লগইন রেজিস্ট্রেশন

Peace In Islam

লিখেছেন: ' manwithamission' @ শনিবার, ডিসেম্বর ৫, ২০০৯ (২:১৭ পূর্বাহ্ণ)

আসসালামু আলাইকুম সকল মুসলিম ভাইয়েরা,

পিস ইন ইসলামে যখন প্রথম আসি তখন মনে করেছিলাম যাক এবার একটা ভাল বাংলা ব্লগিং সাইট শুরু হল যার মাধ্যমে আমরা মুসলিম ভাইয়েরা একত্রিত হবো কিন্তু শুরু থেকেই যে বিষয়টি আমাকে পীড়া দিচ্ছে আর যে কারণে আমি কয়েকদিন যাবত লেখাও বন্ধ রেখেছি তা হচ্ছে আমি আমাদের মুসলিম ভাইদের মাঝে দল, উপদল, মতবাদ ইত্যাদি বিভিন্ন কারণে একটা চরম বিচ্ছিন্ন অবস্থা লক্ষ্য করছি। ব্লগারের সংখ্যা এখনো একশও হয়নি তার আগেই বিভিন্ন মতবাদের প্রকাশ পাচ্ছে আর দল উপদলের প্রকাশ পাচ্ছে। এই দল-উপদল এবং মতের ভিন্নতা কেন তৈরী হয়েছে তার কারণ অনুসন্ধান করার জন্য হয়তো বিভিন্ন গোল টেবিল বৈঠক হতে পারে, বিভিন্ন তথ্য অনুসন্ধান এবং পর্যালোচনা হতে পারে কিন্তু তাতে এই ভিন্নতার সহজ সরল কারণটি মনে হয় বেড়িয়ে আসবে না।

আমাদের সবার মাঝেই একটা ইগো কাজ করছে আর আমরা চাইছি আমার মতামতটিকেই প্রাধান্য দেওয়া হোক। সন্দেহ নেই সবার কথার পিছনে কম বেশী যুক্তি রয়েছে এবং সেই যুক্তি খন্ডন করতে যেয়ে বাতুলতা নির্ভর অনেক তর্ক বেড়িয়ে আসছে। সামান্য কিছু বিষয় নিয়েও তর্ক করাটা বা নিজের মতের সাথে না মিললে তা বাতিল বলে চিৎকার করা কোন সমাধান নিয়ে আসে না বরং দল-উপদল তৈরীর সলতেটিকে আরো উসকে দেওয়া হয়। মানুষের মাঝে একটা স্বাভাবিক স্বভাব হচ্ছে সে তার চারপাশে যা পায় তাকে বিশ্বাসে একটা রুপান্তর দেয় এবং তারপর তার উপর ভিত্তি করে বাঁচার চেষ্টা করে। মতের এই ভিন্নতা, দল-উপদল তৈরী এবং মুসলমান ভাইদের মাঝে এই বৈরী মনোভাবকে আমি যার পর নাই ঘৃণা করি। সত্য প্রকাশিত হওয়ার পরও যারা মুসলমান ভাইদের মাঝে বিভেদ সৃষ্টি করতে তৎপর তারা প্রকারন্তরে শয়তানের কাজে সাহায্য করছে তাতে কোনই সন্দেহ নেই।
আমাদের মুসলমান ভাইদের মাঝে কেন এই ভিন্নতা এবং কেন এত দল-উপদল সেই বিষয়টি আমার নিকট পরিস্কার। কারণটি হচ্ছে, রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের কর্মনীতি থেকে যোজন যোজন দূরে সরে যাওয়া।

