লগইন রেজিস্ট্রেশন

দফ বাজানোর শরয়ী বিধান

লিখেছেন: ' লুৎফর ফরাজী' @ বৃহস্পতিবার, জুন ২, ২০১১ (১২:২৫ অপরাহ্ণ)

দফের পরিচয় :

الدف : بضم الدال ، آلة من آلات الموسيقى مستدبرة كالغربال ليس لها جلاجل يشد الجلد من أحد طرفيها)(الدف) الجنب من كمعجم لغة الفقهاء – ج 1 / ص 251

অর্থাৎ দফ বলা হয় ঐ বাদ্য যন্ত্রকে যার উপরের অংশ চালুনির মত, যাতে ঘন্টির মত আওয়াজ নেই, আর তার একাংশে থাকবে চামড়ার পর্দা।

তাফসীর গ্রন্থে দফের বিধান।

)1(حدثنا هلال بن أبي هلال، عن عطاء بن يسار، عن عبد الله بن عمرو قال: إن هذه الآية التي في القرآن: { يَا أَيُّهَا الَّذِينَ آمَنُوا إِنَّمَا الْخَمْرُ وَالْمَيْسِرُ وَالأنْصَابُ وَالأزْلامُ رِجْسٌ مِنْ عَمَلِ الشَّيْطَانِ فَاجْتَنِبُوهُ لَعَلَّكُمْ تُفْلِحُونَ } قال: هي في التوراة: “إن الله أنزل الحق ليذهب به الباطل، ويبطل به اللعب، والمزامير، والزَّفْن، والكِبَارات -يعني البرابط–والزمارات -يعني به الدف-والطنابير-والشعر، والخمر مرة لمن طعمها. أقسم الله بيمينه وعزة حَيْله من شربها بعد ما حرمتها لأعطشنه يوم القيامة، ومن تركها بعد ما حرمتها لأسقينه إياها في حظيرة القدس”.وهذا إسناد صحيح.(تفسير ابن كثير -3/187

)2(أخرج ابن أبي حاتم وأبو الشيخ والبيهقي في سننه عن عبد الله بن عمرو قال : إن هذه الآية التي في القرآن يا أيها الذين آمنوا إنما الخمر والميسر والأنصاب والأزلام رجس من عمل الشيطان فاجتنبوه لعلكم تفلحون هي في التوراة إن الله أنزل الحق ليذهب به الباطل ويبطل به اللعب والزفن والمزامير والكبارات

يعني البرابط والزمارات يعني الدف والطنابير والشعر والخمر مرة لمن طعمها وأقسم ربي بيمينه وعزة حيله لا يشربها عبد بعدما حرمتها عليه إلا عطشته يوم القيامة(الدر المنثور سورة الماءدة90- 3/163(

উল্লেখিত তাফসীরে আমরা দেখতে পাচ্ছি আল্লামা ইবনে কাসীর তার বিখ্যাত তাফসীর গ্রন্থে সূরায়ে মায়েদার ৯০ নাম্বার আয়াতের তাফসীর করতে গিয়ে তাওরাতের উদ্বৃত দিয়ে তিনি বলেন “একই কথা তাওরাতে আল্লাহ তায়ালা এভাবে বলেছেন যে, নিশ্চয় আল্লাহ সত্য নাযিল করে এর দ্বারা বাতিলকে নির্মূল করেন”। আর বাতিলের অন্তর্ভূক্ত বিষয়ের মাঝে দফ বাজানোও শামিল। ঠিক একই তাফসীর আল্লামা সুয়ূতী রহ. প্রণীত আদ দুররুল মানসুর তাফসীর গ্রন্থেও দেখা যাচ্ছে।

হাদীসের ভাষায় দফের বিধান :

(১)عن ابن مسعود رضى الله تعالى قال نهى عن ضرب الدف ولعب الصنج وضرب الزمارة، لست من دد “1 ولا الدد مني.”خد، هق عن أنس؛ طب عن معاوية”.)كنز العمال فى سنن الاقوال والافعال –باب التغنى المحظور 15/219

