লগইন রেজিস্ট্রেশন

লেখক আর্কাইভ

 

কারবালার নরপশু ইয়াজিদ লা’নাতুল্লাহি আলাইহি-এর বন্দনায় কাফির জোকার নায়েক

লিখেছেন: ' তুষার (ﭡﺸر)' @ শুক্রবার, জানুয়ারি ১, ২০১০ (৯:২৮ অপরাহ্ণ)

ভারতের তথাকথিত জাকির নায়েক ওরফে জোকার নায়েক একজন উচুদরের কাফির। কারণ সে বিভিন্ন সময় কারবালার জিহাদকে “Political Battle” বলে উল্লেখ করেছে। অথচ ইতিহাস ভিন্ন কথা বলে। ইতিহাস মতে, হযরত ইমাম হুসাইন রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু হক্বকে প্রতিষ্ঠা করার জন্য নিজের জীবন কারবালার ময়দানে দান করে শাহাদাৎ বরণ করেছেন। জোকার নায়েক কারবালার ময়াদানের ঘৃনিত পশু ইয়াজিদের নামের শেষে “রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু” উচ্চারণ করে থাকে। অথচ কুরআন শরীফ-এর সূরা নিসার ৯৩ নম্বর আয়াত শরীফ-এর ইরশাদ হয়েছে, “যে ব্যাক্তি স্বেচ্ছায় কোন মু’মিনকে কতল করে .....

৪৬ টি মন্তব্য  |  বিস্তারিত >>

আশূরা ও আক্বাইদ

লিখেছেন: ' তুষার (ﭡﺸر)' @ রবিবার, ডিসেম্বর ২৭, ২০০৯ (৪:১১ পূর্বাহ্ণ)

আরবী (হিজরী) বছরের প্রথম মাস হচ্ছে মুহর্‌রম মাস। এই মুহর্‌রম মাসের ১০ তারিখ হচ্ছে আশূরা। আশূরার নামকরণের ব্যাপারে উলামায়ে কিরাম রহমতুল্লাহি আলাইহিমগণ বিভিন্ন মত পোষণ করেন। তবে অধিকাংশ উলামায়ে কিরাম রহ্‌মতুল্লাহি আলাইহিম বলেন যে, এ দিনটি মুহর্‌রম মাসের ১০ তারিখ বলেই এটার নাম ‘আশূরা’ হয়েছে। কোন কোন আলিম বলেন যে, আল্লাহ পাক উম্মতে হাবীবী ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে যে দশটি বুযূর্গ দিন উপহার দিয়েছেন, তন্মধ্যে আশূরার দিনটি ১০ম স্থানীয়। এ কারণেই এটার নাম ‘আশূরা’ রাখা হয়েছে। আবার কারো মত এই .....

টি মন্তব্য  |  বিস্তারিত >>

কদমবুছী খাছ সুন্নত

লিখেছেন: ' তুষার (ﭡﺸر)' @ শনিবার, ডিসেম্বর ১৯, ২০০৯ (১:৩০ অপরাহ্ণ)

কদমবুছীর সংজ্ঞাঃ “কদমবুছী” (بوسي قدم)-এর “কদম” (قدم) শব্দটি আরবী যার অর্থ “পা”, আর “বুছী” (بوسي) শব্দটি ফার্সী যার অর্থ “চুম্বন করা”। সুতরাং “কদমবুছী” অর্থ হলো “পায়ে চুম্বন করা”। অর্থাৎ সরাসরি মুখ দিয়ে পায়ে চুম্বন দেয়াকে “কদমবুছী” বলে। কিন্তু প্রচলিত অর্থে কদমবুছী বলতে আমাদের দেশে হাত দিয়ে পা স্পর্শ করে হাতে চুমু খাওয়ার যে প্রচলন তা মূলতঃ কদমবুছী নয় বরং তা দস্তবুছী।
কদমবুছীর প্রকৃষ্ট উদাহরণ দেখিয়েছেন হযরত ছাহাবায়ে কিরাম রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুমগণ। আখিরী রসূল, সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ্‌, .....

