লগইন রেজিস্ট্রেশন

প্রশ্ন: কবরের আযাব সংক্রান্ত বিষয়ে…

লিখেছেন: ' সাপোর্ট টিম [ পিস ইন ইসলাম ]' @ বৃহস্পতিবার, জুলাই ২১, ২০১১ (১২:১৬ অপরাহ্ণ)

প্রশ্ন: কবরের আজাব সত্য হওয়ার কোন দলীল কোরআন হাদীসে আছে কিনা?
এটা অস্বীকার করলে সে কি মুসলাম থেকে বাদ হয়ে যাবে নাকি আহলে সুন্নাত ওয়াল জামাত থেকে বের হয়ে যাবে?
প্রশ্নকারী: হাফিজ

উত্তর: কবরের আজাবের কথা কুরআনুল কারীমে সরাসরি নাই, তবে হাদীসে এ সম্পর্কে পরিস্কার ভাবে উল্লেখ রয়েছে। নিম্নে দলীল হিসেবে কয়েকটি উল্লেখ করা হল।
হযরত আয়েশা রা: সূত্রে বর্ণিত, তিনি বলেন একবার এক ইহুদী মহিলা আয়েশা রা: এর নিকটে গিয়ে কবরের আযাব এর কথা জিজ্ঞাসা করল, তখন আয়েশা রা: বললেন: আল্লাহ তায়ালা তোমাকে কবরের আযাব থেকে হেফাজত করুন। অত:পর বললেন: আমি রাসূলে মাকবুল সা: কে কবরের আযাব সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করলাম, জবাবে তিনি বললেন হ্যাঁ কবরের আজাব সত্য। অত:পর আয়েশা রা: বলেন: এর পর থেকে আমি দেখেছি, রাসূলুল্লাহ সা: প্রতি নামাযের পর কবরের আযাব থেকে পানাহ চাইতেন। (সহীহুল বুখারী: খ: ২, পৃ:৪১৮ হাদীস নং ১৩৭২; সহীহুল মুসলীম খ: ১, পৃ: ৪১০, হা: ৫৮৪)

হযরত আনাস রা: থেকে বর্ণিত, রাসূল সা: ইরশাদ করেন: তোমরা ভয়ে মৃতদেরকে দাফন করবেনা -এ আশংকা যদি আমার না হত, তাহলে আমি আল্লাহর কাছে দোয়া করতাম তিনি যেন তোমাদেরকে কবরের আযাব শুনাইয়া দেন। (সহীহুল মুসলীম খ:৪, পৃ:২২০০, হা:২৮৬৮)

ইবনে মাসউদ সূত্রে বর্ণিত, রাসূল সা: ইরশাদ করেন, নিশ্চয় মৃতদেরকে কবরে (তাদের কৃত অপরাধের কারনে) আযাব দেয়া হয়, এমন কি পশু-পক্ষী তাদের চিৎকার শুনতে পায়। (আল মু’জামুত তাবরানী আল কাবীর: খ: ১০, পৃ:২৪৭, হা:১০৪৫৯)

হযরত আনাস রা: থেকে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ সা: ইরশাদ করেন: কোন বান্দাকে যখন তার কবরে রাখা হয়, অত:পর তার সঙ্গী সাথীরা ফিরে যায়, এমনকি ঐ মৃত ব্যক্তি তাদের চলন্ত অবস্থায় জুতার আওয়াজ শুনতে পায়। তখন তার নিকট দুজন ফেরেস্তা আগমন করে, অত:পর তারা তাকে উঠিয়ে বসায় এবং জিজ্ঞাসা করে, মুহাম্মদ সা: কে? তখন মৃত ব্যক্তি মুমীন হলে বলে: আমি সাক্ষ্য দিচ্ছি, তিনি আল্লাহর বান্দা ও রাসূল। তখন তাকে বলা হয়, তুমি তোমার জাহান্নামের স্থানটি দেখে নাও। আল্লাহ পাক ইহা জান্নাতের বিনিময়ে তোমার জন্য পরিবর্তন করে দিয়েছেন। নবীজি সা: বলেন তখন সেই ব্যক্তি উভয় স্থানটি দেখতে পায়।
আর যদি মৃত ব্যক্তি কাফের বা মুনাফিক হয়, তাহলে সে বলতে থাকে, আমি কিছুই জানিনা। লোকেরা যা বলত আমিও তাই বলতাম। তখন তাকে বলা হয় তুমি কিছুই জানার চেষ্টা কর নাই, এবং কিছুই পড় নাই। অত:পর লোহার হাতুড়ি বা মুগুর দিয়ে তার ঘাড়ে আঘাত করা হয় ফলে সে এত জোরে চিৎকার করে যে, জ্বীন ও মানব জাতী ছাড়া আশে পাশের সবাই তা শুনতে পায়। (সহীহুল বুখারী: খ: ২, পৃ:৪০৬ হাদীস নং ১৩৩৮; সহীহুল মুসলীম খ: ৪, পৃ: ২২০০, হা: ২৮৭০) এ ব্যাপারে আরো অনেক হাদীস বর্ণিত আছে। ইমাম বুখারী র: কবরের আযাব থেকে পানাহ চাওয়া সম্পর্কিত হাদীসের জন্য আলাদা ভাবে অধ্যায় এনেছেন।
কবরের আযাব সংক্রান্ত হাদীস সমুহ তাওয়াতুরের পর্যায়ে না পৌছার কারণে এর অস্বীকার কারী মুসলিম থেকে বের হয়ে যাবেনা বটে, তবে যেহেতু আহলুস সুন্নাহ ওয়াল জামাতের আক্বীদা হল কবরে মানুষ তার কৃত অপরাধের কারণে আযাব ভোগ করবে, তাই এর অস্বীকার কারী আহলুস সুন্নাহ ওয়াল জামায়াত থেকে বের হয়ে যাবে।
আহলুস সুন্নাহ ওয়াল জামায়াতের উক্ত আকীদার জন্য দেখুন (আক্বীদাতুত তাহাবী পৃ: ১১২> ফাতহুল বারী খ:৩ পৃ:২৭৭> তাকমিলাতু ফাতহিল মুলহিম: খ:৬ পৃ:২৪০)

উত্তর দাতা:
আব্দুল্লাহ আল মাসুম
হাদীস ২য় বর্ষ।
ইসলামিক রিসার্চ সেন্টার বাংলাদেশ, বসুন্ধরা ঢাকা।

Processing your request, Please wait....
  • Print this article!
  • Digg
  • Sphinn
  • del.icio.us
  • Facebook
  • Mixx
  • Google Bookmarks
  • LinkaGoGo
  • MSN Reporter
  • Twitter
৩,৩৭১ বার পঠিত
1 Star2 Stars3 Stars4 Stars5 Stars (ভোট, গড়: ৩.৭৫)

Comments are closed.