قَوۡمَهُمۡ إِذَا رَجَعُوٓاْ إِلَيۡهِمۡ لَعَلَّهُمۡ يَحۡذَرُونَ ١٢٢﴾ [التوبة : ٢٢١]

‘অতঃপর তাদের প্রতিটি দল থেকে কিছু লোক কেন বের হয় না, যাতে তারা দীনের গভীর জ্ঞান আহরণ করতে পারে এবং আপন সম্প্রদায় যখন তাদের নিকট .....

টি মন্তব্য  |  বিস্তারিত >>

ইসলামী শিক্ষার উদ্দেশ্য

লিখেছেন: ' kawsartex' @ মঙ্গলবার, জানুয়ারি ১, ২০১৩ (১২:২৭ পূর্বাহ্ণ)

ইসলামী শিক্ষা বলতে আসলে কুরআন-সুন্নাহর শিক্ষাকেই বুঝানো হচ্ছে। আর বলাবাহুল্য যে এ শিক্ষার চূড়ান্ত উদ্দেশ্য দুনিয়া ও আখিরাতের সর্বেসর্বা আল্লাহর পরিচয় লাভ করা। আল্লাহর পরিচয় এবং তাঁর কাছে জবাবদিহিতার ভয় তথা তাকওয়াই পারে মানুষকে মানুষ বানাতে। একজন মুত্তাকী বা আল্লাহভীরু ব্যক্তি লোকসমাজে শিক্ষিত বা অশিক্ষিত যা বলেই গণ্য হোন না কেন, তাঁর হাতে কেউ অনিষ্টের শিকার হবে না। তিনি যেদিকেই যাবেন শুধু আলোই ছড়াবেন। তাঁর হাত ও মুখের অনিষ্ট থেকে পরিবেশ, প্রতিবেশি ও প্রাণীকুল- সবই নিরাপদ থাকবে। তাঁর মহানুভতার কাছে .....

টি মন্তব্য  |  বিস্তারিত >>

ব্লগ এবং ব্লগারের ভবিষ্যতের জন্য একটি পরিক্ল্পনা (সকলেই মত দিবেন আশা করি , হ্যা/না )

লিখেছেন: ' kawsartex' @ রবিবার, ডিসেম্বর ৯, ২০১২ (৮:০৪ পূর্বাহ্ণ)

একটি ভাবনা: ভাবনাটি হল– আপনার আমার জীবনের স্বাভাবিক মৃত্যুর কোন নিশ্চয়তা ? ঘর থেকে বের হলাম হয়ত এই গ্রাম ছেড়ে কোন কাজে ঢাকায় যাব। বাসটি একটি এক্সিডেন্টে পড়ে গেল খাদে অন্যদের মাঝে আমারও হল সেই রকম কোন পরিনতি- যা বর্তমান বাংলাদেশে অহরহই ঘঠে।

তারপর: কি হবে? এই যে ….. 2 বছর 4 মাস হতে চলল অনেক ব্লগারের ভিড়ে আমি এক নগন্য মানব সন্তান ঘন্টার পর ঘন্টা বসে পড়ি’ ব্লগের লেখাগুলি। কখনও কখনও দুচার কথা লিখিও- ফলে ঘুমোতে গিয়েও ভাবি-কেউ হয়ত .....

টি মন্তব্য  |  বিস্তারিত >>

আমার ক্ষিপ্ত মুসলিম যুবক ভাইদের প্রতি

লিখেছেন: ' kawsartex' @ রবিবার, নভেম্বর ৪, ২০১২ (১১:১২ অপরাহ্ণ)

মহানবী (সাঃ) কে নিয়ে ব্যঙ্গাত্মক চলচ্চিত্র নির্মাণ ও ইউটিউবে সেটার ভিডিও প্রকাশের প্রতিক্রিয়ায় যখন সমগ্র মুসলিম বিশ্ব উত্তপ্ত, তখন উস্তাদ নুমান আলী খান আমেরিকার একটি মসজিদে মুসলিম যুবক ভাইদেরকে উদ্দেশ্য করে এই চমৎকার খুৎবা প্রদান করেন। খুৎবার অনুলিপি বিশেষ করে ILoveAllaah.com এবং QuranerAlo.com এর পাঠকদের জন্য উপহার স্বরূপ প্রবন্ধাকারে উপস্থাপন করা হয়। মূল বক্তৃতা ও অনুলিপিতে সামান্য কিছু পার্থক্য থাকতে পারে। আশা করি পাঠকবৃন্দ সেই ত্রুটি ক্ষমা সুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন।

(আল্লাহর কাছে দোয়া প্রার্থনা, রাসুল ও নবীগনের প্রতি সালাম জানিয়ে .....

