লগইন রেজিস্ট্রেশন

রজম: একটি আলোচনা পোস্ট

লিখেছেন: ' সাদাত' @ রবিবার, মার্চ ১৪, ২০১০ (১:০৬ অপরাহ্ণ)

আল্লাহপাক বলেন:
আর ব্যভিচারের কাছেও যেয়ো না। নিশ্চয় এটা অশ্লীল কাজ এবং মন্দ পথ।[১৭:৩২]

যারা পছন্দ করে যে, ঈমানদারদের মধ্যে ব্যভিচার প্রসার লাভ করুক, তাদের জন্যে ইহাকাল ও পরকালে যন্ত্রণাদায়ক শাস্তি রয়েছে। আল্লাহ জানেন, তোমরা জান না।[২৪:১৯]

যারা মনে করেন ‘রজম’ ইসলামে ভুলভাবে ঢুকে পড়েছে, তারা একটু চিন্তা করুন,
শুধু ১০০ বেত্রাঘাত দ্বারা (তাও ৪জন পুরুষ সাক্ষী বা নিজের স্বীকারোক্তি পাওয়া গেলে বা গর্ভধারণের প্রমাণ পাওয়া গেলে) কি ব্যভিচারের প্রসার ব্ন্ধ করা আদৌ সম্ভব?

রজমের শাস্তি আসলে অনেকটা ভীতিপ্রদর্শনমূলক শাস্তি নয় কি?
বাস্তবক্ষেত্রে,
১. নেহায়েত চরম নির্লজ্জ না হলে ৪ জন পুরুষ সাক্ষী পাওয়া আদৌ কি সম্ভব?
২. এই যুগে কোন বিবাহিত মহিলা ব্যভিচার করতে পারে, আর গর্ভপাত করতে পারবে না, ব্যভিচারের আগে পরে গর্ভধারণ না করার ব্যবস্থা নিতে পারবে না, এটা কি আদৌ সম্ভব?
৩. এই যুগে ব্যভিচার করে রজমের শাস্তি গ্রহণের জন্য নিজে থেকে স্বীকারোক্তি করবে এমন আল্লাহর কোন বান্দা আছে কি?

আমার বিবেচনায় যা আসে:
‘রজম’ এমন এক শাস্তি যা মানুষকে ব্যভিচারের ব্যাপারে ভীতসন্ত্রস্ত করে তোলে যদিও বাস্তবে এর প্রয়োগ দু:সাধ্য এক কাজ।

‘রজম’ মানুষের বিধান নয়, কাজেই মানুষের বুদ্ধিতে তার উপযোগিতা নাও বুঝে আসতে পারে।
১. ৬০/৭০ বছরের কুফরির জন্য অনন্তকালের জাহান্নামের শাস্তি কি মানুষের বুঝে আসে?
২. ভূমিকম্প, ভূমিধ্বসের শাস্তি কি মানুষের বুঝে আসে?

যদি নাই আসে, তবে ‘রজম’ এর শাস্তি ও যে আমাদের বুঝে আসবে তা আশা করি কিভাবে?

রজমের শাস্তি কি বানরের শাস্তি? এই শাস্তি কি বাইবেল থেকে হাদিস ঢুকে পড়েছে?

আসুন, শুধু বুখারি আর মুসলিম শরীফ থেকে রজমের প্রমাণগুলো দেখি:

ইহুদি ব্যভিচারির ওপর রজম প্রয়োগের ঘটনা:

একজন পুরুষ এ নারী ইহুদি অবৈধ যৌনাচারে লিপ্ত হলে তাদেরকে বিচারের জন্য রাসূলুল্লাহ (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম) এর কাছে হাজির করা হয়। রাসূলুল্লাহ (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম) ইহুদিদের কাছে জানতে চান তওরাতে এর কী শাস্তি উল্লেখ করা আছে। তারা বেত্রাঘাত এবং অন্যান্য শাস্তির উল্রেখ করলেও রজমের কথা গোপন করল। রাসূলুল্লাহ (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম) জানতে চাইলেন তাওরাতে রজমের কথা তারা পায় কি না। তারা অস্বীকার করল। আব্দল্লাহ বিন সালাম ইহুদিদের মিখ্যাবাদী হিসেবে অভিযুক্ত করলেন এবং তাওরাত হতে রজমের আয়াত বের করে দেখালেন। এরপর ইহুদিরাও স্বীকার করল যে তাওরাতে রজমের আয়াত আছে। রাসূলুল্লাহ (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম) ব্যভিচারী দুইজনকে রজমের নির্দেশ দিলেন এবং বললেন: ‘হে আল্লাহ! আমিই আপনার বিধানের প্রথম পুনর্জীবিতকারী যখন তারা সে বিধানকে মৃত করে রেখেছিল।

লক্ষ করুন:
রাসূলুল্লাহ (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম) ‘রজম’কে পুনর্জীবিত করার দ্বারা সন্তোষ প্রকাশ করছেন।

[Bukhari Vol.4, Book 56, No.: 829 ]
Narrated ‘Abdullah bin ‘Umar:
The Jews came to Allah’s Apostle and told him that a man and a woman from amongst them had committed illegal sexual intercourse. Allah’s Apostle said to them, “”What do you find in the Torah (old Testament) about the legal punishment of Ar-Rajm (stoning)?”" They replied, (But) we announce their crime and lash them.”" Abdullah bin Salam said, “”You are telling a lie; Torah contains the order of Rajm.”" They brought and opened the Torah and one of them solaced his hand on the Verse of Rajm and read the verses preceding and following it. Abdullah bin Salam said to him, “”Lift your hand.”" When he lifted his hand, the Verse of Rajm was written there. They said, “”Muhammad has told the truth; the Torah has the Verse of Rajm. The Prophet then gave the order that both of them should be stoned to death. (’Abdullah bin ‘Umar said, “”I saw the man leaning over the woman to shelter her from the stones.”"”

[Bukhari Vol.6, Book 60, No.: 79 ]
Narrated ‘Abdullah bin Umar:
The Jews brought to the Prophet a man and a woman from among them who had committed illegal sexual intercourse. The Prophet said to them, “”How do you usually punish the one amongst you who has committed illegal sexual intercourse?”" They replied, “”We blacken their faces with coal and beat them,”" He said, “”Don’t you find the order of Ar-Rajm (i.e. stoning to death) in the Torah?”" They replied, “”We do not find anything in it.”" ‘Abdullah bin Salam (after hearing this conversation) said to them. “”You have told a lie! Bring here the Torah and recite it if you are truthful.”" (So the Jews brought the Torah). And the religious teacher who was teaching it to them, put his hand over the Verse of Ar-Rajm and started reading what was written above and below the place hidden with his hand, but he did not read the Verse of Ar-Rajm. ‘Abdullah bin Salam removed his (i.e. the teacher’s) hand from the Verse of Ar-Rajm and said, “”What is this?”" So when the Jews saw that Verse, they said, “”This is the Verse of Ar-Rajm.”" So the Prophet ordered the two adulterers to be stoned to death, and they were stoned to death near the place where biers used to be placed near the Mosque. I saw her companion (i.e. the adulterer) bowing over her so as to protect her from the stones.”

[Bukhari Vol.8, Book 82, No.: 809 ]
Narrated Ibn ‘Umar:
A Jew and a Jewess were brought to Allah’s Apostle on a charge of committing an illegal sexual intercourse. The Prophet asked them. “”What is the legal punishment (for this sin) in your Book (Torah)?”" They replied, “”Our priests have innovated the punishment of blackening the faces with charcoal and Tajbiya.”" ‘Abdullah bin Salam said, “”O Allah’s Apostle, tell them to bring the Torah.”" The Torah was brought, and then one of the Jews put his hand over the Divine Verse of the Rajam (stoning to death) and started reading what preceded and what followed it. On that, Ibn Salam said to the Jew, “”Lift up your hand.”" Behold! The Divine Verse of the Rajam was under his hand. So Allah’s Apostle ordered that the two (sinners) be stoned to death, and so they were stoned. Ibn ‘Umar added: So both of them were stoned at the Balat and I saw the Jew sheltering the Jewess.”

[Bukhari Vol.9, Book 93, No.: 633 ]
Narrated Ibn ‘Umar:
A Jew and Jewess were brought to the Prophet on a charge of committing an illegal sexual intercourse. The Prophet asked the Jews, “”What do you (usually) do with them?”" They said, “”We blacken their faces and disgrace them.”" He said, “”Bring here the Torah and recite it, if you are truthful.”" They (fetched it and) came and asked a one-eyed man to recite. He went on reciting till he reached a portion on which he put his hand. The Prophet said, “”Lift up your hand!”" He lifted his hand up and behold, there appeared the verse of Ar-Rajm (stoning of the adulterers to death). Then he said, “”O Muhammad! They should be stoned to death but we conceal this Divine Law among ourselves.”" Then the Prophet ordered that the two sinners be stoned to death and, and they were stoned to death, and I saw the man protecting the woman from the stones. (See Hadith No. 809, Vol. 8)”

[Muslim Sharif : Book: 17, Chapter: 6, Number: 4211 ]
Abdullah b. ‘Umar reported that a Jew and a Jewess were brought to Allah’s Messenger (may peace be upon him) who had committed adultery. Allah’s Messenger (may peace be upon him) came to the Jews and said: What do you find in Torah for one who commits adultery? They said: We darken their faces and make them ride on the donkey with their faces turned to the opposite direction (and their backs touching each other), and then they are taken round (the city). He said: Bring Torah if you are truthful. They brought it and recited it until when they came to the verse pertaining to stoning, the person who was reading placed his hand on the verse pertaining to stoning, and read (only that which was) between his hands and what was subsequent to that. Abdullah b. Salim who was at that time with the Messenger of Allah (may peace be upon him) said: Command him (the reciter) to lift his hand. He lifted it and there was, underneath that, the verse pertaining to stoning. Allah’s Messenger (may peace be upon him) pronounced judgment about both of them and they were stoned. Abdullah b. ‘Umar said: I was one of those who stoned them, and I saw him (the Jew) protecting her (the Jewess) with his body.”

[Muslim Sharif : Book: 17, Chapter: 6, Number: 4214 ]
Al-Bara’ b. ‘Azib reported: There happened to pass by Allah’s Apostle (may peace be upon him) a Jew blackened and lashed. Allah’s Apostle (may peace be upon him) called them (the Jews) and said: Is this the punishment that you find in your Book (Torah) as a prescribed punishment for adultery? They said: Yes. He (the Holy Prophet) called one of the scholars amongst them and said: I ask you in the name of Allah Who sent down the Torah on Moses if that is the prescribed punishment for adultery that you find in your Book. He said: No. Had you not asked me in the name of Allah, I would not have given you this information. We find stoning to death (as punishment prescribed in the Torah). But this (crime) became quite common amongst our aristocratic class. So when we caught hold of any rich person (indulging in this offence) we spared him, but when we caught hold of a helpless person we imposed the prescribed punishment upon him. We then said: Let us agree (on a punishment) which we can inflict both upon the rich and the poor. So We decided to blacken the face with coal and flog as a substitute punishment for stoning. Thereupon Allah’s Messenger (may peace be upon him) said: O Allah, I am the first to revive Thy command when they had made it dead. He then commanded and he (the offender) was stoned to death. Allah, the Majestic and Glorious, sent down (this verse):”" O Messenger, (the behaviour of) those who vie with one another in denying the truth should not grieve you…”" up to”" is vouchsafed unto you, accept it”" (v. 41) 2176 It was said (by the Jews): Go to Muhammad; it he commands you to blacken the face and award flogging (as punishment for adultery), then accept it, but it he gives verdict for stoning, then avoid it. It was (then) that Allah, the Majestic and Great, sent down (these verses):”" And they who do not judge in accordance with what Allah has revealed are, indeed, deniers of the truth”" (v. 44) ;”" And they who do not judge in accordance with what Allah has revealed-they, they indeed are the wrongdoers”" (v. 45) ;”" And they who do not judge in accordance with what God has revealed-they are the iniquitous (v. 47). (All these verses) were revealed in connection with the non-believers.”

