লগইন রেজিস্ট্রেশন

লেখক আর্কাইভ

 

‘বিদ’আতে হাসানাহ’ অর্থাৎ নামাযের পূর্বে মুখে উচ্চারিত নিয়্যাত কোথা থেকে এল?

লিখেছেন: ' মামুন' @ শুক্রবার, জানুয়ারি ১৫, ২০১০ (১২:৪৩ অপরাহ্ণ)

আমার গত পোষ্টটি ছিল বিদ’আত নিয়ে, আমরা প্রতিনিয়ত এই অদৃশ্য ফাঁদে পা রাখছি অথচ একটু সচেতন হলেই পার পেতে পারি সেই ভয়ঙ্কর আযাব থেকে! সকল বিদ’আতই গোমরাহী এবং ভ্রষ্টতা যার পরি নাম জাহান্নাম। বিদ’আতকে হাসানা বলা আরেকটি বিদ’আত! যেমন ধরুনঃ চুরি করা মহাপাপ, এখন আমি যদি মসজিদ থেকে কোরআনশরীফ চুরি করে নিয়ে বলি, এটা চুরিয়ে হাসানা অর্থাৎ উত্তম চুরি তাহলে কি আমি পাপের শাস্তিথেকে মুক্তি পাব? অর্থাৎ পাপ সারাজীবন পাপই এখানে উত্তম পাপ বা খারাপ বলে আত্মতৃপ্তি পাওয়ার কোন মানে .....

টি মন্তব্য  |  বিস্তারিত >>

“সকল প্রকার বিদ’আতই গোমরাহী ও ভ্রষ্টতা এবং প্রত্যেক প্রকার ভ্রষ্টতার পরিনামই জাহান্নাম।”

লিখেছেন: ' মামুন' @ বৃহস্পতিবার, জানুয়ারি ১৪, ২০১০ (১১:৩৩ পূর্বাহ্ণ)

বিসমিল্লাহির রহমানির রাহীম

বিদ’আত কাকে বলে এ বিষয়ে অনেকেরই স্পষ্ট ধারণা নেই। অনেকের ধারণা যা আল্লাহর রাসূল (সাঃ) এর যুগে ছিল না তা-ই বিদ’আত। আবার অনেকে মনে করেন বর্তমান নিয়মতান্ত্রিক মাদ্রাসা শিক্ষা পদ্ধতি একটি বিদ’আত, বিমানে হজ্জে যাওয়া বিদ’আত, মাইকে আজান দেয়া বিদ’আত ইত্যাদি। এ সকল দিক থেকে বিবেচনা করে তারা বিদ’আতকে নিজেদের খেয়াল খুশি কত দুই ভাগে ভাগ করে কোনটাকে হাসানাহ (ভাল বিদ’আত) আবার কোনটাকে সাইয়্যেআহ (মন্দ বিদ’আত) বলে চালিয়ে দেন। আসলে বিদ’আত সম্পর্কে সঠিক ধারণা না থাকার কারণে এ .....

টি মন্তব্য  |  বিস্তারিত >>

একের মধ্যে তিন!

লিখেছেন: ' মামুন' @ বৃহস্পতিবার, জানুয়ারি ১৪, ২০১০ (৩:৪৪ পূর্বাহ্ণ)

বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহীম
সাহাবীদের মধ্যেও কিছু লোক বিদ’আতী ছিলেনঃ
“আব্দুল্লাহ ইবন মাসউদ (রাঃ) থেকে বর্ণিত, নাবী (সাঃ) বলেছেনঃ আমি হাউযে কাউসারে তোমাদের অগ্রগামী প্রতিনিধি, তোমাদের মধ্যকার কিছু ব্যক্তিকে উপস্থাপন করা হবে (আমার সম্মুখে) তারপর তাদেরকে আমার নিকট থেকে টেনে-হিঁচড়ে নিয়ে যাওয়া হবে। আমি বলবঃ হে আমার রব্ব! এরা তো আমার সাহাবী (উম্মাত)। আমাকে বলা হবেঃ তুমি জান না, তোমার অবর্তমানে তারা কত নতুন কাজ (বিদ’আত) করেছে। তখন আমি বলবঃ যারা আমার পরে আমার দ্বীনের পরিবর্তন ঘটিয়েছো তারা দুর হও, দুর .....

