লগইন রেজিস্ট্রেশন

ইতিহাস যে কথা বলে না । (মহারাজা পৃথ্বিরাজের পতন কাহীনি)

লিখেছেন: ' দেশী৪৩২' @ সোমবার, জানুয়ারি ৪, ২০১০ (৫:১৫ অপরাহ্ণ)

হযরত খাজা মইনুদ্দিন চিশ্‌তী (রঃ) সিস্তান রাজ্যের সন্জ্ঞর গ্রামে ৫৩৩ হিজরী ও ১১৩৮ ইংরেজি সালে জন্ম গ্রহন করেন।
উনার পিতার নাম গিয়াসুদ্দিন ও মাতার নাম সৈয়দা উম্মুল ওয়ারা।পরে স্বপরিবারে খোরাসান শহরে( বর্তমান আফগানিস্তান) হিজরত করেন।মাত্র ১৫ বৎসর বয়সে বাবা – মা উভয়কেই হারান।
একদিন নিজ জমিতে কাজ করে পরিশ্রান্ত অবস্তায় বিশ্রাম নিছিছলেন।এমন সময় সেখানে এসে উপস্হিত হলেন এক অচেনা আগন্তুক। কিশোর খাজা মইনুদ্দিন তাকে বাগানের কিছু আঙ্গুর এনে আপ্যায়ন করলেন। আগন্তুক ছিলেন আল্লাহর এক অলিআল্লাহ,হজরত ইব্রাহিম কান্দুযী(রঃ)।খুশী হলেন কিশোরের আপ্যায়নে।হাত তুলে দোয়া করলেন অনেকক্ষন।তারপর ঝুলি থেকে বের করলেন এক টুকরো শুকনো রুতি।রুটির একাংশ কিছুক্ষন চিবুলেন তারপর অন্য অংশটুকু মইনুদ্দিনকে খেতে দিলেন।আদেশ পালন করলেন মইনুদ্দি একটু পরেই উছ্ছিষ্ট রুটির প্রতিক্রিয়া প্রকাশিত হতে শুরু করলো।বিস্মিত হলেন ।অন্তরের আছছাদন যেন উবে যাছেছ একে একে।অদ্ভুত এক জ্যোতির্ময় অনুভব এসে ধীরে ধীরে আলোকিত করছে হৃদয়ের সর্বত্র।দরবেশ চলে গেলেন।অন্তরে জ্বালিয়ে দিয়ে গেলেন আল্লাহ প্রেমের
অনন্ত অনল।এই হলো অলিআল্লাহদের তাওয়াজ্জোহ এর ফল। মইনুদ্দিন বাগান ও ভিটে বাড়ি সহ সবকিছু বিক্রি করে দিয়ে বেরিয়ে পরলেন তিনি
আল্লাহর পথে।প্রথমেই জাহেরী এলেম শিক্ষার জন্য হাজির হলেন বোখারা,সমরখন্দে।দীর্ঘ দিন সেখানে অবস্হান করে বুৎপত্তি অর্জন করলেন জাহেরী এলমের সমস্ত শাখা প্রশাখায়। তারপর বেরিয়ে পরলেন বাতেনী ইলম অর্জনের উদ্দেশ্যে।
হাদিস শরীফে উল্লেখ আছে, ”জ্ঞান দুই প্রকার।জবানী ইলম ও বাতেনী ইলম।” (মেশকাত শরীফ)।ইমাম মালিক (রঃ) বলেছেন-”যে ব্যক্তি
বাতেনী জ্ঞান অর্জন করলো কিন্তু ইলমে শরীয়ত শরীয়ত গ্রহন করলো না সে নিশ্চিত কাফের ,আর যে ব্যক্তি শুধু ইলমে শরীয়ত গ্রহন করল কিন্তু
বাতেনী ইলম গ্রহন করলো না সে নিশ্চয় ফাছেক”।আর জ্ঞান অর্জন করা প্রতিটি মোসলমানের উপর যেহেতু ফরয তাই বাতেনী এলেম অর্জন করাও
ফরয।এই বাতেনী জ্ঞান অর্জনের জন্য আবার খাজা মইনুদ্দিন চিশ্‌তী (রঃ) বের হয়ে গেলেন বাতেনী জ্ঞান সম্পন্ন শিক্ষক অন্যেশনের উদ্দেশ্য।
৫৫০ হিজরি সাল।বাগদাদে এসে সাক্ষাৎ পেলেন হজরত বড় পীর আব্দুল কাদের জিলানী (রঃ) এর।কয়েক মাস উনার সাথে অবস্হানের
পর আবার নুতন শিক্ষকের সন্ধানে বের হলেন।বিদায়ের সময় বড়পীর(রঃ) বললেন,’হে মইনুদ্দিন ।তুমি যখন হিন্দুস্হানে সফর করবে ,তখন পথে পরবে ভাতীসা রমন্ত নামে এক স্হান।সে স্হানে আছে সিংহতুল্য এক মর্দে মুমিন।তার কথা মনে রেখ তুমি।’
শুরু হল নুতন শয়েখের সন্ধান।পথে বিভিন্ন অলির সাথে সাক্ষাতের পর এসে উপস্হিত হলেন খোরাসান এবং ইরাকের মধ্যবর্তী নিশাপুর অন্চলের হারুন নগরে। এই শহরেই বসবাস করেন আউলিয়া সম্প্রদায়েরমস্তকের মুকুট হজরত ওসমান হারুনী(রঃ)।উনার নিকট বায়াত হবার দরখাস্ত পেশ করলে মন্জুর হল।উনার সাথে বিশ বৎসরের অধিক সময় অতিবাহিত করে কামালিয়াতের সর্বোচ্চ স্তরে পৌছলেন।
এবার দাওয়াতের পালা।অলী আল্লাহগন হলেন নবী রাসুলদের প্রকৃত উত্তরসুরী।সেই দায়িত্বের ভার এসে পড়ল খাজা মইনুদ্দিন চিশ্‌তী (রঃ) এর উপর।ইতিমধ্যে নুতন এক ছাত্র এসে হাজির হয়েছে খাজার দরবারে। খাজা মইনুদ্দিন চিশ্‌তী (রঃ) ছাত্র জনাব কুতুবুদ্দিন বখতিকে সাথে নিয়ে হজ্ব পালনের উদ্দেশ্যে রওনা হলেন মক্কায়।হজ্ব পর্ব শেষ করে মদীনা শরীফ এসে হজরত খাজা মইনুদ্দিন চিশ্‌তী (রঃ) রসুলে পাক(সাঃ) এর কাছ থেকে এক অবিস্মরনীয় সুসমাচার।হযরত রসুলে পাক(সাঃ) জ্যোতির্ময় চেহারায় আবির্ভুত হয়ে জানালেন,”প্রিয় মইনুদ্দিন।তুমি আমার ধর্মের মইন(সাহায্যকারী)।আমি তোমাকে হিন্দুস্হানের বেলায়েত প্রদান করলাম।হিন্দুস্হান বুৎপরোস্তির অন্দ্ধকারে নিমজ্জিত।তুমি আজমীরে যও।সেখানে তোমর মধ্যমে পবিত্র ইসলামের ব্যাপক প্রসার ঘটবে।
