লগইন রেজিস্ট্রেশন

ইতিহাস যে কথা বলে না (সম্রাট আকবর ও তার দিন-ই-ইলাহির পতন কাহিনিঃ -) !

লিখেছেন: ' দেশী৪৩২' @ সোমবার, ডিসেম্বর ২১, ২০০৯ (১:০৩ পূর্বাহ্ণ)

সম্রাট আকবর ও তার দিন-ই-ইলাহির পতন কাহিনিঃ –

ইমামে রাব্বানী হযরত মোজাদ্দেদ আলফেছানি শায়েখ আহমদ ফারুক সেরহিন্দ (রাঃ) ছিলেন দ্বিতীয় সহস্রাব্দের মোজাদ্দেদ বা সংস্কারক।তিনি
১৪ই শাওয়াল ৯৭১ হিজরিতে ভারতের সেরহিন্দ শহরে জন্ম গ্রহন করেন।তিনি আকবর ও জাহাঙ্গীর দুই অত্যাচারী ইসলাম বিরোধী সম্রাটের মধ্যবর্তী সময়ে মোজাদ্দেদ হিসাবে আত্নপ্রকাশ করেন।সম্রাট আকবর ছিলেন ইসলাম ধর্মের ঘোড় বিরোধী।তার শাসনামলে মোসলমানদের দুরবস্হার কোন সীমা ছিল না। সম্রাট আকবর ইসলাম ধর্মের পরিবর্তে নতুন এক ধর্মের প্রবর্তন করেন।ইহা ছিল স্পষ্টতই এক কুফরী ধর্ম অথচ এই নতুন ধর্মের নাম দেওয়া হলো ”দ্বীন-ই-ইলাহী”।
এই নতুন ধর্মের প্রধান উপাদান ছিল সূর্যের উপাসনা করা।বাদশাহ প্রভাতে,দ্বিপ্রহরে,সন্ধায় ও অর্ধরাত্রে বাধ্যতামূলকভাবে সূর্য পূজা করিতেন।তিনি তিলক লাগাতেন ও পৈতা পরতেন।সূর্যদয়ের সময় ও মধ্যরাত্রিতে নহবত ও নাকাড়া বাজান হতো।এই নতুন ধর্মে সূর্যের নাম উচ্চারনকালে ‘জাল্লাত কুদরাতুহু’ বলা হতো।বাদশাহ বিশ্বাস করতেন যে ,সূর্য বাদশাহ গনের অভিবাবক ও হিতাকাঙ্খী।তিনি তাই হিন্দুদের কাছ থেকে সূর্যকে বশীভূত করার মন্ত্র শিখেছিলেন।মাঝরাত্রে ও ভোরে তিনি এই মন্ত্র পাঠ করতেন।শিবরাতে তিনি যোগীদের আসরে সমস্ত রাত্রি বসে থাকতেন এবং বিশ্বাস করতেন যে ,ইহাতে আয়ু বৃদ্ধী পায়।
‘ব্রাক্ষ্মদান’ নামক জনৈক ব্রাক্ষ্মনকে বাদশাহ রাজকবি নিযুক্ত করেন। ইতিহাসে তিনিই ”বিরবল” নামে পরিচিত ।তারই পরামর্শে ‘দেবী’ নামক জনৈক হিন্দু দর্শনিক বাদশাহর সহিত মেলামেশা করার সুযোগ পায়।রাত্রিকালে বাদশাহর অন্দরমহলেও এই দার্শনিকের
অবাধ যাতায়াত ছিল।বাদশাহ তাহার সহিত সাক্ষাৎ করার জন্য সর্বদা উদগ্রীব থাকতেন।এই দেবী ও গৌতম নামের জনৈক ব্রাক্ষ্মনের কাছ থেকে বাদশাহ মূর্তি,সূর্য,আগুন,ব্রক্ষ্মা,মহামায়া,বিষ্ঞু, কৃষ্ঞ ও মহাদেব পূজার কায়দা কানন শুনে বড়ই উৎফুল্ল হতেন এবং এইসব গ্রহনও করতেন।ইহা ছারা এই ধর্মে আগুন,পানি,গাছ,গাভী পূজা করা হত।নক্ষত্র পূজার ব্যাপারেও বাদশাহ অত্যধিক বাড়াবাড়ি করতেন।
হিন্দুদের পুনর্জন্মবাদে বিশ্বাস করাও ছিল এই ধর্মের কর্তব্য।
হির বিজয় সূরী নামক জনৈক সাধুকে বাদশাহ ‘জগৎগুরু’ উপাধি দেন।
সম্রাট আকবর হিন্দুদের পূনর্জন্মবাদে বিশ্বাস করতেন। মৃত্যুর পর তিনিও পুনরায় অন্য কোন সিংহাসনে আরোহন করবেন বলে বাদশাহ বিশ্বাস করতেন।ব্রাক্ষ্মনগন তাকে বুঝিয়ে দিয়েছিল যে ,শক্তিশালী বাদশাহর শরীরে আত্নার জন্ম হয় এবং কামেল মণীষীগনের আত্না মৃত্যুর সময় মস্তকের তালু দিয়া বাহির হয়ে যায়।এই ধারনার বশবর্তী হয়ে তিনি মাথার তালুর চুল কামাইয়া ফেলিতেন এবং মস্তকের চারিদিকে চুল রেখে দিতেন।বাদশাহ জৈন সাধুদের যথেষ্ট প্রভাবিত হয়েছিলেন।সাধু সঙ্গ লাভের পর হতে তাহার নিকট সব সময় এমনকি ভ্রমনের সময়েও একজন জৈন সাধু থাকত।”হির বিজয়সুরী” নামক এক সাধুকে তিনি ‘জগৎগুরু’ উপাধী দিয়েসিলেন।নন্দা বিজয়সূরী নামক এক সাধুকে তিনি ‘খশফহম’ উপাধী দিয়েছিলেন। হির বিজয় সূরীকে খুশী করবার জন্য তিনি ধর্মপর্ব ‘পর্যুষনে’ বার দিন জীব হত্যা নিষিদ্ধ করবার ফরমান জারী করেছিলেন।জৈন ধর্ম অনুযায়ী বাদশাহ নিজেও মাংশ ভক্ষন ত্যাগ করেছিলেন।এ বিষয়ে বাদশাহ স্বয়ং সূরীজিকে এক পত্র প্রেরন করেন।উহাতে তিনি সূরীজি কতৃক কিরূপ প্রভাবিত হন তাহার পরিচয় পাওয়া যায়।পত্রটি নিম্নরূপঃ
”আমি আপনার উপদেশ অনুযায়ী সম্পূর্নরূপে জীবহিংসা পরিত্যাগ করতে পারি নি।তবে আমি আগের চেয়ে এখন অনেক কম মাংশ আহার করি।আপনি হয়ত জানেন যে , আমি ফতেহপুর হতে আজমীর পর্যন্ত রাজপথের পার্শ্বে প্রতি একশ ক্রোশ পর পর একশত চৌদ্দটি স্তম্ভ নির্মান করেছি।ঐগুলি প্রায় ছত্রিশ হাজার হরিনের শিং দিয়ে সজ্জিত করেছি।ঐগুলি আমি নিজ হাতে শিকার করেছিলাম।আমি এত জীবের প্রান সংহার করেছি। আমার মতো পাপী কেহ নেই।ইহা ছাড়া আমি প্রতিদিন নানা প্রকার জীবের মাংশ সহ পাচশত চড়াই পাখীর জিহ্বা দ্বারা উদর পূর্তি করতাম। ঐ কথা ভাবিতে গেলেও এখন আমি আতংকিত হয়ে উঠি।আপনার শ্রীমুখের অমিয়বানী আমাকে মাংসাহারে অরুচি এনে দিয়েছে।এখন বৎসরে ছয়মাস বা ততোধিক সময় আমি মাংস আহার করি না।-”
অগ্নিপূজকদের দারাও বাদশাহ যথেষ্ট প্রভাবিত হয়েছিলেন।তাহার আদেশে দরবারের সন্মুখে সর্বক্ষন অগ্নি প্রজ্জলন করবার ব্যাবস্হা করা হয়।ঘন্টাধ্বনি প্রভৃতি গ্রহন করা হয় খৃষ্টানদের নিকট থেকে।মোটকথা ইসলাম ছাড়া অন্য সব ধর্মই বাদশাহর চোখে সুন্দর মনে হত।তার চোখে সবচেয়ে সুন্দর মনে হতো হিন্দুধর্ম।তাই তার নতুন ধর্ম ‘দ্বীন-ই-ইলাহির’ বেশীর ভাগ উপাদানই গৃহীত হয়েছিল হিন্দুধর্ম হতে।তাই সঙ্গত কারনেই
হিন্দু এবং রাজপুতদের নিকটই এই অদ্ভুত ধর্ম সমাদর লাভ করেছিল সবচাইতে বেশী।সম্ভবত বাদশাহ আকবেরর কাম্যও ছিল তাই।
দীন-ই-ইলাহির মূলমন্ত্র ছিল ”লা ইলাহা ইল্লালাহু আকবারু খলিলুল্লাহì”যাহারা নুতন ধর্মে দাখিল হত তাদেরকে এরূপ শপথ বাক্য উচ্চারন করতে হতো- ”আমি অমুকের পুত্র অমুক এতদিন বাপ দাদাদের
অনুকরনে ইসলাম ধর্মের উপর প্রতিষ্ঠত ছিলাম, এখন স্বেছ্ছায় ও সগ্গানে
পূর্ব ধর্ম পরিত্যাগ করে ‘দীন-ই-ইলাহি’ গ্রহন করিতেছি এবং এই ধর্মের জন্য জীবন,সম্পদ ও সম্মান বিসর্জন দিতে প্রস্তুত আছি।”
দীন-ই-ইলাহির লোকেরা চিঠিপত্রের শিরোনামে ‘আল্লাহ আকবর’
লিখিত এবং পরস্পরের সাক্ষাতের সময় সালামের পরিবর্তে একজন বলত
‘আল্লাহ আকবর” এবং অপরজন এর জবাবে বলত ‘জাল্লাজালালুহু’।
বাদশাহ তাহাদিগকে শিজরা স্বরূপ তাহার একখানি প্রতিকৃতি প্রদান করতেন।তারা বাদশাহর এই প্রতিকৃতি পরম শ্রদ্ধাভরে নিজ নিজ
পাগড়ীতে বসিয়ে রাখত।
বাদশাহ যে সব পুজাপাবন করতেন অনুসারীগনকেও সেই সব করতে হত।উপরন্তু তাদেরকে বাদশাহকেও সেজদা করতে হত।ভন্ড সূফীদের সর্দার ‘তাজুল আরেফিন’ বাদশাহকে সেজদা করা ওয়াজেব বলে ফতোয়া দান করেন।এই সেজদার নাম করন করা হয় ‘জমিন বোছ’।তিনি বলেন বাদশাহর প্রতি সন্মান প্রদর্শন করা ফরজে আইন এবং চেহারা কেবলায়ে হাজত ও কাবায়ে মুরাদ।হিন্দুস্হানের ভ্রষ্ট সূফীদের কার্যপ্রনালী দলীলরূপে খাড়া করে তিনি এর ব্যাখ্যা প্রদান করেন।সাধারন ব্যক্তিছাড়াও বিশিষ্ট আলেমগনও এই শেরেকি কার্যে অভ্যস্হ ছিলেন।