২) (- عن بشر بن عاصم عن أبيه عن جده فصل ما بين الحلال والحرام ضرب الدف والصوت فى النكاح (أحمد ، والترمذى – حسن – والنسائى ، وابن ماجه ، والبغوى ، والطبرانى ، والحاكم ، والبيهقى ، وأبو نعيم فى المعرفة عن محمد بن حاطب الجمحى)(جامع الاحاديث – باب حرف الفاء – 14/438)

(৩)عن مطر بن سالم عن على قال : نهى رسول الله – صلى الله عليه وسلم – عن ضرب الدف ولعب الصنج وصوت الزماره (الخطيب قال فى المغنى عن مطر بن سالم عن على مجهول)

أخرجه الخطيب (13/300) . (جامع الاحاديث –قسم الأفعال- مسند علي ابن ابي طالب – 32/142)

(৪) عن بريدة : أن النبى – صلى الله عليه وسلم – قدم من بعض مغازيه فأتته جارية سوداء فقالت : يا رسول الله إنى كنت نذرت إن ردك الله سالما أن أضرب بين يديك بالدف ، قال : إن كنت نذرت فاضربى وإلا فلا فجعلت تضرب والنبى – صلى الله عليه وسلم – جالس ، فدخل أبو بكر وهى تضرب ، ثم دخل عمر فألقت الدف تحتها وقعدت عليه ، فقال رسول الله – صلى الله عليه وسلم – : إن الشيطان ليخاف وفى لفظ : ليفرق منك يا عمر إنى كنت جالسا وهى تضرب ، ثم دخل أبو بكر وهى تضرب ، فلما دخلت ألقت الدف تحتها وقعدت عليه (أحمد ، وأبو يعلى ، وابن عساكر) [كنز العمال في سنن الأقوال والأفعال كتاب الفضائل من قسم الأفعال باب فضائل الصحابة فضائل الفاروق رضي الله عنه]

(৫) حدثنا أحمد قال حدثنا ابن وهب قال أخبرنا عمرو أن محمد بن عبد الرحمن الأسدي حدثه عن عروة عن عائشة قالت دخل علي رسول الله صلى الله عليه و سلم وعندي جاريتان تغنيان بغناء بعاث فاضطجع على الفراش وحول وجهه ودخل أبو بكر فانتهزني وقال مزمارة الشيطان عند النبي صلى الله عليه و سلم فأقبل عليه رسول الله عليه السلام فقال ( دعهما )

وفى تعليق د. مصطفى ديب البغا ( جاريتان ) مثنى جارية وهي الأنثى دون البلوغ . ( تغنيان بغناء بعاث ) تنشدان وترفعان أصواتهما بما قاله العرب في يوم بعاث وهو حصن وقع عنده مقتلة عظيمة بين الأوس والخزرج في الجاهلية . ( فانتهرني ) زجرني وأنبني . ( مزمارة الشيطان ) يعني الضرب على الدف والغناء مشتق من الزمير وهو صوت الذي له صفير وأضيف إلى الشيطان لأنه يلهي عن ذكر الله عز و جل وهذا من عمل الشيطان )صحيح البخاري – (ج ১ / ص ১৩০) – كتاب العيدين باب الحراب والدرق يوم العيد(

(৬)وفي كتاب سعيد بن منصور حدثنا أبو داود وسليمان بن سالم البصري حدثنا حسان بن سنان عن رجل عن أبي هريرة يرفعه يمسخ قوم من أمتي آخر الزمان قردة وخنازير قالوا يا رسول الله ويشهدون أنك رسول الله وأن لا إله إلا الله قال نعم ويصلون ويصومون ويحجون قالوا فما بالهم يا رسول الله قال اتخذوا المعازف والقينات والدفوف ويشربون هذه الأشربة فباتوا على لهوهم وشرابهم فأصبحوا قردة وخنازير(عمدة القاري شرح صحيح البخاري كتاب الأشربة باب الأنتباذ في الأوعية والتور ) – (ج 31 / ص 167)