ইসলাম কি অসম্পূর্ণ? বা এটি কি এমন অবস্থায় রয়েছে যে আমাদের একটি কাঠামোতে দাড়া করাতে হবে? আর এ জন্য কি বিভিন্ন আলোচনা-পর্যালোচনার প্রয়োজন? হ্যাঁ, এই কাজটি করতে পারে অবিশ্বাসীরা কারণ তারা কুরআন এবং সুন্নাহ না জেনেই একটা সিদ্ধান্তে আসার তাগিদ অনুভব করে আর শেষ পর্যন্ত গোড়া বিহীন গাছের মতো একটা সিদ্ধান্তেও পৌছে যায়। মুসলমান ভাইদের মাঝে এই ধারণাটা আমদানী হয়েছে, ব্লগে কতক জনকে দেখলাম এরা বিভিন্ন মতবাদ নিয়ে আলোচনা করতে আগ্রহী এবং এরপরে একটা সিদ্ধান্তে পৌছাবে যে কি করা যায়। ইসলাম সম্পর্কে উন্নাসিক মনোভাব যাদের তারাই এরকম ধারণা পোষণ করতে পারে।

ইসলামে সব কিছু স্পষ্ট পরিস্কার, স্বচ্ছ। যা হারাম তা হারাম, যা হালাল তা হালাল, যা ইবাদত তা ইবাদত। কোন কিছু বাড়ানোর নেই কোন কিছু কমানোর নেই। পরিপূর্ণ স্বচ্ছ একটা বিষয়টিকে নিয়ে যারা পানি ঘোলা করতে ব্যস্ত আমি তাদের শুধু এটুকু বলতে চাই সময় নষ্ট না করে সবার আগে কুরআনটি মনোযোগ দিয়ে পড়ুন আর আল্লাহর কাছে দৃঢ়তার সাথে দোয়া করুন আল্লাহ যেন আপনাকে সঠিক বুঝ দান করেন। এরপর কুরআনটি পড়া হয়ে গেলে সহীহ সুন্নাহ অধ্যায়ন করুন। ইসলামকে বুঝতে হলে আমাদের বুঝতে হবে সাহাবীরা যেভাবে মহানবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের নিকট থেকে বুঝতো সেভাবে আর এজন্য কুরআন এবং সহীহ সুন্নাহর চর্চা করা ছাড়া অন্য কোন পথ নেই।

সংখ্যায় আধিক্য কিন্তু বিশ্বাসে এবং কর্মে শূণ্য এমন মুসলমান হয়ে ইসলামকে প্রতিষ্টিত করার জন্য বা ইসলাম প্রচার করার জন্য যারা চেষ্টা তদবীর করছেন তাদের সেই চেষ্টা তদবীর কোন কাজে আসবে না। বিশ্বাস যদি দৃঢ় হয়, কর্ম যদি সহীহ হয় তাহলে একজন বিশ্বাসীও আল্লাহর রহমতে কোটি কোটি বিশ্বাস শূণ্য মুসলমানের চেয়েও অধিকতর ভালো। রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি সাল্লামের প্রাথমিক যুগের অবস্থা দেখুন। একদম শুরুতে সংখ্যা ছিল মাত্র তিন জন। রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি সাল্লাম নিজে, তাঁর স্ত্রী ৫৫ বছর বয়সী খাদিজা (রা) এবং ১০ বছর বয়সী একজন বালক। আর অবিশ্বাসীদের সংখ্যা ছিল অনেক। এরপর থেকে যারাই ইসলামের শুশীতল ছায়াতলে আশ্রয় নিয়েছে তাদের ঈমান দেখুন, মরুর তপ্ত বুকে পাথর বুকে নিয়ে কষ্ট করতে রাজি তবুও তাওহীদ অস্বীকার করতে রাজি নয়। ছেলের চোখের সামনে মা শহীদ হয়ে যাচ্ছে ছেলে তবুও তাওহীদ বিশ্বাসে অটল। তাওহীদ বিশ্বাসের কারণে গাছের পাতা খেয়েও দিনানিপাত করতে রাজি কিন্তু তবুও অবিশ্বাসীদের সাথে তাওহীদ বিশ্বাস নিয়ে কোন আপোষ রফা নয়। তাদের বিশ্বাস দেখুন, তাদের ঐক্য দেখুন। মুসলমানরা ছিল ঐক্যবদ্ধ, একটা দেহের মতো কারণ তাদের সবার বিশ্বাস এবং কর্ম ছিল তাওহীদ বিশ্বাসের উপর ভিত্তি করে। কুরআন অধ্যায়ন আর রাসূলে জীবনের আদর্শই তারা দৃঢ়তার সাথে মান্য করতো। ছিল না কোন ভিন্ন মতবাদের ছড়াছড়ি, দল উপদলের বাহাদুরী।