বানরের ওপর রজম:
এই সেই হাদিস যেটা উল্লেখ না করলেও পারতাম, কারণ রজম প্রমাণের জন্য এই হাদিসের কোনই প্রয়োজন নেই, অথচ এমনভাবে প্রচার করা হয় যেন এই হাদিসের ওপর ভিত্তি করেই রজমের বিধান চালু হয়েছে।

[Bukhari Vol.5, Book 58, No.: 188 ]
Narrated ‘Amr bin Maimun:
During the pre-lslamic period of ignorance I saw a she-monkey surrounded by a number of monkeys. They were all stoning it, because it had committed illegal sexual intercourse. I too, stoned it along with them.”

রজম আল্লাহর আইন
[Bukhari Vol.8, Book 78, No.: 629 ]
Narrated Abu Huraira and Zaid bin Khalid:
Two men had a dispute in the presence of Allah’s Apostle. One of them said, “”O Allah’s Apostle! Judge between us according to Allah’s Laws.”" The other who was wiser, said, “”Yes, O Allah’s Apostle! Judge between us according to Allah’s Laws and allow me to speak. The Prophet said, “”Speak.”" He said, “”My son was a laborer serving this (person) and he committed illegal sexual intercourse with his wife, The people said that my son is to be stoned to death, but I ransomed him with one-hundred sheep and a slave girl. Then I asked the learned people, who informed me that my son should receive one hundred lashes and will be exiled for one year, and stoning will be the lot for the man’s wife.”" Allah’s Apostle said, “”Indeed, by Him in Whose Hand my soul is, I will judge between you according to Allah’s Laws: As for your sheep and slave girl, they are to be returned to you.”" Then he scourged his son one hundred lashes and exiled him for one year. Then Unais Al-Aslami was ordered to go to the wife of the second man, and if she confessed (the crime), then stone her to death. She did confess, so he stoned her to death.”

রজমের প্রমাণ:
এক.
যেসব হাদিস দ্বারা রাসূলুল্লাহ (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম) কর্তৃক রজম প্রয়োগের প্রমাণ পাওয়া যায়, তবে তা সূরা আন-নূর অবতরণের আগে না পরে তা নিশ্চিত হওয়া যায় না:
[Bukhari Vol.8, Book 82, No.: 804 ]
Narrated Ash Shaibani:
I asked ‘Abdullah bin Abi Aufa, ‘Did Allah’s Apostle carry out the Rajam penalty ( i.e., stoning to death)?’ He said, “”Yes.”" I said, “”Before the revelation of Surat-ar-Nur or after it?”" He replied, “”I don’t Know.”"”

[Bukhari Vol.8, Book 82, No.: 824 ]
Narrated Ash-Shaibani:
I asked ‘Abdullah bin Abi ‘Aufa about the Rajam (stoning somebody to death for committing illegal sexual intercourse). He replied, “”The Prophet carried out the penalty of Rajam,”" I asked, “”Was that before or after the revelation of Surat-an-Nur?”" He replied, “”I do not know.”"”

[Muslim Sharif : Book: 17, Chapter: 6, Number: 4218 ]
Abu Ishaq Shaibani said: I asked ‘Abdullah b. Abu Aufi if Allah’s Messenger (may peace be upon him) awarded (the punishment) of stoning (to death). He said: Yes. I said: After Sura al-Nur was revealed or before that? He said: I do not know.”

এখানে সন্দেহ হতে পারে, রজমের হুকুম সূরা নূর অবতরণের পরে হয়ত রহিত হয়ে গেছে!
কিন্তু
১.সূরা নূর অবতীর্ণ হয় ৬ষ্ঠ হিজরি বা তারও আগে।
২.আবু হুরায়রা(রা.) হতে রজম প্রয়োগের বেশ কিছু হাদিস পাওয়া যায়।
৩.আবু হুরায়রা(রা.) মদিনায় আসেন ৭ম হিজরিতে।
৪. গামেদ গোত্রীয় একজন মহিলার প্রতি রজমের নির্দেশ দেন, যেটা ৯ম হিজরি ঘটনা।

কাজেই, সূরা নূরের আয়াত দ্বারা রজমকে রহিত করার ধারণা ইতিহাসের পরিপন্থী।

দুই.

যেসব হাদিস দ্বারা রাসূলুল্লাহ (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম) কর্তৃক রজম প্রয়োগের প্রমাণ পাওয়া যায়:
[Bukhari Vol.8, Book 82, No.: 806 ]
Narrated Abu Huraira:
A man came to Allah’s Apostle while he was in the mosque, and he called him, saying, “”O Allah’s Apostle! I have committed illegal sexual intercourse.’”" The Prophet turned his face to the other side, but that man repeated his statement four times, and after he bore witness against himself four times, the Prophet called him, saying, “”Are you mad?”" The man said, “”No.”" The Prophet said, “”Are you married?”" The man said, “”Yes.”" Then the Prophet said, ‘Take him away and stone him to death.”" Jabir bin ‘Abdullah said: I was among the ones who participated in stoning him and we stoned him at the Musalla. When the stones troubled him, he fled, but we over took him at Al-Harra and stoned him to death.”

তিন.
যেসব হাদিস দ্বারা রাসূলুল্লাহ (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম) এর পরেও সাহাবী(রা.) কর্তৃক রজম প্রয়োগের প্রমাণ পাওয়া যায়:

[Bukhari Vol.8, Book 82, No.: 816 ]
Narrated Ibn ‘Abbas:
‘Umar said, “”I am afraid that after a long time has passed, people may say, “”We do not find the Verses of the Rajam (stoning to death) in the Holy Book,”" and consequently they may go astray by leaving an obligation that Allah has revealed. Lo! I confirm that the penalty of Rajam be inflicted on him who commits illegal sexual intercourse, if he is already married and the crime is proved by witnesses or pregnancy or confession.”" Sufyan added, “”I have memorized this narration in this way.”" ‘Umar added, “”Surely Allah’s Apostle carried out the penalty of Rajam, and so did we after him.”"”

[Bukhari Vol.8, Book 82, No.: 817 ]
Narrated Ibn ‘Abbas:
I used to teach (the Qur’an to) some people of the Muhajirln (emigrants), among whom there was ‘Abdur Rahman bin ‘Auf. While I was in his house at Mina, and he was with ‘Umar bin Al-Khattab during ‘Umar’s last Hajj, Abdur-Rahman came to me and said, “”Would that you had seen the man who came today to the Chief of the Believers (’Umar), saying, ‘O Chief of the Believers! What do you think about so-and-so who says, ‘If ‘Umar should die, I will give the pledge of allegiance to such-and-such person, as by Allah, the pledge of allegiance to Abu Bakr was nothing but a prompt sudden action which got established afterwards.’ ‘Umar became angry and then said, ‘Allah willing, I will stand before the people tonight and warn them against those people who want to deprive the others of their rights (the question of rulership).”"
‘Abdur-Rahman said, “”I said, ‘O Chief of the believers! Do not do that, for the season of Hajj gathers the riff-raff and the rubble, and it will be they who will gather around you when you stand to address the people. And I am afraid that you will get up and say something, and some people will spread your statement and may not say what you have actually said and may not understand its meaning, and may interpret it incorrectly, so you should wait till you reach Medina, as it is the place of emigration and the place of Prophet’s Traditions, and there you can come in touch with the learned and noble people, and tell them your ideas with confidence; and the learned people will understand your statement and put it in its proper place.’ On that, ‘Umar said, ‘By Allah! Allah willing, I will do this in the first speech I will deliver before the people in Medina.”"
Ibn Abbas added: We reached Medina by the end of the month of Dhul-Hijja, and when it was Friday, we went quickly (to the mosque) as soon as the sun had declined, and I saw Sa’id bin Zaid bin ‘Amr bin Nufail sitting at the corner of the pulpit, and I too sat close to him so that my knee was touching his knee, and after a short while ‘Umar bin Al-Khattab came out, and when I saw him coming towards us, I said to Said bin Zaid bin ‘Amr bin Nufail “”Today ‘Umar will say such a thing as he has never said since he was chosen as Caliph.”" Said denied my statement with astonishment and said, “”What thing do you expect ‘Umar to say the like of which he has never said before?”"

In the meantime, ‘Umar sat on the pulpit and when the callmakers for the prayer had finished their call, ‘Umar stood up, and having glorified and praised Allah as He deserved, he said, “”Now then, I am going to tell you something which (Allah) has written for me to say. I do not know; perhaps it portends my death, so whoever understands and remembers it, must narrate it to the others wherever his mount takes him, but if somebody is afraid that he does not understand it, then it is unlawful for him to tell lies about me. Allah sent Muhammad with the Truth and revealed the Holy Book to him, and among what Allah revealed, was the Verse of the Rajam (the stoning of married person (male & female) who commits illegal sexual intercourse, and we did recite this Verse and understood and memorized it. Allah’s Apostle did carry out the punishment of stoning and so did we after him.

I am afraid that after a long time has passed, somebody will say, ‘By Allah, we do not find the Verse of the Rajam in Allah’s Book,’ and thus they will go astray by leaving an obligation which Allah has revealed. And the punishment of the Rajam is to be inflicted to any married person (male & female), who commits illegal sexual intercourse, if the required evidence is available or there is conception or confession. And then we used to recite among the Verses in Allah’s Book: ‘O people! Do not claim to be the offspring of other than your fathers, as it is disbelief (unthankfulness) on your part that you claim to be the offspring of other than your real father.’ Then Allah’s Apostle said, ‘Do not praise me excessively as Jesus, son of Marry was praised, but call me Allah’s Slave and His Apostles.’ (O people!) I have been informed that a speaker amongst you says, ‘By Allah, if ‘Umar should die, I will give the pledge of allegiance to such-and-such person.’ One should not deceive oneself by saying that the pledge of allegiance given to Abu Bakr was given suddenly and it was successful. No doubt, it was like that, but Allah saved (the people) from its evil, and there is none among you who has the qualities of Abu Bakr. Remember that whoever gives the pledge of allegiance to anybody among you without consulting the other Muslims, neither that person, nor the person to whom the pledge of allegiance was given, are to be supported, lest they both should be killed.

And no doubt after the death of the Prophet we were informed that the Ansar disagreed with us and gathered in the shed of Bani Sa’da. ‘Ali and Zubair and whoever was with them, opposed us, while the emigrants gathered with Abu Bakr. I said to Abu Bakr, ‘Let’s go to these Ansari brothers of ours.’ So we set out seeking them, and when we approached them, two pious men of theirs met us and informed us of the final decision of the Ansar, and said, ‘O group of Muhajirin (emigrants) ! Where are you going?’ We replied, ‘We are going to these Ansari brothers of ours.’ They said to us, ‘You shouldn’t go near them. Carry out whatever we have already decided.’ I said, ‘By Allah, we will go to them.’ And so we proceeded until we reached them at the shed of Bani Sa’da. Behold! There was a man sitting amongst them and wrapped in something. I asked, ‘Who is that man?’ They said, ‘He is Sa’d bin ‘Ubada.’ I asked, ‘What is wrong with him?’ They said, ‘He is sick.’ After we sat for a while, the Ansar’s speaker said, ‘None has the right to be worshipped but Allah,’ and praising Allah as He deserved, he added, ‘To proceed, we are Allah’s Ansar (helpers) and the majority of the Muslim army, while you, the emigrants, are a small group and some people among you came with the intention of preventing us from practicing this matter (of caliphate) and depriving us of it.’

