লগইন রেজিস্ট্রেশন

আমরা জন্মগত মুসলমানেরা স্বভাবত Hypocrite ( A false pretender to Virtue or Piety )

লিখেছেন: ' shane2k' @ সোমবার, নভেম্বর ৩০, ২০০৯ (৭:২৬ অপরাহ্ণ)

মুষ্টিমেয় কিছু জন্মগত মুসলমানেরা ছাড়া আমরা বাকিরা সকলেই ইসলামের ব্যাপারে Hypocrite। প্রশ্ন এখন, কেন আমি এরূপ মন্তব্য করলাম ?

আজ বিশ্বে ইসলামের ব্যাপারে যখনই কন ঘৃণিত মন্তব্য করা হচ্ছে, কন শ্লেষাত্মক কর্মকাণ্ড করা হচ্ছে, খেয়াল করে দেখবেন যারা প্রতিনিয়ত ইসলামের ৫টি স্তম্ভ তাদের জীবনে প্রতিষ্ঠা করছে তারা কেঊই তেমন উগ্রভাবে প্রতিক্রিয়া করছেনা অথচ তারাই over react করছে যারা কেবল জন্মসূত্রে মুসলমান কিন্তু দৈনিক সূত্রে নয়।

অতঃপর শ্লেষ জড়িত গরম হাওয়া যখন শিথিল হতে চলেছে তখন আমাদের সেই উচ্চস্বরি ভাই বোনদের আর দেখা পাওয়া যায় না। তারা তাদের পার্থিব আশার অতল জলোচ্ছ্বাসে নিমজ্জিত অথচ ধর্মপ্রাণেরা কষ্টের সহিত তাদের ধর্ম চালিয়ে যাচ্ছে এবং প্রতিনিয়ত আধুনিক যুগের সর্বপ্রকার un-Islamic প্রচার হতে নিজেকে এবং প্রিয়জনদের বাঁচাতে হাবুডুবু খাচ্ছে।

১) এরূপ মুসলিম উম্মার ফল কি ?

২) এতে ইসলামের কি কোন ক্ষতি হবে বা হচ্ছে ?

আমি আমারই উপরোক্ত প্রশ্নের উত্তর দেবার আগে কোর্‌আনের বাণী তুলে ধরছি নিম্নে -

Verses 35: 15-17
- O mankind, you need Allah and Allah does not need you,
- It is easy for Allah to bring about a new creation instead of you,

আমার অনুবাদ ঃঃ সুরা ৩৫ – আল্‌ ফাত্বির, আয়াত ১৫ – ১৭
- হে মানবজাতি, তোমরা আল্লাহ্‌র মুখাপেক্ষী এবং আল্লাহ্‌র জন্য তোমাদের প্রয়োজন নেই
- যদি তিনি চান তবে তিনি তোমাদের পরিবর্তে অন্য এক সৃষ্টি নিয়ে আসবেন আর এটি আল্লাহ্‌র জন্য মোটেই কঠিন নয়

উত্তর ১)
আপাত দৃষ্টিতে উম্মাহ্‌ আহত মনে হলেও আমি মনে করি এ কেবলই এক ঝড় যা কিনা বাংলার বর্ষার মত বন্যা বয়ে এনে সকল আবর্জনা (weak & confused muslims) ধুয়ে নিয়ে যাবে এবং যারা সত্যকে খুঁজছে তারা তাদের দ্বীণকে আরো দৃঢ় করে আঁক্‌ড়ে ধরবে।

