লগইন রেজিস্ট্রেশন

রমজানের নির্বাচিত ফতোয়া……….পর্ব ০১

লিখেছেন: ' shahedups' @ বৃহস্পতিবার, অগাষ্ট ৪, ২০১১ (৩:৩৩ অপরাহ্ণ)

প্রশ্ন: যে ব্যক্তি রমজান মাসে শরয়ী কোন ওযর ব্যতীত ইচ্ছাকৃত রোজা ভেঙ্গে ফেলে তাহলে তার কাফ্‌ফারা কী?

উত্তর: যদি কোন ব্যক্তি ইচ্ছাকৃত সহবাসের মাধ্যমে রোজা ভেঙ্গে ফেলে তাহলে তার উপর তওবাহ সহ কাযা ও কাফ্‌ফারা আবশ্যক।

আর কাফ্‌ফারা হচ্ছে:

১. কোন মুমিন গোলাম আজাদ করা।

২. যদি তা করতে না পারে তাহলে দুই মাস লাগাতার রোজা রাখা।

৩. আর যদি তা করতে না পারে তাহলে ষাটজন গরিব-মিসকিনকে খাদ্য দেয়া।

স্ত্রীর উপরও অনুরূপ আবশ্যক যদি তাকে বাধ্য করে জোরপূর্বক সহবাস করা না হয়।

আর যদি পানাহারের মাধ্যমে রোজা ভেঙ্গে ফেলে, তাহলে তার উপর কাযা ও তওবাহ আবশ্যক, কাফ্‌ফারা আবশ্যক নয়।

Processing your request, Please wait....
  • Print this article!
  • Digg
  • Sphinn
  • del.icio.us
  • Facebook
  • Mixx
  • Google Bookmarks
  • LinkaGoGo
  • MSN Reporter
  • Twitter
৫১ বার পঠিত
1 Star2 Stars3 Stars4 Stars5 Stars ( ভোট, গড়:০.০০)

২ টি মন্তব্য

  1. আর যদি পানাহারের মাধ্যমে রোজা ভেঙ্গে ফেলে, তাহলে তার উপর কাযা ও তওবাহ আবশ্যক, কাফ্‌ফারা আবশ্যক নয়।
    কথাটির দলীল দিলে ভাল লাগত।

  2. মাসআলা দেওয়ার পর নিজের পরিচয় অবশ্যই তুলে দরতে হবে।বিশেষ করে ইলেমি যোগ্যতা। তা না হলে মাসআলা দেওয়ার প্রয়োজন মনে করিনা।