(7)- أَخْبَرَنَا أَبُو نَصْرِ بْنُ قَتَادَةَ أَنْبَأَنَا أَبُو مَنْصُورٍ الْعَبَّاسُ بْنُ الْفَضْلِ النَّضْرَوِىُّ حَدَّثَنَا أَحْمَدُ بْنُ نَجْدَةَ حَدَّثَنَا سَعِيدُ بْنُ مَنْصُورٍ حَدَّثَنَا أَبُو عَوَانَةَ عَنْ عَبْدِ الْكَرِيمِ الْجَزَرِىِّ عَنْ أَبِى هَاشِمٍ الْكُوفِىِّ عَنِ ابْنِ عَبَّاسٍ قَالَ : الدُّفُّ حَرَامٌ وَالْمَعَازِفُ حَرَامٌ وَالْكُوبَةُ حَرَامٌ وَالْمِزْمَارُ حَرَامٌ.) السنن الكبرى للبيهقي وفي ذيله الجوهر النقي – (ج 10 / ص 222)

উল্লিখিত হাদিস সমূহের মাঝে ১ ও ৩ নং হাদিসে যথাক্রমে হযরত ইবনে মাসউদ(রা.)ও হযরত আলী(রা.) থেকে বর্ণিত হাদিসে রাসূল কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম সুস্পষ্টভাবে “দফ” বাজাতে নিষেধ করেছেন মর্মে হাদিস বর্ণিত হয়েছে।

আর ৩নং হাদিসে হালাল ও হারামের মাঝে দোদুল্যমান দফের বিধান বলে উল্লেখ করা হয়েছে।

৪র্থ হাদিসে জনৈকা মহিলা সাহাবী রাসূল কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ও আবু বকর (রা.) এর সামনে দফ বাজাতে থাকলে যখন হযরত ওমর (রা.) সে মজলিসে প্রবেশ করেন তখন সে ওমর (রা.) এর ভয়ে দফ বাজানো বন্ধ করে তা নিচে রেখে বসে গেলে রাসূল কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম মন্তব্য করেন, হে ওমর! তোমাকে দেখে শয়তান ভয় পায়,মতান্তরে নবীজি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেন যে, শয়তান তোমার থেকে দূরে থাকে। তাইতো এই মহিলা আমি ও আবু বকর (রা.) বসা থাকা অবস্থায় দফ বাজালো, কিন্তু যখনই তুমি প্রবেশ করলে তখনই সে দফ বাজানো বন্ধ করে তা নিচে দিয়ে বসে গেলো।

বিজ্ঞ পাঠক! হযরত ওমর (রা.) কে দেখে মহিলাটির দফ বাজানো বন্ধ করাকে নবীজি বলেছেন শয়তান ওমর (রা.) থেকে ভয়ে দূরে থাকে বলে মহিলাটি দফ বাজানো বন্ধ করে দিয়েছে। সুতরাং দফ বাজানো শয়তানী কাজ একথা কী প্রমাণিত হচ্ছেনা এ হাদিস থেকে?