সুসমাচার শুনে পরিপৃপ্ত হলেন খাজা মইনুদ্দিন চিশ্‌তী (রঃ)।
পরক্ষনেই চিন্তিত হলেন তিনি।কোথায় আজমির? বিশাল হিন্দুস্হানের কোন দেশে আছে রসূল নির্দেশিত আজমীর?
চিন্তিত অবস্হায় তন্দ্রাছ্ছন্ন হয়ে পরেছিলেন খাজা খাজা মইনুদ্দিন চিশ্‌তী (রঃ)।সেই অবস্হায় তিনি দেখলেন,হজরত মোহাম্মদ(সাঃ) তার শিয়রে উপবিষ্ট।তিনি তাকে আজমীর শহরের দৃশ্য দেখিয়ে দিলেন।সেই সঙ্গে দিয়ে দিলেন প্রয়োজনীয় পথ নির্দেশনা।এরপর দয়াল নবী (সাঃ) তার হাতে দিলেন একটি সুমিষ্ট আনার।তারপর তার জন্য দোয়ায়ে খায়ের করে যাত্রা শুরু করবার নির্দেশ দিয়ে দিলেন।
সফর শুরু হলো আবার।সঙ্গে সাথী কুতুবুদ্দিন।চলতে চলতে এসে পৌছলেন লাহোর।মনে পড়ে গেল হজরত বড়পীর(রঃ) এর সেই মুল্যবান উপদেশ – মর্দেমুমিন সেই সিংহ পুরুষ এর কথা,সেই ভাতীসা রমস্হ জায়গার কথা। হজরত খাজা মইনুদ্দিন চিশ্‌তী (রঃ) জানতে পারলেন এই লাহোরেই আছে সেই সিংহতুল্য মর্দে মুমিনের মাজার শরীফ।তার মোবারক নাম হজরত দাতাগন্জ্ঞে বখশ(রঃ)।তিনি একাধারে দুই মাস অবস্হান করলেন।তারপর শুরু হল যাত্রা।এবারের যাত্রার গন্তব্য
দিল্লী।
এগিয়ে চলল হজরত খাজা মইনুদ্দিন চিশ্‌তী (রঃ) এর বেহেশতীকাফেলা।এখন আর কাফেলা দুইজনের মধ্যে সীমাবদ্ধ নয়।বিভিন্ন স্হানে
বিরতির সময় সঙ্গে যুক্ত হয়েছেন কিছু খাটি আল্লাহ অনুরক্ত ফকির দরবেশ।আস্তে আস্তে এর সংখ্যা এসে দারিয়েছে চল্লিশে।সঙ্গী সাথী সহ
দিল্লী এসে উপস্হিত হলেন হজরত খাজা মইনুদ্দিন চিশ্‌তী (রঃ)।দিল্লীর শাসক তখন হিন্দুরাজা খান্ডরাও।আজমীর অধিপতি পৃথ্বিরাজের ভাই ছিলেন তিনি।পৃথ্বিরাজই তাকে তার প্রতনিধি হিসেবে দিল্লীর শাসনভারঅর্পন করেছিলেন।
রাজমহলের অদুরেই নির্মিত হলো ফকির দরবেশদের ডেরা।নির্ভয়ে তরা শুরু করলেন তাদের নিয়মিত ইবাদত বন্দগী।ক্রমে ক্রমে ইসলামের আলো প্রসারিত হতে থাকলো।দিল্লীর আধ্যাতিক দৈন্যতায় এলো ইমানের জ্যোতির্ময় জোয়ার।পিতৃ ধর্ম ত্যাগ করে দলে দলে লোক এসে প্রবেশ
করতে থাকলো আল্লাহর মনোনীত একমাত্র ধর্ম ইসলামের সুবাসিত কাননে।বিরোধিতা যেমন বাড়তে লগলো।তামনি বাড়তে থকলো বিজয়ের বিরতিহীন অভিঘাত।কিন্তু গন্তব্যত এখানে নয় ।এগিয়ে যেতে হবে আরো সন্মুখে।রসুল পাক(সাঃ) এর নির্দেশিত সেই আজমীরের আকর্ষন একসময় উদ্বেলিত করে তুললো খাজা মইনুদ্দিন চিশ্‌তী (রঃ)
এর অন্তরকে।দিল্লীর কুতুব হিসেবে নির্বাচিত করলেন হযরত কুতুবুদ্দিন বখতিয়ার কাকী(রঃ) কে।দিল্লীর দ্বীন প্রচার ও নওমুসলিমের বিড়াট কাফেলার হেফাজতের দায়িত্ব হযরত কাকির উপর।
খাজা মইনুদ্দিন চিশ্‌তী (রঃ) তার আত্নোৎসর্গকারী ফকির দরবেশদের নিয়ে রওয়ানা হলেন আজমীর অভিমুখে।পিছনে পরে থাকলো দিল্লী,দিল্লীর শোকাকুল জনতা ও দিল্লীর নব নিযুক্ত কুতুব হযরত বখতিয়ার কাকী(রঃ)।
আজমীর শহরের উপকন্ঠে এসে উপস্হিত হলেন খাজা মইনুদ্দিন চিশ্‌তী (রঃ) ।সফর সঙ্গীগন সবাই পরিশ্রান্ত।বিশ্রামের ব্যবস্হা করতেই হয়।এই সেই হিন্দুস্হানের বেলায়াতের প্রতিশ্রুত কেন্দ্রভুমি আজমীর ।চারিদিকে পাহাড়,পাথর মরুভুমি।নিকটেই বৃক্ষছায়া।এখানেই বিশ্রামের জন্য উপবেশন করলেন দরবেশদের কাফেলা।
স্হানটি ছিল রাজা পৃথ্বিরাজের উষ্ঠ্র বাহিনির বিশ্রামস্হল। রাজার লোকেরা কিছুক্ষন যেতে না যেতেই সবাইকে স্হান ত্যাগ করতে বলল।বিস্মিত হলেন খাজা মইনুদ্দিন চিশ্‌তী (রঃ) ।উটের দলতো এসে পৌছবে সেই সন্দ্ধাবেলায়।অথচ লোকগুলি তাদেরকে এখনই তাড়িয়ে দিতে চায়।তিনি বললেন, ”ঠিক আছে আমরা চললাম।তোমাদের উটই এখানে বসে বসে বিশ্রাম করুক।”
পরিশ্রান্ত কাফেলা আবার এগিয়ে চললো সামনের দিকে।।অদুরে ‘আনা সাগর’। সাগরতো নয় একটি বিশাল হ্রদ।লোকে বলে আনা সাগর।আনা সাগরের পাড় ঘেষে অজস্র মন্দির। খাজা মইনুদ্দিন চিশ্‌তী (রঃ) এই হ্রদেরই এক ছোট টিলার উপর বসবাসের স্হান নির্বাচন করলেন।সে রাতেই মুখে মুখে আগন্তুক দরবেশের আগমন সংবাদ ছড়িয়ে পড়লো সর্বত্র।সকালে মহা রাজ পৃথ্বিরাজও শুনতে পেলেন এক অদ্ভুত সংবাদ।উষ্ঠশালার কর্মচারীগন এসে জানালো।গতকাল সন্দ্ধায় যে উটগুলি উষ্ঠ্রশালায় আনাহয়েছিল সবগুলি এখনও শুয়ে আছে।কিছুতেই উঠবার নাম করছে না।সঙ্গে সঙ্গে মুসলমান দরবেশদলের ঘতনাও বর্নীত হলো রাজার কাছে।দরবেশদলের নেতা উষ্ঠ্রশালা পরিত্যাগের সময় বলেছিলেন , ”তোমাদের উটই এখনে বসে বসে বিশ্রাম করুক।”