টি মন্তব্য  |  বিস্তারিত >>

ক্রিকেটার সাঈদ আনোয়ারের বয়ান

লিখেছেন: ' kawsartex' @ সোমবার, সেপ্টেম্বর ১৭, ২০১২ (৭:২৩ পূর্বাহ্ণ)

লিখেছেন: নীরব পাঠক

দুনিয়াতে প্রত্যেক মানুষ কামিয়াব হতে চায়, আল্লাহ তায়ালাও তাকে কামিয়াব করতে চান। কিন্তু একপ্রকার কামিয়াবী মানবীয় দৃষ্টিভঙ্গিতে আর একপ্রকার কামিয়াবী আল্লাহ ও তাঁর রাসুল (সাঃ) এর অনুসরনের মাধ্যমে। মানুষ আজ দুনিয়ার মধ্যে দৌড় লাগাচ্ছে, মাল জমা করছে, আসবাব জমা করার জন্য, রাস্ট্র, সম্পদ, ঘর, বাহন, বেশীর চেয়ে বেশী বাহ্যিক জিন্দেগী। কিন্তু যাদের দুনিয়া অর্জিত হয়েছে, আল্লাহ এসব লোকদের ব্যর্থ করেছেন। কুরআনে এদের ঘটনা শুনিয়েছেন, যারা দুনিয়ার জিন্দেগী বানানোর প্রচেষ্টা চালিয়েছেন। শুধু ঐ বাচবে যে অন্তরের উপর মেহনত করবে। .....

টি মন্তব্য  |  বিস্তারিত >>

পর্দার গুরুত্ব ও প্রয়োজনীয়তা

লিখেছেন: ' kawsartex' @ মঙ্গলবার, জুলাই ১৭, ২০১২ (৪:০২ অপরাহ্ণ)

লেখক: মাওলানা আব্দুস সালাম সুনামগঞ্জী

নারীকে হাদীস শরীফে ‘আওরত’ বলা হয়। আওরত শব্দের অর্থ – গুপ্ত বা আবৃত। সুতরাং নারীর নামেই বুঝা যায় – নারীর জন্য পর্দা আবশ্যকীয়। পারিপার্শ্বিকতার বিবেচনায় বিবেকের দাবীও তাই। তেমনি শরীয়তে নারীর জন্য পর্দাকে ফরজ করা হয়েছে।

পবিত্র কুরআনে পর্দার নির্দেশ

আল্লাহ তা‘আলা ইরশাদ করেন : “(হে নারীগণ!) তোমরা তোমাদের ঘরের (বাড়ীর চতুর্সীমানার) ভিতর অবস্থান কর এবং বাইরে বের হয়োনা – যেমন ইসলামপূর্ব জাহিলী যুগের মেয়েরা বের হত।” (সূরাহ আহযাব, আয়াত : ৪৩)

আল্লাহ তা‘আলা আরো ইরশাদ করেন : “(হে .....

টি মন্তব্য  |  বিস্তারিত >>

মুসলিমদের বর্তমান পরিস্থিতি সম্পর্কে হাদিস

লিখেছেন: ' kawsartex' @ সোমবার, জুলাই ২, ২০১২ (৫:০৫ অপরাহ্ণ)

এক হাদিসে রসুলুল্লহ সল্লাল্ল-হু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন “অতি শীঘ্র এমন জমানা আসবে মানুষ তোমাদেরকে খেয়ে ফেলার জন্য একে অপরকে এমন ভাবে দাওয়াত দিবে, যেমন খাওয়ার দস্তরখানে বসে একে অপরকে আপ্যায়ন করে ।”
সাহাবায়ে কেরাম (রা:) আরজ করলেন ইয়া রসুলুল্লহ (সল্লাল্ল-হু আলাইহি ওয়া সাল্লাম) ! তখন কি আমাদের সংখ্যা অনেক কম থাকবে? রসুলুল্লহ (সল্লাল্ল-হু আলাইহি ওয়া সাল্লাম) বললেন “না, তোমাদের সংখ্যা ঐ জমানায় অনেক বেশী হবে; কিন্তু তোমরা ঐ জমানায় বন্যার পানিতে ভাসমান ফেনার মত হবে, তোমাদের দুশমনদের অন্তর থেকে .....

টি মন্তব্য  |  বিস্তারিত >>