লগইন রেজিস্ট্রেশন

হাশরের ময়দানে যে সাত শ্রেণীর ব্যক্তিকে অারশের ছায় প্রদান করা হবে।

লিখেছেন: ' বাগেরহাট' @ বৃহস্পতিবার, ডিসেম্বর ২৪, ২০০৯ (৮:৫৩ পূর্বাহ্ণ)

বিসমিল্লাহির রহমানির রহিম।’

ভয়ানক কঠিন রোজ হাশরের ময়দানে যখন সকল মানুষ তার স্ব-স্ব
বিচারের প্রতীক্ষায় অপেক্ষা করতে থাকবে বছরের পর বছর, সেদিনের সেই উম্মুক্ত ময়দানে থাকবে না কোন সামিয়ানা, থাকবে না কোন সাহায্য
কারী , থাকবে না কোন বন্ধু থাকবে শুধু দুনিয়ায় করে যাওয়া সৎ আমল।
সেই আমলের বিনিময়ে মহান আল্লাহ প্রাথমিক পুরষ্কার হিসাবে দান করবেন তার আরশে ‘আজীমের ছায়া।

হযরত আবু হুরায়রা (রাঃ) বলেন, রসুল (সঃ) বলেছেন, সাত প্রকার লোককে আল্লাহ তা’য়ালা হাশর ময়দানে নিজের আরশের ছায়ায় স্থান দেবেন। যখন সে ছাড়া আর কোন ছায়া থাকবে না। তারা হলেনঃ
(১) মুসলমানদের সুবিচারক ও ইনসাফগার শাসক ও বাদশা।
(২) সেই যুবক যে আল্লাহ তা’য়ালার বন্দেগীতে জীবন অতিবাহিত করেছেন।
(*৩) যে ব্যক্তির অন্তর মাসজিদ থেকে বের হওয়ার পর পুনরায় মাসজিদে প্রবেশ না করা পর্যন্ত মাসজিদের সাথেই সংশ্লিষ্ট থাকে। অর্থাৎ তার অন্তর থাকে মাসজিদে, দেহ থাকে বাইরে।
(৪) যে দু’ব্যক্তি আল্লাহর জন্য একে অপরকে ভালোবাসেন এবং সেই মহব্বতের জন্যই তারা একত্রিত হন। এবং সেই মহব্বতের কথা স্মরণ
রেখেই পরস্পর থেকে পৃথক হন।
(৫)যে ব্যক্তি নিভৃতে একাকী অবস্থায় আল্লাহর যিকির করে এবং তার ভয়ে নয়ন যুগল হতে অশ্রু প্রবাহিত হয়।
(৬)যে ব্যক্তিকে কোন পরমাসুন্দরী ও অভিজাত শ্রেণীর মহিলা
ব্যভিচারের জন্য আহ্বান জানালে সে সুস্পষ্টভাবে এ জওয়াব দেয় যে, আমি আল্লাহ তা’য়ালাকে ভয় করি।
(৭) যে ব্যক্তি এমন সংগোপনে দান করে যে, তার বাম হাত জানেনা তার ডান হাত কি দান করেছে।

মহান আল্লাহর কাছে প্রর্থনা,তিনি যেন আমাদের সকলকে এই সাত শ্রেণীর বান্দা হিসাবে অর্ন্তভুক্ত করেন। আমীন।
মহান আল্লাহ যাকে ইচ্ছা তাকে সঠিক পথে পরিচালিত করেন।

Processing your request, Please wait....
  • Print this article!
  • Digg
  • Sphinn
  • del.icio.us
  • Facebook
  • Mixx
  • Google Bookmarks
  • LinkaGoGo
  • MSN Reporter
  • Twitter
১৩৫ বার পঠিত
1 Star2 Stars3 Stars4 Stars5 Stars ( ভোট, গড়:০.০০)

৩ টি মন্তব্য

  1. ধন্যবাদ।

    ভাই হাদীসের সুত্র-সনদ উল্লেখ করলে ভালো হতো। (F)

    জ্ঞান পিপাষু

    @দ্য মুসলিম,

    সহমত।

  2. ধন্যবাদ, সুন্দর পোষ্ট…….এ বিষয়ে আগেও শুনেছি। আপনার পোষ্ট পড়ে আবার মনে পড়ে গেলো।