এই নুতন ধর্মে সূদ ও জুয়া ছিল হালাল।খাছ দরবারে জুয়া খেলার জন্য একটি ঘর নির্মান করা হয় এবং জুয়াড়ীদেরকে রাজকোষ থেকে সুদি কর্জ দেয়া হত।মদ্যপান করাও হালাল সাব্যস্হ করা হয়। বাদশাহ স্বয়ং দরবারের নিকট একটি শরাবখানা খুলে দেন।নওরোজ অনুষ্ঠানে অধিকাংশ আলেম,কাজী ও মুফতিগনকে শরাব পান করতে বাধ্য করা হত।এই সব অনুষ্ঠানে বিভিন্ন লোকের নামে পেয়ালা নির্বাচিত হত। ফৈজি বলতেন , ”আমি এই পেয়ালাটি পান করছি ফকিহদএর অন্ধ বিশ্বাসের নামে।-”
এই ধর্মে দাড়ি মুন্ডনের ব্যাপারে অত্যধিক গুরুত্ব দেয়া হত। বাদশাহ এই ব্যাপারে রাজপুত পত্নীদের দ্বারা প্রভাবান্বিত হন।
নাপাকির জন্য গোসল করা ইসলামে ফরজ।কিন্তু বাদশাহ আকবরের ধর্মে এর বিপরিত মত প্রকাশ করা হয়।বলা হয় যে ‘মনী’ উৎকৃষ্ট মানুষ সৃষ্টির বীজ। তাই গোসল করিয়া সহবাস করাই উত্তম।তাহা
ছারা বিবাহ সম্পর্কে আইন করা হয় কেহ তাহার চাচাত,মামাত,ফুফাত ইত্যাদি সম্পর্কের বোনকে বিবাহ করতে পারবে না। ষোল বৎসর পুর্বে বালক এবং চৌদ্দ বৎসরের পুর্বে বালিকাদের বিবাহ দেওয়া চলিবে না এবং কেহ একাধিক বিবাহ করিতে পারিবে না।
যুবতী নারীদের বাধ্যতামুলকভাবে চেহারা খুলিয়া পথ চলা ছিল এই ধর্মের আইন। শহরের বাহিরে বিভিন্ন যায়গায়
পতিতাদের বসতি স্হাপন করিয়া ব্যাভিচারকে আইন সঙ্গত করা হয়।পতিতালয় গুলির নাম দেয়া হয় ‘শয়তানপুর’।এই সব স্হানে পুলিশ প্রহরার ব্যবস্হা করা হয়।
খৎনারূপ সুন্নতকে মিটাইয়া দেবার জন্য বার বৎসরের পূর্বে বালকদের খৎনা করা নিষিদ্ধ করা হয়।
মৃত ব্যক্তি সম্পর্কে এই বিধান জারি করা হয় যে -এই ধর্মাবলম্বী কোন লোকের মৃত্যু হলে তাহার গলায় কাচা গম ও পাকা ইট বাধিয়া তাহাকে পানিতে নিক্ষেপ করতে হবে এবং
যেখানে পানি পাওয়া যাইবে না সেখানে মৃতদেহ জ্বালাইয়া দিতে হবে অথবা পূর্ব দিকে মাথা ও পশ্চিম দিকে পা করিয়া দাফন করতে হবে।
একদিন আবুল ফজল বাদশাহকে একখানি কেতাব দেখাইয়া বলিলেন,”আপনার জন্য ফেরেশতা ইহা আসমান হতে এনেছেন।সেই কেতাবের একস্হানে একটি আরবি বাক্য লিখিত ছিল,যাহার অর্থ এইরূপঃ
”হে মানুষ তুমি গাভী হত্যা করিও না ।যদি কর তবে জাহান্নামে নিক্ষিপ্ত হবে।”নিরক্ষর বাদশাহ ইহা বিশ্বাস করিলেন এবং গরু জবেহ করা নিষিদ্ধ ঘোষনা করে দিলেন।কানুন জারী করলেন,কসাই এর সাথে কেউ আহার করলে তার হাত কেটে দেয়া হবে এমনকি তাহার স্ত্রীও যদি তাহার সাথে আহার করে তবে তার আঙ্গুল কাটা হবে।এই নুতন ধর্মে গরু,উট,ভেড়া প্রভৃতি জন্তুর গোশত হারাম বলিয়া ঘোষিত হল।পক্ষান্তরে বাঘ ভাল্লুকের গোশত হালালের মর্যাদা লাভ করে।মোট কথা সর্বক্ষেত্রে ইসলামের বিরোধিতা করাই ছিল দিন-ই-ইলাহির মূল উদ্দেশ্য।
একদিন সভাসদগনকে বাদশাহ ডাকিয়া বলিলেন ,”হিন্দুস্হানের জ্ঞানী ও বুদ্ধিমান যোগী ৃষীদের লিখিত হিন্দি ভাষার পুস্তক গুলি নির্ভুল জ্ঞানের উৎস।আমরা জদি এইগুলি ফার্সী ভাসায় অনুবাদ করে নেই তা হলে আমাদের ইহকাল ও পরকালে শান্তি লাভ হবে।
তৎক্ষনাৎ বাদশাহর বাসনা পুরন করবার ব্যবস্হা করা হল।অনুবাদ করার জন্য অনেক আলেম নিয়োগ করা হল এবং এর জন্য পৃথক দফতর কায়েম করা হলো।সঙ্গে সঙ্গে আরবী ভাষা পড়া ও জানা অপরাধ বলে সাব্যস্হ হলো।ইহার বদলে জ্যোতিষ শাস্ত্র,অংক,চিকিৎসা,ইতিহাস,ও কথা কাহিনী প্রভৃতি পুস্তকের প্রচলন করা হল।
ইহার পর বাদশাহ আকবর হিন্দুদের উপর হতে কয়েক কোটি টাকার জিজিয়া কর উঠিয়ে নিলেন।পূর্বে যারা ‘এলমে ফেকাহ ‘ শিক্ষা দান করতেন তাদেরকে একশত বিঘা জমি জায়গীরসরূপ দেয়া হত। বাদশাহ আকবর এই জায়গীর ছিনিয়ে লইলেন।ইসলামী আইন অনুযায়ী বিচার করার জন্য নিযুক্ত করা হত।জায়গীর প্রথা বন্দ্ধ করার ফলে ইসলামী বিচার ব্যবস্হার মূলে কুঠারাঘাত করা হল।এমনি করে ইসলামী হুকুমতের শেষ চিহ্ন টুকুও বিলুপ্ত করার জন্য বাদশাহ আকবর সর্বশক্তি নিয়োগ করলেন।ফলে কয়েক বৎসরের মধ্যে হুকুমতের কোন ক্ষেত্রেই আর ইসলামের চিহ্ন অবশিষ্ট রইল না।মসজিদ বিরান হল।মাদ্রাসা ধ্বংস হল।অধিকাংশ আলেম দেশ ত্যাগে বাধ্য হল।
শেষ পর্যন্ত বাদশাহ আকবরের রাজত্বে এমন এক শ্বাসরুদ্ধকর পরিস্হিতির সৃষ্টি হল যাতে সুন্নি মুসলমানগন অতিষ্ট হয়ে উঠলেন।কারন একমাত্র সুন্নী মুসলমানগন ব্যতিত অন্য সব সম্প্রদায়ের লোকেরা ছিল বাদশাহর প্রিয়।কাফেররা সন্মানিত হল,মোসলমানগন হলেন অপদস্হ।ইসলামী আহকাম পালন করতে গিয়ে তারা প্রতিটি ক্ষেত্রে কাফেরদের বিদ্রুপবানে জর্জরিত হতে লাগলেন।
হিন্দুরা একাদশীর দিন উপবাস থাকেন।তাই সেই দিন মোসলমানদেরকেও উপবাস করতে বাধ্য করা হত।অথচ রমজান মাসে কাফেররা অবাধে খদ্যদ্রব্য বেচাকেনা করত ও প্রকাশ্যে আহার করত।স্বয়ং বাদশাহ যাদের শায় তাদের বিরুদ্ধে শাহী অনুকম্পা পৃষ্ঠপোষকতা হতে সম্পুর্নরুপে বন্চিত মুসলমান কি-ইবা করতে পারবেন।তাহারা অন্তরে অন্তরে দগ্ধীভুত হতে লাগলেন।আল্লাহপাকের তরফ থেকে সাহায্য আসবার প্রতীক্ষায় থাকা ছারা তারা আর করনীয় কিছুই খুজে পেলেন না।একজন মোজাদ্দেদের প্রতীক্ষা করতে করতে তাহারা ধৈর্যের শেষ সীমানায় এসে পৌছলেন।
”কতদিন পর আসিবে সেই সত্য নূর-
ইয়া এলাহী রহমত তোমার আর কতদুর ?”
হযরত সেলিম চিশতি(রঃ) এর পুত্র মাওলানা বদরুদ্দীন ছিলেন উচ্চপদস্হ রাজকর্মচারী।বিশিষ্ট দরবারীদের মধ্যে একমাত্র তিনিই বাদশাহর এইসব কুফরি আকিদার বিরোধিতা করলেন।প্রতিবাদ স্বরূপ তিনি সরকারী চাকুরী হতে ইস্তফা দিলেন।বাদশাহ তাহাকে দেওয়ানে খাছে ডেকে নিয়ে অনেক বুঝালেন।কিন্তু তিনি নিজ সিদ্ধান্তে রইলেন।হুকুমতের তরফ থেকে তার প্রটি কঠোরতা আরোপিত হল।কঠোরতা চরমে উঠলে তিনি নীরবে হজ্ব করতে চলে গেলেন।
বঙ্গদেশ ও বিহারের মুসলমাননের নিকট যখন বাদশাহ আকবরের এই পথভ্রষ্টতার সংবাদ পৌছল তখন তারা অত্যন্ত বিচলিত হয়ে পরলেন।তারা এই বিরাট ফেতনায় শংকিত হয়ে হক্কানী আলেমগনের স্বরনাপন্ন হলেন।কাজী মোহাম্মদ ইয়াজদি ছিলেন জৌনপুরের অধিবাসী।তিনি ফতোয়া জারী করলেন, ”বাদশাহ আকবরের কার্যকলাপ হিন্দুস্হানে ইসলাম বিপন্ন করতেছে।সুতরাং তার বিরুদ্ধে বিদ্রোহ করা ন্যায়সঙ্গত।”