৫নং হাদিসটি দিয়ে যারা দফ বাজানোকে যায়েজ বলেন তারা দলীল হিসেবে পেশ করে থাকেন। কিন্তু হাদিসটির দিকে আমরা ভালো করে নজর দিলে দেখতে পাই এ হাদিসটিও দফ বাজানো জায়েজ নয় বলেই প্রমাণ করছে, কারণ এ হাদিসে ঈদের দিন নাবালেগ দুটি শিশু জাহেলী যুগের নির্দোষ গজল গাচ্ছিল দফ বাজিয়ে তাই দেখে হযরত আবু বকর (রা.) মন্তব্য করলেন এটা তথা “দফ” হলো “শয়তানের বাঁশি” কিন্তু রাসূল কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এটি শয়তানের বাঁশি নয় একথা না বলে ছোট মানুষের খেলাচ্ছলে বাঁশি বাজানোকে বন্ধ করতে নিষেধ করেছেন, সুতরাং এ হাদিসকে কোন যুক্তিতে বড় মানুষের জন্য বাঁশি বাজানো যায়েজ হবার পক্ষে দলীল পেশ করা যায়? এ ছাড়াও দেখুন মুহাদ্দিসীনে কেরাম এ হাদিসের উপর আলোচনা করতে গিয়ে কী বলেছেন,বুখারী শরীফে বর্ণিত এ হাদিসের আলোচনায় আল্লামা আবুল হাসান সিন্ধী (র.) হাশিয়াতে নকল করেন وفى مجمع البحار قال الطيبى ومااحدث المتصوفة من السماع بالآلات فلا خلاف فى تحريمه حتى ظهرت على كثير منهم افعال المجانين فيرقصون بحركات مطابقة وتقطيعات متلاحقة وزعموا ان تلك الامور من البر ويثير سنيات الاحوال وهذا زندقة( حاشية صحيح البخارى لابى الحسن السندى 1/130) “আল্লামা তীবী (র.) সুস্পষ্টভাবে বলছেন যে যন্ত্র বাজিয়ে সংগীত শুনা বিনা মতানৈক্যে হারাম, আর আজকাল এসবের মাধ্যমে গান শুনে তার তালে নেচে নেচে একে সুন্নতী কাজ বলা যিন্দিকী কর্মকান্ড ছাড়া কিছুই নয়”।

৬ নং ও ৭ নং হাদিস দু’টির অনুবাদের দিকে একবার নজর বুলালেই দফের শরয়ী বিধান সুস্পষ্ট হয়ে যাবার কথা………হযরত ‌আবু হুরায়রা রা. থেকে নিরবচ্ছিন্ন সূত্র পরম্পরায় বর্ণিত, নবীজি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, “আমার উম্মতের মাঝে এক দল লোকের শেষ জমানায় বানর ও শূকরের সুরতে চেহারা বিকৃতি ঘটবে”। সাহাবা রা.নবীজি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে প্রশ্ন করলেন , ইয়া রাসূল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম! অথচ তারা স্বাক্ষ্য দিবে নিশ্চয় আপনি আল্লাহর মনোনিত রাসূল আর আল্লাহ তায়ালা ছাড়া কোন মাবুদ নেই ? নবীজি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেন- হ্যা এবং তারা নামায ও পড়বে আবার রোজাও রাখবে, এবং হজ্ব ও করবে, সাহাবারা বললেন, তবে তাদের অপরাধটা কী? নবীজি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেন, তারা বাদ্য ও গায়িকা আর “দফ” বাজানোকে গ্রহণ করবে। আর মদ খেয়ে প্রমোদ করে মাতাল হয়ে রাত কাটিয়ে সকালে বানর ও শুকরে পরিণত হবে।

হযরত ইবনে আব্বাস রা. বলেন, “দফ” বাজানো হারাম , বাদ্য বাজনা হারাম, সুরা পান হারাম, গান শোনা হারাম।

ফুকাহাদের ভাষায় দফের বিধান :

(১) وأبو حنيفة أشد الأئمة قولا فيه ومذهبه فيه أغلظ المذاهب وقد صرح أصحابه بتحريم سماع الملاهي كلها المزمار والدف حتى الضرب بالقضيب وأنه معصية يوجب الفسق وترد به الشهادة بل قالوا التلذذ به كفر(عون المعبود – كتاب الأدب- باب كراهية الغناء والزمر 13/186(

অর্থাৎ আর আবু হানিফা রাহ. এ ব্যাপারে সবচে’ কঠোর। তার মাযহাব হলো সবচে’ কঠিন , তার সঙ্গীরা একথা সুস্পষ্ট করেছেন যে, সকল প্রমোদ সামগ্রি হারাম , সর্ব প্রকার বাঁশি এবং “দফ” ও। এমন কি লাঠি দিয়ে বাড়ি মারাও, আর এটা গোনাহ যা ফাসেক হওয়াকে ওয়াজিব করে, যার ফলে তার স্বাক্ষ্যও গ্রহণযোগ্য নয়, বরঞ্চ ফুকাহারা বলেন-এসব দ্বারা আনন্দ নেয়া কুফরী।(নাউজুবিল্লাহ)