ইতিপুর্বে বিক্ষিপ্তভাবে মুসলমান ফকিরদের সম্পর্কে এরকম অনেক কথা রাজার কর্নগোচর হয়েছিল।চিন্তিত হয়ে পড়লেন রাজা পৃথ্বিরাজ।মনে পড়ে গেল তার রাজমাতার ভবিষ্যতবানীর কথা।তিনি বলেছিলেন ”এক মুসলমান ফকিরের অভিসম্পাদেই পৃথ্বিরাজের রাজ্য ধ্বংস হয়ে যাবে।”
একি তবে সেই ফকির ? সম্ভবত এই ফকিরের কথাতেই এই অবস্হার সৃষ্টি হয়েছে।কর্মচারীদেরকে ফকিরদের কাছে ক্ষমা চাওয়ার
জন্য নির্দেশ দিলেন রাজা। রাজ আদেশ পালন করল শ্রমিকেরা ।
হযরত খাজা মইনুদ্দিন চিশ্‌তী (রঃ) বললেন যাও।এ অবস্হা আর থাকবে না।উটশালায় ফিরে এসে বিশ্বয়ের সঙ্গে সবাই লক্ষ্য করল উটগুলো স্বাভাবিকভাবে চলাচল শুরু করেছে।ফকিরের কারামতি দেখে সবাই অবাক হয়ে গেল।ধীরে ধীরে আজমীরের অবস্হান্তর ঘটতে লাগলো।কৌতুহল নিবারনের জন্য লোকজন যাতায়াত শুরু করে দিল হযরত খাজার আস্তানায়।তার পবিত্র চেহারা আর তার সাথীদের প্রানখোলা মধুর চরিত্রের প্রভাবে সম্মোহিত হতে লাগলো আজমিরবাসী। হযরত খাজা মইনুদ্দিন চিশ্‌তী (রঃ) এর সোহবতের(সাক্ষাৎ) বরকতে তাদের অন্তরের অন্দ্ধকার দুর হতে লাগলো।জেগে উঠলো আজমেরীর সত্যান্বেষী জনতা।কিন্তু আতংকিত হলো পুরোহিতরা,শোষক বর্নবাদী হিন্দু সমাজ।ভীত হলো হিংস্র রাজপুরুষগন এবং সামনতবাদী সম্রাট।
ইসলাম বিদ্বেসী ক্রোধান্দ্ধ শহর লোকজন রাজদরবারে গিয়ে হযরত খাজা মইনুদ্দিন চিশ্‌তী (রঃ) ও তার সহচরদের বিরুদ্ধে অভিযোগ করলো।
অভিযোগ শুনে ক্রুদ্ধ হয়ে উঠলেন রাজা পৃথ্বিরাজ।অহংকারের নীচে চাপা পরে গেল মায়ের সদুপদেশবানী।রাজা একদল সৈন্যকে আদেশ দিলেন ফকির দরবেশদলকে এক্ষনি রাজ্য থেকে বিতাড়িত করতে। রাজার আদেশ পেয়ে ঝাপিয়ে পরলো অভিযানে। হযরত খাজা মইনুদ্দিন চিশ্‌তী (রঃ) নির্বিকার।আল্লাহ পাকের সাহায্য কামনা করলেন তিনি।সাথে সাথেই আক্রমনকারীদের কেউ হলেন অন্ধ,কারও শরীর হল নিঃসাড়।কেউ হলো ভুতলশায়ী।
নিরুপায় হয়ে পায়ে পড়ে ক্ষমা প্রার্থনা করলো তারা।দয়ার সাগর গরীবে নেওয়াজ হযরত খাজা মইনুদ্দিন চিশ্‌তী (রঃ) ক্ষমা করে দিলেন সবাইকে।
রাজা পৃথ্বিরাজ ভেবে কুল পান না কি করবেন তিনি।সমরাস্ত্র, সুসজ্জিত সৈন্যদল কোন কিছুই যে আর কাজে আসছে না।এক দুরাগত যবন ফকিরের নিকট পরাজয় বরন করতে হবে তাকে ?ঐশ্বরিক ক্ষমতাধর এই ফকিরের আনুগত্য স্বীকার করবেন নাকি তাকে বিতাড়নের প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখবেন। এ কি বিশ্বয়কর সংকট।চুপ করে থাকলেও বিপদ ।বিরুদ্ধাচরন করলেও সমস্যা।এদিকে দলে দলে লোকজন গ্রহন করছে ফকিরের প্রচারিত একত্ববাদী ধর্মমত।
রাজা ভেবে চিন্তে ঠিক করলেন ,হিন্দু ধর্মের আধ্যাধিক সিদ্ধপুরুষদের দ্বারা প্রতিরোধ করতে হবে ফকিরকে।তাই সিদ্ধপুরুষ বলে খ্যাত ”রামদেও” কে অনুরোধ করলেন তার যোগমন্ত্র বলে এই যবন ফকিরকে বিতাড়িত করতে।রামদেও রাজী হলেন।তার ধীর্ঘ সাধনালব্দ্ধ আধ্যাধিক শক্তিতে হযরত খাজা মইনুদ্দিন চিশ্‌তী (রঃ) কে পরাস্ত করার বাসনায় হাজির হলেন হযরতের দরবারে।
হযরত খাজা মইনুদ্দিন চিশ্‌তী (রঃ) তখন ছিলেন ধ্যানমগ্ন অবস্হায়।কিছুক্ষন পর চোখ খুললেন হযরত।দৃষ্টিপাত করলেন রামদেও খাজা মইনুদ্দিন চিশ্‌তী (রঃ) এর জ্যোতির্ময় চেহারার দিকে।মুগ্ধ হয়ে গেলেন রামদেও।তার আধ্যাতিক শক্তি মুহুর্তের মধ্যে নিশ্চিন্ন হয়ে গেল।অন্ধকারে আলো জ্বললে মুহুর্তেই যেমন করে অন্ধকার অপসারিত হয়।হজরত খাজার কদম মোবারকে লুতিয়ে পড়লেন রামদেও।নির্দ্বধায় স্বীকার করলেন ইসলাম। খাজা মইনুদ্দিন চিশ্‌তী (রঃ) তার নাম রাখলেন মোহাম্মদ সাদী।
রামদেও এর ইসলাম গ্রহনের সংবাদ শুনে রাজা ক্ষোভে দঃখে অস্হির হয়ে উঠলেন।কিন্তু বিদূষী মায়ের উপর্যুপরি উপদেশের বাধ্য হয়ে সংযত হলেন রাজা।কিন্তু কিছুদিন পরই দেখা দিল আরেক বিপদ।