When the speaker had finished, I intended to speak as I had prepared a speech which I liked and which I wanted to deliver in the presence of Abu Bakr, and I used to avoid provoking him. So, when I wanted to speak, Abu Bakr said, ‘Wait a while.’ I disliked to make him angry. So Abu Bakr himself gave a speech, and he was wiser and more patient than I. By Allah, he never missed a sentence that I liked in my own prepared speech, but he said the like of it or better than it spontaneously. After a pause he said, ‘O Ansar! You deserve all (the qualities that you have attributed to yourselves, but this question (of Caliphate) is only for the Quraish as they are the best of the Arabs as regards descent and home, and I am pleased to suggest that you choose either of these two men, so take the oath of allegiance to either of them as you wish. And then Abu Bakr held my hand and Abu Ubada bin Abdullah’s hand who was sitting amongst us. I hated nothing of what he had said except that proposal, for by Allah, I would rather have my neck chopped off as expiator for a sin than become the ruler of a nation, one of whose members is Abu Bakr, unless at the time of my death my own-self suggests something I don’t feel at present.’

And then one of the Ansar said, ‘I am the pillar on which the camel with a skin disease (eczema) rubs itself to satisfy the itching (i.e., I am a noble), and I am as a high class palm tree! O Quraish. There should be one ruler from us and one from you.’
Then there was a hue and cry among the gathering and their voices rose so that I was afraid there might be great disagreement, so I said, ‘O Abu Bakr! Hold your hand out.’ He held his hand out and I pledged allegiance to him, and then all the emigrants gave the Pledge of allegiance and so did the Ansar afterwards. And so we became victorious over Sa’d bin Ubada (whom Al-Ansar wanted to make a ruler). One of the Ansar said, ‘You have killed Sa’d bin Ubada.’ I replied, ‘Allah has killed Sa’d bin Ubada.’ Umar added, “”By Allah, apart from the great tragedy that had happened to us (i.e. the death of the Prophet), there was no greater problem than the allegiance pledged to Abu Bakr because we were afraid that if we left the people, they might give the Pledge of allegiance after us to one of their men, in which case we would have given them our consent for something against our real wish, or would have opposed them and caused great trouble. So if any person gives the Pledge of allegiance to somebody (to become a Caliph) without consulting the other Muslims, then the one he has selected should not be granted allegiance, lest both of them should be killed.”"”

[Bukhari Vol.9, Book 92, No.: 424 ]
I used to teach Qur’an to ‘Abdur-Rahman bin Auf. When Umar performed his last Hajj, ‘Abdur-Rahman said (to me) at Mina, “”Would that you had seen Chief of the believers today! A man came to him and said, “”So-and-so has said, “”If Chief of the Believers died, we will give the oath of allegiance to such-and-such person,’ ‘Umar said, ‘I will get up tonight and warn those who want to usurp the people’s rights.’ I said, ‘Do not do so, for the season (of Hajj) gathers the riffraff mob who will form the majority of your audience, and I am afraid that they will not understand (the meaning of) your saying properly and may spread (an incorrect statement) everywhere. You should wait till we reach Medina, the place of migration and the place of the Sunna (the Prophet’s Traditions). There you will meet the companions of Allah’s Apostle from the Muhajirin and the Ansar who will understand your statement and place it in its proper position’ ‘Umar said, ‘By Allah, I shall do so the first time I stand (to address the people) in Medina.’ When we reached Medina, ‘Umar (in a Friday Khutba-sermon) said, “”No doubt, Allah sent Muhammad with the Truth and revealed to him the Book (Quran), and among what was revealed, was the Verse of Ar-Rajm (stoning adulterers to death).’”" (See Hadith No. 817,Vol. 8)”

[Muslim Sharif : Book: 17, Chapter: 4, Number: 4194 ]
‘Abdullah b. ‘Abbas reported that ‘Umar b. Khattab sat on the pulpit of Allah’s Messenger (may peace be upon him) and said: Verily Allah sent Muhammad (may peace be upon him) with truth and He sent down the Book upon him, and the verse of stoning was included in what was sent down to him. We recited it, retained it in our memory and understood it. Allah’s Messenger (may peace be upon him) awarded the punishment of stoning to death (to the married adulterer and adulteress) and, after him, we also awarded the punishment of stoning, I am afraid that with the lapse of time, the people (may forget it) and may say: We do not find the punishment of stoning in the Book of Allah, and thus go astray by abandoning this duty prescribed by Allah. Stoning is a duty laid down in Allah’s Book for married men and women who commit adultery when proof is established, or it there is pregnancy, or a confession.”

হযরত উমর(রা.) প্রায় দেড়হাজার বছর আগে যে সন্দেহ করেছিলেন, আজ কি তারই প্রতিফলন দেখা যাচ্ছে না?

চার.
(বিবাহিত) ব্যভিচারির জন্য রজমের আদেশ:
[Muslim Sharif : Book: 8, Chapter: 30, Number: 3435 ]
‘A’isha (Allah be pleased with her) reported: Sa’d b. Abu Waqqas and Abd b. Zam’a (Allah be pleased with them) disputed with each other over a young boy. Sa’d said: Messenger of Allah, he is the son of my brother ‘Utba b. Abu Waqqas as he made it explicit that he was his son. Look at his resemblance. Abd b. Zam’a said Messenger of Allah, he is my brother as he was born on the bed of my father from his slave-girl. Allah’s Messenger (way peace he upon him) looked at his resembl-. ance and found a clear resemblance with ‘Utba. (But) he said: He is yours 0 ‘Abd (b. Zam’a), for the child is to be attributed to one on whose bed it is born, and stoning for a fornicator. Sauda bint Zam’a, O you should observe veil from him. So he did not see Sauda at all. Muhammad b. Rumh did not make a mention (of the words):”" O Abd.”"”

[Muslim Sharif : Book: 8, Chapter: 30, Number: 3436 ]
A hadith like this is narrated on the authority of Ibn ‘Uyaiyna and Ma’mar (and the words are): The child is attributed to him on whose bed he is born; but they did not mention this:”" For a fornicator there is stoning.”"”

[Muslim Sharif : Book: 8, Chapter: 30, Number: 3437 ]
Abu Huraira (Allah be pleased with him) reported Allah’s Messenger (may peace be upon him) as saying: The child is to be attributed to one on whose bed he is born, and for a fornicator there is stoning.”

পাঁচ.
বিবাহিত ব্যভিচারির জন্য ১০০ বেত্রাঘাত এরং অত:পর রজমের বিধান অবতরণের প্রমাণ:
[Muslim Sharif : Book: 17, Chapter: 3, Number: 4192 ]
‘Ubada b. as-Samit reported that whenever Allah’s Apostle (may peace be upon him) received revelation, he felt its rigour and the complexion of his face changed. One day revelation descended upon him, he felt the same rigour. When it was over and he felt relief, he said: Take from me. Verily Allah has ordained a way for them (the women who commit fornication),: (When) a married man (commits adultery) with a married woman, and an unmarried male with an unmarried woman, then in case of married (persons) there is (a punishment) of one hundred lashes and then stoning (to death). And in case of unmarried persons, (the punishment) is one hundred lashes and exile for one year.”

ছয়.
বিবাহিত ব্যভিচারির জন্য রজম প্রয়োগের আরো প্রমাণ:
[Muslim Sharif : Book: 17, Chapter: 5, Number: 4209 ]
Abu Huraira and Zaid b Khalid al-Juhani reported that one of the desert tribes came to Allah’s Messenger (may peace be upon him) and said: Messenger of Allah, I beg of you in the name of Allah that you pronounce judgment about me according to the Book of Allah. The second claimant who was wiser than him said: Well, decide amongst us according to the Book of Allah, but permit me (to say something). Thereupon Allah’s Messenger (may peace be upon ham) said: Say. He said: My son was a servant in the house of this person and he committed adultery with his wife. I was informed that my son deserved stoning to death (as punishment for this offence). I gave one hundred goats and a slave girl as ransom for this. I asked the scholars (if this could serve as an expiation for this offence). They informed me that my son deserved one hundred lathes and exile for one year. and this woman deserved stoning (as she was married). Thereupon Allah’s Messenger (may peace he upon him) said: By Him in Whose Hand is my life. I will decide between you according to the Book of Allah. The slave-girl and the goats should be given back, and your son is to be punished with one hundred lashes and exile for one year. And, O Unais (b. Zuhaq al-Aslami), go to this woman in the morning, and if she makes a confession, then stone her. He (the narrator) said: He went to her in the morning and she made a confession. And Allah’s Messenger (may peace be upon him) made pronouncement about her and she was stoned to death.”

এতো আমার ক্ষুদ্র দৃষ্টিতে ধরা পড়া দুটি সহিহ হাদিস গ্রন্থ হতে উদ্ধৃত কিছু হাদিস(অনুবাদ)।
হয়ত আরো হাদিস রয়েই গেছে!
লক্ষ করুন:
১. এখানে একটি ঘটনা কতগুলো চেইন এ এসেছে।
২. যদি অন্যান্য হাদিস গ্রন্থের রজম সংক্রান্ত হাদিসসমূহ একত্রিত করা হয়, তবে এক একট ঘটনার কতগুলো ভিন্ন ভিন্ন চেইন পাওয়া যাবে?

কোন কোন হাদিসকে না হয় অস্বীকার করা হলো, কিন্তু ইতিহাসকে অস্বীকার করার উপায় কি?

কাজেই এতগুলো হাদিসকে বিনাবিচারে বিসর্জন দিয়ে ইসলামকে রক্ষা করতে গিয়ে আমরা আসলে ইসলামকে বিকৃত করছি না তো?

সবাইকে একটু ভেবে দেখার অনরোধ রইল।

Processing your request, Please wait....
  • Print this article!
  • Digg
  • Sphinn
  • del.icio.us
  • Facebook
  • Mixx
  • Google Bookmarks
  • LinkaGoGo
  • MSN Reporter
  • Twitter
৭২১ বার পঠিত
1 Star2 Stars3 Stars4 Stars5 Stars (ভোট, গড়: ৫.০০)

৪৭ টি মন্তব্য

  1. পোস্টটা খুব গুছিয়ে লিখতে পারি নাই, আর ইচ্ছাও ছিল না কারণ এটা একটা আলোচনা পোস্ট, আপনাদের মতামতের ওপর ভিত্তি করে হয়ত একটা গুছানো পোস্ট দিতে পারি(ইনশাআল্লাহ)।

    কিছুক্ষণের জন্য বিরতি!!