কিন্তু প্রবল প্রতাপান্বিতমোঘল সাম্রাজ্যে এইসব কর্মসূচী কোন প্রভাব বিস্তার করতে পারল না।শতকরা পচানব্বই ভাগ দেশবাসী হিন্দু।তারা সবাই বাদশাহর পক্ষে।তাছারা দুনিয়াদার আলেম ভন্ড সূফীকূল,শিয়া প্রভৃতি গোষ্টিও বাদশাহর হস্তকে শক্তিশালী করেছে।জৈন,পারসী ও অন্নান্য সম্প্রদায়ের লোকদেরও রয়েছে বাদশাহর প্রতি অকুন্ঠ সরর্থন।সুতরাং বাদশাহ নির্বিঘ্নে ইসলাম বিরোধী শক্তির পৃষ্ঠপোষকতা করে যেতে লাগলেন।
সমগ্র হিন্দুস্হানে ইসলামের এই ঘোর দুর্দিনে হজরত মোজাদ্দেদ আলফেছানি শায়েখ আহমদ ফারুকী সেরহিন্দি(রঃ) তাহার মোজাদ্দেদ সুলভ প্রজ্ঞা ও দৃঢ়সংকল্প নিয়ে সংস্কারের কর্যে ঝাপিয়ে পড়লেন।বেদাত ও কুফরীর যাতাকলে পিষ্ঠ ইসলামের ভয়াবহ দূরবস্হা দেখে তাহার ফারুকী রক্ত টগবগ করে ফুটে উঠল। গভীরভাবে পরিস্হতি বিশ্লেষন করে মোজাদ্দেদে আলফেছানি (রঃ) সিদ্ধান্তে আসলেন যে,সর্বপ্রথম বাদশাহর এছলাহ হওয়া প্রয়োজন।কারন বাদশাহ রূহ এবং জনগন শরীর তুল্য। রূহের ব্যাধী দুরিভূত হলে শরীরও ব্যাধিমুক্ত হবে।কিন্তু বাদশাহর এছলাহ হওয়ার পুর্বে আমিরওমরাহ গনের এছলাহ হওয়া প্রয়োজন।হজরত মোজাদ্দেদ (রঃ) সেই দিকেই মনোনিবেশ করলেন।
খান খানান, খানে আজম,সৈয়দ ছদরে জাহান,মোর্তজা খান,মহব্বত খান প্রমুখ ওমরাহ গন পুর্ব হতেই মোজাদ্দেদ(রঃ) এর মুরিদ ছিলেন।তিনি তাহাদের দ্বারা বাদশাহ আকবরকে এইসব কুফরি কর্যকলাপ হতে তওবা করার জন্য আহ্বান জানালেন।তিনি ওমরাহগনকে নির্দেশ দিলেন -”তোমরা বাদশাহকে আমার পক্ষ থেকে বলে দাও যে,বাদশাহী ক্ষনস্হায়ী।এইসব আড়ম্বর চিরদিন থাকবে না।দুই দিনের চাকচিক্যের মোহে সত্যকে অস্বীকার করা বুদ্ধিমানের কাজ নয়।সুতরাং অবিলম্বে এইসব কুফরী কাজ হতে তওবা করে চিরনিরাপত্তার ধর্ম ইসলামের সুশীতল পুষ্পশোভিত বাগিচায় আগমন করা উচিৎ।নতুবা গজব আসবে।আল্লাহ পাকের গজব হতে বাচবার সাধ্য কেউর নেই।আল্লাহ পাক সর্বশক্তিমান।বাদশাহীর পরোয়া তিনি করেন না।ফেরাউন,নমরুদ প্রমুখ প্রবল পরাক্রমশালী বাদশাহগনও আল্লাহর গজবে ধ্বংস হয়ে গিয়েছে।সেই গজব থেকে কেউই তাদেরকে উদ্ধার করতে সক্ষম হয়নি।”
মোর্শেদের কথামত ওমরাহগনও বাদশাহ আকবরকে নানাভাবে বুঝাতে চেষ্টা করলেন। কিন্তু কিছুতেই কিছু হলো না।শেরেক,কুফরীর প্রভাবে তাহার মন পাষান হয়ে গিয়েছে।হেদায়েতের নূর সেখানে প্রবেশ করতে পারল না। বাদশাহ নিজ সিদ্ধান্তে অটল রইলেন।
একদিন বাদশাহ একটি অশুভ স্বপ্ন দেখলেন।স্বপ্ন তাকে অস্হির করে তুললো।রাজ্যের সমস্ত স্বপ্ন ব্যাখ্যাবিদ ও জ্যোতিষগনকে তিনি স্বপ্নের বিষয়বস্তু জানালেন এবং উহার অর্থ জানতে চাইলেন।তারা বাদশাহকে জানালেন,”এই স্বপ্নের অর্থ হছ্ছে এই যে বাদশাহর পতন অতি সন্নিকটে।” বাদশাহ তা শুনে ভীত ও চিন্তিত হয়ে পরলেন।তিনি অনেকটা দমে গেলেন।নতুন করে ফরমান জারী করা হলো যে- পুর্বে দীন-ই-ইলাহী পালনের ব্যাপারে যে সব বাধ্যবাধকতা আরোপ করা হত,এখন হতে তা থাকবে না।যারা সেজদা করতে ইছ্ছুক না -তাদেরকে আর সেজদা করতে বাধ্য করা হবে না।
এদিকে হযরত মোজাদ্দেদ আল ফেছানি (রঃ) এর সারগর্ভ বাণী ও তার উজ্জল ব্যাক্তিত্যের আলোকে আলোকিত হয়ে লোকজন দীন-ই-ইলাহীর অসত্যতা ও অসারতা বোঝতে পেরে দলেদলে তার প্রতি আকৃষ্ট হতে লাগলো এবং ইসলামের সুশীতল ছায়ায় এসে আশ্রয় নিতে লাগল।বিষয়টা বাদশাহ আকবরের আর অজানা রইল না।
বাদশাহ তাই জনসমক্ষে দীন-ই-ইলাহীর শান-শওকত ও জাকজমকতা প্রদর্শন করার জন্য কিছুদিন পর এক উৎসবের আয়োজন করলেন।উৎসবে দুটি পৃথক দরবার নির্মান করা হল।একটির নাম করা হল ‘আকবরী দরবার’ যা নির্মান করা হল বহু অর্থ ব্যয় করে।চোখ ঝলসানো আলোক সজ্জার ব্যবস্হা করা হল।ব্যবস্হা করা হল মনোরম মন্চ্ ও বিছান হল জৌলুসপূর্ন গালিচা।পুষ্পের সৌরভ,আতরের সুঘ্রানে আকবরী দরবার পরিনত হল ছোটছোট শাদ্দাদের বেহেশতে।ব্যবস্হা করা হল শাহী খাবারের ও সুমিষ্ট ফল-মুল ইত্যাদির।
অপর দিকে মুহাম্মদী দরবারের অবস্হা ছিল খুবই করুন। ছিন্নভিন্ন
ও জরাজীর্ন কাপড় দ্বারা তৈরী করা হলো মুহাম্মদী দরবার।খাবারের ব্যবস্হা করা হলো নিম্নমানের।আলোক সজ্জার কোনো ব্যবস্হা নেই।নিতান্ত সাধারনভাবে তৈরী এই দরবারটিকে আকবরী দরবারের তুলনায় জীর্নশীর্ন কুড়েঘর মনে হতে লাগল।
ইসলাম জড়াজীর্ন ও বর্তমানযুগের অনুপযযোগী বা অচল
এবং দীন-ই-ইলাহী জাকজমকপূর্ন ও আধুনিক এটা জনসাধারনকে বুঝানোর জন্যই এ দুটি দরবার করা হল।
কিন্তু সম্রাট এটা বোঝলেন না যে ,সত্য চিরদিনই সত্য।সত্য কোনদিনই সময়ের অধীন নয়।
অবশেষে সেই উৎসবের দিন আসল।সম্রাট আকবর তাহার সভাসদ ,আমির-ওমরাহ ও বিশিষ্ট অতিথিগনকে সঙ্গে নিয়ে মহাসমারোহে আকবরী দরবারে প্রবেশ করলেন।লোভী দুনিয়াদার লোকরাও তার অনুসরন করল।আনন্দ উল্লাসে মুখরিত হয়ে উঠলো ‘আকবরী দরবার’।
এমন সময় হজরত মোজাজ্জেদ আলফেসানী শয়েখ আহমদ ফারুকি
সেরহিন্দ(রঃ) তার কিছু মুরিদান সহ আগমন করিলেন।তাহার বুঝিতে বাকি রইল না কোন উদ্দেশ্যে এই উৎসবের আয়োজন এবং কেনই বা দুই
দরবারের মধ্যে আকাশ পাতাল ব্যবধান।মোসলমানদের হেয় ও অপদস্ত করাই যে বাদশাহর উদ্দেশ্য এটা বুঝতে আর বাকি রইল না।কিন্তু মান,সম্মান, ইজ্জত কাউর নিজের অর্জিত সম্পদ নয়।ইহা আল্লাহ প্রদত্ত
এক নেয়ামত।তিনি যাকে ইছ্ছা ইহা দান করেন।
হজরত মোজাজ্জেদ(রঃ) তার মুরিদান সহ মোহাম্মদী দরবারে প্রবেশ
করলেন।আহারের সময় হল।এমন সময় হজরত মোজাজ্জেদ(রঃ) এক মুরিদকে বলিলেন,”যাও মোহাম্মদী দরবারের চতুর্দিকে লাঠি দ্বারা দাগ দিয়ে আস এবং এক মুষ্ঠি ধুলি তার হাতে দিয়ে বলিলেন সম্রাটের দরবারের দিকে তা নিক্ষেপ কর।”উক্ত মুরিদ তাই করল।
মূহুর্তের মধ্যে একটি ঘুর্নিঝর উঠিয়া আকবরী দরবারকে ঘিরে
ফেলল।দরবারে মহা ধুমধাম চলছিল।হটাৎ তুফান দেখে সবাই ভয় পেয়ে গেল।কি করিবে বুঝিয়া উঠার আগেই তাবু উড়ে গেল।আসবাবপত্র , সাজসজ্জা, খদ্যসাগ্রী সমস্তই তছনছ হয়ে গেল।নিমন্ত্রিত অতিথিগন একে অন্যের উপর পরে ধস্তাধস্তি করতে লাগল।তাবুর খুটি গুলো উপড়ে উঠে
তাহাদের মস্তকে আঘাত করতে শুরু করল।একটি খুটি গিয়ে সম্রাটের মস্তকে পর পর সাতটি আঘাত করল।আঘাত পেয়ে সম্রাট মারাত্নক আহত
হয়ে শয্যাশায়ী হলেন এবং কিছুদিন পরেই মৃত্যুবরন করলেন।
সুদীর্ঘ পণ্চাশ বৎসরের কালিমা যুক্ত শাসনের অবসান হল।ক্ষমতায় আসলেন তার পূত্র জাহাঙ্গীর। জাহাঙ্গীরের যৌবনকাল এই বাতিল ধর্মের উপরেই অতিবাহিত হয়েছিল।হিন্দু ব্রাম্মন ও যোগীদের সাহচর্য পিতার ধর্মমতের প্রভাব তাকেও ইসলাম ধর্ম হতে উদাসীন করে রেখেছিল।ফলে আকবরের মৃত্যু হল ঠিকই কিন্তু রয়ে গেল তার দীন-ই-ইলাহীর সমস্ত বাতিল মতবাদ ও হুকুমত।