আনা সগরের পানি শুধুমাত্র উচ্চ বর্নের হিন্দু এবং পুরোহিত সম্প্রদায়
ছারা অন্য কেও ব্যবহার করতে পারতো না।নিম্ন বর্নের হি্ন্দুরা এটা তাদের ধর্মীয় বিধান বলে মনে করত।কিন্তু মোসলমানরা কি আর বর্নভেদের ধার ধারে ? একদিন আনাল সাগরে অজু করতে গেলন হজরত খাজার একজন সাগরেদ।পুরোহিতরা অপমান করে তাড়িয়ে দিলো তাকে।সাগরেদ সমস্ত ঘটনা বর্ননা করলেন খাজা মইনুদ্দিন চিশ্‌তী (রঃ) কে।হযরত খাজা মোহাম্মদ সাদীকে ”আনা সাগর” থেকে এক ঘটি পানি আনার নির্দেশ দিলেন।নির্দেশ মত মোহাম্মদ সাদী ‘আনা সাগর’ থেকে এক ঘটি পানি আনতেই দেখা গেলো এক আশ্চর্য দৃশ্য।কোথায় সাগর ? সব পানি তার শুকিয়ে গিয়েছে একেবারে।
এই আলৌকিক ঘটনা রাজাকে জানালো প্রজারা।বিব্রত বোধ করলো রাজা।রাজা বাধ্য হয়ে আবারও তাদের প্রজাদের দুর্ব্যবহারের জন্য ফকিরের কাছে ক্ষমা চাইতে নির্দেশ দিলেন রাজা।প্রমাদ গুনলেন পুরোহিত সম্প্রদায়।কিন্তু উপায়ন্তর না দেখে তারা খাজা মইনুদ্দিন চিশ্‌তী (রঃ) এর কাছে গিয়ে ক্ষমা ভিক্ষা করলেন ।
মানুষের দুর্দশা দেখে ও পুরোহিতদের ক্ষমার প্রেক্ষিতে মোহাম্মদ সাদীকে পুনরায় ঘটিতে ভরা পানি আনা সাগরে ঢেলে দিতে নির্দেশ দিলেন।নির্দেশ পালিত হলো।ঘটির পানি ঢেলে দেয়ার সাথে সাথেই ভরে গেল বিশাল হ্রদ ‘আনাল সাগর’।এই আলৌকিক ঘটনার পর বহুলোক ইসলামের সুশীতল ছায়ায় আশ্রয় নিল খাজা মইনুদ্দিন চিশ্‌তী (রঃ)এর হাত ধরে।
পৃথ্বিরাজ ভেবে পান না কি করে এ মোসলমান ফকিরকে প্রতিহত করা যায় ।কেউ কেউ রাজাকে বুদ্ধি দিলেন বিখ্যাত ঐন্দ্রজালিক অজয় পালকে দিয়ে কিছু করা যায় কিনা ?রাজা তাকেই ডেকে পাঠালেন এবং রাজকীয় পুরুস্কারের প্রস্তাব করলেন।অজয় পাল তার সর্বশক্তি দিয়ে খাজা মইনুদ্দিন চিশ্‌তী (রঃ) কে ঘায়েল করার চেষ্টা করলেন।কিন্তু মিথ্যা কি কখনো সত্যকে প্রতিহত করতে পারে ? অজয় পালও তার ভুল বুঝতে পেরে তার সঙ্গী সাথী সহ ইসলাম ধর্ম গ্রহন করলেন।খাজা মইনুদ্দিন চিশ্‌তী (রঃ) অজয় পালের নাম রাখলেন ‘আব্দুল্লাহ বিয়াবানী’।
সংবাদ শুনে মুষড়ে পরলেন রাজা।নিজ রাজ্য রক্ষার কথা চিন্তা করে সংঘর্ষমুক্ত সহাবস্হানের পথ অবলম্বন করলেন রাজা।কিন্তু সত্য মিথার সংষর্ষ যে অবসম্ভাবী।আবারও সংঘর্ষের সূত্রপাত হলো এভাবে-
রাজদরবারের একজন কর্মচারী ছিলেন খাজা মইনুদ্দিন চিশ্‌তী (রঃ) এর একান্ত অনুরক্ত।মুসলমানও হয়ে গিয়েসিলেন তিনি।রাজা একথা জেনেও তাকে খুব পছন্দ করতেন তার উত্তম স্বভাব,বিশ্বস্হতা ও সততার জন্য।কিন্তু রাজদরবারের অন্যান্য সদস্যদের প্ররোচনায় এক সময় সেই কর্মচারীর উপর ক্ষিপ্ত হয়ে উঠলেন রাজা। খাজা মইনুদ্দিন চিশ্‌তী (রঃ) এর কাছে বার বার হেনস্ত হবার সমস্ত ক্ষোভ যেন গিয়ে পড়লো তার উপর।মুসলমান কর্মচারী সমস্ত দুঃখের কথা খাজা মইনুদ্দিন চিশ্‌তী (রঃ) এর কাছে বর্ননা করার পর খাজাকে অনুরোধ করলেন তার জন্য রাজার কাছে একটি সুপারিশ পত্র পাঠাতে।পর দুঃখে কাতর খাজা মইনুদ্দিন চিশ্‌তী (রঃ) একান্ত বিনয় ও নম্রতার মাধ্যমে সেই কর্মচারীর পক্ষে একটি সুপারিশ পত্র পাঠালেন।সেই সঙ্গে রাজাকে জানালেন ইসলাম গ্রহনের একান্ত আহ্বান।
চিঠি পেয়ে রাগে হিতাহিত জ্ঞান হারিয়ে ফেললেন পৃথ্বিরাজ।মুসলমান কর্মচারীকে চকুরীচ্যুত করলেন রাজা।সেই সঙ্গে খাজা মইনুদ্দিন চিশ্‌তী (রঃ) এর বিরুদ্ধে উচ্চারন করলেন অশালীন বক্তব্য।সংবাদ শুনে খাজা মইনুদ্দিন চিশ্‌তী (রঃ) এর প্রেমময় অন্টরেও প্রজ্জলিত হলো রুদ্ররোষের সর্বধ্বংসী আগুন।তিনি একটুকরা কাগজে লিখে পাঠালেন রাজা পৃথ্বিরাজকে-”মান তোরা যেন্দা বদস্তে লশকরে ইসলাম বছোপর্দম”। অর্থাৎ আমি তোমাকে তোমার জীবিতাবস্হাতেই মুসলিম সেনাদের হাতে সোদর্প করলাম।এর পরেই স্বপ্ন দেখলেন সুলতান শাহাবুদ্দিন মোহাম্মদ ঘুরী এবং উনার নেতৃত্বেই হিন্দুস্হানে উরলো মোসলমানদের বিজয় পতাকা এবং পতন হলো মহারাজা পৃথ্বিরাজের।