(২) وأما الضرب بالدف فقد كان جماعة من التابعين يكسرون الدفوف ……… وكان الحسن البصري يقول ليس الدف من سنة المرسلين في شيء )تلبيس إبليس باب في ذكر الشبه التي تعلق بها من اجاز سماع الغناء- (ج 1 / ص 293

অর্থাৎ “দফ বাজানো” তাবেয়ীনদের এক জামাত দফ ভেঙ্গে ফেলতেন, আর হাসান বসরী রাহ. বলেছেন-দফ বাজানোতে নবী অনুস্বরণের কিছু নেই।

(৩) وَاسْتِمَاعُ ضَرْبِ الدُّفِّ وَالْمِزْمَارِ وَغَيْرِ ذَلِكَ حَرَامٌ وَإِنْ سَمِعَ بَغْتَةً يَكُونُ مَعْذُورًا وَيَجِبُ أَنْ يَجْتَهِدَ أَنْ لَا يَسْمَعَ قُهُسْتَانِيٌّ )رد المحتار- كِتَابُ الْحَظْرِ وَالْإِبَاحَة-فَصْلٌ فِي الْبَيْعِ)

অর্থাৎ দফের বাজনা ও বাঁশির আওয়াজ এবং এ জাতীয় বিষয় শোনা হারাম, আর যদি আচমকা শোনে ফেলে তবে তাকে মাজুর ধরা হবে। আর চেষ্টা করবে যেন তা না শুনতে পায়।

(৪) السؤال- هل من الجائز شرعا النقر على الدفوف وضرب الطبول والمزمار أثناء الصلوات فى الجوامع

الجواب………………………… ومن هنا يعلم أن النقر على الدف وضرب الطبول والمزمار مما لا يجوز شرعا عند فقهاء الحنفية بل ذلك كله حرام عندهم، وهو أشد حرمة إذا كان فى الحالة المذكورة بالسؤال- فتاوى دار الإفتاء المصرية مواضع استعمال الدف والطبول والمزمار – (ج 7 / ص 231

দারুল ইফতা মিশরের উল্লেখিত ফতোয়ার আন্ডার লাইন করা অংশটির দিকে একবার নজর বুলালেই বুঝা যাবে হানাফীদের মতে দফের বিধান কী, “এখানে জেনে রাখা উচিত যে, নিশ্চয় দফ বা তবলা কিংবা বাঁশি বাজানো ফুকাহায়ে আহনাফ এর নিকট শরীয়ত মোতাবেক জায়েজ নেই। বরঞ্চ এই প্রতিটি কাজ হারাম তাদের কাছে”।

(৫) ولهذا كان جمهور العلماء على أن الضرب بالدف للغناء لا يباح فعله للرجال ؛ فإنه من التشبه بالنساء ، وهو ممنوع منه ، هذا قول الأوزاعي وأحمد ، وكذا ذكر الحليمي وغيره من الشافعية .

وإنما كان يضرب بالدفوف في عهد النبي – صلى الله عليه وسلم – النساء ، أو من يشبه بهن من المخنثين ، وقد أمر النبي – صلى الله عليه وسلم – بنفي المخنثين وإخراجهم من البيوت .

وقد نص على نفيهم أحمد وإسحاق ، عملا بهذه السنة الصحيحة (فتح الباري لابن رجب – كتاب الصلاة 7/34-(35

অর্থাৎ জমহুর ওলামায়ে কেরামের কাছে সংগীতের জন্য দফ বাজানো পুরুষের জন্য জায়েজ নেই, কারণ এর দ্বারা মহিলাদের সাথে সাদৃশ্যায়ন হচ্ছে, আর এটা জায়েজ নেই, এ বক্তব্য ইমাম আওযায়ী ও ইমাম আহমাদের, আর ঠিক এই অভিমতই উল্লেখ করেছেন আল্লামা হালিমী ও অন্যান্যরা ইমাম শাফেয়ী রহ. এর মত বলে। এছাড়া রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর যুগে দফ বাজাতো মহিলারা অথবা তাদের মত হিজড়ারা, আর নবীজি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম হিজড়াদের ঘর থেকে বের হতে নিষেধ করেছেন। তেমনি ইমাম আহমাদ ও ইসহাক রাহ. থেকেও বর্ণিত যে তারা হিজড়াদের ঘর থেকে বের হতে নিষেধ করেছেন এই সহিহ হাদিসের উপর আমল করতে গিয়ে।

