লগইন রেজিস্ট্রেশন

মজলিসে দাওয়াতুল হক বাংলাদেশ সংক্ষিপ্ত পরিচিতি ১

লিখেছেন: ' মাসরুর হাসান' @ বৃহস্পতিবার, সেপ্টেম্বর ৩০, ২০১০ (৪:০৩ অপরাহ্ণ)

হযরত থানভী রহ.
হযরত হাকীমুল উম্মাত মুজাদ্দিদে মিল্লাত মাওলানা শাহ আশরাফ আলী থানভীর ব্যক্তিত্ব সর্বজনস্বীকৃত। হযরত থানভী রহ. অসাধারণ প্রতিভা, দ্বীনী খিদমত এবং অবদানের কারণে মুসলিম উম্মাহ তাঁকে ‘হাকীমুল উম্মাত মুজাদ্দিদে মিল্লাত’ বলে স্মরণ করে থাকে। তিনি ১২৮০ হিজরীতে জন্মগ্রহণ করেন এবং১৬ই রজব ১৩৬২ হিজরী দিবাগত রাতে মৃত্যুবরণ করেন। প্রাথমিক শিক্ষার পর উচ্চ শিক্ষার জন্য ১৩৯৫ হিজরীর শেষ দিকে দারুল উলুম দেওবন্দে ভর্তি হন। ১৩৯৯ হিজরীতে প্রচলিত শিক্ষা সমাপ্ত করে কর্মজীবনে পদার্পণ করেন। ১৩০১ হিজরীতে সর্বপ্রথম কানুপুর ফয়জে আম মাদরাসায় এরপর জামিউল উলূম মাদরাসায় প্রধান শিক্ষকের দায়িত্বে নিয়োজিত হন। আর ১৩১৫ হিজরী থেকে মৃত্যু পর্যন্ত স্বীয় মুর্শিদ হাজী মুহাজিরে মক্কী রহ.-এর ইঙ্গিতে দাওয়াত তাবলীগ, জাহেরী-বাতেনী ইসলাহের দায়িত্ব পালন করেন। হযরত থানবী রহ. জাহেরী এবং বাতেনী উভয় বিষয়েই গভীর ইলমের অধিকারী ছিলেন। হযরত হাজী মুহাজিরে মক্কী সাহেবের রহ. সান্নিধ্যে বাতেনী ইলমে পরিপূর্ণতা অর্জন করেন এবং খেলাফত প্রাপ্ত হন। আধ্যাত্মিক সাধনা, সমাজ সংস্কার এবং ইসলাহী কাজে হযরত থানভীর রহ. অবদান অবিস্মরণীয়। সহস্রাধিক ছোটবড় বই পুস্তক, কিতাবাদি, মাওয়ায়েজ এবং মালফূজাত, কথাবার্তা এবং লিখা রয়েছে। তাঁর বাইয়াত এবং মুরীদীনের হালকা অত্যন্ত ব্যাপক। সর্বস্তরের লোকেরা তার সান্নিধ্যে ইলমে শরীয়ত এবং ইলমে মারিফত লাভে ধন্য হয়েছেন।

দাওয়াতূল হক
হযরত থানভীর দূরদর্শী এবং বৈপ্লবিক জীবনের অভিজ্ঞতা ও শুদ্ধি অভিযানের আলোকে কিংকর্তব্যবিমূঢ় ও বিভ্রান্ত সমাজের পরিশুদ্ধি এবং অভীষ্ট লক্ষ্য অর্জনের সঠিক দিক নির্দেশনা ও পাথেয় হিসেবে ১৩৫৮ হিজরীতে ‘দাওয়াতুল হক’ প্রতিষ্ঠা লাভ করে। দেশ ও জাতির সার্বিক উন্নতি, ইহকাল ও পরকালের মুক্তি এবং নাজাতের উপায় হচ্ছে রাসূলে পাক সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম সুন্নতের অনুকরণ ও অনুসরণ। সর্বস্তরে সুন্নত প্রতিষ্ঠা, বিদআত এবং মুনকারাতের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তোলা মুসলিম উম্মাহর অন্যতম দায়িত্ব ও কর্তব্য। আমাদের পূর্বসুরী মনীষীগণ এই উপায় অবলম্বন করেই পরম সফলতা অর্জন এবং আদর্শ জীবন গড়ায় সুসক্ষম হয়েছেন। সুতরাং সার্বিক সফলতার জন্য আমাদেরকেও তারদ পাদঙ্ক অনুসরণ করতে হবে। এর কোন বিকল্প নেই। হযরত থানবী কর্তৃক প্রতিষ্ঠিত দাওয়াতুল হক মূলত মানবতার উৎকর্ষ সাধনে একটি নির্দেশনা এবং পাথেয়। মুসলিম উম্মাহর হেদায়েতের জন্য রচিত অগণিত বই পুস্তকে আর বিশেষত দাওয়াতুদ্দায়ী, তাফহীমুল মুসলিমীন, তানজীমুল মুসলিমীন এবং হযরত মুহিউস স্নুাহ রহ.-এর রচিত আশরাফুন্নেজামে দাওয়াতুল হকের বিস্তারিত কর্মসূচী বিদ্যমান রয়েছে। মজলিসে দাওয়াতুল হক বাংলাদেশ লক্ষ উদ্দেশ্য ও কর্মসূচী শিরোনামে বাংলা ভাষায় দাওয়াতুল হকের কর্মসূচী প্রকাশ করা হয়েছে এবং সে অনুপাতে এদেশেও কার্যক্রম চালু রয়েছে।