আসুন সেই তাদের মতো করে একটি বার চেষ্টা করে দেখি না, কত কিছুই তো আমরা করি, কত কিছুর পিছনেই তো সময় ব্যয় করি, কত মতবাদ দল উপদল তৈরী করার জন্য কত গলা ফাটাফাটি মারামারিই না করি কিন্তু আসুন এবার তাদের মতো করে কাজ শুরু করি। আমাদের ঈমান-বিশ্বাসকে দৃঢ় করি আর সেই বিশ্বাস অনুযায়ী কর্ম সম্পাদন করি।
মহান আল্লাহ তাআলা আমাদের মুসলিম ভাইদের মনকে সত্য গ্রহণ করার উপযোগী করে দিন এবং বিতাড়িত শয়তানের চক্রান্ত থেকে আমাদের হিফাজত করুন। আমীন।

Processing your request, Please wait....
  • Print this article!
  • Digg
  • Sphinn
  • del.icio.us
  • Facebook
  • Mixx
  • Google Bookmarks
  • LinkaGoGo
  • MSN Reporter
  • Twitter
১৫৮ বার পঠিত
1 Star2 Stars3 Stars4 Stars5 Stars ( ভোট, গড়:০.০০)

৯ টি মন্তব্য

  1. ইসলামকে বুঝতে হলে আমাদের বুঝতে হবে সাহাবীরা যেভাবে মহানবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের নিকট থেকে বুঝতো সেভাবে আর এজন্য কুরআন এবং সহীহ সুন্নাহর চর্চা করা ছাড়া অন্য কোন পথ নেই।

    সহমত ।

    সংখ্যায় আধিক্য কিন্তু বিশ্বাসে এবং কর্মে শূণ্য এমন মুসলমান হয়ে ইসলামকে প্রতিষ্টিত করার জন্য বা ইসলাম প্রচার করার জন্য যারা চেষ্টা তদবীর করছেন তাদের সেই চেষ্টা তদবীর কোন কাজে আসবে না।

    সহমত ।

  2. মানুষের মাঝে একটা স্বাভাবিক স্বভাব হচ্ছে সে তার চারপাশে যা পায় তাকে বিশ্বাসে একটা রুপান্তর দেয় এবং তারপর তার উপর ভিত্তি করে বাঁচার চেষ্টা করে।

    (Y)

  3. ওয়া আলাইকাস সালাম!

    কেমন আছেন ভাই?

    manwithamission

    @muslim55, আলহামদুলিল্লাহ ভাই, আল্লাহ তাআলা ভাল রেখেছেন। আপনি কেমন আছেন?
    আল্লাহ তাআলা কি অশেষ নিয়ামত যে আমরা তাওহীদে বিশ্বাসী হওয়ার কারণে একে অপরের ভাই, কত আপন। এমন সুন্দর নিয়ামত আমরা ইসলাম ছাড়া আর কোথায় পাবো। যারা আমাদের মুসলমান ভাইদের মাঝে বিভেদ সৃষ্টি করার চেষ্টা করে মহান আল্লাহ তাদের প্রচেষ্টাকে ধ্বংস করে দিন। নিশ্চয় আল্লাহ তাআলা সবচেয়ে উত্তম পরিকল্পনাকারী।

    manwithamission

    আল্লাহ তাআলার কি অশেষ নিয়ামত যে আমরা তাওহীদে বিশ্বাসী হওয়ার কারণে একে অপরের ভাই, কত আপন। এমন সুন্দর নিয়ামত আমরা ইসলাম ছাড়া আর কোথায় পাবো। যারা আমাদের মুসলমান ভাইদের মাঝে বিভেদ সৃষ্টি করার চেষ্টা করে মহান আল্লাহ তাদের প্রচেষ্টাকে ধ্বংস করে দিন। নিশ্চয় আল্লাহ তাআলা সবচেয়ে উত্তম পরিকল্পনাকারী।