নিদ্রাভিবুত ছিলেন সুলতান শাহাবুদ্দিন মোহাম্মদ ঘুরী।স্বপ্নে দেখলেন শ্বেত শুভ্র বস্ত্রাবৃত এক জ্যোতির্ময় মহাপুরুষ সিংহাসনে বসা।তার সামনে দন্ডায়মান অনেক অনুচর।তাদের মধ্যে একজন সুলতান ঘোরীকে হাত ধরে একদল সুসজ্জিত মুসলমান সেনাদলের নিকট নিয়ে গেল।আর সেই সময় সেই জ্যোতির্ময় মহাপুরুষ তাকে লক্ষ্য করে বললেন,”যাও তোমাকে আমি হিন্দুস্হানের শাসন ক্ষমতা দান করলাম।”।
স্বপ্ন ভেঙ্গে গেল।চমকিত হলেন সুলতান।এ নিশ্চয়ই শুভ স্বপ্ন হবে। সকালে ঘনিষ্ঠজনদের সঙ্গে স্বপ্নের বৃত্তান্ত জানালেন।সবাই একবাক্যে বললেন ,মনে হয় অচিরেই হিন্দুস্হান আপনার করতলগত হবে।এ স্বপ্ন তারই আগাম সুসংবাদ।
সুলতান মনস্হির করলেন হিন্দুস্হান অভিযান শুরু করার। সেনাপতি কুতুবুদ্দিন আইবেককে প্রস্তুত হবার নির্দেশ দিলেন।৫৮৮ হিজরি সালে সুলতান শাহাবুদ্দিন মোহাম্মদ ঘুরী তার বিশাল সেনাবাহিনী নিয়ে হিন্দুস্হান অভিমুখে রওয়ানা হলেন।অন্তরে বিগত যুদ্ধের পরাজয়ের গ্লানি।সে গ্লানি এবার মুছতেই হবে।ইতি পুর্বে দুই দুইবার হিন্দুস্হান আক্রমন করেও সফল হতে পারেন নি।শুরু হল তুমুল যুদ্ধ। সুলতান শাহাবুদ্দিন মোহাম্মদ ঘুরীর সৈন্যসংখ্যা রাজা পৃথ্বিরাজের সৈন্যের তুলনায় একেরারেই কম।কিন্তু ইমানের বলে বলীয়ান এক আল্লাহর একছ্ছত্র শক্তির প্রতি নির্ভর করে তারা নির্ভয়ে এগিয়ে চললো। এই বাহিনীর প্রধান সেনাপতি কুতুবুদ্দিন আইবেক।তারায়েনা প্রান্তরে দুই বাহিনীর মধ্যে প্রচন্ড যুদ্ধ শুরু হলো। মুসলমানদের প্রচন্ড আক্রমনের সামনে ছত্রভঙ্গ হয়ে গেল পৌত্তলিক সৈন্যবাহিনী।নাস্তানাবুদ হয়ে পালিয়েও নিস্তার পেল না তারা।ক্ষিপ্রগতিতে রাজপুত সৈন্যদের পশ্চাদ্ধাবন করে যাকে যেভাবে পাওয়া গেল,তাকে সেভাবেই হত্যা করতে লাগলো মুসলমান সৈন্য বাহিনী।উপায়ন্তর না দেখে যুদ্ধের ময়দান থেকে পালিয়ে গেলো সেনাপতি খান্ডে রাও।রাজা পৃথ্বিরাজও সরস্বতী নদীর তীর ধরে পালাবার চেস্টা করার সময় মোসলমানদের সৈন্যদের হাতে বন্দী হয়ে গেল রাজা।শেষাবধি হত্যা করা হল তাকে।৫৮৮ হিজরী সালে ভয়াবহ এ যুদ্ধে সুলতান সাহাবুদ্দিন ঘোরী নিরংকুশ বিজয় লাভ করলেন।আরো সামনে এগিয়ে চললো ঘোরী বাহিনী।এর পর সহজেই এক এক করে সরস্বতী,সামানা ও হাশিসহ অধিকৃত হল দিল্লী।সুলতান দিল্লীর দায়িত্ব দিলেন কুতুবুদ্দিন আইবেককে ।তারপর সুলতান শাহাবুদ্দিন মোহাম্মদ ঘুরী এগিয়ে চললেন আজমীরের দিকে।
তার এই এই অপ্রতিরুদ্ধ অগ্রাভিযানের সামনে অবনত হলো যুদ্ধে নিহত হিন্দু রাজাদের পুত্রগন।দেউল নামক স্হানে সম্রাটের সঙ্গে সাক্ষাত করলো অনেক রাজপুত্রগন।মুসলিম শাসনের প্রতি তাদের আনুগত্যের বিনিময়ে সম্রাট তাদেরকে দান করলেন বিভিন্ন রাজ্যের জায়গী। সুলতান এগিয়ে চললেন আজমীরের দিকে।
এদিকে আজমীরে ক্রমাগত বেড়েই চলছে খাজা মইনুদ্দিন চিশ্‌তী (রঃ) এর কাফেলা। ইসলাম কবুলকারীদের সংখ্যা এখন লক্ষ লক্ষ।শুধু আজমীরে নয় এখন খাজা মইনুদ্দিন চিশ্‌তী (রঃ) এর জামাত এখন ছড়িয়ে পরেছে হিন্দুস্হানের কোনায় কোনায়।দর্শনার্থীদের ভীর সব সময় লেগেই থাকে।
সুলতান শাহাবুদ্দিন মোহাম্মদ ঘুরী অবশেষে আজমীর এসে পৌছলেন।তখন সন্ধা হয় হয়।সুর্যাস্ত হওয়ার পর সচকিত হয়ে উঠলেন সুলতান শাহাবুদ্দিন মোহাম্মদ ঘুরী।দুরে কোথায় আজানের ধ্বনি শোনা যায়।সেদিকে এগিয়ে যেতেই তিনি দেখলেন একদল নুরানী জান্নাতী
লোক হাত বেধে দাড়িয়েছেন।দরবেশদের জামাতের সঙ্গে নামাজ আদায় করলেন সুলতান।সালাত শেষে জামাতের ইমামের মুখের দিকে তাকিয়েই চমকে উঠলেন সুলতান শাহাবুদ্দিন মোহাম্মদ ঘুরী।এইতো সেই জ্যোতির্ময় মহাপুরুষ,স্বপ্নে যিনি জানিয়েছেন হিন্দুস্হান বিজয়ের সুসংবাদ।
সুলতান শ্রদ্ধাভরে পরিচিত হলেন হজরত খাজার সাথে।তিনদিন হযরতের মোবরক সহবতে অতিবাহিত করে স্বদেশ প্রত্যাবর্তন করলেন সুলতান।তার প্রতিনিধি হিসেবে দিল্লীতে রেখে গেলেন কুতুবুদ্দিন আইবেক কে।তিনিও বায়াত গ্রহন করলেন খাজার প্রতিনিধি খাজা বখতিয়ার কাকী(রঃ) হাতে।এর পর রাজনৈতিক ও রুহানী শক্তির সম্মিলিত প্রচেষ্টায় পৌত্তলিকতা উছ্ছেদের অভিযান চলতে থাকলো সমান্তরাল গতিতে।কুতুবুদ্দিন আইবেক ক্রমে ক্রমে প্রসারিত করলেন মুসলিম রাজ্যের সীমানা।কনৌজ,বানারস সহ আরো বহু স্হানে উড়িয়ে দিলেন মোসলমানদের বিজয় পতাকা।