  2. সাদাট ভাই,

    অনেক কষ্ট করেছেন। আমি কিছু পয়েন্টে আলোচনা করি।

    সমস্যাঃ
    A narration attributed to Abu Ishaq Shaibani reports:
    “ I asked ‘Abdullah b. Abu Aufi if Allah’s Messenger awarded (the punishment) of stoning (to death). He said: Yes. I said: After Sura al-Nur was revealed or before that? He said: I do not know । ^ Kitab Al-Hudud|Book 017, Number 4218

    আরো সমস্যা অন্য জায়গায়,
    পয়েন্ট ১
    যেহেতু ব্যাবিচারের শাস্তির ব্যাপারে আল কুরান নিজেই বলে ফেলেছে, সেখানে আর কোন ব্যাক্ষার অবকাশ নেই।
    পয়েন্ট ২
    আল্লহ পাক এক আয়াতে বাচ্চাদের পিতার আসল পরিচয় বলার জন্য কঠিন কথা বলেছেন। এখন কেউ যদি আল্লাহ পাক কে মানে সে মহিলা হলে এবং তার বাচ্চা হলে, সে বাধ্য হয়ে স্বীকার করে নিতে হবে, নয়ত ঐ আয়াত পড়লেই সে মানসিক আয়াতে জ্বলবে কিন্তু ঐ পুরুষ এর কিছু হবে না। না-স্বীকার করে, মনে মনে আল্লাহ পাকের কাছে ক্ষমা চেয়ে মানসিক ভাবে বেচে যাবে। অতএব, আপনাকে মনে রাখতে হবে, আল্লাহ পাক কখন অবিচার করেন না। আল কুরানেই এই কথা প্রমানিত।
    পয়েন্ট ৩
    মহিলাদের রজম থেকে পালিয়ে যাওয়া সম্ভব নয়, কম সম্ভব, কারন পুরুষের যে পর্যন্ত মাটির নিচে দেওয়া হয়, তারচেয়েও বেশী মাটির নিচে মেয়েদের দেওয়া হয়, তাই পুরুষরা মাটি থেকে ঊঠে যেতে পারলেও পারতে পারে, কিন্তু মহিলাদের ক্ষেত্রে এটি ঢেড় কঠিন।
    পয়েন্ট ৩
    {এখানে আম শিয়া জনতা বা বর্তমান শিয়াদের বলা হইতেছে না ইবনে সাবার দিকে লক্ষ্য করে বলা হইতেছে, এবং কিছু সংখ্যাক শিয়া দের দ্বাবী বলা হইতেছে যারা নিচের দ্বাবী গুলি করে]
    শিয়া সুন্নি দন্দ, শিয়ারা সুন্নি ট্রেডিশনে বলা হয়ে থাকে, ইবনে সাবার সৃষ্ট। কিছু সুন্নিদের লেখায় শিয়াদের সম্পর্কে এই কথা ঊঠে আসে যে, শিয়ারা নাকি মনে করে আল কুরান ৯০ পারা ছিল, এর ৩০ পারা বাকি আছে, আর ৬০ পারা গায়েব করে দেওয়া হয়েছে। এখন সোদি থেকে এক বাংজ্ঞালি কাছা কাছি প্রশ্ন করল এবং কুরানের এক আয়াত দিয়ে বলল তারা কি তা বিশ্বাস করে না, তারা উত্তর দিল, তারা আল-কুরান বিশ্বাস করে, এবং পালটা প্রশ্ন করল, যে কই পেয়েছ যে আমরা তা বিশ্বাস করি। তখন, সে উসুলে কুসুল (নাম ভুলে গেছি) শিয়াদের দ্বিতীয় প্রধান বইয়ের নাম নম্বর উল্লেখ করল। তারা পালটা উল্লেখ করল, তুমাদের বইয়ে এরূপ আছে। আপনি হযরত উমর ফারুক রাঃ কর্তৃক যে হাদিস দিয়ে ছিলেন, ঐ গুলি দিল। তারপর বলল, আমাদের গ্রন্থে একটু লেখা থাকলে তোমাদের গ্রন্থে দ্বী-গুন লেখা আছে। মানে রজমের ব্যাপারের হাদিস গুলি শিয়াদের বাচাতে এগিয়ে আসে। তারপর কঠিন পয়েন্ট হল, হযরত আয়াশা সিদ্দিকার নাম, শিয়ারা হযরত আয়েশা সিদ্দিকা রাঃ কে পছন্দ করে না। এবার নিজেকে নিজে প্রশ্ন করুন, রজমের আয়াত কার কাছ হতে পারালো ? ইতিহাস বা হাদিস ঐ গ্রন্থ বলে, হযরত আয়েশা সিদ্দিকা রাঃ কাছ হতে। প্রশ্ন করুন, কার নামে মিথ্যা অপবাদ উঠেছিল? উত্তর আসবে হযরত আয়েশা সিদ্দিকার রাঃ নামে। অতএব, বিষয় কি ক্লিয়ার ষড়যন্ত্র ?

    আসুন সমাধানে,
    যিনি আনেক গবেষনা করেছেন,
    Javed Ahmad Ghamidi, a Pakistani Islamic scholar, has examined all[citation needed] hadith related to Rajm in his book Burhan and deals with the issue of Rajm not having been prescribed in the Qur’an, the source which has presidence over the Sunnah for Muslims. Based on principles of Islamic Jurisprudence, particularly that of Shatibi, Sunnah (the recorded ways and the manners of the prophet Muhammad) provides either an explanation of the Qur’an or an addition to the Qur’an.
    If it is an explanation, then its status is secondary to the Quran. If it is an addition, than its issue can not have been discussed by the Qur’an.[7][8] Ghamidi concludes that Quranic punishment for Zina in verse [Qur'an 24:2] does not leave a room for another interpretation.[8] He also writes that stoning can only be prescribed for someone who rapes or habitually commits fornication as prostitutes, as it constitutes maleficence in the land and punishable according to verses [Qur'an 5:33].[9] As it is attributed to Muhammad in following hadith:

    Acquire it from me, acquire it from me. The Almighty has revealed the directive about women who habitually commit fornication about which He had promised to reveal. If such criminals are unmarried or are the unsophisticated youth, then their punishment is a hundred stripes and exile and if they are widowers or are married, then their punishment is a hundred stripes and death by stoning. Sahih Muslim 1690

    ফুয়াদ

    @ফুয়াদ,

    তারপর কঠিন পয়েন্ট হল, হযরত আয়াশা সিদ্দিকার নাম, শিয়ারা হযরত আয়েশা সিদ্দিকা রাঃ কে পছন্দ করে না {কেউ কেউ নাকি মনে করে, আয়েশা সিদ্দিকার রাঃ বিচার হবে, ঐ অপবাদের ব্যাপারে) । এবার নিজেকে নিজে প্রশ্ন করুন, রজমের আয়াত কার কাছ হতে হারালো ? ইতিহাস বা হাদিস ঐ গ্রন্থ বলে, হযরত আয়েশা সিদ্দিকা রাঃ কাছ হতে। প্রশ্ন করুন, কার নামে মিথ্যা অপবাদ উঠেছিল? উত্তর আসবে হযরত আয়েশা সিদ্দিকার রাঃ নামে। অতএব, বিষয় কি ক্লিয়ার ষড়যন্ত্র ?
    –কিছু ভুল সংশোধন করে নিলাম।

  3. সমস্যাঃ
    A narration attributed to Abu Ishaq Shaibani reports:
    “ I asked ‘Abdullah b. Abu Aufi if Allah’s Messenger awarded (the punishment) of stoning (to death). He said: Yes. I said: After Sura al-Nur was revealed or before that? He said: I do not know । ^ Kitab Al-Hudud|Book 017, Number 4218

    এটা হাদিসসংগ্রহকারীদের সততাকেই তুলে ধরছে।
    উক্ত বর্ণনাকারি জানতেন না রজমের শাস্তি সূরা আন নূর নাযিলের আগে না পরে প্রদান করা হযেছে। কিন্তু তাই বলে কি জানার কোন উপায় নেই। আছে, [পোস্টেই উল্লেখ করেছি]

    এখানে সন্দেহ হতে পারে, রজমের হুকুম সূরা নূর অবতরণের পরে হয়ত রহিত হয়ে গেছে!
    কিন্তু
    ১.সূরা নূর অবতীর্ণ হয় ৬ষ্ঠ হিজরি বা তারও আগে।
    ২.আবু হুরায়রা(রা.) হতে রজম প্রয়োগের বেশ কিছু হাদিস পাওয়া যায়।
    ৩.আবু হুরায়রা(রা.) মদিনায় আসেন ৭ম হিজরিতে।
    ৪. গামেদ গোত্রীয় একজন মহিলার প্রতি রজমের নির্দেশ দেন, যেটা ৯ম হিজরি ঘটনা।

    কাজেই, সূরা নূরের আয়াত দ্বারা রজমকে রহিত করার ধারণা ইতিহাসের পরিপন্থী।

  4. পয়েন্ট ১
    যেহেতু ব্যাবিচারের শাস্তির ব্যাপারে আল কুরান নিজেই বলে ফেলেছে, সেখানে আর কোন ব্যাক্ষার অবকাশ নেই।

    এ বিষয়ে পরে আসছি ইনশাআল্লাহ।

    সাদাত

    @সাদাত,

    কোন বিষয় আল-কুরআন বলে ফেললে, সেখানে কি আর ব্যাখ্যার কোন অবকাশ নেই?

    রায়হান ভাইকে করা কমেন্ট (দ্বিতীয়ত:
    রজমের বিধান আল-কুরআনের বিধানের সাথে সাংঘর্ষিক কি না?

    )দ্রষ্টব্য

  5. @ফুয়াদ ভাই,
    পয়েন্ট ২
    আল্লহ পাক এক আয়াতে বাচ্চাদের পিতার আসল পরিচয় বলার জন্য কঠিন কথা বলেছেন। এখন কেউ যদি আল্লাহ পাক কে মানে সে মহিলা হলে এবং তার বাচ্চা হলে, সে বাধ্য হয়ে স্বীকার করে নিতে হবে, নয়ত ঐ আয়াত পড়লেই সে মানসিক আয়াতে জ্বলবে কিন্তু ঐ পুরুষ এর কিছু হবে না। না-স্বীকার করে, মনে মনে আল্লাহ পাকের কাছে ক্ষমা চেয়ে মানসিক ভাবে বেচে যাবে। অতএব, আপনাকে মনে রাখতে হবে, আল্লাহ পাক কখন অবিচার করেন না। আল কুরানেই এই কথা প্রমানিত।

    আরেকটু ক্লিয়ার করুন!

    ফুয়াদ

    @সাদাত,

    আল কুরানের এক আয়াতে বলা আছে, নারীদের ব্যাপারে সন্তানের পরিচয় নিয়ে, মুঘস্ত নেই। খুজলে পেতে পারেন।

    সাদাত

    @ফুয়াদ,
    তোমরা তাদেরকে তাদের পিতৃপরিচয়ে ডাক। এটাই আল্লাহর কাছে ন্যায়সঙ্গত। যদি তোমরা তাদের পিতৃ-পরিচয় না জান, তবে তারা তোমাদের ধর্মীয় ভাই ও বন্ধুরূপে গণ্য হবে। এ ব্যাপারে তোমাদের কোন বিচ্যুতি হলে তাতে তোমাদের কোন গোনাহ নেই, তবে ইচ্ছাকৃত হলে ভিন্ন কথা। আল্লাহ ক্ষমাশীল, পরম দয়ালু।[৩৩:৫]

    এই আয়াত?
    এই আয়াত হলে আপনার পয়েন্টটা একটু বুঝিয়ে বলুন।

    ফুয়াদ

    @সাদাত,

    এটা না। আর অনেক কের সাথে বলা হয়েছিল। আমি এখন বেশী ব্যাস্ত হয়ে পড়েছি তাই খুজে দিতে পারতেছি না। আয়াত টি নারী সম্পর্কিত ।

    ফুয়াদ

    @সাদাত,

    এটি গুরুত্ব পূর্ন পয়েন্ট। আপনি একটু খোজ করেন। আমি জানি আছে।

  6. @ফুয়াদ ভাই,
    পয়েন্ট ৩
    মহিলাদের রজম থেকে পালিয়ে যাওয়া সম্ভব নয়, কম সম্ভব, কারন পুরুষের যে পর্যন্ত মাটির নিচে দেওয়া হয়, তারচেয়েও বেশী মাটির নিচে মেয়েদের দেওয়া হয়, তাই পুরুষরা মাটি থেকে ঊঠে যেতে পারলেও পারতে পারে, কিন্তু মহিলাদের ক্ষেত্রে এটি ঢেড় কঠিন।