সম্রাট জাহাঙ্গীর ছিলেন পিতা আকবরের প্রতিষ্ঠিত দীন-ই-ইলাহীর একনিষ্ঠ মুরিদ।পিতার নাম উচ্চারনের পুর্বে তিনি ”আমার মোর্শেদ”
শব্দ উচ্চারন করতেন।তিনি বলতেন,”আমার মোর্শেদ বুজর্গ ছিলেন বগুবিধ প্রশংসনীয় গুনের অধিকারী।তাহার গুনাবলীর সামান্যতম অংশও
যদি কোনবিরাটকায় পুস্তক রচনা করা যায় তবুও তাহার গুনাবলীর সামান্যতম অংশও বর্ননা করা সম্ভব হবে না।অজস্র ধন সম্পদ,হস্তী-অশ্ব,সৈন্যসামন্ত ও বিশাল পরাক্রমের অধিকারী হওয়া সত্তেও তিনি আল্লাহর দরবারে বড়ই দীনতা ও হীনতা প্রকাশ কর‌তেন।
আমার ওয়ালেদ ধর্মে জ্ঞানী ও পন্ডিতগনের সাহচর্য বড়ই পছন্দ করতেন।বিশেষ করে হিন্দু ধর্মের পন্ডিতগনের সাহচর্য ছিল তাহার অত্যধিক পছ্ন্দনীয়।তিনি সূর্য ও বিভিন্ন দেবতার পূজা করতেন।এইসব করায় কি দীনে মোহাম্মদীর সহিত সত্রুতা ছিল বলে প্রমানিত হয় ?”
জাহাঙ্গীরের আকিদা বিশ্বাস ছিল এইরূপ।তিনিও তাহার পিতা আকবরের মত মনে করতেন যে, বিবেক যাহা ভাল বলে গ্রহন করবে সেই অনুযায়ী আল্লাহপাকের ইবাদত বন্দেগী করলেই চলবে।তাই ইসলামী শরীয়ত পালনের ব্যাপারে কোন গুরুত্বই তিনি দিলেন না।কবির ভাষায়
”যে পথিক চলে না পথ নবীদের পথে,
পড়ে রয় সে বহুদুর মনজিল হতে।”

