লগইন রেজিস্ট্রেশন

তথাকথিত আহলে হাদীসের আসল রূপ – পর্ব ০১

লিখেছেন: ' Tarek000' @ মঙ্গলবার, মার্চ ২০, ২০১২ (১২:৫৫ অপরাহ্ণ)

মুসলমনাদের অবস্থা এখন বড়ই খারাপ। কোথাও তারা নিরাপদ নয়। না দেশে, না বিদেশে। না মুসলিম রাষ্ট্রে, না বিধর্মী রাষ্ট্রে। গোটা পৃথিবীতে ইসলামের শত্রুরা মুসলমানদের ধ্বংস করার ষড়যন্ত্রে লিপ্ত। মুসলমান দেখলেই “সন্ত্রাসী” উপাধী দিয়ে হেনস্থা করার অপচেষ্টা করা হচ্ছে। ইসলাম ধর্মকে সন্ত্রাসী ধর্ম, অসাম্প্রদায়িক ধর্ম আখ্যা দেওয়ার জন্য নানামুখী ষড়যন্ত্র চলছে উপর্যুপরিভাবে। মুসলমানদের ইসলামী শিক্ষালয়কে সন্ত্রাসীকেন্দ্র আখ্যা দেবার হিন কর্মকান্ডে লিপ্ত।

ঠিক এমনি সময় মুসলমানরা আজ শতধা বিভক্ত। মুসলমনদের মাঝে ধর্মীয় কোন্দলের সয়লাব।

অথচ এখন সবচেয়ে প্রয়োজন হল মুসলমানদের মাঝে একতা সৃষ্টি করা। ঐক্যমত্ব প্রতিষ্ঠিত করা। নবীজী সাঃ এর কালিমায়ে তায়্যিবার প্লাটফর্মে এক হওয়া আজ সময়ের আবশ্যকীয় দাবি।

তবে তার আগে জানতে হবে সত্য ধর্ম ও সত্য দল সম্পর্কে। ইসলাম নামধারী কিছু দল মুখে ইসলামের কথা বললেও তাদের মূল কাজ হল মানুষের মাঝে ধর্মীয় বিষয়ে সন্দেহ সৃষ্টি করা। আমাদের উপমহাদেশে ধর্মীয় কোন্দল সৃষ্টির নিমিত্তে যেই সকল কথিত ধর্মীয় ফিরক্বা উদ্ভাবন করেছে তাদের মাঝে অন্যতম হল গায়রে মুকাল্লিদ বা কথিত আহলে হাদিস দল।

নবীজী সাঃ এর বিশাল হাদিস ভান্ডারকে অস্বিকার করার জন্য কেবল বুখারী মুসলিম আর ক্ষেত্র বিশেষে কেবল সিহাহ সিত্তার হাদিস মানা। এই দাবির মাধ্যমে মুয়াত্তা মালিকের মত স্বীকৃত সহীহ হাদিসের কিতাবসহ অসংখ্য হাদিসের কিতাবের সহীহ হাদিসকে অস্বীকার করার এক ভয়ংকর খেলায় মেতে উঠেছে এই দলটি।

তাই আমাদের সবার উচিত এই দলটির উৎপত্তি সম্পর্কে জানা এবং তাদের কাছ থেকে সাবধান থাকা।

