লগইন রেজিস্ট্রেশন

মুক্তমনার যুক্তিখন্ডন: আধুনিক কাল্পনিক সমস্যার প্রাচীন উত্তর

লিখেছেন: ' সাদাত' @ বুধবার, এপ্রিল ৭, ২০১০ (১২:১৭ অপরাহ্ণ)

Image and video hosting by TinyPic

মুক্তমনার কাল্পনিক সমস্যা:

আসলে আধুনিক জীবন-যাত্রার সাথে তাল মেলাতে পুরোন ধর্মীয় কানুন মানতে গিয়ে দেখা দিচ্ছে নানা জটিলতা। ভবিষ্যতে এই জটিলতা আরও বাড়বে। যেমন, কোন নভোচারী অথবা কোন বিমান চালক ১০৪১.৬৭ মাইল বেগে পশ্চিম দিকে বিমান চালালে সূর্যকে সবসময়ই তার কাছে গতিশীল মনে হবে। অর্থাৎ বিমান আরোহীর কাছে সকাল, দুপুর আর সন্ধ্যা বলে কিছু থাকবে না- সূর্য যেন স্থিরভাবে একস্থানে দাঁড়িয়ে থাকবে। এই অবস্থায় বিমান আরোহীদের নামায-রোজার উপায় কি? ভবিষ্যতে মেরু অঞ্চলের কাছাকাছি যদি বসতি গড়তে হয়, তবে দেখা দেবে আরও এক সমস্যা। সেখানে প্রায় ছয় মাস থাকে দিন আর ছয় মাস থাকে রাত। সেখানে সূর্যোদয় থেকে সূর্যাস্ত পর্যন্ত রোজা রাখা আর দিনে পাঁচ বার নামাজ পড়া কি আদৌ সম্ভব? এটি বোঝা মোটেই কঠিন নয় যে, প্রাচীনকালে মানুষের সমতল পৃথিবী ব্যাপারে ভুল ধারণার কারণেই আজকের দিনে নিয়ম পালনে এই জটিল সমস্যার সৃষ্টি হয়েছে।

[সূত্র: বিজ্ঞানময় কিতাব - অভিজিৎ রায়]

প্রাচীন উত্তর:


আল-কুরআনের দিক নির্দেশনা:


১. “আল্লাহ কাউকে তার সাধ্যাতীত কোন কাজের ভার দেন না”[২:২৮৬]

২. যে লোক রসূলের হুকুম মান্য করবে সে আল্লাহরই হুকুম মান্য করল। আর যে লোক বিমুখতা অবলম্বন করল, আমি আপনাকে (হে মুহাম্মদ), তাদের জন্য রক্ষণাবেক্ষণকারী নিযুক্ত করে পাঠাইনি।[৪:৮০]

৩. হে ঈমানদারগণ! আল্লাহর নির্দেশ মান্য কর, নির্দেশ মান্য কর রসূলের এবং তোমাদের মধ্যে যারা বিচারক তাদের। তারপর যদি তোমরা কোন বিষয়ে বিবাদে প্রবৃত্ত হয়ে পড়, তাহলে তা আল্লাহ ও তাঁর রসূলের প্রতি প্রত্যর্পণ কর-যদি তোমরা আল্লাহ ও কেয়ামত দিবসের উপর বিশ্বাসী হয়ে থাক। আর এটাই কল্যাণকর এবং পরিণতির দিক দিয়ে উত্তম।[৪.৫৯]


    দেখা যাক এ ব্যাপারে রাসূলু্ল্লাহ (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম) এর দিকনির্দেশনা কী?


হযরত নাওয়াস ইবনে সামআন(রা.) হতে বর্ণিত:

আমরা আরজ করলাম: ইয়া রাসূলু্ল্লাহ (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম)! সে [দাজ্জাল] কতদিন থাকবে? তিনি বললেন: সে চল্লিশ দিন থাকবে, কিন্তু প্রথম দিন এক বছরের সমান হবে। দ্বিতীয় দিন এক মাসের এবং তৃতীয় দিন এক সপ্তাহের সমান হবে। অবশিষ্ট দিনগুলো সাধারণ দিনের মতই হবে। আমরা আরজ করলাম, ইয়া রাসূলু্ল্লাহ (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম)! যে দিনটি এক বছরের সমান হবে, আমরা কি তাতে শুধু এক দিনের (পাঁচ ওয়াক্ত) নামাযই পড়ব? তিনি বললেন: না, বরং সময়ের অনুমান করে পূর্ণ এক বছরের নামায পড়তে হবে।

[তাফসিরে মা’আরেফুল কুর’আন]

আমার আর বলার কিছু আছে কি?

Processing your request, Please wait....
  • Print this article!
  • Digg
  • Sphinn
  • del.icio.us
  • Facebook
  • Mixx
  • Google Bookmarks
  • LinkaGoGo
  • MSN Reporter
  • Twitter
১১৬ বার পঠিত
1 Star2 Stars3 Stars4 Stars5 Stars (ভোট, গড়: ৫.০০)