লগইন রেজিস্ট্রেশন

যার দ্বারা আক্রান্ত, তার দ্বারাই রক্ষিত

লিখেছেন: ' রাতদিন' @ সোমবার, ফেব্রুয়ারি ৮, ২০১০ (৬:০১ পূর্বাহ্ণ)

পৃথিবীতে কত কিছু ঘটে যায়, ঘটে কত নিরব বিপ্লব। কত-ই কি আর আমরা খেয়াল রাখি। যে আজকের রাজা সে-ই দেখা যায় হয়ে গেল কালকের ফকির। আবার দেখা যায় আজকের ফকির কালকে হয়ে গেল রাজা। কত কাহিনী আছে আজব, কত প্ল্যান-প্রগ্রাম করে জীবনের লক্ষ্য স্থির করে পড়ে আছে সেই আগের জায়গায়, কেউ পৌছে যায় লক্ষ্যে কিন্তু কেউবা কোন প্ল্যান ছাড়াই পৌছে যায় নতুন উচ্চতায়। বাস্তবে কোন মানুষ-ই শ্রেষ্ঠ নয় কারো থেকে, আজ যে উপরে কালকেই সে নিচে হতে পারে। বিজ্ঞান যতই উন্নত হোক কালকে কী হবে কিছু বলতে পারে না, পারার কথাও না। কী আজব এ দুনিয়া, আজকে যাকে দুর্বল ভাবেন, কালকেই দেখা গেল সে সবল। তাই কি হযরত আলী রাঃ বলেন, আমি আল্লাহ কে জানতে পেরেছি আমার পরিকল্পনা ভাংগে যেতে দেখে।

আজ এক কাহিনী পৃথিবীতে প্রচার পায়, কালকে আরেক। আজ বলা হয়, এই মতবাদ ঠিক কালকেই বলা হয় বেঠিক। এ ধরনেরই এক অদ্ভুত কাহিনী শুনলাম ব্লগার ইবনে হাবিব ভাইয়ের কাছ থেকে। সুইজারল্যান্ডের খবর যা কিছুদিন আগেই পেয়েছিলাম। কিন্তু এ এক নতুন খবর। বিশিষ্ট সুইস রাজনীতিক ড্যানিয়াল স্ট্রিচ ইসলাম গ্রহণ করেছেন। সুইস পিপলস পার্টির সদস্য ড্যানিয়াল স্ট্রিচই সর্বপ্রথম সুইজারল্যান্ডে মসজিদের মিনার নির্মাণের নিষেধাজ্ঞার প্রস্তাব পেশ করেন। স্ট্রিচের ইসলাম গ্রহণ তাই সুইস রাজনীতিতে এক নতুন মোড় এনে দিবে বলে মনে করা হচ্ছে। সাথে সাথে নিষেধাজ্ঞা-প্রস্তাবের সমর্থকদেরকে এনে দিবে হতাশা। সবচেয়ে মজার ব্যাপার হলো, যেই স্ট্রিচ একদিন মিনার নিষেধাজ্ঞার প্রস্তাব করেন, সেই স্ট্রিচই এখন সুইজারল্যান্ডে মিনারবিশিষ্ট পঞ্চম মসজিদটি নির্মাণ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। এর মাধ্যমে ইসলামপূর্ব কৃতকর্মের তাওবা করতে চান তিনি।

গত ২৯ শে নভেম্বর সুইজারল্যান্ডে এক গণভোটের মাধ্যমে মসজিদের মিনার নির্মাণের ওপর নিষেধাজ্ঞার সিদ্ধান্ত হয়। গণভোটে ৫৭ দশমিক ৫ শতাংশ ভোটার ও দেশের ২৬টি ক্যান্টনের মধ্যে চারটি ছাড়া সবক’টি প্রস্তাবের পক্ষে ভোট দিয়েছে। সুইজারল্যান্ডের কট্টর ডানপন্থী রাজনৈতিক দল সুইস পিপলস পার্টির (এসভিপি) পক্ষে পার্টির সদস্য ড্যানিয়াল স্ট্রিচই এ গণভোটের প্রস্তাব করেছিলেন। সুইজারল্যান্ডের এই নিষেধাজ্ঞার বিরুদ্ধে ফুঁসে উঠেছে সারা বিশ্ব। ইতোমধ্যে এই সিদ্ধান্তকে চ্যালেঞ্জ করে মামলাও করা হয়েছে।

বিষ্ময়কর খবর। এভাবেই আল্লাহ পাক ইসলামকে রক্ষা করেন, যার দ্বারা আক্রান্ত হয়, তার দ্বারাই রক্ষিত হয়। যে মংগলীয় আক্রমনে ইসলাম বিদ্ধস্ত হয়েছিল, তাদের দ্বারাই আবার প্রতিষ্ঠা পেয়েছিল।

খবরঃ http://www.ibnewsonline.com/bangla/detailsnews.php?id=39

ইবনে হাবিবের লিংকঃ
http://www.somewhereinblog.net/blog/mahmudbinhabib/29091929

Processing your request, Please wait....
  • Print this article!
  • Digg
  • Sphinn
  • del.icio.us
  • Facebook
  • Mixx
  • Google Bookmarks
  • LinkaGoGo
  • MSN Reporter
  • Twitter
৭৫ বার পঠিত
1 Star2 Stars3 Stars4 Stars5 Stars ( ভোট, গড়:০.০০)

২ টি মন্তব্য

  1. তারা মুখের ফুঁৎকারে আল্লাহর আলো নিভিয়ে দিতে চায়। আল্লাহ তাঁর আলোকে পূর্ণরূপে বিকশিত করবেন যদিও কাফেররা তা অপছন্দ করে। ৬১: ৮।

    আর যারা কাফের তারা বলে, এরূপ উপমা উপস্থাপনে আল্লাহর মতলবই বা কি ছিল। এ দ্বারা আল্লাহ তা’আলা অনেককে বিপথগামী করেন, আবার অনেককে সঠিক পথও প্রদর্শন করেন। তিনি অনুরূপ উপমা দ্বারা অসৎ ব্যক্তিবর্গ ভিন্ন কাকেও বিপথগামী করেন না।

    (বিপথগামী ওরাই) যারা আল্লাহর সঙ্গে অঙ্গীকারাবদ্ধ হওয়ার পর তা ভঙ্গ করে এবং আল্লাহ পাক যা অবিচ্ছিন্ন রাখতে নির্দেশ দিয়েছেন, তা ছিন্ন করে, আর পৃথিবীর বুকে অশান্তি সৃষ্টি করে। ওরা যথার্থই ক্ষতিগ্রস্ত। ২; ২৬,২৭

    আল্লাহ যাকে সঠিক পথে দেখান, তাকে কেউ পথভ্রষ্ট করতে পারে না। আর যাকে পথভ্রষ্ট করেন, তাকে কেউ বাচাতে পারে না।

  2. এভাবেই আল্লাহ পাক ইসলামকে রক্ষা করেন, যার দ্বারা আক্রান্ত হয়, তার দ্বারাই রক্ষিত হয়। যে মংগলীয় আক্রমনে ইসলাম বিদ্ধস্ত হয়েছিল, তাদের দ্বারাই আবার প্রতিষ্ঠা পেয়েছিল।

    সহমত।