    রজম তো প্রস্তরবর্ষণে হত্যা। কাজেই পালিয়ে যাবার সুযোগ কারোই নেই। পালিয়ে যাবার মতো সুযোগ রেখে রজম প্রয়োগ করার কোন মানে নেই।

    ফুয়াদ

    @সাদাত,

    আপনি বোধহয় নিয়মটি ক্লিয়ার নন। কেউ যদি পালাতে পারে তাহলে তাকে ধরে হত্যা করা হয় না। এটাই নিয়ম। যে হাদিসটি অবু হুরাইরা রাঃ বর্ননা করেছেন ঐ হাদিসটির বাকি অংশ দেখেন একই বর্ননায় কিংবা একই হাদিস ভিন্ন বর্ননায় দেখেন। দাড়ান আমি খুজে দিতেছি

    Reported by many companions that Ma’iz went before Muhammad in the Mosque and said, “I have committed adultery, please purify me.” (In another report, Muhammad asked Ma’iz that the reports he heard about him are correct or not[7]) Muhammad turned his face away from him and said “Woe to you, go back and pray to Allah for forgiveness.” But the boy again came in front of Muhammad and repeated his desire for purification. The act was repeated three times, until Abu Bakr, sitting close by, told the Ma’iz to leave, as the fourth repetition of the plea would get him stoned. But the man persisted. Muhammad then turned to him and said “you might have kissed or caressed her or you might have looked at her with lust (and so assumed that you committed Zéna)”. Ma’iz replied in the negative. Allah’s Apostle said “did you lie in bed with her?” Ma’iz replied in the affirmative. He then asked, “did you have sexual intercourse?” Ma’iz replied in the affirmative. Then Muhammad got quite uncomfortable, and asked “Did your male organ disappear in the female part?” Ma’iz replied in the affirmative. He then asked, once more, whether Ma’iz knew what Zéna means. Ma’iz replied “yes, I have committed the same act a husband commits with his wife.” Muhammad asked if he was married, and he replied “yes”. Muhammad asked if he took any wine, and Ma’iz again replied in the negative. Muhammad then sent for an inquiry from the neighbors of Ma’iz, whether or not Ma’iz suffered from insanity. The replies all came in the negative. Muhammad then said, “had you kept it a secret, it would have been better for you.” Muhammad then ordered Ma’iz to be stoned to death. During the stoning, Ma’iz cried out, “O people, take me back to the Holy Prophet, the people of my clan deluded me.” When this was reported to Muhammad, he replied “Why did you not let him off, he might have repented, and Allah may have accepted it.”
    It is reported that the woman in the above case was not punished.[8] This makes Ghamidi believe that it was a case of rape and Ma’iz was given the punishment of hirabah and not adultery.

    সাদাত

    @ফুয়াদ,

    আপনি দেখি সবখানেই Ghamidi কে নিয়ে আসেন। যাক, কথায় আসি।

    এক.
    যদি ৪ জন পুরুষ সাক্ষী পাওয়া যায়, সেক্ষেত্রে রজম অবশ্যই প্রয়োগ করতে হবে। অপরাধীকে পালাতে দেবার কোন সুযোগই রাখা হবে না। চাই পুরুষ হোক আর নারী।

    দুই.
    কিন্তু যদি সাক্ষী পাওয়া না যায়, বরং ব্যভিচারীর ৪ বার নিজের স্বীকারোক্তিতে রজমের নির্দেশ দেওয়া হয়, সেক্ষেত্রে যেকোন মুহূর্তে ব্যভিচারি যে কোন সময় তার স্বীকারোক্তি প্রত্যাহার করে নিতে পারে। এমন কি প্রস্তর বর্ষণের সময়ও যদি সে স্বীকারোক্তি প্রত্যাহার করে নেয়, তার ওপর আর প্রস্তর নিক্ষেপ করা যাবে না। চাই সে পুরুষ হোক , নারী হোক নিয়ম একই।

    তিন.
    রজমের সময় নারীকে মাটিতে অধিক গ্রোঁথিত করা হয়, যাতে সে জনসম্মুখে বিবস্ত্র না হয়ে পড়ে সে জন্য। এক্ষেত্রে পুরুষকে অধিক পালাবার সুযোগ দিয়েছে মনে করা ঠিক না। পালানোর কারণে কেউ রজম থেকে বাঁচতে পারে না।

    চার.
    স্বীকারোক্তি প্রত্যাহার দুভাবে হতে পারে:
    ১. মৌখিক
    ২. কাজে, যেমন পালাবার চেষ্টা করলে।

    আলোচ্য হাদিসে মায়াজ(রা.) যেহেতু পালাতে চেষ্টা করছিলেন, কাজেই ধারণা হওয়া স্বাভাবিক যে হয়ত তিনি স্বীকারোক্তি প্রত্যাহার করতে চাচ্ছেন। সেকারণেই নবী করিম(সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন):
    “Why did you not let him off, he might have repented, and Allah may have accepted it.”

    সারসংক্ষেপ:
    সাক্ষ্যপ্রমাণমূলক রজমের ক্ষেত্রে: পালানোর কোন সুযোগ নেই।
    স্বীকারোক্তিমূলক রজমের ক্ষেত্রে: পালানোর চেষ্টাকে স্বীকারোক্তি প্রত্যাহার হিসেবে গণ্য করা হয়। কিন্তু স্বীকারোক্তি প্রত্যাহারের কোন পালানোর চেষ্টা করা মোটেই জরুরী নয়, মৌখিকভাবে প্রত্যাহার করাই যথেষ্ট।

  7. পয়েন্ট ৩
    {এখানে আম শিয়া জনতা বা বর্তমান শিয়াদের বলা হইতেছে না ইবনে সাবার দিকে লক্ষ্য করে বলা হইতেছে, এবং কিছু সংখ্যাক শিয়া দের দ্বাবী বলা হইতেছে যারা নিচের দ্বাবী গুলি করে]
    শিয়া সুন্নি দন্দ, শিয়ারা সুন্নি ট্রেডিশনে বলা হয়ে থাকে, ইবনে সাবার সৃষ্ট। কিছু সুন্নিদের লেখায় শিয়াদের সম্পর্কে এই কথা ঊঠে আসে যে, শিয়ারা নাকি মনে করে আল কুরান ৯০ পারা ছিল, এর ৩০ পারা বাকি আছে, আর ৬০ পারা গায়েব করে দেওয়া হয়েছে। এখন সোদি থেকে এক বাংজ্ঞালি কাছা কাছি প্রশ্ন করল এবং কুরানের এক আয়াত দিয়ে বলল তারা কি তা বিশ্বাস করে না, তারা উত্তর দিল, তারা আল-কুরান বিশ্বাস করে, এবং পালটা প্রশ্ন করল, যে কই পেয়েছ যে আমরা তা বিশ্বাস করি। তখন, সে উসুলে কুসুল (নাম ভুলে গেছি) শিয়াদের দ্বিতীয় প্রধান বইয়ের নাম নম্বর উল্লেখ করল। তারা পালটা উল্লেখ করল, তুমাদের বইয়ে এরূপ আছে। আপনি হযরত উমর ফারুক রাঃ কর্তৃক যে হাদিস দিয়ে ছিলেন, ঐ গুলি দিল। তারপর বলল, আমাদের গ্রন্থে একটু লেখা থাকলে তোমাদের গ্রন্থে দ্বী-গুন লেখা আছে। মানে রজমের ব্যাপারের হাদিস গুলি শিয়াদের বাচাতে এগিয়ে আসে। তারপর কঠিন পয়েন্ট হল, হযরত আয়াশা সিদ্দিকার নাম, শিয়ারা হযরত আয়েশা সিদ্দিকা রাঃ কে পছন্দ করে না। এবার নিজেকে নিজে প্রশ্ন করুন, রজমের আয়াত কার কাছ হতে পারালো ? ইতিহাস বা হাদিস ঐ গ্রন্থ বলে, হযরত আয়েশা সিদ্দিকা রাঃ কাছ হতে। প্রশ্ন করুন, কার নামে মিথ্যা অপবাদ উঠেছিল? উত্তর আসবে হযরত আয়েশা সিদ্দিকার রাঃ নামে। অতএব, বিষয় কি ক্লিয়ার ষড়যন্ত্র ?

    সুন্নিদের মতে,
    আল-কুরআনের ৩ ধরণের রহিত আয়াত রয়েছে:
    এক.

    যেসব আয়াতের হুকুম রহিত হয়েছে, কিন্তু তিলাওয়াত রহিত নাই।
    কাজেই উক্ত আয়াত আল-কুরআনের অংশ কিন্তু আমলযোগ্য নয়:

    মুমিনগণ, তোমরা রসূলের কাছে কানকথা বলতে চাইলে তৎপূর্বে সদকা প্রদান করবে। এটা তোমাদের জন্যে শ্রেয়ঃ ও পবিত্র হওয়ার ভাল উপায়। যদি তাতে সক্ষম না হও, তবে আল্লাহ ক্ষমাশীল, পরম দয়ালু।[৫৮:১২]

    এই আয়াতের ওপর শুধুমাত্র একজন সাহাবী(রা) আমল করতে পেরেছিলেন।

    তারপর এই আয়াতের হুকুম রহিত হয়ে যায়:

    তোমরা কি কানকথা বলার পূর্বে সদকা প্রদান করতে ভীত হয়ে গেলে? অতঃপর তোমরা যখন সদকা দিতে পারলে না এবং আল্লাহ তোমাদেরকে মাফ করে দিলেন তখন তোমরা নামায কায়েম কর, যাকাত প্রদান কর এবং আল্লাহ ও রসূলের আনুগত্য কর। আল্লাহ খবর রাখেন তোমরা যা কর। [৫৮:১৩]

    দুই.
    যেসব আয়াতের তিলাওয়াত রহিত হয়ে গেছে, কিন্তু হুকুম রহিত হয় নাই।
    তিলাওয়াত রহিত হওয়ার কারণে উক্ত আয়াত আর আল-কুরআনের অংশ হিসেবে বিবেচিত হবে না। কিন্তু হুকুম বলবৎ থাকবে:
    যেমন:
    রজমের আয়াত। যার তিলাওয়াত রহিত হবার কারণে, উহা আর আল-কুরআনের অংশ নয়। কিন্তু হুকুম বলবৎ আছে। রাসূলুল্লাহ (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম) এবং খুলাফায়ে রাশেদিন(রা.) হতে রজম প্রয়োগের অনেক প্রমাণ আছে।

    তিন.
    যেসব আয়াতের তিলাওয়াত রহিত হয়ে গেছে, হুকুম ও রহিত হয়ে গেছে।
    কাজেই এসব আয়াত এখন আর আল-কুরআনের অংশ হিসেবে বিবেচিত হবে না।

    এতক্ষন যা বললাম তাই কিন্তু আমাদের এতদিনকার শিক্ষা। আজকাল ইসলামকে আধুনিক করতে নতুন নতুন থিওরি বের হচ্ছে। একটা কথা মনে রাখতে হবে। আল্লাহপাক আল-কুরআনকে সংরক্ষণ করবেন শুধু অক্ষরে নয় অর্থেও ব্যাখ্যাতেও। কাজেই হুকুম আহকাম বিষয়ক আল-কুরআনের প্রতিটি আয়াতের সঠিক অর্থ ও ব্যাখ্যা প্রত্যেক যুগে সংরক্ষিত থাকতে হবে। ১৪০০ বছর পর নতুন ব্যাখ্যা দাঁড় করানোর অর্থ হবে এতদিন আল-কুরআন সংরক্ষিত ছিল না।

    সাদাত

    @সাদাত,

    রজমের আয়াত শুধুমাত্র হযরত আয়েশা(রা.) এর কাছে সংরক্ষিত ছিল, এটা অকেবারেই অযৌক্তিক দাবি। রজমের আয়াতের তেলাওয়াত রহিত হবার সাথে হযরত আয়েশা(রা.) এর কাছে সংরক্ষিত অংশ ছাগলে খাওয়ার কোন সম্পর্ক নাই।