মানুষ বদল হল কিন্তু আদর্শ বদল হলনা। জাহাঙ্গীর তাহার পিতার মত মুরিদ করতে লাগলেন।তিনি সূর্যকে বড়ই সম্মান করতেন এবং পরম শ্রদ্ধাভরে সশব্দে সুর্যের নাম উচ্চারন করতেন।সমস্ত কার্যের উপর নক্ষত্রের প্রভাব আছে বলে তিনি বিশ্বাস করতেন এবং মনে করতেন নক্ষত্রসমুহ নুরে এলাহীর বিকাশস্হল।জ্যোতিস শাস্ত্রে তার অগাধ বিশ্বাস ছিল।তার সভার প্রধান জ্যোতিষ ছিল কৃষ্ঞদৈবজ্ঞ । বিশেষ বিশেষ কাজ করবার পুর্বে তিনি জ্যোতিষদের পরামর্শ অনুযায়ী শুভক্ষন ও শুভলক্ষন এর প্রতি বিশেষ লক্ষ্য রাখতেন।
তিনি তাহার মুরিদগনকে উপদেশ দিতেন , ”কোন ধর্মের প্রতি
শত্রুতা করিয়া নিজের মুল্যবান সময় নষ্ট করিও না ।যুদ্ধের সময় এবং
শিকারের সময় ব্যতীত কোন জীবকে হত্যা করিও না।নক্ষত্রসমুহকে সম্মান করিও।কেননা ঐসব আল্লাহর নূরের বিকাশস্হল এবং ঘটনা ও অবস্হার উপর একমাত্র আল্লাহর প্রভাব আছে বলিয়া মনে করিও।”
বাদশাহ মনে করতেন, যেহেতু তিনি হিন্দু মোসলমান সকল জাতির বাদশাহ সুতরাং সব ধর্মের প্রতিই তার সমান পৃষ্টপোষকতা থাকা
উচিৎ।এই ধারনার বশবর্তী হয়ে তিনি যেরূপ হিন্দু সাধুদের সম্মান করতেন তেমনি মোসলমান পীর ফকিরদের প্রতিও ভক্তি রাকতেন।
তার এই আপোষমূলক নীতির ফলে কাফেরদের প্রভাবতো বিন্দুমাত্র কমলো না বরং আরও বেড়ে গেল।
সম্রাট জাহাঙ্গীর সিংহাসনে উপবেশন করে পিতার আমলের আমির ওমরাহগনকে তাদের স্ব স্ব পদে বহাল রাখলেন।ফলে শাহী দরবারে হিন্দুদের প্রভাব বিন্দুমাত্রও কমলনা।কারন দরবারের বড় বড় পদগুলো
সব হিন্দুদের দখলেই ছিল।ফলে জিজিয়া কর পুনঃপ্রবর্তিত হলো না,গরু জবেহ বন্ধের হুকুম রহিত হল না ।বাদশাহ দুনিয়াদার আলেম ও ভন্ড
সুফীদের কার্যকলাপের প্রতি উদাসীন রইলেন।ফলে পরিস্হিতি এমন
আকার ধারন করল যে ,প্রকৃত ইসলামের নিশানা সমগ্র দেশ থেকে মুছে যাবার উপক্রম হল।
ইহার উপর যোগ হল নুতন আর এক ফেতনা।এই ফেতনার মুল নায়িকা হলেন সম্রাট জাহাঙ্গীরের বেগম নুরজাহান।নুরজাহান ছিলেন শিয়া।শিয়া মতাবলম্বীদের কেন্দ্র হল ইরান।বাদশাহ হুমায়ুন ইরানের সুলতানের সহায়তায় শের শাহের হাত থেকে দিল্লীর মসনদ পুনরুদ্ধার
করেছিলেন।তখন থেকে শিয়াদের এক বিড়াট দল হিন্দুস্হান এসে বসবাস করতে থাকে এবং শাহী অনুকম্পায় রাষ্ট্রের বহু বিশিষ্ট পদ দখল
করতে থাকে।
সম্রাট জাহাঙ্গীর ছিলেন আশেক মেজাজের মানুষ।তিনি নুরজাহানকে অত্যধিক ভালবাসতেন।নুরজাহান ছিলেন অত্যধিক
বুদ্ধিমতি। সম্রাট জাহাঙ্গীরের দুর্বলতার সুযোগ নিয়ে ক্রমে ক্রমে বাদশাহ
ও বাদশাহীর উপর একছ্ছত্র প্রভাব করে ফেললেন।পরিস্হিতি এমন
পর্যায়ে পৌছল যে ,সম্রাট জাহাঙ্গীর কেবল নামমাত্র বাদশাহ রইলেন।
প্রকৃত ক্ষমতা চলে গেল নুরজাহানের হাতে।বাদশাহ স্বয়ং বলতেন ,”আমার
বাদশাহী এখন নুরজাহানের ও তার দলের হাতে।আর আমি এক সের শরাব আর আধাসের গোশ্‌ত পাইলেই খুশী।”
নুরজাহানের নানা ছিলেন ইরানের উজির।নুরজাহানের এইরুপ
প্রভাব প্রতিপত্তির কথা তার নিকট পৌছল।উজির সাব ছিলেন বিখ্যাত
শিয়া নেতা।শিয়াগন সুন্নি মোসলমানদের প্রতি চরম শত্রুতা ভাব পোষন করত।নুরজাহানের সাহায্যে তারা সুন্নি মোসলমানদের কোনঠাসা করবার পরিকল্পনা করলো এবং সফলও হল।নুরজাহানের ভ্রাতা আসফ খান হলেন সম্রাট জাহাঙ্গীরের উজির।শিয়া সম্প্রদায়ভুক্ত নুরুল্লা শুছতরীকে
প্রধান কাজী নিযুক্ত করা হল।এই কাজী সাহেব সুন্নি মোসলমানদের প্রতি অত্যধিক বিদ্বেষভাব পোষন করতেন।
হজরত মোজাদ্দেদ আলফেসানি (রঃ) পরিবর্তিত পরিস্হিতি বিশ্লেষন
করে সংস্কারের নুতন পরিকল্পনা প্রনয়ন করবার বিষয়ে চিন্তা শুরু করলেন।পরিস্হিতি ভয়াবহ।আল্লাহর সন্তুষ্টির প্রতি কাহারও লক্ষ্য নেই।
রসুল পাক (সাঃ) এর প্রদর্শিত ছিরাতাল মুস্তাকিমের উপর চলবার কাহারো আগ্রহ নেই।গতানুগতিক নফসপরস্হ আর শয়তানী স্রোতে গা ভাসিয়ে দিয়ে সবাই অমুল্য সময় বৃথা অতিবাহিত করতেছে।মোঘল হুকুমত এই শয়তানী ধ্যান ধারনার পৃষ্ঠপোষক।
মোজাদ্দেদ আলফেছানি(রঃ) হুকুমত হতে এই শয়তানী শক্তি নির্মুল করার
জন্য দন্ডায়মান হলেন।বাদশাহ বদল করলে কাজ হবে না ।বাদশাহর এছলাহ(সংশোধন) করতে হবে। তার জন্য সর্বপ্রথমে এছলাহ করতে হবে হুকুমতের আমিরওমরাহগনের।কারন তাদের এছলাহ ব্যতিরেকে বাদশাহর এছলাহ স্হায়ী হবে না।হজরত মোজাদ্দেদ (রঃ) তাই ইসলামী
আইন-কানুন আকিদা-বিশ্বাসের প্রতি উৎসাহিত করার জন্য খানে আজম,
লালাবেগ,খান জাহান,কলীজ খান, শায়েখ ফরিদ প্রমুখ দরবারীদের সঙ্গে
যোগাযোগ করলেন।
তিনি শায়েখ ফরিদের নিকট লিখলেন,”দেহের মধ্যে আত্না যেরূপ,
বাদশাহ জনসাধারনের মধ্যে সেইরূপ।অন্তর পবিত্র থাকলে দেহও যেমন পবিত্র থাকে।তদ্রুপ বাদশাহ আদর্শবান হলে দেশবাশীও আদর্শবান হয়।
আপনি জানেন,পুর্ববর্তী জামানার মুসলমানরা কতই না দুরবস্হার মধ্যে
দিনাতিপাত করেছে।ইসলামের প্রথমাবস্হায় মোসলমানগন নগন্য
সংখ্যক থাকা সত্বেও এইরূপ দুরবস্হার সম্মুখীন হননি।মুসলমান নিজ
ধর্ম পালন করত।আল্লাহ পাক ফরমাইয়াছেন, ”লাকুম দিনুকুম ওয়ালিয়াদিন”।অর্থাৎ ” তোমাদের জন্য তোমাদের ধর্ম, আর আমাদের জন্য আমাদের ধর্ম।”কিন্তু কিছুকাল পুর্বে বেদীংন প্রকাশ্যে দৃঢ়তার সাথে
তাদের ইসলামী রাষ্ট্রে তাদের ধর্মের প্রচারনা চালাত,কিন্তু মোসলমান গন
তদের ধর্ম প্রচার করার ক্ষমতা রাখতেন না।এমাকি এরকম করলে তাদের
হত্যা করা হত।আহা কি আফছোস! কি সর্বনাশ! কি বিপদ! কি কষ্ট!”
হজরত মোজাদ্দেদ আলফেছানি (রঃ) আমির লালাবেগের নিকট
লিখলেন,”প্রায় এক শতাব্দী অতীত হল,ইসলাম পথিকের ন্যায় দিন গুজরান করতেছে।কাফেরগন দারূল ইসলামে প্রকাশ্যভাবে কুফরী আহকাম জারী করেও তৃপ্ত হছ্ছে না ।তাদের বাসনা ইসলামী আহকাম
নিশ্চিহ্ন হয়ে যাক।মোসলমান ও মোসলমানীর নাম নিশানা যেন বাকী না থাকে।তারা এত বেড়ে গিয়েছে যে ,মোসলমান গন ইসলামের কোন শেয়ার প্রচার করতে গেলে তাদেরকে হত্যা করা হয়।গরু কোরবানী করা ইসলামের একটি বিশেষ কাজ।কাফেররা জিজিয়া কর দিতে রাজী হলেও
গো হত্যা করতে দিতে রাজী হবেনা বলে মনে হয়।বর্তমানে বাদশাহর
রাজত্বের শুরুতেই যদি ইসলামী হুকুমগুলি জারী করা হয় এবং মোসলমাংনকে সম্মানিত করা হয় তবেই কার্য সিদ্ধি হবে,নতুবা মোসলমানগন সংকটজনক অবস্হায় পতিত হবে।ইয়া আল্লাহ রক্ষা কর! রক্ষা কর ! আল্লাহপাকই জানেন কোন সৌভাগ্যবান ব্যক্তি এই সৌভাগ্যের আকাংখা করে এবং কোন বীরপুরুষ উক্ত দৌলত হাসিল করতে সক্ষম হয়।”
কলিজ খানের নিকট লিখিলেন,”আপনার মাধ্যমে এই দুঃসময়েও
শ্রেষ্টনগরী লাহোরে যে শরীয়তের অনেক হুকুম প্রচারিত ও প্রতিষ্ঠিত হয়েছে ,তাহার জন্য আপনার কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছ.—-হজরত রসুলে পাক (সঃ)বলেছেন,’আমার উম্মতগনের মধ্যে সর্বদাই সত্য পথে দৃঢ়ভাবে প্রতিষ্ঠিত থেকে জয়ী হবে।বিপক্ষ দল তদের ক্ষতির চেষ্টা করেও সফলকাম হবে না।এইভাবে কিয়ামত পর্যন্ত তাদের অস্তিত্ব বজায় থাকবে।’ ”
এইভাবে হজরত মোজাদ্দেদ আলফেছানি (রঃ) হুকুমতের বিভিন্ন
গুরুত্বপুর্ন ব্যক্তিবর্গের সহিত যোগাযোগ করে তাদেরকে ইসলাম প্রচারে উদ্বুদ্ধ করেন।সুন্নত ওয়ালজামাতই একমাত্র উদ্ধারপ্রাপ্ত দল এবং তাদের অনুসরনের জন্য দেশের বাদশাহ ও জনসাধারনকে উৎসাহিত করা এবং সমাজের সর্বক্ষেত্রে এই আকিদা প্রতিষ্ঠিত করার মাধ্যমেই যে প্রকৃত