(গ্রন্থ সহায়তা – মোহাম্মদ মামুনুর রশীদ রচিত -” চেরাগে চিশতী”,প্রকাশক-সেরহিন্দ প্রকাশন,উয়ারী ,ঢাকা।)

Processing your request, Please wait....
  • Print this article!
  • Digg
  • Sphinn
  • del.icio.us
  • Facebook
  • Mixx
  • Google Bookmarks
  • LinkaGoGo
  • MSN Reporter
  • Twitter
২,৭৬৬ বার পঠিত
1 Star2 Stars3 Stars4 Stars5 Stars (ভোট, গড়: ৪.০০)

২১ টি মন্তব্য

  1. লিখা সুন্দর হয়েছে তবে বিশ্বাস করা যায় না । কাল্পনিক মনে হয় । মাফ করবেন আমাকে । হ্যা সত্য ও হতে পারে । আল্লাহ পাক আমাদের মাফ করুন । আমিন ।

    দেশী৪৩২

    @ফুয়াদ, আমিন।

  2. @আব্দুল্লাহ, ভাই আপনাকে ধন্যবাদ ব্যাপারটাকে গুছিয়ে বলার জন্য।
    আমরা সবসময়ই হাদিস শুনলে সেটা সহীহ না জাল সেটা নিয়ে চিন্তা-ভাবনা বা সঠিক রেফারেন্স খুজে বের করার চেষ্টা করি এবং সেটা করাও উচিত। কিন্তু, ওলীদের ব্যাপারে কোন কিছু শুনলেই হল, সেটা নিয়ে তেমন একটা মাথা ঘামাই না, সেই ইতিহাসের ইসনাদ, রাবীদের নির্ভরযোগ্যতা এসব ব্যাপার তখন বেমালুম ভুলে যাই।
    আল্লাহ আমাদের কোরআন-সুন্নাহর আলোকে ঐক্যবদ্ধ থাকার তৌফিক দান করুন। আমীন।

  3. @ফারুক, বিধর্মী ও তাদের দোসরদের লেখা বই পড়লে তো তাই মনে হবে।আর আপনি নিজে যদি ঐতিহাসিক হয়ে থাকেন তবে আমাদের এই উপমহাদেশে
    ইসলাম কিভাবে আসলো সম্ভব হলে লিখে জনাবেন।ধন্যবাদ।

  4. @আব্দুল্লাহ, আমার লেখায় আপনার এই microscopic ভুল ধরার চেষ্টা করার কোন কারন তো বুঝলাম না।এই ইতিহাস থেকে কিছু শিখলেন কিনা বা ইসলামের কি কোন ক্ষতি হলো না লাভ হলো, তাতো জানালেন না। ”আমার জান্নাত বাসী বাবা ও জান্নাত বাসীনি মা” এ রকম উক্তি কোন ইসলামিক বই এ পড়েন নি ? নাকি আপনি ইসলামিক বই পড়েন না। এর মানে এই না যে সবাই বেহেশতে চলে গেছে।এটা সবার আশা। আপনি নিজেই লিখেছেন যে আপনি একজন বড় আলেম না ।কিন্তু খাজা মইনুদ্দিন চিশ্‌তী (রঃ) এর মত একজন বড় আলেম ও আল্লাহর ওলীর মত মানুষের ভুল ধরার মত ধৃষ্টতা প্রদর্শন করলেন।আর আমার মনে হয় আপনি সব হাদিস গ্রন্ন্থও পড়েন নি। জনৈক সাহাবি রসুল পাক(সাঃ) পা মোবারক চুম্বন করেছেন।লেখার কোন জায়গায় আমি বলেছি খাজা মইনুদ্দিন চিশ্‌তী (রঃ) রাজাকে স্বপ্ন দেখিয়েছেন ।আর স্বপ্নে রাজাকে কেউ যদি রাজ্য ক্ষমতা দিয়ে থাকে তাতে খাজা মইনুদ্দিন চিশ্‌তী (রঃ) এর কি দোষ হলো ? ঐ সময়তো খাজা মইনুদ্দিন চিশ্‌তী (রঃ) এর সাথে রাজার দেখাই হয়নি। জহরলাল নেহেরু এর মত বিধর্মীর উক্তি মনে রেখেছেন।কিন্তু খাজা মইনুদ্দিন চিশ্‌তী (রঃ) এর মত একজন বড় আলেম ও আল্লাহর ওলীর মত মানুষের জীবনি না জানার জন্য দুঃখ না করে তার সত্যতার প্রশ্ন তুলছেন।যিনি ব্যাক্তি ও ক্ষমতার পুজা থেকে সবাইকে উদ্ধার করলেন আর তাকেই আমি পুজার পাত্র(নাউযুবিল্লাহ) বানানোর চেষ্টা করেছি বলে আপনার মনে হল ? আল্লাহ পাক আমাদের সবাইকে হেদায়েত দান করুন। আমিন । ।