(৬) السؤال: ما حكم ضرب الدف للرجال؟

الجواب: بسم الله الرحمن الرحيم -اختلف أهل العلم في ضرب الرجال الدف على قولين: الأول: يباح ضرب الرجال بالدف في الأعراس ونحوها وهو الذي ظهر لي من مذهب المالكية، والشافعية، وهو ظاهر نصوص أحمد وكلام أصحابه.

الثاني: كراهية ضرب الرجال بالدف في الأعراس ونحوها وهذا مذهب أبي حنيفة، وقول عند المالكية والشافعية والحنابلة. أكثر من 100 فتوى للشيخ خالد مصلح – (ج 1 / ص 61

উল্লেখিত শায়েখ খালেদ মুসলিহ এর ফতোয়ার দাগটানা অংশের দিকে তাকালেও হানাফীদের মত স্পষ্ট হয় দফের ক্ষেত্রে,… পুরুষের জন্য বিয়ে ও অন্যান্য অনুষ্ঠানে দফ বাজানো নিষিদ্ধ, আর এটাই ইমাম আবু হানিফা রহ. এর মাযহাব এবং মালেকী ও শাফেয়ী এবং হানাবেলা ইমামদের মত।

(৭) جواز الدف للنساء في المناسبات لا يجوز للرجال استعمال الدف على الصحيح) فتاوى الشبكة الإسلامية – (ج 10 / ص 4288 المفتي: مركز الفتوى بإشراف د.عبدالله الفقيه

শাবাকাতুল ইসলামিয়ার ফতোয়ায় ও পূর্বে উদ্বৃত ফতোয়ার বক্তব্যই ধ্বনিত হচ্ছে যে, সহীহ বক্তব্য অনুযায়ী পুরুষের জন্য দফ বাজানো জায়েজ নেই।

উপসংহার :

উল্লেখিত তাফসীর ,হাদিস ও ফুকাহাদের বক্তব্য থেকে একথা নির্ধিদ্বায় বলা যায়, হানাফীদের মতে দফ বাজানো পুরুষের জন্য জায়েজ নেই। সুস্পষ্ট হারাম। নিম্ন লিখিত কয়েকটি সঙ্গত কারণে বর্তমানে মহিলা ও পুরুষদের জন্য দফ বাজানো সম্পুর্ণ হারাম।

(১) অনেকেই দফ বাজানো জায়েজ একথা প্রমাণ করতে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর বাণী তথা ‘বিয়েকে প্রকাশ করো যদিও দফের দ্বারা হয়’ এই হাদিস দ্বারা দলিল পেশ করে اعلنو النكاح ولو باالدف থাকেন যে, বিয়েতে দফ বাজানো জায়েজ কোন শর্ত ছাড়াই এবং এটা সুন্নত।

কিন্তু ঠান্ডা মাথায় একবার চিন্তা করলেই একথা সুস্পষ্ট হয়ে যায় যে, নবীজি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর উদ্যেশ্য এর দ্বারা কেবল প্রচারণার গুরুত্ব বুঝানো। কেননা তৎকালে কোন কিছু ‘ইলান’ করার জন্য দফে বাড়ি মারলে লোকজন একত্র হতো, তারপর ঘোষক তার বক্তব্য বলে সবাইকে শোনাতো। দেখুন হাকীমুল উম্মত আশরাফ আলী থানবী রহ. এর “বিয়ে শাদিতে বাজনা বাজনোর একটি বিরল তাহকীক” নামে লিখিত প্রবন্ধে ( যা মুফতী শফী রহ. এর ফতোয়া সংকলন জাওয়াহিরুল ফিক্বহ এর চতুর্থ খন্ডের ২০৮ নং পৃষ্ঠায় সন্নিবিষ্ট করা হয়েছে) বুস্তানুল আরেফীন ও নিসাবুল ইহতিসাব এবং শরহে নুকায়া গ্রন্থের উদ্বৃতি দেন,