উত্তর ২)
- ইসলাম আমার বা আপনার বা তাদের (non-muslim) ধর্ম নয়, এটি আল্লাহ্‌র দেয়া নীতি বিধান। আমরা যত যাই করিনা কেন এর কোনরুপ ক্ষতি আমরা করতে পারবনা বড়জোর এক অনুসারীদের (মুসলমান) কষ্ট বাড়বে।
- আমরা জন্মগত মুসলমানেরা পার্থিব জীবনে এমনই মশগুল হয়ে পরেছি যে ইসলামের প্রচার, প্রসার ও প্রয়োগে কোন প্রকার সময়, সামর্থ্য, স্বার্থ ও সদিচ্ছা ব্যয় করতে ইচ্ছুক নয় এবং করিণী। তাই আজ আমার মনে হচ্ছে উপরে বর্ণিত কোর্‌আনের আয়াত অনুযায়ী আমাদের প্রয়োজন আল্লাহ্‌র নেই, আল্লাহ্‌র বাণী আমরা প্রচার, প্রসার ও প্রয়োগে ব্যর্থ হওয়াতে আল্লাহ্‌ আজ নতুন জাতির ন্যায় affective মুসলমান তৈরি করেছেন যারা তার message আজ তুলে ধরছে এবং ইসলামের deffend করছে। এরা হলো majority of the western converts/reverts, যারা কিনা তাদের পরিবার, অর্থ, পরিবেশ ও পার্থিব মোহ ত্যাগ করে ইসলামকে মরণ কামড় দিয়ে আঁক্‌ড়ে ধরেছে, তারাই এখন হয়ে দাঁড়াচ্ছে ইসলামের কর্ণধার, তারাই এখন করে চলছে অবিরাম ইসলামীক জ্ঞান আহরণ আর আমরা মুসলমানেরা এ দেখেও লজ্জিত না হয়ে গর্ব করছি এমনভাবে যেন সকলই আমাদের credit এবং উৎসাহিত হচ্ছিনা নিজের জীবনে এসব নতুন মসলিমদের মতো ইসলামকে প্রয়োগ করতে।

ভুলে গেলে চলবে না প্রধাণত আমাদের প্রচেষ্টার জন্য নয়, আল্লাহ্‌র বাণী সত্য বলেই তা non-muslim-দের মুসলিম করেছে, প্রধাণত আমাদের প্রচেষ্টার জন্য নয় বরং ইসলামকে কলঙ্কিত করার অপপ্রচেষ্টার প্রচারের কারণে আজ non-muslim-রা আল্লাহ্‌রবানী ঘাঁটতে গিয়ে ইসলামের সত্য দেখেছে।

এ আমাদের জন্য গর্বের কিছু নয় বরং আমাদের ব্যর্থতার লজ্জা। এখানে গর্ব এবং জয় কেবল স্বয়ং ইসলামের, সম্পূর্ণ আমাদের নয়।

Processing your request, Please wait....
  • Print this article!
  • Digg
  • Sphinn
  • del.icio.us
  • Facebook
  • Mixx
  • Google Bookmarks
  • LinkaGoGo
  • MSN Reporter
  • Twitter
৯৭ বার পঠিত
1 Star2 Stars3 Stars4 Stars5 Stars (ভোট, গড়: ৫.০০)

৩ টি মন্তব্য

  1. “ইসলাম সে তো পরশ মানিক তারে কে পেয়েছে খুজিঁ-
    পরশে তাহার সোনা হল যারা তাদেরই মোরা বুঝি” (F)

  2. আর তোমরা যদি ফিরে যাও তবে তিনি তোমাদের স্থলে অন্য লোকেদের বদলে আনবেন, তখন তারা তোমাদের মতো হবেনা। (সুরা মুহাম্মদ, আয়াত ৩৮)

    পশ্চিমের মুসলিমদের কাছেই একদিন আমাদের ইসলাম শিখতে হবে, সেদিন বেশী দূরে নয়।

  3. যারা প্রতিনিয়ত ইসলামের ৫টি স্তম্ভ তাদের জীবনে প্রতিষ্ঠা করছে তারা কেঊই তেমন উগ্রভাবে প্রতিক্রিয়া করছেনা অথচ তারাই over react করছে যারা কেবল জন্মসূত্রে মুসলমান কিন্তু দৈনিক সূত্রে নয়।

    (Y)