দাওয়াতুল হক বাংলাদেশ
হযরত থানবী রহ. তাঁর জীবদ্দশায় নিজে এবং তার সহচরদেরকে নিয়ে দাওয়াতুল হকের কর্মসূচী বাস্তবায়নে অবিরাম প্রচেষ্টা অবাহত রাখেন এবং সমকালীন উলামা-মাশায়েখগণের প্রতি দ্বীনের এই মহতী কাজে অংশগ্রহণের আহবান জানান। ফলে দাওয়াতুল হকের কর্মসূচী সর্বমহলে সমাদৃত হয়, হতে থাকে। তারই বিশেষ অনুরাগী ভক্তবৃন্দ এবং খুলাফাগণের প্রচেষ্টা বাংলাদেশেও এই কাজের সূচনা হয়। হযরত মাওলানা আতহার আলী রহ., হযরত মাওলানা আব্দুল ওয়াহহাব হাটহাজারী রহ., হযরত মাওলানা মুহাম্মাদুল্লাহ হাফেজ্জী হুজুর রহ., হযরত মাওলানা শামসুল হক ফরিদপুলী রহ., হযরত মাওলানা ফয়জুর রহমান সাহেব রহ., ইমাম জামে মসজিদ মোমেনশাহী প্রমুখের নিরলস উদ্যেগে হযরত থানভীর চিন্তাধারার বিশেষ প্রসার লাভ হয়।

হযরত হাফেজ্জী হুজুর রহ.
হযরত হাফেজ্জী হুজুর রহ. বাংলাদেশে হযরত থানভী রহ., সর্বশেষ খলীফা ছিলেন। তিনি তার পুরো জীবন হযরত থানবীর রহ.-এর পথ ও মত অবলম্বনে উৎসর্গ করেছেন। তার আধ্যাত্মিকতার অসাধারণ অবদান সবর্?জন স্বীকৃত। জীবনের শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত তিনি দাওয়াতুল হকের কর্মসূচী বাস্তাবয়নে সর্বাত্মক প্রচেষআ অব্যাহত রাখেন। হাফেজ্জী হুজুরের সাহেবজাদা হাফেয উবাইদুল্লাহ সাহেব রহ.ও দাওয়াতুল হকের কাজে অবদান রাখেন।

হযরত মাওলানা ফজলুর রহমান রহ.
হযরত হাফেজ্জী হুজুরের মৃত্যুর পর তাঁর ভক্তবৃন্দ এবং সংশ্লিষ্ট লোকজনের মাধ্যমে দাওয়াতুল হকের কাজ অব্যাহত থাকে। বিশেষত: হযরত মাওলানা ফজলুর রহমান রহ. তার জীবনের শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত এই কার্যক্রম বাস্তবায়নে অতুলনীয় খেদমত আঞ্জাম দেন। তিনি একদিকে ছিলেন হযরত হাফেজ্জী হুজুরের সান্নিধ্য, হযরত মাওলানা শামসুল হক ফরিদপুরী রহ. সংশ্রবে দীক্ষা লাভে ধন্য, অপর দিকে তিনি ছিলেন মুহিউস সুন্নাহ হযরত শাহ আবরারুল হক রহ.-এর অন্যতম খলীফা। তার অবিরাম পরিশ্রমের ফলে বাংলাদেশের বিভিন্ন এলাকায় দাওয়াতুল হকের কর্মসূচী বিস্তার লাভ করে।