টি মন্তব্য  |  বিস্তারিত >>

কিয়ামতের পূর্বে যা ঘটবে

লিখেছেন: ' মামুন' @ বুধবার, জানুয়ারি ১৩, ২০১০ (১২:৪০ অপরাহ্ণ)

“বিসমিল্লাহির রহমানির রাহিম”
কিয়ামতের পূর্বে যে সকল আলামত দেখা যাবে, সহীহ হাদীস অনুসারে তার কয়েকটির বিবরণ নিম্নে উল্লেখ করা হলোঃ
(০১) আবূ হুরাইরা (রাঃ) বলেন, রাসূলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেন, যখন গানীমাতের মালকে ব্যক্তিগত সম্পদরূপে ব্যবহার করা হবে, আমানাতকে গানীমাতের মাল মনে করা হবে, যাকাতকে জরিমানা ধারণা করা হবে, দ্বীন ব্যতীত অন্য উদ্দেশ্যে ইলম হাসিল করা হবে, পুরুষ তার স্ত্রীর আনুগত্য করবে এবং মায়ের নাফারমানী করবে এবং বন্ধুকে খুব নিকটে স্থান দিবে, এবং আপন পিতাকে দূরে সরিয়ে রাখবে, মাসজিদসমূহে শোরগোল করা .....

১০ টি মন্তব্য  |  বিস্তারিত >>

কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ হাদীস

লিখেছেন: ' মামুন' @ রবিবার, জানুয়ারি ১০, ২০১০ (৫:৩২ পূর্বাহ্ণ)

বিসমিল্লাহির রহমানির রাহিম

০১) আবূ হুরাইরা (রাঃ) থেকে বর্ণিত, নাবী (সাঃ) বলেছেন, আল্লাহ তা’আলা বলেনঃ কিছু সংখ্যক মানুষ আমার প্রতি মিথ্যা আরোপ করেছে, অথচ তাদের জন্য এরূপ করা উচিৎ নয়, কিছু সংখ্যক মানুষ আমাকে গালি দিয়েছে, অথচ তাদের এরূপ করা উচিৎ হয়নি, আমার উপর তাদের মিথ্যা আরোপ করা হল এই যে, তারা বলেঃ আল্লাহ আমাদেরকে সৃষ্টি করেছেন, কিন্তু পুনরায় তিনি আর জীবিত করবেন না; অথচ তাদেরকে পুনরায় জীবিত করার চেয়ে প্রথমবার সৃষ্টি করা আমার জন্য সহজ ছিলনা। আমাকে তাদের গালি দেয়া .....

টি মন্তব্য  |  বিস্তারিত >>

শাফায়াত বা সুপারিশ সম্বন্ধে আল্লাহর নির্দেশ

লিখেছেন: ' মামুন' @ বৃহস্পতিবার, জানুয়ারি ৭, ২০১০ (৮:৩৫ পূর্বাহ্ণ)

বিসমিল্লাহির রহমানির রাহিম

পাক কুরআনে মহান আল্লাহ তা’আলা বলেনঃ
০১) এমন কে আছে যে আল্লাহর অনুমতি ব্যতীত সুপারিশ করবে? (সূরা বাকারা, ২ঃ২৫৫)
০২) সেদিন শাফায়াত কার্যকর হবে না, অবশ্য স্বয়ং রহমান কাউকে উহার অনুমতি দিলে এবং তার কথা শুনতে পছন্দ করলে অন্য কথা। (সূরা ত্বাহা, ২০ঃ১০৯)
০৩) সুপারিশ বা শাফায়াতকারী .....