    ফুয়াদ

    @সাদাত,

    Javed Ahmad Ghamidi, a well-known Pakistani Islamic scholar, has examined all hadith related to Rajm in his book Burhan. Based on principles of Islamic Jurisprudence, such as the one from Shatibi, who writes that Sunnah is either explanation of the Qur’an or addition to the Qur’an. If it is an explanation, then its status is secondary otherwise, it will only be considered addition if it is not discussed by the Qur’an.[4][5] Ghamidi concludes that Quranic punishment for Zéna in verse [Qur'an 24:2] does not leave a room for another interpretation.[5] He also writes that stoning can only be prescribed for someone who rapes or habitually commits fornication as prostitutes, as it constitutes hirabah (maleficence in the land) and punishable accordingly.[6] As it is attributed to Muhammad in following hadith:
    “ Acquire it from me, acquire it from me. The Almighty has revealed the directive about women who habitually commit fornication about which He had promised to reveal. If such criminals are unmarried or are the unsophisticated youth, then their punishment is a eighty stripes and exile and if they are widowers or are married, then their punishment is a hundred stripes and death by stoning.
    — Sahih Muslim, 1690 ”
    The former regulations (i.e. the steps taken for the punishment to occur) also make some Muslims believe, that the process’ goal was to eventually abolish the physical penalties relating to acts of (fornication and) adultery, that were already present within many societies around the world when Islamic teachings first arose. According to this view, the principles are so rigorous in their search for evidence, that they create the near impossibility of being able to reach a verdict that goes against the suspect in any manner. [1]
    Punishments may go ahead despite a lack of the forementioned evidence if those guilty of adultery or premarital sex decided to admit to their sins, and then accepted the punishment. This would be an indication of honesty and piety and if the sinner repents and vows never to commit such an act of sin again (Tawba Nasuha), then their punishment of the lashes or the stoning would acquit them of the sin they had committed on the day of judgement. If confessed in sincerity, the punishment purges the offender of the sin in the hereafter so their punishment on earth is less severe than what they might receive in purgatory.( এটা পুরো টাই পড়েন)

    সে অনেক গবেষনা করেই ঐ বল্ড করা কথা বলেছে। এট লিস্ট একটি হাদিস জানা দরকার আপনার আল কুরানে রহিত আয়াতের ব্যাপারে, তাহলে বুঝতে ক্লিয়ার হবে?

    কিন্তু যদি আমাদের হিসাবে ভুল থাকে, মানে আমরা ভুল করে এ বিধান প্রয়োগ করে থাকি, তাহলে কিসাস জারী হয়ে যাবে, একজন নিরাপরাদ মুসলিম কে যদি কেউ মারে চেয়ে, তখন আল্লাহ পাকের কাছে সারা পৃথিবী-ই ধংশ করা সহজ( এ ব্যাপারটি আমার মুঘস্ত নেই, আশাকরি আপনি জানেন)। আমরা যতই ভাল হইনা কেন, আল্লাহ পাক যদি কাউকে কোন শস্তি না দিয়ে থাকেন, আর আমরা যদি তা করি, তাহলে আমাদের খবর আছে। আমরা মুসলমান হয়েছি বলে, আল্লাহ পাক আমাদের কাছে ঋনী হন নাই, যে আমরা যা ইচ্ছা করব আর তিনি ক্ষমা করে দিবেন। বিষয় কি রিক্সি বুঝতে পেরেছেন। না পারলে আমার কিছু করার নেই। আল্লাহ পাকের নামে এই কাজ করবেন, যা প্রমান করাই কষ্ঠকর। এবং তা হত্যার পর্যায়ে পরে, যদি আল্লাহর বিধানে তা না থাকে, কি হবে বুঝতেছেন। …………..

    ফুয়াদ

    @ফুয়াদ,

    রহিত আয়াতের ব্যাপারে যে কথা গুলি বললেন ঐ আয়াতের সমর্থনে হাদিস থাকা জরুরি, যদি থাকে আমাদের জানাইয়েন।

    সাদাত

    @ফুয়াদ,
    ইনশাআল্লাহ

    সাদাত

    @ফুয়াদ,
    Javed Ahmad Ghamidi কে আমি চিনি। আপনি চেনেন কি? তার সব মত আপনি কি জানেন? উনাকে নিয়ে লিখতে গেলে আরো কয়েকটা পোস্ট লাগবে। কিন্তু ব্যক্তি আলোচনায় আমি যেতে চাই না। তার চেয়ে ভালো ব্যক্তিমত নিয়ে আলোচনা করি। আমি যাদের ওপর নির্ভর করছি তাঁরা উনার চেয়ে এলেম, তাকওয়ায় কোন অংশেই কম নন।

  8. (F)
    বুকমার্ক করে রাখলাম। ইনশাআল্লাহ, পরে বিষদভাবে পড়বো।

  9. সাদাত, সহমত । কষ্ট করে সঠিক বিষয়টি তুলে ধরার জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ ।

    সাদাত

    @হাফিজ,

    এত শর্টকাট সহমত জানালে হবে না। আলোচনা করেন।

    হাফিজ

    @সাদাত,ভাই অনেক ব্যস্ত । একটু সময় দ্যান । আগে বাসায় ইন্টারনেট নিয়ে নেই , তারপরে ইনশাল্লাহ আলোচনা বেশী বেশী করে করা যাবে । বোঝেন তো অফিস থেকে সবসময় নেটে সময় দেয়া যায় না ।

  10. @সাদাত,

    “এখানে সন্দেহ হতে পারে, রজমের হুকুম সূরা নূর অবতরণের পরে হয়ত রহিত হয়ে গেছে!
    কিন্তু
    ১.সূরা নূর অবতীর্ণ হয় ৬ষ্ঠ হিজরি বা তারও আগে।
    ২.আবু হুরায়রা(রা.) হতে রজম প্রয়োগের বেশ কিছু হাদিস পাওয়া যায়।
    ৩.আবু হুরায়রা(রা.) মদিনায় আসেন ৭ম হিজরিতে।
    ৪. গামেদ গোত্রীয় একজন মহিলার প্রতি রজমের নির্দেশ দেন, যেটা ৯ম হিজরি ঘটনা।

    কাজেই, সূরা নূরের আয়াত দ্বারা রজমকে রহিত করার ধারণা ইতিহাসের পরিপন্থী।”

    এ কথাগুলোর কি রেফারেন্স দেয়া যাবে?

    সাদাত

    @নাজনীন,

    এক.
    এই তথ্যগুলোর বিপরীত কোন তথ্য আপনার হাতে থাকলে শেয়ার করুন।

    দুই.
    ১.সূরা নূর অবতীর্ণ হয় ৬ষ্ঠ হিজরি বা তারও আগে।

    The general agreement of scholars is that is sura was revealed shortly before or after the Battle of the Trench in 5 AH
    http://en.wikipedia.org/wiki/An-Nur

    ২.আবু হুরায়রা(রা.) হতে রজম প্রয়োগের বেশ কিছু হাদিস পাওয়া যায়।
    এই পোস্টেই অনেক রেফারেন্স আছে।

    ৩.আবু হুরায়রা(রা.) মদিনায় আসেন ৭ম হিজরিতে।

    Abu Hurayrah stayed in Tihamah for several years and it was only at the beginning of the seventh year of the Hijrah that he arrived in Madinah with others of his tribe.
    http://www.msawest.net/islam/history/biographies/sahaabah/bio.ABU_HURAYRAH.html

    এই তথ্য হতে হযরত মায়াজ(রা.) এর রজমের ঘটনা যে সূরা আন-নূর অবতরণের পরের ঘটনা তা নিশ্চিতভাবে বলা যায়।

    ৪. গামেদ গোত্রীয় একজন মহিলার প্রতি রজমের নির্দেশ দেন, যেটা ৯ম হিজরি ঘটনা।
    বিষয়টা সম্পর্কে কারো দ্বিমত আছে বলে আমার জানা নেই। তবে এর রেফারেন্স ও দেব ইনশাআল্লাহ।

  11. আর আপনি প্রথম যে কয়টা হাদীস দিয়েছেন, সেগুলোতে ইহুদীদের ক্ষেত্রে তাওরাত অনুযায়ী শাস্তি দেবার কথা বলা হয়েছে, সেটা যে মুসলিমদের ক্ষেত্রেও প্রযোজ্য, এটা কিন্তু স্পষ্টভাবে বলা হয়নি।

    আবার,
    [Bukhari Vol.8, Book 78, No.: 629 ]
    Narrated Abu Huraira and Zaid bin Khalid:
    Two men had a dispute in the presence of Allah’s Apostle. One of them said, “”O Allah’s Apostle! Judge between us according to Allah’s Laws.”” The other who was wiser, said, “”Yes, O Allah’s Apostle! Judge between us according to Allah’s Laws and allow me to speak. The Prophet said, “”Speak.”” He said, “”My son was a laborer serving this (person) and he committed illegal sexual intercourse with his wife, The people said that my son is to be stoned to death, but I ransomed him with one-hundred sheep and a slave girl. Then I asked the learned people, who informed me that my son should receive one hundred lashes and will be exiled for one year, and stoning will be the lot for the man’s wife.”” Allah’s Apostle said, “”Indeed, by Him in Whose Hand my soul is, I will judge between you according to Allah’s Laws: As for your sheep and slave girl, they are to be returned to you.”” Then he scourged his son one hundred lashes and exiled him for one year. Then Unais Al-Aslami was ordered to go to the wife of the second man, and if she confessed (the crime), then stone her to death. She did confess, so he stoned her to death.”
    — এই যে হাদীসটি আপনি দিলেন, সেখানে দোষী ছেলেটিকে রজমের শাস্তি দেয়া হয়নি।

    মূলত উমর(রাঃ)কেই দেখা গেল মূলত রজমের কথা বলতে। অন্যরা যা বললেন, সূরা নূরের আগে না পরে বলতে পারছেন না।

    আবার কোরআন যেহেতু আল্লাহ্‌তাআলা নিজেই সংরক্ষণ করছেন, সেখানে একটি আয়াত হারিয়ে যাবার ব্যাপারটি কেমন বলে মনে হয়? তার মানে কি কোরআন অবিকৃত নেই?

    সাদাত

    @নাজনীন,

    পোস্ট আবার পড়েন। এখন একটা মিটিং আছে, উত্তর পাবেন ইনশাআল্লাহ।

    সাদাত

    @নাজনীন,

    নিচের হাদিস গুলো দেখেন:

    [Bukhari Vol.8, Book 82, No.: 803 ]
    Narrated Ash-Sha’bi:
    from ‘Ali when the latter stoned a lady to death on a Friday. ‘Ali said, “I have stoned her according to the tradition of Allah’s Apostle.”

    [Bukhari Vol.8, Book 82, No.: 805 ]
    Narrated Jabir bin Abdullah Al-Ansari:
    A man from the tribe of Bani Aslam came to Allah’s Apostle and Informed him that he had committed illegal sexual intercourse and bore witness four times against himself. Allah’s Apostle ordered him to be stoned to death as he was a married Person.

    [Bukhari Vol.8, Book 82, No.: 806 ]
    Narrated Abu Huraira:
    A man came to Allah’s Apostle while he was in the mosque, and he called him, saying, “O Allah’s Apostle! I have committed illegal sexual intercourse.’” The Prophet turned his face to the other side, but that man repeated his statement four times, and after he bore witness against himself four times, the Prophet called him, saying, “Are you mad?” The man said, “No.” The Prophet said, “Are you married?” The man said, “Yes.” Then the Prophet said, ‘Take him away and stone him to death.” Jabir bin ‘Abdullah said: I was among the ones who participated in stoning him and we stoned him at the Musalla. When the stones troubled him, he fled, but we over took him at Al-Harra and stoned him to death.