মুফতি রফিকুল ইসলাম আল-মাদানী

প্রায় দু’শত বছর ইংরেজদের গোলামীতে আবদ্ধ ছিল ভারত উপমহাদেশের সমস্ত মুসলমান। এ দেশের মুসলিম কৃষ্টি-কালচার ও ধর্মীয় ঐতিহ্যকে বিলুপ্ত করে তাদের শাসন-শোষণ স্থায়ী করার হীন প্রচেষ্টায় ইংরেজ বেনিয়ারা বহুমুখী ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়। কেবল ১৮৫৭ ইংরেজীর আযাদী আন্দোলনে তারা ৫৫ হাজার মুসলমানকে শহীদ করে। ১৮৬৪ থেকে ১৮৬৭ পর্যন্ত ৩ বছরে হিংস্র হানাদাররা ফাঁসির কাষ্ঠে ঝুলিয়ে শহীদ করে ১৪ হাজার আলেমকে। আগুনে পুড়িয়ে ও গুলি করে শহীদ করে অসংখ্য আলেম-উলামা ও নিরীহ মুসলমানদেরকে। ইজ্জতহরণ ও অমানবিক নির্যাতনের শিকার হয় অসংখ্য মুসলিম মা-বোন। কারাবরণ করেন হাজার-হাজার মুসলমান। কেবল দিল্লী শহরেই তারা জ্বালিয়ে ভস্মীভূত করে প্রায় দশ হাজার মাদ্রাসা।

গাইরে মুক্বাল্লিদদের গোড়ার কথা

ভারতবর্ষে গাইরে মুক্বাল্লিদদের উৎপত্তি

চলমান শতাব্দীর ঘোর জাহিলিয়্যাত ও ভয়াবহ ফিতনা সৃষ্টিকারী তথাকথিত “ আহলে হাদীস ” নামধারী, যারা মুকাল্লিদ তথা মাযহাব অবলম্বীদেরকে “ নবোদ্ভাসিত ” বা তাক্বলীদ নামক বিদয়া’তে লিপ্ত বলে অপবাদ দিয়ে আসছে। কিন্তু দুঃখের বিষয় হলো, তাদের ন্যায় এমন অনেক ভ্রান্ত দলই রয়েছে, যারা নিজেদের ইতিহাস সম্পর্কে একেবারেই অজ্ঞ। আর যারা নিজেদের সম্পর্কে জ্ঞান রাখে না, তারা অন্যদের সমালোচনা কিভাবে করতে পারে, তা আমার কেন, কারও বুঝে আসার কথা নয়। তাই এখানে সূচনালগ্নে গাইরে মুকাল্লিদ্দেরকে তাদের জন্মকাল এবং উৎপত্তিস্থল স্মরণ করিয়ে দিতে চাই যাতে করে সুস্পষ্টভাবে প্রতীয়মান হয় যে, তাক্বলীদ করা বিদ্য়া’ত নাকি তাক্বলীদ্-বিমূখী হওয়া বিদ্য়া’ত।

১।

প্রসিদ্ধ গাইরে মুকাল্লিদ আলিম “ নবাব ছিদ্দিক্ব হাসান খান ” তাঁর রচিত “ তরজমানে ওহ্হাবিয়্যাহ ” নামক গ্রন্থে লিখেনঃ

“ হিন্দুস্থানের মুসলমানদের অবস্থান হল, এ দেশে ইসলামের সূচনালগ্ন থেকে অদ্যাবধি সবাই হানাফী মায্হাবের উপরই প্রতিষ্ঠিত এবং আলিম, ফাজিল, ক্বাজী, মুফতী, বিচারক এ সকল সুমহান দায়িত্ববান ব্যক্তিবর্গ এ মাযহাব থেকেই হয়ে আসছে।”

(তরজমানে ওহ্হাবিয়্যাহঃ পৃঃ নং-১০)

২।

“ মুযাহেরে হক্ব ” কিতাবের স্বনামধন্য লেখক মাওলানা “ কুতুব উদ্দীন ” তাঁর “ তুহ্ফাতুল আরব ওয়াল আযম ” গ্রন্থে গাইরে মুক্বাল্লিদ্দের উৎপত্তি ও ক্রমবিকাশের বিস্তারিত বিবরণ দিয়েছেন, যার সার-সংক্ষেপ নিম্নে উল্লেখ করা হলঃ

