লগইন রেজিস্ট্রেশন

আরব শাসক এবং তাদের সমর্থক স্কলারদের নিয়ে Musa Cerantonio এর লেখা : সব আলিম কিন্তু একরকম নন

লিখেছেন: ' zakaria' @ বৃহস্পতিবার, অক্টোবর ৩, ২০১৩ (৩:১০ অপরাহ্ণ)

গুরুত্বের কারণে ওনার শেষে বলা কথা টা আমি প্রথমে উল্লেখ করে নিচ্ছি।
“আরবের সব স্কলার একই রকম নন । এমন অনেক আলেম আছেন যারা সত্য বলতে গিয়ে রাজপরিবারগুলোর রোষানলে পরেছেন, অনেক আলেমকে বছরের পর বছর কারাগারে বন্দী করে রাখা হয়েছে”
———————————————————————————————————————-

আমার দেখা মুসলিম বিশ্বের বিড়ম্বনাগুলোর মধ্যে অন্যতম হচ্ছে, কিছু মুসলমান আছে যারা অন্ধভাবে মুসলিম বিশ্বের রাজা এবং শাসকদের পূজা করে, যদিও তারা কখনোই তাদেরকে দেখা বা তাদের সাথে একান্তে সাক্ষাৎ করার মত কোন বিষয়ের নিকটবর্তীও হয় নাই । আবার আমাদের মধ্য হতে এমনও আছে যারা এইসব রাজা এবং শাসকদের পরোয়া করে না, যদিও আমারা তাদের কাছাকাছি ছিলাম এবং তাদের প্রাসাদে আমাদের ব্যতিব্যাস্ত করে রাখা হয়েছিল ।

একটা সময় ছিলো যখন আমি উম্মাহর প্রতি তাদের শাসকদের গুরু প্রতারনা সম্পর্কে অনবহিত ছিলাম। মুসলিম হওয়ার পর আমার মনোযোগ ছিল দ্বীন শেখার দিকে, রাজনীতি নিয়ে ভাবার সময় কিংবা ইচ্ছা কোনটাই আমার ছিল না ।অবশ্য আমি এসব রাজপরিবারের কিছু ব্যাপারে গুজব শুনেছিলাম, কিন্তু তখন এসব ব্যাপারে জানার জন্য কোন আগ্রহ জন্মায়নি । আমি আমার শিক্ষা জীবনের দীর্ঘ সময় কাটিয়েছি সেই সব আলেমদের সাথে যারা এসব শাসকদের ব্যাপারে সহানুভূতিশীল, মাঝে মাঝে তাদের প্রশংসাও করেন ।এমনকি আমি তাদের মধ্যে অনেককে দেখেছি যারা এসব শাসকদের সমালোচনাকারীদের সাথে তুমুল তর্কে লিপ্ত হতেন । তারা এসব শাসকদের সমর্থনে প্রবল আবেগপূর্ণ বিতর্কে জড়িয়ে পরতেন এবং শাসক হিসেবে তাদের বৈধতা দানের উপর জোর দিতেন ।

আমি তাদের অনেকের সাথে সাক্ষাৎ করেছি । যেহেতু ইসলামের রাজনৈতিক এস্পেক্টে আমার কোন আগ্রহ ছিল না তাই আমি কখনোই তদের প্রসংশা বা তাদের আক্রমণ করিনি । সময়টা এভাবেই কাটছিলো । আমি বিভিন্ন কনফারেন্সে তাদের সাথে যোগ দিয়েছি। আমাকে এ্যাওয়ার্ড দেয়া হয়েছে । আমাকে তাদের প্রাসাদে নিয়ে যাওয়া হয়েছে এবং আমি তাদের সাথে খেয়েছি । একবার শাসকদের মধ্যে একজনের সাথে আমার একটা ফটো তোলা হল, যেটা পরদিন বিভিন্ন পত্রিকার প্রথম পাতায় ছাপা হয়েছিলো । আমার সাথে যারা ছিল তারা আমাকে বললো আমার নাকি রোমাঞ্চিত হওয়া উচিৎ , কিন্তু সত্য বলতে আমার তেমন কিছু মনে হয়নি ।