وفى شرح نقايه – قال التور بشتى انه حرام على قول اكثرالمشاءخ وما ورد من ضرب الدف فى العرس كناية من الاعلان

অর্থাৎ আল্লামা তুরে পেশতী রহ. বলেন, অধিকাংশ মাশায়েখে কেরামের মতে দফ বাজানো হারাম, তবে বিয়েতে দফ বাজানোর ক্ষেত্রে যেসব বর্ণনা এসেছে এর দ্বারা উদ্যেশ্য হচ্ছে প্রচারণা করা।

সুতরাং বুঝা গেলো বিয়েতে দফ বাজানোর কথা বলার দ্বারা মুরাদ হলো প্রচারণা করা, আসলেই দফ বাজানো নয়, যদি সত্যিই দফ বাজানোই উদ্দেশ্য থাকতো তবে নবীজি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তার চার মেয়ের বিয়ের সময় কেন দফ বাজালেন না? এ ব্যাপারে একটি জাল রেওয়ায়েত ও কী আছে?

যেই সাহাবারা নবীজি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর প্রতিটি কথা অক্ষরে অক্ষরে পালন করতেন তাদের কারও বিয়েতে দফ বাজিয়েছেন বলেছেন বলে কোন বর্ণনা কী আছে?

তাহলে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর কথাটির অর্থ কী এই দাঁড়াচ্ছেনা যে, এর দ্বারা কেবল প্রচারণা উদ্দেশ্য দফ বাজানো নয়।

(২) দফের ক্ষেত্রে নিষেধাজ্ঞার উপর হাদিস সুস্পষ্ট যা উপরে বর্ণিত।

(৩) হানাফী ফুকাহায়ে কেরামের রায় ও সুস্পষ্ট প্রমাণ করছে দফ বাজানো জায়েজ নেই। দেখুন উপরে বর্ণিত ফুক্বাহায়ে কেরামের বক্তব্য।

(৪) হাকিমুল উম্মত আশরাফ আলী থানবী রহ. এর তাহকীক ও ফতোয়া প্রণিদান যোগ্য যা জাওয়াহিরুল ফিক্বহ এর চতুর্থ খন্ডে বিধৃত হয়েছে , যেখানে তিনি প্রমাণ করেছেন দফ বাজানো জায়েজ নেই। আর এক্ষেত্রে বিভিন্ন হানাফী ফিক্বহী কিতাবে ভুল বর্ণনা(যে দফ বাজানো হানাফীদের কাছে বিয়ে বা আনন্দ অনুষ্ঠানে জায়েজ) একজন থেকে আরেকজন করে গেছেন তাহকীক ছাড়াই, এমনটা বলেছেন পরিস্কার হাকিমুল উম্মত রহ.। (জাওয়াহিরুল ফিক্বহ ৪/২১২)

(৫) সুবিখ্যাত তাফসীর গ্রন্থ তাফসীরে ইবনে কাসীর ও আদ দুররুল মানসুরের বর্ণনা প্রমাণ করে দফ বাজানো কিছুতেই জায়েজ হতে পারেনা।

(৬) কতিপয় মুফতীর ফতোয়া দ্বারা কেবল এতটুকু প্রমাণিত হয় যে মহিলাদের জন্য দফ বাজানোর সুযোগ আছে, পুরুষের কোন সুযোগ নেই, কিন্তু একথাও উপরে বর্ণিত তাফসীর ও হাদিস এবং ফুকাহায়ে কেরামের বক্তব্য দ্বারা বাতিল বলে সাব্যস্ত হয়।

একটি সতর্ক বাণী :