ইসলামের খেদমত করা হয়, বিভিন্ন মকতুবের মাধ্যমে তিনি সবাইকে উত্তম রূপে বিশ্লেষন করে দেখালেন।
ক্রমে ক্রমে আব্দুর রহিম খানখান জাহান,ছদরে জাহান,খান জাহান, মীর্জা দারাব,কলিজ খান,নবাব শায়েখফরিদ,হাকিম ফাতহুল্লাহ ,শায়েখ আব্দুল ওয়াহাব,সেকান্দার খান লোদী,খেজের খান লোদী,জব্বারী খান,মীর্জা বদিউজ্জামান,সৈয়দ মাহমুদ,সৈয়দ আহমদ প্রভৃতি ব্যক্তি গন
হজরত মোজাদ্দেদ আলফেছানি (রঃ) এর দলভুক্ত হলেন।তিনি তাদেরকে
নকশবন্দিয়া তরিকার শ্রেষঠত্ব,বেলায়েত,নবুয়ত,সুন্নতের অনুসরন,ক্বলবের সুস্হতা,নফসে আম্বারার স্বভাব ও তার অনিষ্ট থেকে মুক্ত
হবার উপায় ইত্যকার বিভিন্ন বিষয়ে অবগত করিয়ে তাহাদিগকে এছলাহ
করলেন।ফলে হুকুমতের এক বিড়াট অংশ হতে বেদাত ও বেদাত সুলভ
মনোভাব দুরীভুত হল।মনে প্রানে এই দল হজরত মোজাদ্দেদ আলফেছানি (রঃ) এর নির্দেশে বাদশাহ জাহাঙ্গীরকে ইসলামের প্রতি উৎসাহিত করতে লাগলেন।বাদশাহ জাহাঙ্গীর আমির ওমরাহগনের মুখে সত্য পথের সন্ধান
পেয়ে শরীয়ত প্রতিষ্ঠার ব্যাপারে আগ্রহান্বিত হয়ে উঠলেন।
হজরত মোজাদ্দেদ আলফেছানি (রঃ) সেনাবাহিনির মধ্যেও ইসলাম
প্রচারের ব্যবস্হা করলেন।সেনাবাহানী হুকুমতের আর একটি গুরুত্বপুর্ন
অংশ।এই অংশের এছলাহ হওয়াও জরুরী।হজরত মোজাদ্দেদ আলফেছানি (রঃ) শায়েখ বদিউদ্দীন (রঃ) কে সেনাবাহিনীর মধ্যে সুন্নত ওয়াল জামাতের
আকিদা বিশ্বাস,ক্বলব পরিশুদ্ধ করা ও ক্বলবি জ্ঞান অর্জনের উদ্দেশ্যে নকশবন্দিয়া তরিকার শ্রেষ্ঠত্ব , প্রভৃতি বিষয় প্রচার করার জন্য নিযুক্ত করলেন।আস্তে আস্তে সেনাবাহিনির এক বিড়াট অংশ হজরত মোজাদ্দেদ আলফেছানি (রঃ) এর ভক্ত হয়ে উঠল এবং অনেকেই তার মুরিদ হলেন।
মোজাদ্দেদিয়া কাফেলা দিন দিন বেড়ে চলল।হজরত মোজাদ্দেদ আলফেছানি (রঃ) বিভিন্ন শহর ও গুরুত্বপুর্ন পল্লীঅন্চলে খলিফা নিযুক্ত
করলেন।তিনি তাহাদের প্রতি নিয়মিত সারগর্ভ নসিহত ও জেহাদের কর্মসুচী পেশ কর‌্তে লাগলেন।তার মকতুবাদের অনুলিপি প্রায় একই সঙ্গে
বিভিন্ন খলিফার নিকটে প্রেরিত হতে থাকল।এইসব মকতুব ছিল এক একটি সংগ্রামেী ইশতেহার।
জেহাদ দ্বিমুখী। প্রথমত নিজের নফসের ও মনের এছলাহ ও অপরটি হছ্ছে হুকুমতের বিভিন্ন ক্ষেত্রে,সমাজের বিভিন্ন জায়গায় দীর্ঘ্যকাল
ধরে পুন্জিভুত বেদাত ও কুসংস্কারের বিলুপ্তিসাধন।সমাজ জীবনে এই ফেতনার মুল উৎস হছ্ছে দুনিয়াদার আলেম ও ভন্ড সূফিগনের মংড়া বাক্যসমুহ।
হজরত মোজাদ্দেদ আলফেছানি (রঃ) দুনিয়াদার আলেমদের স্বরূপ
উন্মোচন করে দিলেন এবং তাদের ফেতনা থেকে মোসলমানদের মুক্ত করার জন্য চেষ্টা করে যেতে লাগলেন।তিনি লিখলেনঃ ”হাদিস শরীফে
উল্লেখ আছে,নিশ্চয় ঐ ব্যক্তিই কিয়ামতের দিন সর্বাপেক্ষা কঠিন শাস্তি ভোগ করবে,যে আলেম নিজের এলেম দ্বারা উপকৃত হয়নি।”
ভন্ড সূফীকুলও দীনের মধ্যে ফেতনা সৃষ্টির এক অন্যতম হাতিয়ার।
তাদের বাতিল চিন্তাধারা সমাজের বিভিন্ন ক্ষেত্রে প্রবেশ করে মোসলমানদের আকিদা বিপর্যস্ত করে দিয়েছিল।তাদের অসৎ কার্যকলাপের প্রাবল্য শরীয়তের সৌন্দর্যকে বিকৃত ও বিবর্ন করে দিয়ে
মোসলমানদের পদস্খলন ঘকাইতেছিল।হজরত মোজাদ্দেদ আলফেছানি (রঃ) এই বিভ্রান্ত দলের ভিতেও আঘাত হানলেন।তাদের বদ আকিদা খন্ডন ও নির্মুল করার জন্য তৎপর হয়ে উঠলেন।
”যে ব্যক্ত জাহেরী জ্ঞান কে ছেড়ে শুধু বাতেনকে দুরস্ত করিবার
ইছ্ছা পোষন করে সে নিশ্চিৎ জিন্দক (ইসলাম থেকে দুরে বা কাফের)।
তাহার কোন বাতেনী হাল হলে তা ভেলকিবাজী ছাড়া আর কিছুই না।জাহেরীভাবে শরীয়তের বিধানগুলি দ্বারা সুসজ্জিত হবার মধ্যেই নির্ভর করে বাতেনী হালের বিশুদ্ধতা ও কবুলিয়ত।”
গান বাজনা নৃত্য ছিল গোমরাহ সূফিগনের প্রতিটি উপদলেরই সাধারন ব্যধি।গান বাজনার সাহায্যে যে গুমরাহী ছাড়া অন্য কিছু পাওয়া যায় না হজরত মোজাদ্দেদ আলফেছানি (রঃ) তাও জানিয়ে দিলেন।তিনি
লিখলেনঃ”নামাজের হকিকত সম্পর্কে অজ্ঞতার কারনেই ইহাদের এক বৃহৎ শ্রেনী অন্তরের ব্যাকুলতা গান-বাজনা,লম্ফঝম্ফ ইত্যাদি দ্বারা নিবারনের প্রয়াস পেয়েছে।অথচ ইহারা ইহাও জানে যে ‘আল্লাহ পাক হারাম বস্তুর মধ্যে শেফা রাখেন নি’-হাদিস।নামাজের কামালত সমুহের বিন্দু পরিমানও যদি তাহারা অবগত হতে পারত তইলে বাদ্য,,গানবাজনা
ইত্যাদির প্রতি তারা কোন প্রকার আগ্রহ প্রকাশ করত না।”
দার্শনিকদের ভ্রান্ত মতবাদ জনিত ফেতনা, জাহেলশ্রেনীর মুসলমানদের মধ্যে বিভ্রান্ত ছড়াছিছল। হজরত মোজাদ্দেদ আলফেছানি (রঃ) এইসব ভিত্তিহীন দর্শনের বিরুদ্ধে লিখলেনঃ ” আসমান ও জমিন বিনাশপ্রাপ্ত হবে না বলে দার্শনিকগন যে মত পোষন করেন,অজ্ঞতার জন্য
কিছুসংখ্যক মোসলমান দার্শনিকও তাহাদের অনুকুল মত প্রকাশ করে ও কিছু মোসলমান ইহা সমর্থনও করে।তারা কোরআন মজিদের অখন্ডনীয়
দলিলে অবিশ্বাসী এবনহ নবী(আঃ) গনের এজমাকেও তারা স্বীকার করেন না।কোরআন শরীফের বহু আয়াত এই মতবাদের বিরুদ্ধে।তারা জানেন না যে ,কেবল কলেমা শাহাদাত শুধু মুখে উচ্চারন করলেই
চলবে না ।এইসব বিষয়ের উপর বিশ্বাসো রাখতে হবে।নটুবা ইমান থাকবে না।” শিয়া মতবাদের বিরুদ্ধেও একইভাবে তিনি বিভিন্ন কোরআন হাদিসের প্রমানাদি জনসমক্ষে পেশ করতে লাগলেন।
ইতমধ্যে শাহজাদা শাহজাহান এসে হজরত মোজাদ্দেদ আলফেছানি (রঃ) এর আনুগত্য প্রকাশ করলেন ও হযরতের খাস ভক্তদের মধ্যে সামিল হলেন।শাহজাদা সুন্নি ছিলেন।
সম্রাজ্ঞী নুরজাহান রোষানলে জ্বলিতে লাগলেন।সেরহিন্দের এক ফকির তার শিয়া রাজ্য গড়ার সপ্ন সহ সব পরিকল্পনা লন্ডভন্ড করে দিতেছে। হুকুমতের অধিকাংশ আমির ওমরাহগনকে কব্জাকরে ফেলছে।
শাহজাহানও হয়েছে তার ভক্ত।আর ফকিরকে বাড়িতে দেয়া যায় না।যে করেই হোক তার সমস্ত উদ্দেশ্যকে ব্যর্থ করতে হবে।তার পৃষ্ঠপোষকতায় লালিত শিয়াদের নেতৃস্হানীয় ব্যক্তিবর্গও মহা দুশ্চিন্তায় পড়লেন।সবাই
হজরত মোজাদ্দেদ আলফেছানি (রঃ) এর বিরুদ্ধে ষঢ়যন্ত্রে লিপ্ত হলেন। সবাই মিলে ঠিক করলেন নুরজাহানের ভ্রাতা আসফ খানের দ্বারা বাদশাহ
জাহাঙ্গীরকে বুঝাতে হবে যে সেরহিন্দের ফকির মোঘল হুকুমতের জন্য
এক হুমকিস্বরূপ।সে বড়ই অহংকারী। শাহী আদবের সে বিন্দুমাত্র তোয়াক্কা করে না।
বাদশাহর মেজাজ বুঝে আসফ খান একদিন তাকে বললেন ,
শায়েখ আহমেদের উদ্দেশ্য ও প্রভাব সম্পর্কে সতর্ক থাকা প্রয়োজন।শাহী
দরবার হতে শুরু করে হুকুমতের প্রতিটি ক্ষেত্রে তাহার লক্ষ লক্ষ মুড়িদান।তারা সকলেই তাহাদের পীরেরে জন্য জান কোরবান করতে প্রস্তুত।আপনার সেনাবাহিনিরও এক বিড়াট অংশকে তিনি করায়ত্ব করে ফেলেছেন।সেনাবাহিনীকে সম্পুর্নরূপে তার দলভুক্ত করার জন্য তিনি
শায়েখ বদিউদ্দিন নামে একজন খলিফাকে স্হায়ীভাবে নিযুক্ত করেছেন।তিনি সৈন্যদের সহিত নিয়মিত যোগাযোগ রক্ষা করেন এবং সকলকে শায়েখ আহমদের দলে ভিড়াইবার জন্য উৎসাহিত করেন।
বাদশাহ মনোযোগ দিয়ে সব শুনলেন।তার মনে সন্দেহ সৃষ্টি হল।
এমতাবস্হায় কি করা যায় তিনি তাহাই চিন্তা করতে লাগলেন।
আসফ খানের পরামর্শে বাদশাহ শায়েখ বদিউদ্দিনের নিকট সৈন্যদের গমনাগমন বন্দ্ধ করার নিষেধাজ্ঞা জারী করলেন এবং তার শায়েখ আহমদে সেরহিন্দ এর নিকট থেকে যদি কোন বাধা আসে তবে তাকে বন্দী করার নির্দেশ দিলেন।শায়েখ বদিউদ্দিন মহা অসুবিধায়
পড়িলেন।