  12. কোন আয়াত হারিয়ে গেছে, এটা কেউ বলে নাই।
    তিলাওয়াত/হুকুম রহিত হওয়া আর হারানো এক না।

  13. তাফসিরে ইবনে কাসির:

    The Explanation of the Prescribed Punishment for Zina (Illicit Sex)

    Then Allah says:

    [الزَّانِيَةُ وَالزَّانِى فَاجْلِدُواْ كُلَّ وَاحِدٍ مِّنْهُمَا مِاْئَةَ جَلْدَةٍ]

    (The Zaniyah and the Zani, flog each of them with a hundred stripes.) This honorable Ayah contains the ruling on the law of retaliation for the person who commits illegal sex, and details of the punishment. Such a person will either be unmarried, meaning that he has never been married, or he will be married, meaning that he has had intercourse within the bounds of a lawful marriage, and he is free, adult and of sound mind. As for the virgin who is unwedded, the prescribed punishment is one hundred stripes, as stated in this Ayah. In addition to this he is to be banished from his homeland for one year, as was recorded in the Two Sahihs from Abu Hurayrah and Zayd bin Khalid Al-Juhani in the Hadith about the two bedouins who came to the Messenger of Allah . One of them said, “O Messenger of Allah, this son of mine was employed by this man, and committed Zina with his wife. I paid a ransom with him on behalf of my son one hundred sheep and a slave-girl, but when I asked the people of knowledge, they said that my son should be given one hundred stripes and banished for a year, and that this man’s wife should be stoned to death.” The Messenger of Allah said:

    «وَالَّذِي نَفْسِي بِيَدِهِ لَأَقْضِيَنَّ بَيْنَكُمَا بِكِتَابِ اللهِ تَعَالى، الْوَلِيدَةُ وَالْغَنَمُ رَدٌّ عَلَيْكَ، وَعَلى ابْنِكَ جَلْدُ مِائَةٍ وَتَغْرِيبُ عَامٍ، وَاغْدُ يَا أُنَيْسُ لِرَجُلٍ مِنْ أَسْلَمَ إِلَى امْرَأَةِ هذَا،فَإِنِ اعْتَرَفَتْ فَارْجُمْهَا»

    (By the One in Whose Hand is my soul, I will judge between you both according to the Book of Allah. Take back the slave-girl and sheep, and your son is to be given one hundred stripes and banished for one year. O Unays — he said to a man from the tribe of Aslam — go to this man’s wife, and if she confesses, then stone her to death.) Unays went to her and she confessed, so he stoned her to death. This indicates that if the person who is guilty of illegal sex is a virgin and unmarried, he should be banished in addition to being given one hundred stripes. But if married, meaning he has had intercourse within the bounds of lawful marriage, and he is free, adult and of sound mind, then he should be stoned to death. Imam Malik recorded that `Umar, may Allah be pleased with him, stood up and praised and glorified Allah, then he said; “O people! Allah sent Muhammad with the truth, and revealed to him the Book. One of the things that was revealed to him was the Ayah of stoning to death, which we have recited and understood. The Messenger of Allah carried out the punishment of stoning and after him we did so, but I am afraid that as time goes by, some will say that they did not find the Ayah of stoning in the Book of Allah, and they will go astray because they abandoned one of the obligations revealed by Allah. Stoning is something that is prescribed in the Book of Allah for the person — man or woman — who commits illegal sex, if he or she is married, if decisive evidence is produced, or if pregnancy results from that, or if they confess to it.” It was also recorded in the Two Sahihs in the lengthy Hadith of Malik, from which we have quoted briefly only the portion that is relevant to the current discussion.

  14. তাফসির আল জালালাইন;

    The [unmarried] woman or [unmarried] man found guilty of sexual intercourse – lash each one of them with a hundred lashes, and do not be taken by pity for them in the religion of Allah , if you should believe in Allah and the Last Day. And let a group of the believers witness their punishment.

    Tafsir al-Jalalayn
    As for the fornicatress and the fornicator, that is, of those not in wedlock — because those [in wedlock] are stoned according to the Sunna (the al [in al-zāniya, ‘the fornicatress’, and al-zānī, ‘the fornicator’] according to some mentioned [opinions] is a relative [particle]; the clause [al-zāniyatu wa’l-zānī] is a subject, and because of its similarity to a conditional, the fā’ has been inserted into the predicate, which is [the following, fa’jlidū]): strike each of them a hundred lashes, [a hundred] strikes (one says jaladahu to mean daraba jildahu, ‘he struck him on the skin’). According to the Sunna, in addition to this [punishment] there is also banishment for a whole year. The slave, however, receives half of the mentioned [punishment]. And do not let any pity for them overcome you in God’s religion, that is to say, in [the fulfilment of] His rulings, by disregarding any part of their prescribed punishment, if you believe in God and the Last Day, namely, the Day of Resurrection: in this [statement] there is an incitement to [abide by] what was [mentioned] before the conditional [above] and it also constitutes the response to the latter, or [at least is] an indication of the response to it. And let their punishment, the flogging, be witnessed by a group of the believers — some say [that this should be a group of] three; some say four, as in the number of witnesses testifying to an act of fornication.

  15. যে বিষয়ে কোরআনে সুস্পষ্ট বিধান আছে সেই একই বিষয়ে হাদিস থেকে সাংঘর্ষিক ও অমানবিক বিধানকে টেনে নিয়ে আসাটা অযৌক্তিক হয়ে যাচ্ছে কি-না। এ-বিষয়ে কোরআনে কোন বিধান না থাকলে না হয় একটা কথা ছিল।

    সাদাত

    @এস.এম. রায়হান,

    আপনার নিশ্চয় মনে আছে রজম প্রসঙ্গটা যখন আসল, আমি নিজেই সেটা নিয়ে আলোচনা না করার পক্ষপাতি ছিলাম। কিন্তু প্রসঙ্গ যখন এসেই গেছে, বিষয়টা ক্লিয়ার করা প্রয়োজন মনে করি। যে কেউ ভিন্নমত পোষণ করতেই পারেন, কিন্তু আমি সেই মতটিকেই তুলে ধরব যা ১৪০০ বছর ধরে চলে এসেছে। আপনি ভিন্নমত পোষণ করলে যুক্তি সহকারে আলোচনায় অংশগ্রহণ করুন। আশা করি মতভিন্নতাকে মতবিরোধে না নিয়ে গিয়েও যে সৌহার্দপূর্ণভাবে আলোচনা করা যায় আমরা তার একটা দৃষ্টান্ত তৈরি করতে পারব।

    প্রথমত:

    রজম অমানবিক কিনা?
    এক.
    রাসূলুল্লাহ(সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম) যে রজম প্রয়োগ করেছেন সেটা ঐতিহাসিকভাবে প্রমাণিত।
    হযরত মায়াজ(রা.) এবং গামেদ গোত্রীয় নারী সাহাবী(রা.) এর ওপর রজম প্রয়োগের ঘটনা হাদিস এবং ইতিহাসের গ্রন্থে এত অধিক পরিমাণে এবং ভিন্ন ভিন্ন চেইনে এসেছে যে ইচ্ছা করলেই সেটাকে অস্বীকার করা যায় না।
    কাজেই রজমের বিধানকে অমানবিক বলার আগে একটু চিন্তা করা দরকার।

    দুই.
    অতঃপর আমি তাকে ও তাঁর পরিবার পরিজনকে বাঁচিয়ে দিলাম, কিন্তু তার স্ত্রী। সে তাদের মধ্যেই রয়ে গেল, যারা রয়ে গিয়েছিল। আমি তাদের উপর প্রস্তর বৃষ্টি বর্ষণ করলাম।[৭:৮৩]

    অবশেষে যখন আমার হুকুম এসে পৌঁছাল, তখন আমি উক্ত জনপদকে উপরকে নীচে করে দিলাম এবং তার উপর স্তরে স্তরে কাঁকর পাথর বর্ষণ করলাম।[১১:২২]

    অতঃপর আমি জনপদটিকে উল্টে দিলাম এবং তাদের উপর কঙ্করের প্রস্থর বর্ষণ করলাম।[১৫:৭৪]

    তোমরা কি এ বিষয়ে নিশ্চিন্ত রয়েছ যে, তিনি তোমাদেরকে স্থলভাগে কোথাও ভূগর্ভস্থ করবেন না। অথবা তোমাদের উপর প্রস্তর বর্ষণকারী ঘুর্ণিঝড় প্রেরণ করবেন না, তখন তোমরা নিজেদের জন্যে কোন কর্মবিধায়ক পাবে না।[১৭:৬৮]

    আমি তাদের প্রতি প্রেরণ করেছিলাম প্রস্তর বর্ষণকারী প্রচন্ড ঘূর্ণিবায়ু; কিন্তু লূত পরিবারের উপর নয়। আমি তাদেরকে রাতের শেষপ্রহরে উদ্ধার করেছিলাম।[৫৪:৩৪]

    রজম অমানবিক হলে, এই আয়াতগুলোতে আল্লাহপাক যে শাস্তিগুলো দিয়েছেন, সেগুলোকেও কি অমানবিক বলা যাবে কি না?

    দ্বিতীয়ত:
    রজমের বিধান আল-কুরআনের বিধানের সাথে সাংঘর্ষিক কি না?

    এক.
    আল-কুরআনে সব বিধানের গাইডলাইন দেওয়া আছে, যেটার প্রায়োগিক ব্যবহারের জন্য সুন্নাহর ওপর নির্ভর করতেই হবে।
    সুন্নাহতে যদি ব্যভিচারীর শাস্তি রজম বলা হত এবং ১০০ বেত্রাঘাতের কোন উল্লেখ না থাকত তাহলে সেটাকে আল-কুরআনের সাথে সাংঘর্ষিক বলা যেত।
    কিন্তু সুন্নাহ ১০০ বেত্রাঘাতকে অস্বীকার করে নাই, বরং তার প্রয়োগের পাত্র নির্দিষ্ট করে দিয়েছে (অবিবাহিতের ক্ষেত্রে)। সাথে সাথে বিবাহিতের জন্য রজমের বিধানকে নির্দিষ্ট করেছে। কাজেই এটা কে সংঘর্ষ না বলে ব্যাখ্যা বলাই অধিক যুক্তিযুক্ত।

    দুই.