টি মন্তব্য  |  বিস্তারিত >>

বিশুদ্ধ হাদীসের বিপরীতে অন্ধভাবে মাযহাব পালনের বাস্তব উদাহরণঃ পর্ব-০২

লিখেছেন: ' মামুন' @ বুধবার, জানুয়ারি ৬, ২০১০ (৮:৪৬ পূর্বাহ্ণ)

.....

টি মন্তব্য  |  বিস্তারিত >>

বিশুদ্ধ হাদীসের বিপরীতে অন্ধভাবে মাযহাব পালনের বাস্তব উদাহরণঃ পর্ব-০১

লিখেছেন: ' মামুন' @ বুধবার, জানুয়ারি ৬, ২০১০ (৭:৩২ পূর্বাহ্ণ)

বিসমিল্লাহির রাহমানির .....

১৬ টি মন্তব্য  |  বিস্তারিত >>

“হাদীসে কুদুসী” পর্ব-০১

লিখেছেন: ' মামুন' @ মঙ্গলবার, জানুয়ারি ৫, ২০১০ (৪:২৬ পূর্বাহ্ণ)

আসুন প্রথমেই আলোচনা করা যাক হাদীসে কুদুসী বলতে আমরা কি বুঝি?
কুদুস শব্দের অর্থ পুতঃপবিত্র, যেমন ‘বাইতুল মাকদাস’ এখানে মাকদাস অর্থ পবিত্র। যেমন হাদীসে এসেছেঃ সুব্বুহুন কুদ্দুসুন- এখানে কুদ্দুসুন শব্দের অর্থ পুতঃপবিত্র, আর হাদীসের সাথে “কুদুস” যোগ করার অর্থ হলো এটি আল্লাহর সাথে সম্পৃক্ত, এই ‘কুদুস’ তাঁর আসমাউল হুসনা- উত্তম নামসমূহের অন্তর্ভূক্ত। যেহেতু তিনি সকল প্রকার দোষত্রুনি ও অসম্পূর্ণতা থেকে পুতঃপবিত্র। অতএব হাদীসে কুদুসীর সংজ্ঞা হলোঃ আল্লাহ সুবহানাহুর বাণী তাঁর নাবী মুহাম্মাদ (সঃ) এর নিকট ইলহাম বা স্বপ্নের মাধ্যমে বা .....

টি মন্তব্য  |  বিস্তারিত >>

মৃত ব্যক্তিরা নিজেদের কিংবা অন্য কারো জন্য কিছু করার মতা রাখে না।

লিখেছেন: ' মামুন' @ রবিবার, জানুয়ারি ৩, ২০১০ (৪:১৪ পূর্বাহ্ণ)

সর্ব শক্তিমান আল্লাহ তা’আলা কুরআনে বলেনঃ

১। হে নবী! মৃত ব্যক্তিকে তুমি কোন কথা (কোন আহ্বান) শুনাতে পারবে না। (সূরা নামল, ২৭ঃ৮০)

২। হে নবী! তোমার সাধ্য নেই যে, তুমি মৃত ব্যক্তিকে কিছু শোনাবে। (সূরা রুম, ৩০ঃ৫২)

৩। জীবিত ও মৃত সমান হতে পারে না, আল্লাহ যাকে চান শুনার, হে নবী! তুমি সেই লোকদেরক শুনাতে পার না যারা ক্ববর সমূহে দাফন হয়ে রয়েছে। (সূরা ফাতির, ৩৫ঃ২২)

৪। তার চেয়ে বেশী গোমরাহী কে হতে পারে যে আল্লাহকে বাদ দিয়ে যাকে ডাকছে সি কিয়ামত পর্যন্ত তার .....

১৪ টি মন্তব্য  |  বিস্তারিত >>