মুহিউস সুন্নাহ রহ.
মুহিউস সুন্নাহ মুসলিহুল উলামা হযরত আবরারূ হক হক্কী রহ. একদিকে নবী বংশের অন্যতম প্রদীপ, অন্যদিকে হযরত থানভীর রহ. সর্বশেষ খলীফা। তার তত্ত্বাবধানে এবং অক্লান্ত মেহনতের বরকতে মক্কা মদীনা লণ্ডন, আমেরিকা আফ্রিকাসহ আরব আজমের বিভিন্ন অঞ্চলে দাওয়াতুল হকের কর্মসূচী গতিশীল ও সমাদৃত হয়েছে। তারই সরাসরি তত্ত্বাবধানে এবং দিক নির্দেশনায় ‘দাওয়াতুল হক বাংলাদেশ’ পরিচালিত হত।তার ইন্তিকালের পর তারই মনোনীত আমির এবং খলীফা মুহিউস সুন্নাহ আল্লামা মাহমূদুল হাসান এর তত্ত্বাবধান এবং দিক নির্দেশনায় ‘দাওয়াতুল হক বাংলাদেশ’ পরিচালিত হচ্ছে।

দাওয়াতুল হকের কর্মসূচী
দাওয়াতুল হকের কর্মসূছী বিস্তারিত ভাবে ছাপা হয়েছে। অন্যতম কয়েকটি হচ্ছে :
ক. ইস্তেঞ্জা, অযু, আযান ইকামত, নামায, গোসল, পানাহার ইত্যাদির সুন্নত তরীকার বাস্তব প্রশিক্ষণ।
খ. খ. মক্তব প্রতিষ্ঠা বয়স্ক এবং মহিলাদের তালীম তরবয়িতের উপযুক্ত ব্যবস্থাপনা।
গ. পবিত্র কুরআনের সহীহ-শুদ্ধ তিলাওয়াত, প্রয়োজনীয় সুরা মশক করানো, দুয়া দরুদ এবং জরুরী মাসলা মাসায়েল শিক্ষাদান।
ঘ. এক মিনিটের মাদরাসার তালীমের মাধ্যমে মানুষের মধ্যে নেক আমলের প্রতি আগ্রহ এবং গোনাহর প্রতি ঘৃণা সৃষ্টি করা এবং অত্যবশ্যকীয় মাসলা মাসায়েল শিক্ষাদান।
ঙ. বিদআত-মুনকারাত দমনে ওয়াজ নসীহতের মাধ্যমে মুসলমানদেরকে উদ্বুদ্ধ করা এবং এই কাজের জন্য স্বতন্ত্র জামাত তৈরী করা।

দাওয়াতুল হকের ব্যবস্থাপনা
দাওয়াতুল হকের কর্মসূচী ও কার্যক্রম বাস্তবায়নের প্রয়োজনে ধারাবাহিক ব্যবস্থাপনার মধ্যে বাস্তবায়িত রয়েছে মজিলসুল উমারা, থানা ভিত্তিক হালকা, মজলিসে আম, কর্মী মজলিসম, গাশতী মজলিস, ইসলাহী মজলিস, তরবিয়াতুল মুআল্লিমীন, মজলিসুল ইফতা, মজলিসুল উলামা ওয়াল আইম্মা।

মজলিসুল উমারা
মজলিসুল উমারা দাওয়াতুল হক বাংলাদেশের সর্বোচ্চ পরামর্শ মজলিস। দাওয়াতুল হক বাংলাদেশের সমস্ত কার্যক্রম এই মজলিসের তত্ত্বাবধানে পরিচালিত হয়। ঢাকার থানাওয়ারী হালকা সমূহের আমীর এবং নায়েবে আমীরগণের সমন্বয় এই মজলিস গঠিত। প্রয়োজনে মজলিসে উমারার পরামর্শে এজাজী সদস্য নির্ধারণের অবকাশ বিদ্যমান রয়েছে।

Processing your request, Please wait....
  • Print this article!
  • Digg
  • Sphinn
  • del.icio.us
  • Facebook
  • Mixx
  • Google Bookmarks
  • LinkaGoGo
  • MSN Reporter
  • Twitter
৪০৫ বার পঠিত
1 Star2 Stars3 Stars4 Stars5 Stars ( ভোট, গড়:০.০০)