    নিচের আয়াতগুলো লক্ষ করুন:

    আল্লাহ তোমাদেরকে তোমাদের সন্তানদের সম্পর্কে আদেশ করেনঃ একজন পুরুষের অংশ দু?জন নারীর অংশের সমান। অতঃপর যদি শুধু নারীই হয় দু’ এর অধিক, তবে তাদের জন্যে ঐ মালের তিন ভাগের দুই ভাগ যা ত্যাগ করে মরে এবং যদি একজনই হয়, তবে তার জন্যে অর্ধেক। মৃতের পিতা-মাতার মধ্য থেকে প্রত্যেকের জন্যে ত্যাজ্য সম্পত্তির ছয় ভাগের এক ভাগ, যদি মৃতের পুত্র থাকে। যদি পুত্র না থাকে এবং পিতা-মাতাই ওয়ারিস হয়, তবে মাতা পাবে তিন ভাগের এক ভাগ। অতঃপর যদি মৃতের কয়েকজন ভাই থাকে, তবে তার মাতা পাবে ছয় ভাগের এক ভাগ ওছিয়্যতের পর, যা করে মরেছে কিংবা ঋণ পরিশোধের পর। তোমাদের পিতা ও পুত্রের মধ্যে কে তোমাদের জন্যে অধিক উপকারী তোমরা জান না। এটা আল্লাহ কতৃক নির্ধারিত অংশ নিশ্চয় আল্লাহ সর্বজ্ঞ, রহস্যবিদ।[৪:১১]

    আর, তোমাদের হবে অর্ধেক সম্পত্তি, যা ছেড়ে যায় তোমাদের স্ত্রীরা যদি তাদের কোন সন্তান না থাকে। যদি তাদের সন্তান থাকে, তবে তোমাদের হবে এক-চতুর্থাংশ ঐ সম্পত্তির, যা তারা ছেড়ে যায়; ওছিয়্যতের পর, যা তারা করে এবং ঋণ পরিশোধের পর। স্ত্রীদের জন্যে এক-চতুর্থাংশ হবে ঐ সম্পত্তির, যা তোমরা ছেড়ে যাও যদি তোমাদের কোন সন্তান না থাকে। আর যদি তোমাদের সন্তান থাকে, তবে তাদের জন্যে হবে ঐ সম্পত্তির আট ভাগের এক ভাগ, যা তোমরা ছেড়ে যাও ওছিয়্যতের পর, যা তোমরা কর এবং ঋণ পরিশোধের পর। যে পুরুষের, ত্যাজ্য সম্পত্তি, তার যদি পিতা-পুত্র কিংবা স্ত্রী না থাকে এবং এই মৃতের এক ভাই কিংবা এক বোন থাকে, তবে উভয়ের প্রত্যেকে ছয়-ভাগের এক পাবে। আর যদি ততোধিক থাকে, তবে তারা এক তৃতীয়াংশ অংশীদার হবে ওছিয়্যতের পর, যা করা হয় অথবা ঋণের পর এমতাবস্থায় যে, অপরের ক্ষতি না করে। এ বিধান আল্লাহর। আল্লাহ সর্বজ্ঞ, সহনশীল।[৪:১২]

    মানুষ আপনার নিকট ফতোয়া জানতে চায় অতএব, আপনি বলে দিন, আল্লাহ তোমাদিগকে কালালাহ এর মীরাস সংক্রান্ত সুস্পষ্ট নির্দেশ বাতলে দিচ্ছেন, যদি কোন পুরুষ মারা যায় এবং তার কোন সন্তানাদি না থাকে এবং এক বোন থাকে, তবে সে পাবে তার পরিত্যাক্ত সম্পত্তির অর্ধেক অংশ এবং সে যদি নিঃসন্তান হয়, তবে তার ভাই তার উত্তরাধিকারী হবে। তার দুই বোন থাকলে তাদের জন্য পরিত্যক্ত সম্পত্তির দুই তৃতীয়াংশ। পক্ষান্তরে যদি ভাই ও বোন উভয়ই থাকে, তবে একজন পুরুষের অংশ দুজন নারীর সমান। তোমরা বিভ্রান্ত হবে আল্লাহ তোমাদিগকে সুস্পষ্ট ভাবে জানিয়ে দিচ্ছেন। আর আল্লাহ হচ্ছেন সর্ব বিষয়ে পরিজ্ঞাত।[৪:১৭৬]

    এবার একটা কেস হাতে নেন, যার জন্য প্রযোজনীয় তথ্য ওপরের আয়াতগুলোতে সুস্পষ্টভাবে বলা হয়েছে:
    কেস:
    এক নি:সন্তান লোক তার মাতা, স্ত্রী এবং ৩বোন রেখে মারা গেল। তার আর কোন ওয়ারিশ নাই। সে কোন ওছিয়্যত করে যায় নাই, এবং তার কোন ঋণও নাই।
    কোন ওয়ারিশ তার সম্পত্তির কত অংশ পাবে?

    আমি একটু সাহায্য করি:
    ১.
    স্ত্রীদের জন্যে এক-চতুর্থাংশ হবে ঐ সম্পত্তির, যা তোমরা ছেড়ে যাও যদি তোমাদের কোন সন্তান না থাকে। আর যদি তোমাদের সন্তান থাকে, তবে তাদের জন্যে হবে ঐ সম্পত্তির আট ভাগের এক ভাগ, যা তোমরা ছেড়ে যাও ওছিয়্যতের পর, যা তোমরা কর এবং ঋণ পরিশোধের পর।
    ২.
    যদি কোন পুরুষ মারা যায় এবং তার কোন সন্তানাদি না থাকে এবং এক বোন থাকে, তবে সে পাবে তার পরিত্যাক্ত সম্পত্তির অর্ধেক অংশ এবং সে যদি নিঃসন্তান হয়, তবে তার ভাই তার উত্তরাধিকারী হবে। তার দুই বোন থাকলে তাদের জন্য পরিত্যক্ত সম্পত্তির দুই তৃতীয়াংশ।

    বাকিটুকু আপনারা বের করুন।

    তারপর আমাকে বলুন মাতা, স্ত্রী এবং ৩ বোন কত অংশ করে পাবে?

    হাফিজ

    @সাদাত, আমি আপনার লেখা মনোযোগ দিয়ে পড়েছি এবং উত্তর এর জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ । কোরআন শরীফে যেকোনো জিনিসের মুলনীতি বলা আছে , আর সেটা কিভাবে বাস্তবায়ন করতে হবে আমরা পাই হাদিস শরীফের মাধ্যমে । এমনকি নামাজ কোনটা কয় রাকাত সেটাও কোরআন শরীফে নেই, যেটা হাদিস শরীফে বিস্তারিত এসেছে ।

    সাদাত

    @হাফিজ,
    আমি যেহেতু এ বিষয়ে একটি তথ্যবহুল/বিশদ লেখা দিতে চাচ্ছি, কাজেই আমার লেখার/ যুক্তির দুর্বলতাগুলোও তুলে ধরুন। যেসব জায়গায় অপূর্ণতা দেখতে পান, সেখানে আপনার মূল্যবান মন্তব্য পেশ করুন।

    অট: ব্লগের লোকজন সব গেল কৈ? আমি কি একাই এই ব্লগের ব্লগার নাকি? কয়দিন ধরে ব্লগটা যেন মানবশূন্য মনে হচ্ছে!

    হাফিজ

    @সাদাত,

    কতগুলো বিষয়ে মাঝে মাঝেই প্রশ্ন আকারে আসে যেটা নির্দিষ্ট একটি মাসআলার সাথে সম্পর্কিত নয় । যেমন যে মাসআলাই আমরা আলোচনায় আনি না কেনো এই প্রশ্নগুলো আসতে পারে :-

    ** কোরআন শরীফে কোনো বিষয়ের উল্লেখ না থাকলে , সেটা হাদিস শরীফ দ্বারা দলীল সাব্যস্হ হতে পারে কিনা ?
    ** কোরআন শরীফের সাথে হাদিস শরীফ কোনো নির্দিষ্ট মাসআলার ক্ষেত্রে সাংঘর্ষিক হতে পারে কিনা ?
    ** যেকোন একটি মাসআলা বের করার ক্ষেত্রে সাধারনত ফকীহগন কি ধরনের স্টেপ ফলো করে থাকেন …
    ** সরাসরি কোনো হাদিস দেখে কোনো সিদ্বান্তে আসা যায় কিনা ? নাকি সে বিষয়ের সাথে সম্পর্কিত কোরআনের আয়াত , সকল হাদিস , সাহাবীদের আমল, তাবেয়ীদের আমল, মাজহাবের ইমামদের ফয়সালা এ সমস্ত সকল বিষয় পর্যালোচনায় আনা উচিত ?

    ইত্যাদি বিষয়গুলো আলাদা আলোচনার দাবী রাখে । কেননা যেকোন একটি মাসআলা বলার সময় যদি বারবার এই বিষয়গুলো সকলকে ব্যাখ্যা করতে হয় , তাহলে সেটা সময়ের অপচয় এবং ক্লান্তি চলে আসতে পারে । এরচেয়ে বরং আমরা যদি উপরের প্রতিটি বিষয়ে আলাদা পোস্ট দিয়ে রাখি , তাহলে যেকোনো পোস্টে বারবার ব্যাখ্যা করার পরিবর্তে রেফারেন্স দিয়ে দিলেই চলবে । সময় , শ্রম সবই সাশ্রয় হোলো আর কি ।

    সাদাত

    @হাফিজ,

    ঠিক বলেছেন।
    এই আলোচনা থেকে যে পয়েন্টগুলো বের হয়ে আসছে, তার প্রত্যেকটা পয়েন্টের ওপর আলাদা আলাদা পোস্ট দেবার নিয়ত আছে।

    হাফিজ

    @সাদাত,আল্লাহ পাক আপনাকে তওফীক দিক, আমিন ।

    হাফিজ

    @সাদাত,

    অট: ব্লগের লোকজন সব গেল কৈ? আমি কি একাই এই ব্লগের ব্লগার নাকি? কয়দিন ধরে ব্লগটা যেন মানবশূন্য মনে হচ্ছে!

    আমারও তাই প্রশ্ন । মনে হচ্ছ মানুষজন ইসলামিক বিষয় নিয়ে আলোচনায় আর আগ্রহ পাচ্ছে না ।

    ফুয়াদ

    @হাফিজ,

    সমস্যায় আছি। কিন্তু ব্লগ দেখি প্রতি দিন তিনিবারের ও বেশী সময় ধরে, শুধু মন্তব্য দিতে পারতেছি না। :( :(

    হাফিজ

    @ফুয়াদ, দোয়া করি আল্লাহ তাআলা যেন সমস্যার সমাধান করে দেন । আপনার সমস্যার কথায় একটি ঘটনা মনে পড়ল ।

    এক বাদশাহ তার সভাসদদের একদিন ডেকে বলল , আমি আমার আংটিতে একটি লেখা লিখতে চাই ।
    লেখাটা এমন হতে হবে যেন যখনই আমি কোনো সমস্যায় পড়ি আংটির সেই লেখাটির দিকে তাকালে আমার মন প্রফুল্ল হয়ে যায় কিংবা বলতে পারো আমি যেন স্বস্তি লাভ করি ।

    অনেকে অনেক পরামর্শ দিল , কিন্ত বাদশার কারো লেখাই পছন্দ হোলো না । শেষে যার লেখাটি পছন্দ হোলো সেটা ছিল এমন :

    “কোন সমস্যাই চিরস্হায়ি নয় , এই সমস্যাও একদিন কেটে যাবে”

    দ্য মুসলিম

    @হাফিজ,
    এই ব্লগে আমি সাধারণত প্রতিদিন ৩-৪ ঘন্টা সময় দিয়ে থাকি। গত কয়েকদিন আগে গ্রামের বাড়িতে যাওয়ার কারনে বিচ্ছিন্ন ছিলাম।

    হাফিজ

    @দ্য মুসলিম, আশাকরছি আবার আপনি সজীব হয়ে উঠবেন ।

  16. সাদাত ভাই, আলহামদুলিল্লাহ, ভালো লিখেছেন – কিন্তু ইসলামের এত সিরিইয়াস একটা ব্যাপার নিয়ে আলোচনা করাটা একটু বিপদজনক না? বিশেষত আপনি যাদের সাথে আলোচনা করছেন তাদের অনেকের ইসলামের জ্ঞান এর উৎসটা করাপ্টেড।

    হাফিজ

    @মনপবন, আপনি ঠিকই বলেছেন , তবে সাদাত ভাই এর বক্তব্য অনুযায়ী উনি এই বিষয়টি আনতেন না , যদি না অন্য কেউ এই বিষয়ে অভিযোগ উত্থাপন না করত । যেহেতু বিষয়টি আগেই ব্লগে এসেছে , তাই এটার সুষ্ঠু সমাধানের জন্য উনি প্রসংগটি এনেছেন ।