“ সাইয়্যেদ আহমদ শহীদ, মাওলানা ইসমাইল শহীদ ও মাওলানা আব্দুল হাই (রহঃ) পাঞ্জাবে আগমন করার পরপরই কতিপয় বিভ্রান্তি সৃষ্টিকারীর সমন্বয়ে চার মায্হাবের ইমামগণের তাক্বলীদ অস্বীকারকারী নতুন ফিরক্বাটির সূত্রপাত লক্ষ্য করা যায়, যারা হযরত সাইয়্যেদ আহমাদ শহীদ (রহঃ) এর মুজাহিদ বাহিনীর বিদ্রোহী গ্রুপের সদস্য ছিল, এদের মূখপাত্র ছিল মৌলভী আব্দুল হক্ব বেনারসী (মৃত-১২৭৫হিঃ)। তার এ ধরণের অসংখ্য ভ্রান্ত কর্মকান্ডের কারণে সাইয়্যেদ আহমদ শহীদ (রহঃ) ১২৪৬ হিজরীতে তাকে মুজাহিদ বাহিনী থেকে বহিষ্কার করেন। তখনই গোটা ভারতবর্ষের সকল ধর্মপ্রাণ জনগণ, বিশেষ করে সাইয়্যেদ আহমাদ শহীদ (রহঃ) এর খলিফা ও মুরীদগণ হারামাইন শরীফাইনের তদানীন্তন উলামায়ে কিরাম ও মুফতীগণের নিকট এ ব্যাপারে ফত্ওয়া তলব করেন। ফলে সেখানকার তৎকালীন চার মায্হাবের সম্মানীত মুফতীগণ ও অন্যান্য উলামায়ে কেরাম সর্বসম্মতিক্রমে মৌঃ আব্দুল হক্ব ও তার অনুসারীদেরকে পথভ্রষ্ট ও বিভ্রান্তি সৃষ্টিকারী ফিরক্বা বলে অভিহিত করেন এবং মৌঃ আব্দুল হক্বকে ক্বতল (হত্যা) করার নির্দেশ প্রদান করেন।

(এ ফতওয়া ১২৫৪ হিজরীতে তান্বীহুদ্দাল্লীন নামে প্রকাশ করা হয়, এখনো দেশের বিশিষ্ট লাইব্রেরীতে এর কপি সংরক্ষিত রয়েছে।)

মৌঃ আব্দুল হক্ব বেনারস পলায়ন করতঃ কোনভাবে আত্নরক্ষা পায়। সেখানে গিয়ে তার নবাবিষ্কৃত দলের প্রধান হয়ে সরলমনা জনসাধারণের মধ্যে তার বিষাক্ত মতবাদ ছড়াতে থাকে।”

(তুহ্ফাতুল আরব ওয়াল আযমঃ পৃঃ ১৬ খঃ ২, আল-নাজাতুল কামেলাঃ পৃঃ ২১৪, তান্বীহুদ্দাল্লীন, পৃঃ ৩১)

উপরোক্ত বিবরণ থেকে এ কথাই প্রতীয়মান হয় যে, মৌঃ আব্দুল হক্ব বেনারসী কর্তৃক ১২৪৬ হিজরীতে ভারতবর্ষে গাইরে মুক্বাল্লিদ তথা লা-মায্হাবী নামক নতুন ফিরক্বাটির সূত্রপাত হয়। প্রাথমিক পর্যায়ে সে “ ওহ্হাবী ” হিসেবে পরিচিত ছিল। কিন্তু সে নিজেকে “ মুহাম্মদী ” বলে প্রচার করতো। পরবর্তীতে “ ইংরেজের বিরুদ্ধে জিহাদ করা হারাম ” এ মর্মে ফত্ওয়া দিয়ে ইংরেজের দালাল হিসেবে চিহ্নিত হয়। এবং এ সুযোগে সে সরকারী কাগজ-পত্র থেকে “ ওহ্হাবী ” নাম রহিত করে আহ্লে হাদীস নাম বরাদ্দ করতে সক্ষম হয়। কিন্তু অত্যন্ত দুঃখজনক হলেও সত্য যে, নবোদ্ভাসিত এ ফিরক্বাটিই আজ নিজেদের ব্যতীত অন্যান্য সবাইকে নবোদ্ভাসিত বা বিদ্য়া’তী বলে অপবাদ দিয়ে যাচ্ছে। এটা সত্যিই দুঃখজনক নয় কি !