এক সময় আমি এসব শাসক এবং তদের অনুসারীদের বাস্তবতা সম্পর্কে সচেতন হতে শুরু করি । যেমনটা বলেছি আমি তাদের সম্পর্কে কোন পূর্ব ধারণা নিয়ে সেখানে যাইনি, কিন্তু সেখানে তাদের সাথে থেকে আমি দেখেছি তারা আদর্শ নেতা হওয়া থেকে কত দূরে । আমি শুনেছি কিভাবে তারা অন্যদের কাছে সুদকে ন্যায্যতা দিচ্ছিলো যে এটা তাদের দেশের জন্য গুরুত্বপূর্ণ । আমি তাদের সাথে বসেছি এবং দেখেছি ইসলামের মৌলিক হুকুম এর ব্যাপারে তারা কতটা অজ্ঞ । আমি দেখেছি কিভাবে তারা কবীরা গুনাকে সহজ ভাবে নিচ্ছে । আর আমি যখন এসকল ব্যাপারে তাদের ‘আলেম’দের প্রশ্ন করলাম তারা আমাকে উপদেশ দিল এসব নিয়ে উদ্বিগ্ন না হতে এবং চুপচাপ থাকতে ।

আমি তাদের কিছু ইমামকে(পৃথিবী ব্যাপী সুপরিচিত) আমাদের মুখের সামনে সুস্পষ্ট মিথ্যা দিয়ে অন্যদের বোকা বানাতে দেখেছি । আমি আশ্চর্য হচ্ছিলাম কিভাবে তারা এমন কাজ করতে পারে । আমি দেখেছি তারা ইসলাম থেকে কত দূরে আর সত্যিই তাদের এই অবস্থার জন্য কষ্ট পেয়েছিলাম ।

আমি আমার সফরে সেসব দেশের বিভিন্ন আলেমদের সাথে সাক্ষাৎ করা শুরু করলাম এবং একই সাথে অবহিত হলাম যে এসব দেশে আসলে কি হচ্ছে । উদাহরণ সরূপ আমি রমজান মাসে কুয়েতের এক জন অন্যতম ধনী লোক এবং কিছু স্কলারদের সাথে সাক্ষাৎ করছিলাম । আমরা যখন একত্রিত হলাম তখন ঠিক আমাদের উপর দিয়ে একটা ইউএস যুদ্ধবিমান উড়ে গেল, যেটার পাখার নিচে বোমা দেখা যাচ্ছিল । প্লেনটি ইরাকে বোমা মারার উদ্দেশে যাচ্ছিল যেটা তারা কয়েক বছর ধরে করে আসছে । যখন আমি এই ব্যাপারটা নিয়ে আলোচনা শুরু করলাম তখন সাথে সাথে তারা সবাই চুপ হয়ে গেল এবং আমাকে বলা হল এসব ব্যাপারে উদ্বিগ্ন না হতে । সেই মাসে আমি দেখেছি কিভাবে তাদের প্রত্যেক ইমাম এবং স্কলার এসব আলোচনা পাশ কাটিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেছে এবং এমন ভাব দেখিয়েছে যেন এসবের কোন অস্তিত্ব নেই ।

সউদী আরবে, ফটোগ্রাফির পক্ষে বললে তারা আপনাকে আকীদা সংশোধনের কথা বলবে । কিন্তু আমি যখন সৌদি রাজার ২০ ফুট ফটো যেটা সেখানকার প্রায় সবখানে দেখা যায়, সেটা নিয়ে তদেরকে জিজ্ঞেস করি তখন তারা চুপ হয়ে যায় ।
আমি যখন পরে তাদের মধ্যে একজনকে তাদের দেশে অবস্থিত আমেরিকান ঘাটি নিয়ে প্রশ্ন করি সে এমন এক ভাব ধরার চেষ্টা করে যেন সে জানে না আমি কি নিয়ে কথা বলছি । আমার সাথে অন্য যারা ছিল তারা সেই সুপরিচিত ঘাটির অবস্থান কনফার্ম করলো এবং শেষে সে নিজেও স্বীকার করলো সে বিষয়টা জানতো । আমি তাকে জিজ্ঞেস করলাম সেকি মুহাম্মাদ বিন আব্দুল ওয়াহাব’র সেই বইটার সাথে পরিচিত যেখানে ইসলাম থেকে বাতিল হওয়ার জন্য ১০টি কারন উল্লেখ করা হয়েছে । সে বলল সে এগুলো জানে । আমি তাকে বললাম বইটিতে উল্লেখিত ৮ম কারন মতে, মুসলমানদের সাথে যুদ্ধরত অমুসলিমদের সাহায্যকারী ধর্মত্যাগী । সে হঠাৎ চুপ হয়ে গেল এবং উত্তর দিতে অস্বীকার করলো । পরে বলল আসলে সে এ ব্যাপারে জানতো না আর বইটিতে উল্লেখিত কারণগুলোও তার জানা ছিল না । আমি বিস্মিত হয়েছিলাম ।