হজরত মোজাদ্দেদ আলফেছানি (রঃ) এর নির্দেশ মত তিনি সেনাবাহিনীর লোকদেরকে ইসলামের প্রকৃত উদ্ধারপ্রাপ্ত দল সুন্নত ওয়াল জামাতের
আকিদা বিশ্বাস ও নকশবন্দিয়া তরিকার শ্রেষ্ঠত্বের ছায়াতলে একত্রিত করার দায়িত্বকে সমস্ত জীবনের ব্রত হিসেবে গ্রহন করেছিলেন।কিন্তু
শাহী নিষেধাজ্ঞা সৈন্যদের সঙ্গে তার যোগাযোগ বন্দ্ধ করে দিল।তিনি
মোর্শেদ হজরত মোজাদ্দেদ আলফেছানি (রঃ) এর নিকট পরিস্হিতির জটিলতা সম্পর্কে জানিয়ে এই স্হান পরিত্যাগের অনুমতি চাইলেন।কিন্তু
মোর্শেদ উনাকে অনুমতি দিলেন না।বরং পুর্ন উদ্যমে সৈন্যদের সঙ্গে
যোগাযোগ করে সত্যের প্রচার কার্জ চালিয়ে যাওয়ার নির্দশ দিলেন।
শায়েখ বদিউদ্দিন কাজ করতে আরাম্ভ করলেন।কিন্তু বিপত্তি দেখা দিল
কিছুদিন পর।।বাদশাহ গুপ্তচর নিয়োগ করলেন।গুপ্তচরগন হজরত মোজাদ্দেদ আলফেছানি (রঃ) ও শায়েখ বদিউদ্দিনের মধ্যে পত্র যোগাযোগ
বন্দ্ধ করে দিল।
শায়েখ বদিউদ্দিন অত্যন্ত পেরেশান হয়ে পরলেন।মোর্শেদের সঙ্গে যোগাযোগ নেই।কোন প্রকার সংবাদ আদান প্রদান করার উপায়ও নেই।কিভাবে কি করবেন ভেবে উঠতে পারলেন না।অনেক চিন্তা করে তিনি সেরহিন্দ শরীফ গিয়ে নিজ মোর্শেদ হজরত মোজাদ্দেদ আল ফেসানি(রঃ) এর খেদমতে হাজির হলেন।তাকে দেখে হজরত মোজাদ্দেদ আল ফেসানি(রঃ) অসন্তুষ্ট হলেন এবং তাকে ভৎসর্না করলেন।তাই তিনি পুনরায় পুর্বস্হানে গিয়ে তার প্রতি অর্পিত দায়িত্ব সম্পাদনে মনোনিবেশ
করলেন।
কুচক্রী মহল আর একটি মোক্ষম সুযোগ পেল।এই ঘটনা তারা বাদশাহর নিকট বর্ননা করার পর বলিলেন,” নিশ্চয়ই গোপনে গোপনে আপনার হুকুমতে ইনকেলাব ঘতাতে এক বিড়াট ষঢ়যন্ত্র হছ্ছে। অবিলম্বে এই ষঢ়যন্ত্রের মুলোৎপাটন না করলে সর্বনাশ হয়ে যাবে।”
বাদশাহ এই সব কথা শুনে ভীত হয়ে পরলেন এবং
তার মধ্যে রাজ্য হারাবার ভয় দেখা দিল।তাই চক্রান্তকারীদের পরামর্শে
রাজধানীর আমির ওমরাগনের মধ্যে যারা হজরত মোজাদ্দেদ আল ফেসানি(রঃ) এর ভক্ত তাদেরকে রাজ্যের বিভিন্ন স্হানে বদলি করে দেয়া হল এবং
হজরত মোজাদ্দেদ আল ফেসানি (রঃ) বাদশাহ কে সম্মানী সেজদা করে
কিনা তা যাচাই করার জন্য রাজ দরবারে আমন্ত্রন জানান হলো।
হজরত মোজাদ্দেদ আল ফেসানি আহমদ ফারুকি সেরহিন্দ (রঃ) তার বাতেনী কাশফের মাধ্যমে আগেই জানতে পেরেছিলেন যে বাদশাহ ও তার দরবারীদের একাংশ তার বিরুদ্ধে ষঢ়যন্ত্রে লিপ্ত। হজরত মোজাদ্দেদ আল ফেসানি (রঃ) তার পাচজন বিশিষ্ট খলিফা সহ শাহী দরবারে প্রবেশ
করে বাদশাহকে সেজদা করাতো দুরের কথা তাকে সালামও জানালেন না। বাদশাহ ক্ষিপ্ত হয়ে সেজদা ও সালাম না করার কারন জানতে চাইলেন। হজরত মোজাদ্দেদ আল ফেসানি(রঃ) বললেন, আপনার দরবারেতো সালাম দেবার প্রথা নেই, আর সেজদা তো একমাত্র আল্লাহর
জন্য এবং আমার মাথা মানুষের সামনে নত হয় না।বাদশাহ ক্ষিপ্ততা
পরিহার করে সাধারন ভাবে বললেন,বেশ।আপনার জন্য পুর্নাঙ্গ সেজদার হুকুম উঠিয়ে নেয়া হল ।আপনি শির সামান্য নত করলেই আমি সন্তুষ্ট হব। হজরত মোজাদ্দেদ আল ফেসানি(রঃ) পুর্বের ন্যায় এবারও দৃঢ়তার সঙ্গে
জবাব দিলেন ,’অসম্ভব’।
বাদশাহর শাহী মর্যাদায় প্রচন্ড আঘাত লাগল।বাদশাহ প্রবল রোষভরে নির্দেশ দিলেন ,”ইহার মস্তক জোর করে নত করে দাও”।
অনেক লোক বাদশাহর হুকুমে এগিয়ে আসল।তাহারা অনেক চেষ্টা
করল,কিন্তু কিছুতেই হজরত মোজাদ্দেদ আল ফেসানি(রঃ) এর মস্তক এতটুকুনও অবনত করতে পারল না।এই দৃশ্য দেখে বাদশাহর ক্রোধ
আরো বেড়ে গেল।বাদশাহ হজরত মোজাদ্দেদ আল ফেসানি(রঃ) কে কয়েদ করে গোয়ালিয়র কেল্লায় প্রেরন করার নির্দেশ দিলেন।আল্লাহর ওলীগন নবী রাসুলগনের প্রকৃত প্রতিনিধি।তাই হজরত মোজাদ্দেদ আল ফেসানি(রঃ) গোয়ালিয়র দুর্গে বন্দী হয়েও কোন বদ্‌দোয়া করলেন না।বরং আল্লাহপাকের ইছ্ছার প্রতি পরিপুর্ন সন্তুষ্ট রইলেন।হজরত ইউসুফ (আঃ)ও কারাবরন করেছিলেন। তাই সুন্নত প্রতিপালনের তৌফিক পেয়ে আল্লাহর দরবারে শুকরিয়া আদায় করলেন।বন্দীশালা পরিনত হল ইসলাম প্রচারের কেন্দ্রে।শত শত চোর,ডাকাত ও দুষ্ক্রৃতিকারীরা ইসলামের সুশীতল ছায়ায় আশ্রয় নিতে লাগল।
হজরত মোজাদ্দেদ আল ফেসানি(রঃ) এর কারাবরনের সংবাদ ধিরে ধিরে সমস্ত খলিফা ও ভক্তগনের নিকট পৌছতে লাগল।প্রিয় মোর্শেদের এই কষ্ট দেখিয়া সবার অন্তরে ক্ষোভের আগুন জলে উঠল।বিভিন্ন জন বিভিন্নভাবে বাদশাহর সহিত যোগাযোগ করলেন।খলিফাদের মধ্যে কেহ কেহ বদ্‌দোয়া করার অনুমতি চেয়ে পত্র লিখলেন। হজরত মোজাদ্দেদ আল ফেসানি(রঃ) কিছুতেই তার অনুমতি দিলেন না।তিনি আপন পুত্র খাজা মোহাম্মদ মাসুম (রঃ) কে লিখলেন,
‘হে প্রিয় বৎস ! পরীক্ষার সময়টুকু কষ্টকর ও অসহনীয় হলেও মুল্যবান,
যদি ইহা সুষ্ঠভাবে সম্পাদন করার ক্ষমতা পাওয়া যায়।” আরেক ভক্তের কাছে লিখলেন, ‘প্রকৃত গজব আল্লাহপাকের দুশমনদের জন্য নির্ধারিত।আল্লাহপাকের আশেকদের জন্য উহা অবিকল রহমত- যদিও তাহা বাহ্যিকভাবে গজব বলে অনুভুত হয়।ইহার দ্বারা এত কল্যান সাধিত হয় যার প্রকৃত বর্ননা সম্ভব নয়।’
এদিকে হঠাৎ হজরত মোজাদ্দেদ আল ফেসানি(রঃ) এর ভক্ত আমিরগন মহব্বত খানের নেতৃত্বে বাদশাহর বিরুদ্ধে বিদ্রোহ ঘোষনা করল।এক বিরাট সৈন্যবাহিনী বিদ্রোহের পতাকাতলে সম্মিলিত হয়ে রাজধানি অভিমুখে রওয়ানা হল।
বিদ্রোহিদের চরম শিক্ষা দেয়ার জন্য বাদশাহ যুদ্ধের আদেশ দিলেন।বিপুলসংখ্যক সৈন্য বিদ্রোহিদের শায়েস্তা করার জন্য যুদ্ধক্ষেত্রে চলল।বাদশাহ নিজে সেনাপতি হলেন।
বিশাল মোজাহিদ বাহিনিও এগিয়ে চলেছে।সবারই মুখে সত্যের দীপ্তি
জ্বল জ্বল করছে।অসত্যের বিরুদ্ধে সত্যের সংগ্রাম ।মোঘল বাদশাহর অহংকার ধুলায় মিশিয়ে দিতে হবে।প্রিয় মোর্শেদের প্রতি অত্যাচারের সমুচিত শিক্ষা দিতে হবে।
ঝীলাম নদীর তীর ।যুদ্ধ শুরু হল।শাহী বাহিনী বিদ্রোহী বাহিনীকে আক্রমন করল।বীরবিক্রমে ঝাপিয়ে পড়ল বিদ্রহী বাহিনীর উপর।মহব্বত খান প্রতি আক্রমন না করে কৌশলমুলক পলায়ন করলেন।বাদশাহ তাহার পশ্চাতে ধাবিত হলেন।শাহী বাহিনির ভিতর হজরত মোজাদ্দেদ আল ফেসানি(রঃ) এর অনেক ভক্ত ছিলেন। বাদশাহর তা জানা ছিল না।বাদশাহ যখন মহব্বত খান কে ধাওয়া করার জন্য নিজ বাহিনী থেকে থেকে দুরে চলে গেলেন তখন মহব্বদত খান শাহী বাহিনতে থাকা হজরত মোজাদ্দেদ আল ফেসানি(রঃ) এর ভক্ত সৈন্যদের সহায়তায় সহজেই বাদশাহকে ঘিরে ফেলে বন্দী করলেন।
শাহী বাহিনী পরাজিত হল।বাদশাহ বন্দী হলেন।মহব্বত খানের সমস্ত সৈন্যদের মনে বিজয়ের আনন্দ।সবারই মনে আশা ,এইবার দিল্লীর
মসনদে তাহারা হজরত মোজাদ্দেদ আল ফেসানি(রঃ) কে উপবেশন করাবেন।মহব্বত খানের মনেও সেই আশা।তিনি হজরত মোজাদ্দেদ আল ফেসানি(রঃ) এর নির্দেশের জন্য প্রতিক্ষা করতে লাগলেন।
তিন দিন কেটে গেল।অবশেষে হজরত মোজাদ্দেদ আল ফেসানি(রঃ) নির্দেশ আসল, ” ফেতনা ফাসাদ বন্দ্ধ করুন।বিশৃংখলা আমার কাম্য নয়।পুর্বের মত বাদশাহর অনুগত হয়ে চলুন।”
মহব্বত খানের বিস্ময়ের অবধি রইল না।কোন বাধা নেই বিপত্তি নেই ।দিল্লীর মসণদ শুন্য।ইছছা করলেই তাতে আরোহন করা যায়।কিন্তু কি করা।প্রিয় মোর্শেদের আদেশ।মহব্বত খান বাদশাহকে মুক্ত করে দিলেন এবং প্রিয় মোর্শেদের নির্দেশ তাকে জানিয়ে দিয়ে পুর্বের মত শাহী আনুগত্যের সহিত কর্তব্য সম্পাদন করে যাওয়ার ইছছা প্রকাশ করলেন।শুধু তাজিমি সেজদা করলেন না।
নুতন বিচিত্র অভিজ্ঞতা নিয়ে বাদশাহ জাহাঙ্গীর রাজধানীতে ফিরে আসলেন।পরাজিত হয়েও তিনি জয়লাভ করলেন।বন্দী হয়েও
তিনি স্বসম্মানে মুক্তি পেলেন।এ কেমন বিস্ময় !
সম্প্রতি বাদশাহ কেমন যেন হয়ে গেছেন।যুদ্ধে তিনি সত্যিই কি
জয় লাভ করেছেন।ইহা কি জয় না পরাজয়? প্রায় দুই বৎসর ধরিয়া তিনি তিনি যাকে বন্দী করে রেখেছেন ,তিনি তাকে তিন দিনও বন্দী থাকতে দিলেন না।কিইবা তার অপরাধ।শাহী আদব কি মানবতা থেকেও বড় ?দুনিয়ার কোনপ্রকার শান শওকতের বিন্দু পরিমান মোহও তার নেই।সেই নির্লোভ নির্মোহ আল্লাহর ফকিরকে বন্দী করার কি অধিকার তার আছে ?তিনি যাকে কষ্ট দিতে চেয়েছেন সেই আল্লাহর ফকির বরাবরই তার কল্যান
কামনা করেছেন।পরাজয়- তার শোচনীয় পরাজয় হয়েছে।মোঘল বাদশাহর দাম্ভিকতা চুর্ন-বিচুর্ন হয়ে গেল।বিশাল হিন্দুস্হানের বাদশাহ হয়েও তার অন্তর কত সংকীর্ন! প্রকৃতপক্ষে ফকিরই মহা-বাদশাহ!! বাদশাহর অন্তরে অনুতাপের অনল দাউ দাউ করে জ্বলে উঠলো।
শাহজাদা শাহজাহান বহুদিন হতে হজরত মোজাদ্দেদ আল ফেসানি(রঃ) এর মুক্তির জন্য সুপারিশ করছিলেন।বাদশাহও এবার ভাবলেন হজরত মোজাদ্দেদ আল ফেসানি(রঃ) কে এবার মুক্তি দিতে হবে।সত্য বুঝতে অনেক বিলম্ব হয়েছে ।আর নয়।বাদশাহ হজরত মোজাদ্দেদ আল ফেসানি(রঃ) কে মুক্তির আদেশ প্রদান করলেন এবং তাকে শাহী দরবারে তশরীফ আনার জন্য আমন্ত্রন জানালেন।
হজরত মোজাদ্দেদ আল ফেসানি(রঃ) মুক্ত হলেন। কিন্তু বাদশাহের শিত সাক্ষাতের পুর্বে সাতটি শর্ত প্রদান করলেন।তিনি জানালেন ,শর্তগুলি মেনে নিলে তিনি বাদশাহর সহিত সাক্ষাৎ করতে প্রস্তুত আছেন।