    হাফিজ

    @দেশী৪৩২ ভাই,

    আগের সুফি সাধকরা দ্বীন প্রচারের জন্য যে কষ্ট করেছেন সেটাও লেখায় নিয়ে আসুন , সবাই আমরা উপকৃত হবো । ওয়াস সালাম ।

    দেশী৪৩২

    @হাফিজ, ইনশাআল্লাহ

    মালেক_০০১

    @দেশী৪৩২, বিভিন্ন ওলীগণের ব্যাপারে যেসব ইতিহাস আছে তার স্পিরিট অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ এবং কিছু সহীহ ইতিহাসতো অবশ্যই আছে। কিন্তু বিশদ যেসব বর্ণনা পাওয়া যায় তার মধ্যে যে জাল বর্ণনা নাই , তা বলা মুশকিল ; কারণ, এই ইতিহাসগুলোর সবকিছু সহীহ হাদিসের মত করে সংগৃহীত নয়। আর পায়ে চুম্বনের ব্যাপার নিয়ে অলরেডি “তুষার” নামক ব্লগারের একটি পোষ্টে http://www.peaceinislam.com/tusharzia/2749/ অনেক আলোচনা হয়েছে, কিন্তু কথা সেটা না।
    খাজা মইনুদ্দিন চিশ্‌তী (রঃ) এর মত একজন বড় আলেম ও আল্লাহর ওলী পায়ে চুম্বন করতে দিয়েছেন , এই রেওয়াতই বা কতটুকু সহীহ আগে সেটা দেখতে হবে। এর কারণ হিসেবে নিচের পোষ্টটি দেখুনঃ
    http://www.peaceinislam.com/sahriar/2837/

    মালেক_০০১

    @দেশী৪৩২, বিভিন্ন ওলীগণের ব্যাপারে যেসব ইতিহাস আছে তার স্পিরিট অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ এবং কিছু সহীহ ইতিহাসতো অবশ্যই আছে। কিন্তু বিশদ যেসব বর্ণনা পাওয়া যায় তার মধ্যে যে জাল বর্ণনা নাই , তা বলা মুশকিল ; কারণ, এই ইতিহাসগুলোর সবকিছু সহীহ হাদিসের মত করে সংগৃহীত নয়। আর পায়ে চুম্বনের ব্যাপার নিয়ে অলরেডি “তুষার” নামক ব্লগারের একটি পোষ্টে http://www.peaceinislam.com/tusharzia/2749/ অনেক আলোচনা হয়েছে, কিন্তু কথা সেটা না।
    খাজা মইনুদ্দিন চিশ্‌তী (রঃ) এর মত একজন বড় আলেম ও আল্লাহর ওলী পায়ে চুম্বন করতে দিয়েছেন , এই রেওয়াতই বা কতটুকু সহীহ আগে সেটা দেখতে হবে। এর কারণ হিসেবে নিচের পোষ্টটি দেখুনঃ
    http://www.peaceinislam.com/sahriar/2837/

    ধন্যবাদ।

    হাসান আল বান্না

    @দেশী৪৩২, হজরত খাজার কদম মোবারকে লুতিয়ে পড়লেন রামদেও।নির্দ্বধায়…
    জনৈক সাহাবি রসুল পাক(সাঃ) পা মোবারক চুম্বন করেছেন।

    এরকম কোন হাদিস কখনো পড়িনি, শুনিওনি। তবে আমার জানাটাই শেষ কথা নয়। আপনারা কেউ এ বিষয়ে রেফারেন্স দিলে উপকৃত হব। মনে রাখা দরকার, ওলীগণের প্রতি অত্যধিক শ্রদ্ধার (কদম মোবারকে লঠিয়ে পড়ার মত) আতিশয্য থেকেই এই উপমহাদেশে কবর পূজার উদ্ভব হয়েছে। যার বিষফল থেকে কোটি মানুষ এখনো বাঁচতে পারেনি। ৯৯ ভাগ নির্ভূল তথ্যের সাথে ১ ভাগ গলদ সড়িষা পরিমাণ ঈমানটুকুও কেড়ে নিতে পারে। এর দায়-দায়িত্ব ইতিহাস রচনাকারী ও আমলকারীদের উপরই বর্তায়, ওলীগণের উপর নয়। আমার মন্তব্য অলিগণকে অশ্রদ্ধা করবার উদ্দেশ্যে নয়। মূলত তাদের কারণেই আমরা এই উপমহাদেশে ইসলাম পেয়েছি।

  5. @ কর্তৃপক্ষ [পিস-ইন-ইসলাম] : এই পোষ্টে আমার করা দ্বিতীয় মন্তব্যটি আমি শুধু লগইন অবস্থায় দেখতে পাই । লগআউট করলে আমার করা দ্বিতীয় মন্তব্যটি আর দেখা যায় না। আশা করছি কর্তৃপক্ষ এ ব্যাপারে পদক্ষেপ নিবেন । ধন্যবাদ।

  6. @দেশী৪৩২, বিভিন্ন ওলীগণের ব্যাপারে যেসব ইতিহাস আছে তার স্পিরিট অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ এবং কিছু সহীহ ইতিহাসতো অবশ্যই আছে। কিন্তু বিশদ যেসব বর্ণনা পাওয়া যায় তার মধ্যে যে জাল বর্ণনা নাই , তা বলা মুশকিল ; কারণ, এই ইতিহাসগুলোর সবকিছু সহীহ হাদিসের মত করে সংগৃহীত নয়। আর পায়ে চুম্বনের ব্যাপার নিয়ে অলরেডি “তুষার” নামক ব্লগারের একটি পোষ্টে http://www.peaceinislam.com/tusharzia/2749/ অনেক আলোচনা হয়েছে, কিন্তু কথা সেটা না।
    খাজা মইনুদ্দিন চিশ্‌তী (রঃ) এর মত একজন বড় আলেম ও আল্লাহর ওলী পায়ে চুম্বন করতে দিয়েছেন , এই রেওয়াতই বা কতটুকু সহীহ আগে সেটা দেখতে হবে। এর কারণ হিসেবে নিচের পোষ্টটি দেখুনঃ
    http://www.peaceinislam.com/sahriar/2837/