পূর্ণাঙ্গ তাহকীক করা ছাড়া হক্কানী ওলামায়ে কেরামের ‘দফ বাজানো জায়েজ’ মর্মে ফতোয়া দেয়া, বিভিন্ন মাহফিল বা লেখনিতে জায়েজ বলার মাধ্যমে সাধারণ মানুষের মধ্যে বাউল গানে বাজনা বাজানো বা পীরের মাজারে বাজনা বাজানোকে কী পরোক্ষভাবে জায়েজ বলছিনা আমরা? সুতরাং দ্বীন দরদী সকল ভাইদের প্রতি আমার আকুল আবেদন রইলো এই বিষয়টির ক্ষেত্রে ফতোয়া দেবার ক্ষেত্রে সতর্কতা অবলম্বন করা উচিত। নইলে হাদিসে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের বলা শেষ জমানায় গান বাজনা ও মদ ও “দফ” বাজানোর ফলে একদল লোক শুকর ও বানরে পরিণত হবে সেই ধমকির কারণ না হতে আল্লাহ তায়ালা আমাদের হিফাযত করুন।

والله اعلم باصواب

সংকলক

লুৎফুর রহমান ফরায়েজী

Processing your request, Please wait....
  • Print this article!
  • Digg
  • Sphinn
  • del.icio.us
  • Facebook
  • Mixx
  • Google Bookmarks
  • LinkaGoGo
  • MSN Reporter
  • Twitter
৩৬৭ বার পঠিত
1 Star2 Stars3 Stars4 Stars5 Stars (ভোট, গড়: ৫.০০)

১০ টি মন্তব্য

  1. আপনার বক্তব্যের সাথে সম্পূর্ণ একমত।

    আমি যতদুর জানি একমাত্র শাফেয়ী মাজহাবে শুধুমাত্র বিবাহের ক্ষেত্রে “দফ” বাজানো জায়জ, আর সব মাজহাবে সমস্ত বাদ্যযন্ত্র হারাম। এখানকার আলেমদের এটাকে হালাল ফতোয়া দেবার কোনো সুযোগ নেই।

    বানানের প্রতি একটু নজর দিবেন:

    অর্থাৎ আর আবু হানিফা রাহ. এ ব্যপারে সবচে’ কঠুর।

    lutforfarazi

    @হাফিজ, ধন্যবাদ ভাই! ভুল ধরিয়ে দেবার জন্য। আসলে ভাই একেতো বাংলা আমি খুব ভালো জানিনা, তারপর এই লেখাটা যখন লিখি তখন আমার মনে প্রচন্ড চাপ ছিল। কারণ লেখাটা লিখার আগের রাতে এক বড় আলেমের ওয়াজ শুনছিলাম, যিনি ঢালাওভাবে দফ বাজানোকে জায়েজ ফতোয়া দিচ্ছিলেন সাধারণ মানুষের বিশাল মাহফিলে। তখনি এসে পড়াশোনা করে লিখি এই লেখাটি। তাই ভাল করে দেখা হয়নি। আবারো ধন্যবাদ আপনাকে।

    হাফিজ

    @lutforfarazi,

    আলমে হয়ে কিভাবে “দফকে” জায়জ বলে বুঝিনা।

    ধন্যবাদ আপনার প্রচেষ্টাকে।

  2. শুকরিয়া , খুব সুন্দর । (F) (F) (F)

    lutforfarazi

    @এম এম নুর হোসেন, আপনাকেও অনেক অনেক ধন্যবাদ।

    lutforfarazi

    @এম এম নুর হোসেন আপনাকেও ধন্যবাদ।

  3. ধন্যবাদ সুন্দর লিখেছেন। (F)

    lutforfarazi

    @মুসাফির, আল্লাহ আপনাকে উত্তম প্রতিদান করুন।

  4. আমাদের গ্রামের বাড়িতে একদল পীর মাঝে মাঝে আসে তারা বলে গান বাজনা ছাড়া নাকি বিবাহ হারাম? তাদের মুরিদদের বিয়েতে গান বাজনা করা হয়।

    lutforfarazi

    @রাসেল আহমেদ, ঐ ভন্ডকে জিজ্ঞেস করতেন যে, আল্লাহর নবীর একটি বিয়েওতো গান বাজনা বাজিয়ে হয়নি, সুতরাং তার সব বিয়ে কী???????? নাউজুবিল্লাহ।