৩।

গাইরে মুক্বাল্লিদ আলিম মৌলভী মুহাম্মাদ শাহজাহানপুরী (মৃঃ ১৩৩৮ হিজরী) তার নিজের ফিরক্বা সম্বন্ধে বর্ণনা দিতে যেয়ে লিখেনঃ

“ সম্প্রতি হিন্দুস্তানে এমন একটি অপরিচিত মায্হাব পরিলক্ষিত হচ্ছে, যার সম্বন্ধে জনসাধারণ মোটেই অবগত নয়। অতীতে এ মতাদর্শের কোন লোক কোথাও ছিল কিনা তা সন্দেহজনক। উপরন্তু তাদের নামইতো মাত্র ইদানীং শুনা যাচ্ছে। তারা নিজেদেরকে “ মুহাম্মদী ” বলে দাবী করে। কিন্তু প্রতিপক্ষ তাদেরকে “ গাইরে মুক্বাল্লিদ ” বা “ ওহ্হাবী ” অথবা “ লা-মায্হাবী ” বলে আখ্যায়িত করে থাকে। ”

(আল-ইরশাদ ইলা সাবীলির রাশাদঃ পৃঃ ১৩, উল্লেখ্য, এ বইটি তাদের নিকট অত্যন্ত মূল্যবান ও গুরুত্বপূর্ণ।)

গাইরে মুক্বাল্লিদ্দের উৎপত্তির মূল রহস্য

হক্ব ও বাতিলের লীলাক্ষেত্র এ পৃথিবী। যেখানেই হক্ব সেখানেই বাতিল। তবে হক্বের মোকাবিলায় বাতিলের বিকাশ সর্বদায় রহস্যজনক হয়ে থাকে, যা হয়ত ধর্মীয় বা রাজনৈতিক উৎস অথবা জীবিকা নির্বাহের সহজ উপায়, কিংবা সরকারের গোলামী ইত্যাদি কোন না কোন কারণ এর অন্তরালে নিহীত থাকেই। “ আহলে হাদীস ” বা “ সালাফী ” নামের এ নতুন ফিরক্বাটির উৎপত্তির রহস্যও এর ব্যতিক্রম নয়।

১।

এ মর্মে তাদের দলেরই অন্যতম পৃষ্ঠপোষক ও পরিচালক নবাব ছিদ্দীক্ব হাসান খানের কয়েকটি উক্তি আমাদের বক্তব্যের পক্ষে সাক্ষ্য বহন করে, যেমন তার রচিত গ্রন্থ “ তরজমানে ওহ্হাবিয়্যায় ” তিনি লিখেনঃ

“ আমাদের নতুন মায্হাবে আযাদী (অর্থাৎ তাক্বলীদ না করা) বৃটিশ সরকারী আইনেরই চাহিদা মোতাবেক। ”

(তরজমানে ওহ্হাবিয়্যায়ঃ পৃঃ ২/৩)

২।

আহলে হাদীস দলের একাংশের নাম “ গুরাবা আহ্লে হাদীস ”। এ অংশের নেতা মুহাম্মাদ মুবারকের উক্তি হলঃ

“ গুরাবা আহলে হাদীসের ভিত্তি হযরত মুহাদ্দিসীনদের সঙ্গে মতানৈক্য করার জন্যেই রাখা হয়েছে। শুধু তাই নয় বরং সাইয়্যেদ আহমদ শহীদ (রহঃ) এর বিরুদ্ধাচরণ করে ইংরেজদেরকে খুশী করাই ছিল এর বিশেষ উদ্দেশ্য। ”

(উলামায়ে আহ্নাফ আওর তাহরীকে মুজাহিদীনঃ পৃঃ ৪৮)

৩।

ভারতবর্ষে গাইরে মুক্বাল্লিদ্দের প্রধান মূখপাত্র মিঞা নযীর হুসাইনের অন্যতম শিষ্য অকীলে আহলে হাদীস্ মোলভী মুহাম্মদ হুসাইন বাটালভী লিখেনঃ