আমাকে যখন তারা ফটোগ্রাফি ইস্যু নিয়ে জিজ্ঞেস করলো, আমি তাদেরকে ইউসুফ আল কারাদায়ি এর ফতোয়া ব্যাক্ষা করা শুরু করলাম । নাম শুনেই তারা উনার ফতোয়া শুনতে আপত্তি জানালো । এমনকি তাদের মধ্যে একজন পরে তাকে কুকুর বলে গালি দিল । এমনকি শুধুমাত্র তার নাম উল্লেখ করার কারনে তারা আমার সমালোচনা শুরু করলো । আমি বিস্মিত হলাম শুধুমাত্র উনার নাম উল্লেখ করার কারনে তারা কিভাবে আমার সাথে এমন করতে পারে ! পরদিন আমরা মুসা নামে তাদের একজন শিক্ষকের সাথে সাক্ষাৎ করলাম । তারা তাকে ফটোগ্রাফি ইস্যু নিয়ে প্রশ্ন করলো আর তিনি উত্তর দিতে গিয়ে সর্বপ্রথম যার নাম উল্লেখ করলেন তিনি হলেন ইউসুফ আল কারাদায়ি । আর সেই সকল লোকদের প্রতিক্রিয়া কি ছিল যারা সেই একই নাম উল্লেখ করার কারনে আমার সমালোচনা করেছিলো ?……… কিছুই না । যখন পরবর্তীতে আমি তাদের জিজ্ঞেস করলাম কেন তারা ইউসুফ আল কারাদায়ি নাম মেনশন করার পরও তাদের শিক্ষককে কিছু বলল না , অথচ আমার সমালোচনা করেছিল ? তারা তাদের মুখের ভাষা হারিয়ে ফেলল । আমি তাদেরকে উপদেশ দিলাম তাদের এই অন্ধ অনুসরন বন্ধ করতে । পরবর্তীতে আমাকে তাদের নেতা রাবি আল মাদখালি এর সাথে সাক্ষাতের আমন্ত্রন করা হল, যা আমি শিষ্টতার সাথে প্রত্যাখান করেছিলাম ।

UAE তে recent একটা কনফারেন্সে যোগ দিব কি না ভাবছিলাম, কারন তখন UAE হতে একটা ট্রুপ আফগানিস্তানে মুজাহিদিনদের বিরুদ্ধে ইউএসএ কে সাহায্য করছিলো , যেটা পরিষ্কার কুফুরী । (এখনও করছে) । অবশেষে একজন বিশ্বস্ত শিক্ষকের পরামর্শে আমি সেখানে গেলাম, যদি কোন ভাল পরিবর্তন আনতে পারি এই আশায় । আমার সফরের সেই সময়গুলোতে দুবাইয়ের রাস্তাগুলোতে এতবেশী অশ্লীলতা দেখেছি যে এটাকে আমি আর মুসলিম দেশ বলতে পারছিনা ।
যখন আমরা সেখানে থাকা পতিতাদের সরিয়ে দেবার জন্য পুলিশকে অনুরোধ করলাম, আমাদেরকে বলা হল পুলিশের পক্ষ হতে তাদের জন্য কোন বিধিনিষেধ নাই আর আমরা যেন এটা পরিবর্তন করার চেষ্টায় সময় নষ্ট না করি ।