১৯ টি মন্তব্য  |  বিস্তারিত >>

***বিধর্মীদের শব্দ বিভ্রান্তি ও ষড়যন্ত্র***

লিখেছেন: ' তুষার (ﭡﺸر)' @ শনিবার, ডিসেম্বর ১২, ২০০৯ (৪:০৮ পূর্বাহ্ণ)

cocacola

শব্দ ব্যবহারের কুচিন্তায় যোগসাধনের ষড়যন্ত্র ইহুদী-নাছারাদের ঐতিহ্যগত প্রবৃত্তি। স্বয়ং রসূলে পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-এর সময়ও ইহুদী-নাছারাদের এরূপ ষড়যন্ত্রের জাল বিস্তার ছিল।
কুরআন শরীফ-এ ইরশাদ হয়েছে, “হে ঈমানদারগণ! তোমরা রঈনা বলোনা, উনজুরনা বল এবং শ্রবণ কর। আর কাফিরদের জন্য রয়েছে কঠিন শাস্তি।” (সূরা বাক্বারা ১০৪)
এই আয়াত শরীফ-এর শানে নূযুলে বলা হয়েছে, ইহুদীরা রসূলে পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে কষ্ট দেবার জন্য “রঈনা” শব্দ ব্যবহার করত যার একাধিক অর্থ রয়েছ। একটি অর্থ হল “আমাদের দিকে লক্ষ্য করুন” যা ভাল অর্থে .....

টি মন্তব্য  |  বিস্তারিত >>

সংক্ষিপ্তাকারে দরূদ শরীফ লিখা বৈধ নয়

লিখেছেন: ' তুষার (ﭡﺸر)' @ মঙ্গলবার, ডিসেম্বর ৮, ২০০৯ (৩:২০ পূর্বাহ্ণ)

সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, খতামুন্‌ নবিয়্যীন, হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-এর নাম মুবারক শুনে জীবনে একবার দরূদ শরীফ পাঠ করা ফরজ। একই মজলিসে একাধিকবার নাম মুবারক উচ্চারিত হলে একবার দরূদ শরীফ পাঠ করা ওয়াজিব, আর প্রতিবারই দরূদ শরীফ পাঠ করা মুস্তাহাব।

তদ্রুপ শরীয়তের হুকুম হচ্ছে আল্লাহ পাক-এর রসূল, সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, খতামুন্‌ নবিয়্যীন, হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-এর নাম মুবারক লিখার সময় সম্পূর্ণ দরূদ শরীফ লিখা ওয়াজিব। এক্ষেত্রে যদি কেউ সংক্ষেপে (সাঃ) বা (দঃ) লিখে তবে তা হবে .....

৩৫ টি মন্তব্য  |  বিস্তারিত >>

যামানার মুজাদ্দিদ ও ইমাম

লিখেছেন: ' তুষার (ﭡﺸر)' @ মঙ্গলবার, ডিসেম্বর ১, ২০০৯ (৬:৫৫ পূর্বাহ্ণ)

মহান আল্লাহ পাক মানব ও জ্বিন জাতির হিদায়েতের জন্য যমীনে হাদী পাঠান। এ প্রসঙ্গে কুরআন শরীফে ইরশাদ হয়েছে, “প্রত্যেক ক্বওমের জন্যই হাদী বা হিদায়েতকারী রয়েছে” (সূরা রা’দঃ ৭) তাই পৃথিবীতে একলক্ষ চব্বিশ হাজার মতান্তরে দুইলক্ষ চব্বিশ হাজার নবী-রসূল আলাইহিছ ছলাতু ওয়াস সালাম হাদী হিসেবে আগমন করেছেন। সর্বশেষে আগমন করেছেন, আখেরী রসূল হাবীবুল্লাহ হুজুর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম। তাঁর পর পৃথিবীতে আর কোন নবী-রসূল আলাইহিমুস সালাম আগমন করবেন না। তাই ছহীহ্ দ্বীন তথা শরীয়তের আক্বীদা ও আমল মানুষের নিকট পৌঁছে .....

৫৮ টি মন্তব্য  |  বিস্তারিত >>

এ বছর হজ্জ নষ্টের উদ্দেশ্যে সৌদী ওহাবী সরকার কর্তৃক চাঁদের তারিখ হের-ফের-এর প্রমাণ

লিখেছেন: ' তুষার (ﭡﺸر)' @ মঙ্গলবার, নভেম্বর ২৪, ২০০৯ (১২:৩৫ অপরাহ্ণ)

অমাবস্যা সংঘটনের চিত্র

“সৌদী ওহাবী সরকার কর্তৃক চাঁদের তারিখ হের-ফের করার প্রমাণ”-বিষয়টি তুলে ধরার পূর্বে নিচের বিষয়গুলো আলোচনা করা একান্ত জরুরী বিধায় তা তুলে ধরলামঃ
New Moon আসলে নতুন চাঁদ নয়ঃ ইংরেজিতে অমাবস্যাকে New Moon বলে। New Moon এর অভিধানিক অর্থ অমাবস্যা হলেও সাধারণ মানুষ এর অর্থ মনে করে থাকে নতুন চাঁদ। বিভিন্ন অনুবাদ গ্রন্থেও New Moon এর অর্থ নতুন চাঁদ হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে। তাই New Moon শব্দটির পরিবর্তন হওয়া একান্ত প্রয়োজন। অনেক মহাকাশ বিজ্ঞানী কখনো কখনো New Moon এর পরিবর্তে No .....