“ ঐ আহলে হাদীস দল বৃটিশ সরকারের কল্যাণপ্রত্যাশী, চুক্তি রক্ষাকারী ও অনুগত হওয়ার অত্যন্ত উজ্জ্বল ও বলিষ্ঠ প্রমাণ হলঃ তারা বৃটিশ সরকারের অধীনে থাকা, কোন ইসলামী রাষ্ট্রের অধীনের থাকার চেয়েও উত্তম মনে করে।”

(আল-হায়াত বা’দা্ল মামাতঃ পৃঃ ৯৩)

৪।

তথাকথিত সেই মোলভী মুহাম্মাদ হুসাইন ইংরেজের বিরুদ্ধে জিহাদ করার বিপক্ষে “ আল-ইক্বতিছাদ-ফী মাসাইলিল জিহাদ ” নামক গ্রন্থ রচনা করে, যাতে সে জিহাদ “ মান্ছুখ ” বা রহিত বলে ঘোষণা করে। এর ফলশ্রুতিতে সে ইংরেজের বিশ্বস্ত ও ভাড়াটে গোলামে গণ্য হয়। আর লাভ করে টাকা-পয়সার বিরাট অংক।

(হিন্দুস্থান কী পহলী ইসলামী তাহরীকঃ পৃঃ ২১২, আহলে হাদীস আওর ইংরেজঃ পৃঃ ৮৭)

৫।

তাইতো তারই বিশিষ্ট শিষ্য মৌলভী আলতাফ হুসাইন লিখেনঃ

“ হিন্দুস্তানে ইংরেজী গভার্মেন্ট আমরা মুসলমানদের জন্য খোদার রহমত। ”
(আল-হায়াত বা’দাল মামাতঃ পৃঃ ৯৩)

সম্মানিত পাঠক সমাজ! ইংরেজ আমলে ইসলাম ও মুসলমান্দের দুরবস্থার করুণ কাহিনী বলার অপেক্ষা রাখে না, যেদিন সাম্রাজ্যবাদী বৃটিশ সরকার এদেশের হাজার হাজার আলিম-উলামা ও মহামনীষীদের ফাঁসির কাষ্ঠে ঝুলিয়েছিল, আর দ্বীপান্তরের কঠিন বন্দিশালায় নিক্ষেপ করেছিল লক্ষ লক্ষ তৌহিদী জনতাকে। আকাশ-বাতাস প্রকম্পিত হচ্ছিল ইয্যতহারা মা-বোনদের গগন-বিদারী আর্তনাদে। জ্বালিয়ে দিয়েছিল হাজার হাজার মসজিদ-মাদ্রাসা আর ভস্মীভূত করেছিল লক্ষ কোটি কুরআন-কিতাব, তখনই হযরত শাহ আব্দুল আযীয মুহাদ্দীসে দেহলভী (রহঃ) কর্তৃক দৃপ্তকন্ঠে ঘোষিত হল জিহাদের ফত্ওয়া, এ ফাত্ওয়ার বলে উলামায়ে কিরাম ও সমগ্র তৌহিদী জনতা ঝাপিয়ে পড়েন আযাদী আন্দোলনের জিহাদে। শহীদ হন হাজার হাজার বীর মুজাহিদ। আর ঠিক এমনি এক করুণ মুহূর্তে “ আহলে হাদীস ” নামধারী দলটি সেই ইংরেজ সরকারকে “ খোদার রহমত ” বলে আখ্যায়িত করে, আর তাদের বিরুদ্ধে জিহাদ হারাম বলে ফাত্ওয়া দিয়ে হালুয়া-রুটির সুব্যবস্থা করে। তারা কি মুসলমান ? তারা কী চায়? কী তাদের উদ্দেশ্য? কোথায় তাদের গন্তব্য?