শর্ত সমুহঃ

১। দরবার হতে তামিজি সেজদার প্রচলন উঠিয়ে দিতে হবে।

২। ভগ্ন ও বিরান মসজিদ সমুহ আবাদ করতে হবে।

৩। গরু জবেহ করিবার উপর নিষেধাজ্ঞা রহিত করতে হবে।

৪। ইসলামী শাসন ব্যবস্হা কায়েমের জন্য বিভিন্ন স্হানে কাজী,মুফতি নিয়োগ করতে হবে।

৫।জিজিয়া কর পুনরায় প্রবর্তন করতে হবে।

৬। সকল প্রকার বেদাত কার্যকলাপ বন্দ্ধ করে দিতে হবে।

৭। রাজবন্দীদের মুক্তি দিতে হবে।

বাদশাহ সমস্ত শর্ত সমুহ নির্দিধায় মেনে নিলেন।শর্ত সমুহ
বাস্তবায়িত করার জন্য শাহী ফরমান জারী করা হল।রাজ্য হতে তামিজি সেজদা উঠে গেল।গরু জবেহ এর উপর নিষেধাজ্ঞা রহিত হল।
জিজিয়া কর পুনঃপ্রবর্তিত হল। সকল প্রকার বেদাত কার্জকলাপ কঠোর হস্তে দমন করার ব্যবস্হা করা হল।বাদশাহ নিজেও আম দরবারের সম্মুখে একটি মসজিদ নির্মান করালেন।
হজরত মোজাদ্দেদ আল ফেসানি(রঃ) বাদশাহর সহিত সাক্ষাৎ করার জন্য রাজধানী আসলেন।বাদশাহ মহাসমাদরে ও স্বসম্মানে তাহাকে দরবারে নিয়ে আসলেন।বাদশাহ তাহার নিকট নিজের অপরাধ স্বীকার করে মাফ চাইলেন।অতপর হজরত এর পবিত্র হস্তে বায়াত গ্রহন করলেন।শাহজাদা শাহজাহানকেও তাহার পবিত্র খানকায় ভর্তি করার
ইছছা ব্যক্ত করলেন।নামাজের ওয়াক্ত হল। হজরত মোজাদ্দেদ আল ফেসানি(রঃ) এবং বাদশাহ নবনির্মিত মসজিদে নামাজ আদায় করলেন।
কইয়ুমে জামান ইমামে রাব্বানী হজরত মোজাদ্দেদ আল ফেসানি শায়েখ
আহমদ ফারুকি সেরহিন্দ (রঃ) হলেন নামাজের ইমাম – আর বিশাল হিন্দুস্হানের বাদশাহ জাহাঙ্গীর হলেন তার মোক্তাদি।
সম্রাজ্ঞী নুরজাহানের বিষদাত ভেঙ্গে গেল।তার সমস্ত পরিকল্পনাই যে ব্যর্থ হয়ে গেল।যে নক্‌সবন্দিয়া তরিকা ও তার প্রচার চিরতরে দুনিয়া থেকে সরিয়ে দিবার পরিকল্পনা তিনি করেছিলেন ,শাহী দরবারেও সেই তরিকা বিজয় গৌরবে প্রবেশ করল।বাদশাহ নিজেও আত্নসমর্পন করলেন সেরহিন্দের সেই ফকিরের কাছে।কিন্তু নুরজাহান তবুও হার ছারলেন না।যতকিছুই হউক শাহজাহানকে মসনদে কিছুতেই বসতে দেয়া যাবে না।নুরজাহান শাহজাদা সম্পর্কে ক্রমাগত বাদশাহর অন্তরে বিষ ঢালতে লাগলেন।বাদশাহ শাহজাদার প্রতি বীতশ্রদ্ধ হয়ে উঠলেন।দিল্লীর মসনদে বসার বসার ক্ষমতা যে শাহজাহানের নেই ,স্ত্রীর কথায় এই ধারনাও তাহার অন্তরে বদ্ধমুল হয়ে গেল।
শাহজাহান বাদশাহর ভুল ভাঙ্গাবার জন্য অনেক চেষ্টা করলেন।কিন্তু কিছুতেই পিতার মন গলাতে পারলেন না।পরিস্হিতি এমন আকার ধারন করলো যে পিতার নিকট তার কোনই স্হান রইল না।শেষ পর্যন্ত শাহজাহান পিতার বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষনা করলেন।
পিতা পুত্র যুদ্ধ শুরু হল।নওজোয়ান শাহজাদার বাহিনী অনেক শক্তিশালী।বাদশাহর পরাজয় হয় হয়।বাদশাহ হজরত মোজাদ্দেদ আল ফেসানি(রঃ) এর নিকট দোয়া চাইলেন।তিনি দোয়া করলেন।সহসা যুদ্ধ পরিস্হিতির বিপরীত মোর নিল।শাহজাদার শক্তিশালী বাহিনী পরাজিত হল।শাহজাদা হজরত মোজাদ্দেদ আল ফেসানি(রঃ) এর দোয়ার সংবাদ জানতে পেরে সাথে সাথেই মোর্শেদের নিকট গিয়ে আরজ করলেন,
”হজরত আমিতো আমার পিতার পুর্ব থেকেই আপনার খাদেম।কি কারনে
আপনি আমার প্রতি বিরূপ হয়ে আমার বিরুদ্ধে দোয়া করলেন।আপনার কারামুক্তির জন্য আমি পিতার নিকট কতভাবে চেষ্টা তদবির করেছি।”
হজরত মোজাদ্দেদ আল ফেসানি(রঃ) তাকে শান্ত হবার উপদেশ দিয়ে
বললেন,”আর বিলম্ব নেই কোনপ্রকার চিন্তা করো না ।অল্পকাল পরেই তোমার পিতার জাহেরী মসনদ তোমার করতলগত হবে ।আর আমার বাতেনী মসনদে অধিষ্ঠিত হবে আমার পুত্র মোহাম্মদ মাসুম।”

গ্রন্হ সহায়তা-
হযরত মোজাদ্দেদ আলফেছানী(রঃ) এর চিঠি পত্রের সংকলন গ্রন্হ মকতুবাদ শরীফ (১ম খন্ড)। এবং মোঃ মামুনুর রশীদ রচিত -নূরে সেরহিন্দ- গ্রন্হ থেকে নেয়া। প্রকাশক-সেরহিন্দ প্রকাশনী, উয়ারি ,ঢাকা, -ধন্যবাদ

Processing your request, Please wait....
  • Print this article!
  • Digg
  • Sphinn
  • del.icio.us
  • Facebook
  • Mixx
  • Google Bookmarks
  • LinkaGoGo
  • MSN Reporter
  • Twitter
১,২৯৩ বার পঠিত
1 Star2 Stars3 Stars4 Stars5 Stars ( ভোট, গড়:০.০০)

১ টি মন্তব্য

  1. ধন্যবাদ। অনেক কিছু জানতে পারলাম। আপনার পরবর্তী পোষ্টের জন্য অপেক্ষায় রইলাম। (F)