লগইন রেজিস্ট্রেশন

কওমী ভাইদের বলছি , যাত্রা কি এইখানেই সমাপ্ত করবেন ?

লিখেছেন: ' hamidul' @ শুক্রবার, মার্চ ২৯, ২০১৩ (২:৪৮ অপরাহ্ণ)

এই আসিফ আর তার সহযোগীরা ইসলামের বিরুদ্ধে লেখালেখির মাধ্যমে বিষেদগার

করতেছিল অনেক আগে থেকেই । এরা কুযুক্তির মাধ্যমে লেখা গুলো উপস্থাপন করতো

যা ইসলাম সম্পর্কে নুন্যতম জ্ঞান রাখে এই রকম ব্যাক্তির কাছে হাসির খোরাক হত ।

একবার মুক্তমনায় একজনে যুক্তি রেখেছিল এই রকম ‘কোরআন ও মূর্তি পূজা সমর্তন

করে (নাউজুবিল্লাহ) কারন কোরআনে অনেক মূর্তির নাম উল্লেখ্য রয়েছে” । আমি তখন

হাসবো না কাদবো বুজতে পারছিলাম না । কিন্তু কলেজ বা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়া একজন

তরুন ছাত্র কি এর উত্তর খুজে পাবেন ? সে কি উত্তর খুজতে আসবে আমাদের মাদ্রাসায়

? বর্তমানে অনেক মুসলিম তরুন এই বিপদগামীতার শিকার হচ্ছেন ইসলাম সম্পর্কে

অজ্ঞতার কারনে । আপনি কি মনে করেন এর সামান্য দায়ভার ও আমাদের উপর

ভর্তাবে না ?

আমরা আমাদের জানা বিষয় গুলি সবসময় আমাদের মধ্যেই প্রচারের চেষ্টা করেছি ।

যেমন ধরুন হাতে গোনা কিছু পত্রিকা ছাড়া আমাদের মাসিক যে পত্রিকা আছে তা

কলেজ বা বিশ্ববিদ্যালয় গুলি তে প্রচারের সংখ্যা নাই বললে চলে । এই যেমন ধরুন ,

রাজীব বা আসিফের ব্যাপারটি জেনেছি একটি অন্য মাধ্যম থেকে । কেন আমাদের এই

দূর্বলতা ? কেন আমরা পারি না সর্বত্র ছড়িয়ে যেতে বা ছড়িয়ে দিতে । ৭১’ সালের বীর

মুক্তিযুদ্ধোদের প্রচার করা হয় শুধু আলেম মুক্তিযোদ্ধাদের বাদ দিয়ে । অথচ এত আলেম

মুক্তি যোদ্ধা আছে আমি নিজেই জানতাম না শাহোশি এর আলেম মুক্তি যোদ্ধার খোজে

বইটি না পড়লে । অথচ দাড়ি টুপি ওলাদের এখন পরিচিতি করার চেষ্টা করা হয়

রাজাকার হিসেবে ।

এতক্ষন হতাশার কথায় বলেছি শুধু কিন্তু এখন দেখতে পাচ্ছি নতুন এক বিপ্লবের । একটি

ঘটনা বলি আমার এক সমবয়সী একসময় আমাকে অনেক উপদেশ শুনাতেন । বলতো

ইন্টারনেট এগুলা কি ? আমি তাকে বুঝাবার চেষ্টা করতাম কিন্তু হিতে বিপরীত । হটাৎ

করে সে আমাকে ফোন দিয়ে বলল দোস্ত কোথায় তুমি ? আমি উত্তর দিলাম । সে আমার

সাথে দেখা করে বলল যেন তাকে একটি ফেবু একাউন্ট খুলে দিয় । আমি পুরাই থ হয়ে

গেলাম। আমি যখন প্রথম প্রথম অনলাইনে বিচরন করা শুরু করলাম তখন কওমী

মাদরাসার কেউ আছে কি না বার বার সার্চ করে দেখতাম কিন্তু হতাশ হতাম কিন্তু এখন

কওমী লিখলেই দেখি হাজারো সাজেশন্স এসে হাজির । এখন সবাই সচেতন হয়েছে । শুধু

দরকার যথাযোগ্য ব্যবহার । প্রথম আলোর প্রচার সংখ্যা মাত্র ৫ লাখের কাছাকাছি কিন্ত

ফেবু, বল্গ ব্যবহার কারির সংখ্যা ১২ লক্ষের ও বেশি । তাই প্রথম আলোদের মত কোন

ভুয়া নিউজের প্রতিবাদ করে সহজে মানুষের কাছে সত্যটা তুলে ধরতে পারবো আমরা

যদি এইভাবে এগোতে থাকি ।

আসলে এর একটি নেগেটিভ দিকও আছে । যেমন ১৫ থেকে ২০/২২ বছর পর্যন্ত

ছেলেমেয়েদের টিনএজার বয়স । তখন সব কিছুই ভাল লাগে । তখন কাউকে যদি স্বাধীন

ভাবে নেট ব্যবহার করতে দেয়া হয় তাহলে সে নেগেটিভ টাই চিন্তা করার চেষ্টা করবে

এতে কোন সন্দেহ নাই । তাই বলে মাথায় উকুন হলে মাথা কেটে পেলতে হবে না ।

আমাদের উচিত হবে কোন অভিবাবকের তত্বাবদানে এদের গড়ে তুলা । এবং এই বয়স

গুলোতে তদারকি করা কোথায় যায়, কি করে ? মনে রাখবেন শুধুই নেট পেলেই খারাপের

দিকে পা বাড়াবে তা নই । সর্বোপরি কথা হল , নিজের আদর্শ, নিজের জীবন , কি করা

উচিত এই জিনিষ গুলো ভালভাবে মাথায় ঢুকিয়ে দেয়া প্রয়োজন ।

এখন যে যাত্রা শুরু হয়েছে সে যাত্রা যেন কোন কর্মসূচীর পরে থেমে না যায় । এই যাত্রা

ততক্ষন পর্যন্ত যেতে হবে সমাজভাবে, রাষ্ট্রীয়ভাবে, আন্তর্জাতিক ভাবে ইসলাম প্রতিষ্টা না

হয় ততদিন । ইসলামের শ্বাশত বানী পৌছে দিতে এই যাত্রায় সফর করতে হবে ।

Processing your request, Please wait....
  • Print this article!
  • Digg
  • Sphinn
  • del.icio.us
  • Facebook
  • Mixx
  • Google Bookmarks
  • LinkaGoGo
  • MSN Reporter
  • Twitter
১৪৯ বার পঠিত
1 Star2 Stars3 Stars4 Stars5 Stars (ভোট, গড়: ৪.০০)

৩ টি মন্তব্য

  1. আজ নাস্তিক ব্লগারদের ব্লগিয় প্রতিবাদ করতে লক্ষ লক্ষ আলেম রাজপথে, যদি এর একশ ভাগের একভাগ আলেমগণও ব্লগ বা ইন্টারনেট ব্যবহার শিখতেন তাহলে নাস্তিকদের জবাব রাজপথে দেবাব প্রয়োজন হতোনা।

    চালিয়ে যান সাহসিকতার সাথে, সত্যের পথে।

    এম_আহমদ

    @মুসাফির, সহমত।

    এম এম নুর হোসেন

    @মুসাফির, বাস্তব কথা।