উপরোক্ত তথ্যাবলী থেকে একথা দিবালোকের ন্যায় সুস্পষ্ট হয়ে উঠে যে, সাম্রাজ্যবাদী বৃটিশ সরকার ভারতবর্ষে মুসলমানদেরকে দ্বিধা বিভক্ত করতঃ তাদের আধিপত্য মজবুত ও বিস্তার করার মানসে যে সমস্ত হীন ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়েছিল, এরই ফলশ্রুতিতে বহিঃপ্রকাশ ঘটেছিল কাদিয়ানী, বেরলভী ও তথাকথিত “ আহলে হাদীস ” তথা “ লা-মায্হাবী ” দল সে দিনের ঐ বৃটিশ জালিম তল্পীবাহকদেরই উত্তরাধিকারী ও দোসর।

ভারতবর্ষে গাইরে মুক্বাল্লিদ্দের প্রথম প্রবক্তা

১।

উপরোক্ত আলোচনা থেকে প্রতীয়মান হয় যে, গাইরে মুক্বাল্লিদ্ নামক নতুন দলের প্রতিষ্ঠাতা হলেন মৌলভী আব্দুল হক্ব ইবনে ফজলুল্লাহ (মৃতঃ ১২৭৬ হিজরী)। যিনি তার নতুন মিশনের আস্তানা বেনারসে ক্বায়েম করেন।

২।

তবে নবাব ছিদ্দিক্ব হাসান খান ও মৌলভী মুহাম্মদ শাহজাহানপুরী প্রমুখের ভাষ্যমতে এ দলটিকে একটি সুপ্রতিষ্ঠিত সংগঠন এবং সংঘবদ্ধ ও আত্ননিবেদিত মিশন হিসেবে রূপ দেন “ শাইখুল কুল ফিল কুল বা ‘ একচ্ছত্র মহান ব্যক্তিত্ব ’ মাওলানা সাইয়্যেদ নযীর হুসাইন দেহ্লভী ” । তিনি তার রচনা-বক্তৃতা ও অক্লান্ত মেহনতের মাধ্যমে নবজন্মা গাইরে মুক্বাল্লিদ্ মিশনটিকে জনসাধারণের মাঝে পরিচিত করে তুলেন।

( আল-ইরশাদ-ইলা সাবিলির রাশাদঃ পৃ-১৩; আল-কালামুল মুফিদঃ পৃ-১৪৩ )

বিঃদ্রঃ

মাওঃ নযীর হুসাইনকে অনেকেই হযরত মাওঃ শাহ ইসহাক হানাফী (রহঃ) এর অসংখ্য শিষ্যের অন্তর্ভুক্ত বলে গণ্য করে থাকেন। তবে শাহ সাহেবের অন্যতম শিষ্য ক্বারী আব্দুর রহমান তা প্রত্যাখান করে বলেন যে, শাহ সাহেবের নিকটে সে কিছুই পড়েনি। মাত্র লোক দেখানো ও জনসমর্থন আদায়ের জন্য এবং সরলমনা জনসাধারণকে ধোঁকা দেয়ার লক্ষ্যে তাঁর কাছে দু এক কথা জিজ্ঞাসা করতো। হযরত শাহ সাহেব তো হানাফী, মুত্তাকী ছিলেন আর নজীর আহমাদ তো ছিল আহলে সুন্নাত ওয়াল জামাতের দুশমন-গাইরে মুক্বাল্লিদ, শাহ সাহেবের নাম বিক্রি করে সে দ্বীন-ধর্ম ধ্বংস করতো।

( রাসাইলে আহলে হাদীসঃ পৃ-৩০; কাশফুল হিজাবঃ পৃ-১৩ )

(চলবে ইনশাল্লাহ)

Processing your request, Please wait....
  • Print this article!
  • Digg
  • Sphinn
  • del.icio.us
  • Facebook
  • Mixx
  • Google Bookmarks
  • LinkaGoGo
  • MSN Reporter
  • Twitter
১৪১ বার পঠিত
1 Star2 Stars3 Stars4 Stars5 Stars (ভোট, গড়: ৫.০০)

২ টি মন্তব্য

  1. আহলে হাদীস নয় বলুন ওরা হল আহলে হদস। (F) (F) (F)