৪৬ টি মন্তব্য  |  বিস্তারিত >>

প্রচলিত তাবলীগ জামায়াতের ভ্রান্ত আক্বীদা ও তার খন্ডন (১)

লিখেছেন: ' তুষার (ﭡﺸر)' @ সোমবার, নভেম্বর ২৩, ২০০৯ (১০:২৫ অপরাহ্ণ)

প্রচলিত ৬ উছূলভিত্তিক তাবলীগ জামায়াতের লোকদের লিখিত কিতাবে এ কথা উল্লেখ আছে যে, মূর্খ হোক, আলিম হোক, ধনী হোক, দরিদ্র হোক, সকল পেশার সকল মুসলমানের জন্য তাবলীগ করা ফরজে আইন।
(হযরতজীর মালফুজাত-৪, পৃষ্ঠা-৭, অনুবাদক- মাওলানা ছাখাওয়াত উল্লাহ; তাবলীগ গোটা উম্মতের গুরু দায়িত্ব, পৃষ্ঠা-৫৬, অনুবাদক- ইসমাঈল হোসেন; তাবলীগে ইসলাম, পৃষ্ঠা-৩, লেখক- মাওলানা আব্দুস সাত্তার ত্রিশালী; পস্তী কা ওয়াহিদ এলাজ, লেখক- মাওলানা এহ্‌তেশামুল হাসান কান্দলবী, পৃষ্ঠা-২২)
****************************************************************************************************************
তাদের উপরোক্ত বক্তব্যের প্রেক্ষিতে প্রশ্ন জাগে, তাবলীগ করা কি- ফরজে আইন নাকি ফরজে কিফায়া? কেননা-
.....

টি মন্তব্য  |  বিস্তারিত >>

বাতিল ফিরক্বাহ

লিখেছেন: ' তুষার (ﭡﺸر)' @ সোমবার, নভেম্বর ২৩, ২০০৯ (৬:৪১ পূর্বাহ্ণ)

কুফরী আক্বীদা যারা বিশ্বাস করে তারা কস্মিনকালেও আহলে সুন্নত ওয়াল জামায়াতের অন্তর্ভুক্ত হতে পারেনা বরং তারা ৭২টি বাতিল ফিরক্বাহর অন্তর্ভুক্ত।এ প্রসঙ্গে হাদীস শরীফে ইরশাদ হয়েছে,
“আমার উম্মত ৭৩ দলে বিভক্ত হবে, একটি দল ব্যতীত ৭২টি দলই জাহান্নামে যাবে। তখন হযরত সাহাবা-ই-কিরাম রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুমগণ বললেন, ইয়া রাসূলাল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম! যে একটি দল নাযাত প্রাপ্ত, সে দলটি কোন দল? হুজুর পাক সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন, আমি এবং আমার সাহাবা রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুমগণের মত ও পথের উপর যারা কায়েম .....

টি মন্তব্য  |  বিস্তারিত >>

আহলে সুন্নত ওয়াল জামায়াতের আক্বীদা-১ (হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম হায়াতুন নবী)

লিখেছেন: ' তুষার (ﭡﺸر)' @ শুক্রবার, নভেম্বর ২০, ২০০৯ (৮:৫৫ অপরাহ্ণ)

আহলে সুন্নত ওয়াল জামায়াতের আক্বীদা হল সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, খতামুন্‌ নাবিয়্যীন, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম হায়াতুন নবী। মহান আল্লাহ পাক ইরশাদ করেন, “যারা আল্লাহ পাক-এর রাস্তায় শহীদ হয়েছেন তোমরা তাদেরকে মৃত বলো না। বরং তারা জীবিত। অথচ তোমরা তা উপলব্ধি করতে পারছো না।” (সূরা বাক্বারা/১৫৪)
আর ওলীআল্লাহগণের শানেও বলা হয়েছে, “ওলীআল্লাহগণ মৃত্যুবরণ করেন না। বরং তারা অস্থায়ী জগৎ থেকে স্থায়ী জগতের দিকে প্রত্যাবর্তন করেন।” (মিরকাত ৩য় খণ্ড, ২৪১ পৃষ্ঠা)। এছাড়া সমস্ত নবী-রসূল আলাইহিমুস্‌ সালামগণও স্বীয় রওযা .....

২৮ টি মন্তব্য  |  বিস্তারিত >>