আমার জন্য আর একটা সারপ্রাইজ ছিল যখন সরকারের কয়েকজন মন্ত্রীর সাথে ডিনারে যোগ দিয়েছিলাম । তাদের মধ্যে একজন গর্বের সাথে বলছিলেন কিভাবে তিনি শরীয়া আইন নিয়ে ইউনিভার্সিটিতে পড়াশুনা করেছে্ন । যখন আমি তাকে জিজ্ঞেস করলাম UAE তে কোন ইউনিভার্সিটি ইসলামিক শরীয়াহ শেখায় ? তিনি জবাব দিলেন আসলে শরীয়াহ নয় এটা ছিল তাদের national law আর এটা তো একই কথা কারন UAE ইসলামিক শরীয়াহ দ্বারা শাষিত । তার কথা শুনে আমাদের মধ্যে অনেকে হেসে উঠল, অনেকে লজ্জায় তাদের মুখ ঢাকল এবং এক ছোট ছেলে বলে ঊঠলো “ তার মানে আপনি কি বুঝাচ্ছেন আজকে এই দেশে সব এলকোহল ইসলামিক শরীয়ার কারনে ?” মন্ত্রী মহোদয় এবার তার মুখ বন্ধ করলেন , একটা ছোট ছেলের মাধ্যমে মৌলিক ইসলামিক শরীয়াহ নিয়ে তার অজ্ঞতা প্রকাশ হওয়ার পর তিনি আর কোন কথাই বললেন না ।

কনফারেন্সের শেষের দিকে আমার সুযোগ হয়েছিল শ্রোতাদের উদ্দেশ্যে কিছু বলার । আমি খিলাফাহর সত্বর প্রত্যাবর্তন, শরীয়াহ দ্বারা শাসনের প্রয়োজনীয়তা এবং ইসলামের শ্ত্রুদের আসন্ন পরাজয় নিয়ে বললাম । সেখানে বড় বড় চোখে কিছু মন্ত্রী বসে ছিলেন আর ধাক্কা খাচ্ছিলেন আমি এসব কি বলছি ! আমি আর কখনো তাদের আমন্ত্রনের আশা করি না । কিন্তু যদি কখনো সুযোগ হয়, আমার আরও অনেক কিছু বলার আছে ।

আরও অনেক কিছু আছে যা এখানে উল্লেখ করতে পারি কিন্তু আমি মনে করি এটুকু লেখাই যথেষ্ঠ হবে । উম্মাহর এই সব বিশ্বাসঘাতকদের বিরোধিতা করায় কেউ যদি মনে করেন আমার জানাশোনায় ঘাটতি আছে, তাহলে আপনাকে বলছি আমি তাদের সাথে সাক্ষাৎ করেছি, তাদের সাথে তাদের প্রাসাদে বসেছি যা আপনি করেননি । আমি তাদের মুখ হতে কুফর শুনেছি, আমি তাদের ইমামদের নিফাক দেখেছি । আমি উম্মাহর এসব শ্ত্রুদের বিশ্বাসঘাতকতা প্রত্যক্ষ করেছি এবং তদেরকেও দেখেছি যারা উম্মাহর এসব বিশ্বাসঘাতকদের অন্ধভাবে সমর্থন করছে । এরপরে আপনার যা খুশি তা আপনি বলতে পারেন । আমি আমার ফেইথ নিয়েই আমার প্রভুর কাছে ফিরে যাবো। আমি মুজাহিদিনদের সত্যপরায়নতায় কনভিন্সড, প্রাসাদ স্কলারদের মিথ্যা আমাকে বোকা বানাতে পারেনি।

( আরবের সব স্কলার একই রকম নন । এমন অনেক আলেম আছেন যারা সত্য বলতে গিয়ে রাজপরিবারগুলোর রোষানলে পরেছেন, অনেক আলেমকে বছরের পর বছর কারাগারে বন্দী করে রাখা হয়েছে ।)

যেখান থেকে কপি করেছিঃ লিঙ্ক

Musa Cerantonio সম্পর্কে জানতে এখানে যান।

তথাকথিত আহলে হদস উলামাদের দেখি সৌদি বাদশাদের নাম নিতে মুখে ফেনা ও লজ্জত চলে আসে।

আল্লাহ আমাদের চোখ খুলে দেন। আমিন

Processing your request, Please wait....
  • Print this article!
  • Digg
  • Sphinn
  • del.icio.us
  • Facebook
  • Mixx
  • Google Bookmarks
  • LinkaGoGo
  • MSN Reporter
  • Twitter
৩২৩ বার পঠিত
1 Star2 Stars3 Stars4 Stars5 Stars (ভোট, গড়: ৫.০০)

১ টি মন্তব্য

  1. ইনিও সম্ভবত সালাফি ধ্যান ধারণার। বাকি আমি তো দেখি, তথাকথিত আহলে হাদিস উলামারাই সৌদি সরকারের আশেক।