    ধন্যবাদ।

  7. @@দেশী৪৩২, বিভিন্ন ওলীগণের ব্যাপারে যেসব ইতিহাস আছে তার স্পিরিট অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ এবং কিছু সহীহ ইতিহাসতো অবশ্যই আছে। কিন্তু বিশদ যেসব বর্ণনা পাওয়া যায় তার মধ্যে যে জাল বর্ণনা নাই , তা বলা মুশকিল ; কারণ, এই ইতিহাসগুলোর সবকিছু সহীহ হাদিসের মত করে সংগৃহীত নয়। আর পায়ে চুম্বনের ব্যাপার নিয়ে অলরেডি “তুষার” নামক ব্লগারের একটি পোষ্টে http://www.peaceinislam.com/tusharzia/2749/ অনেক আলোচনা হয়েছে, কিন্তু কথা সেটা না।
    খাজা মইনুদ্দিন চিশ্‌তী (রঃ) এর মত একজন বড় আলেম ও আল্লাহর ওলী পায়ে চুম্বন করতে দিয়েছেন , এই রেওয়াতই বা কতটুকু সহীহ আগে সেটা দেখতে হবে। এর কারণ হিসেবে নিচের পোষ্টটি দেখুনঃ
    http://www.peaceinislam.com/sahriar/2837/

    ধন্যবাদ।

  8. এরকম একটি সুন্দর লেখা উপহার দেয়ার জন্য দেশী৪৩২ ভাইকে ধন্যবাদ।ইসলামীক ব্লগেও যে আবু জেহেল,আবু লাহাব এর মতাদর্শী লোকেরা ঘুপটি মেরে বসে থাকে তা আমার জানা ছিলো না।তা না হলে এরকম সুন্দর একটি ইসলামের ইতিহাসেরর খবর পড়ে,(যেখানে লক্ষ লক্ষ বিধর্মী মোসলমান হলো) খুশীতে আলহামদুলিল্লাহ না বলে কোন দলিল প্রমান ছাড়াই কিছু পাঠক লেখার সমালোচনা শুরু করে দিল।মনে হছ্ছে তাদের দিলে যেন আবু জেহেল ও আবু লাহাবের দুঃখের প্রতিধ্বনি।

    দ্য মুসলিম

    @Ibrahim,

    আল্লাহ আমাদেরকে হিদায়াত দিন। আমিন। (F)

  9. @দেশী৪৩২, পায়ে চুম্বনের ব্যাপার নিয়ে অলরেডি “তুষার” নামক ব্লগারের একটি পোষ্টে http://www.peaceinislam.com/tusharzia/2749/ অনেক আলোচনা হয়েছে, কিন্তু কথা সেটা না।
    খাজা মইনুদ্দিন চিশ্‌তী (রঃ) এর মত একজন বড় আলেম ও আল্লাহর ওলী পায়ে চুম্বন করতে দিয়েছেন , এই রেওয়াতই বা কতটুকু সহীহ আগে সেটা দেখতে হবে। এর কারণ হিসেবে নিচের পোষ্টটি দেখুনঃ
    http://www.peaceinislam.com/sahriar/2837/

    বিভিন্ন ওলীগণের ব্যাপারে যেসব ইতিহাস আছে তার স্পিরিট অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ এবং কিছু সহীহ ইতিহাসতো অবশ্যই আছে। কিন্তু বিশদ যেসব বর্ণনা পাওয়া যায় তার মধ্যে যে জাল বর্ণনা নাই , তা বলা মুশকিল ; কারণ, এই ইতিহাসগুলোর সবকিছু সহীহ হাদিসের মত করে সংগৃহীত নয়।

  10. লেখাটি ঠিকভাবে পড়া না গেলে এখানে দেখুন http://www.somewhereinblog.net/blog/deshi432

  11. @আব্দুল্লাহ,

    ১। “এগিয়ে চলল হজরত খাজা মইনুদ্দিন চিশ্‌তী (রঃ) এর বেহেশতীকাফেলা।” – রসুলুল্লাহ (সাঃ) যাদের জান্নাতী বলেছেন তাদের ছাড়া অন্য কাউকেই, তিনি যতই ভাল মানুষ হন না কেন, আমরা বেহেশতী বলবনা। আমরা ভাল মানুষদের জন্য দু’আ করব কিন্তু সে জান্নাতী – এই ঘোষণা দিবনা, কারন আমরা কারো মনের খবর জানিনা এবং আল্লাহই এসব ব্যপারে অধিক জ্ঞানবান।

    আপনি আসলে ভুল ধরার মানসিকতা নিয়ে পোষ্টটি পড়েছেন নতুবা আপনার আরো বেশী করে জ্ঞান চর্চায় সময় দেয়া দরকার। হুজুর পাক সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম দুনিয়ার দুটি স্হানকে বেহেশতের বাগান বলেছেন। এক, কাবা শরীফের একটি স্হানকে। দুই, যে স্হানে কোরান সুন্নাহর আলোচনা হয় সেই স্হানকে। এখন আমরাতো জানিযে সাধারণত ওয়াজ-মাহফিল গুলোতে বিভিন্ন ধরণের লোক আসে। তো এর মানেতো এই নয় যে তাদের সবাইকে হুজুর পাক সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তাদের সবাইকে জান্নাতী বলে সার্টিফিকেট দিয়ে দিয়েছেন?

    হাফিজ

    @দ্য মুসলিম,

    হুজুর পাক সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম দুনিয়ার দুটি স্হানকে বেহেশতের বাগান বলেছেন। এক, কাবা শরীফের একটি স্হানকে। দুই, যে স্হানে কোরান সুন্নাহর আলোচনা হয় সেই স্হানকে। এখন আমরাতো জানিযে সাধারণত ওয়াজ-মাহফিল গুলোতে বিভিন্ন ধরণের লোক আসে। তো এর মানেতো এই নয় যে তাদের সবাইকে হুজুর পাক সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তাদের সবাইকে জান্নাতী বলে সার্টিফিকেট দিয়ে দিয়েছেন?

    সহমত