    muslim55

    @manwithamission, আলহামদুলিল্লাহ্! দুনিয়ার দিক দিয়ে আল্লাহ্ খুব ভালো রেখেছেন – আর দ্বীনের ব্যাপারে, দেখতেই তো পাচ্ছেন! মুসলিম উম্মাহর কত millions of man-hours বাজে খরচ হয়ে ড্রেনে বয়ে যাচ্ছে, অহেতুক বাজে কথায় ও তর্কে। এই ব্লগকে একজন ব্লগার ইসলামী Hyde Park বলে বণর্না করেছেন। কথাটা এক নিষ্ঠুর বাস্তবতা।

    যাহোক সামুতে এবং এখানেও নিজেকে “রেজিষ্টার্ড” করার একটা উদ্দেশ্য ছিল, তৌহিদ ভিত্তিক দ্বীন সম্বন্ধে সকল মুসলিম ভাইকে জানানো এবং সেজন্য একটা definite plan নিয়ে লিখতে শুরু করি। সামুতে সেই plan থেকে কিছুটা সরে যাই “বাঙ্গালী শিয়াদের” ব্যাপারে নিরীহ মানুষকে সচেতন করতে গিয়ে। এখন আবার সেই track-এ ফিরে আসার চেষ্টা করছি – দোয়া করবেন!

    দ্য মুসলিম

    @muslim55,

    একটা definite plan নিয়ে লিখতে শুরু করি।

    প্ল্যানটা কি আমাদের জানানো যাবে? দেখতাম আমরাও গ্রহণ করতে পারি না। (F)

  4. প্ল্যানটা কি আমাদের জানানো যাবে? দেখতাম আমরাও গ্রহণ করতে পারি না।

    দ্য মুসলিম,
    আস সালামু ‘আলাইকা!

    প্ল্যানটা ছিল অগ্রাধিকার ঠিক করে, কি কি জানতে হবে তার একটা আরকাইভ তৈরী করা, যেন সত্যিই যদি কেউ দ্বীন শিখতে চান, তবে তিনি যেন হাতের কাছে ready material পান। এই ব্লগেও তাই চেষ্টা করেছি/করছি/করবো ইনশা’আল্লাহ্। নীচে “সামু”র “ইসলাম গ্রুপে” প্রথম ২ মাসে (জুন-জুলাই ২০০৯) আমার দেয়া পোস্টগুলি খেয়াল করুন (নীচে থেকে উপরে উঠতে হবে ক্রমনুসারে) – মাত্র ২ টি ছাড়া সব হচ্ছে আক্বীদাহ্ বা বিশ্বাস সংশ্লিষ্ট। কেন?? কারণ বিশ্বাস যার সঠিক নয় (বিশেষত বড় শিরক বা বড় কুফর ভিত্তিক বিশ্বাস থাকলে), তার আমল অর্থহীন। বিশ্বাস হচ্ছে software-এর মত। software ছাড়া computer যেমন কেবলই একটা বাক্স বা অপ্রয়োজনীয় জিনিস, তেমনি সঠিক বিশ্বাসবিহীন মানবদেহ একটা মূল্যহীন বস্তু, যা জাহান্নামের জ্বালানী হবে। রাসূল (সা.) নবুয়ত লাভের পর মক্কার ১৩ বৎসরের জীবনে সঠিক বিশ্বাসের দাওয়াত দিয়ে গেছেন – সীমিত আমলের কথা এসেছে শেষ ২/১ বছরে।

    “সামু”র “ইসলাম গ্রুপে” প্রথম ২ মাসে (জুন-জুলাই ২০০৯) আমার দেয়া পোস্ট:

    * আমাদের দোয়া কেন কবুল হয় না
    * আপনার ধর্ম-বিশ্বাসকে শুদ্ধ করুন – শেষ পর্ব
    * আপনার ধর্ম-বিশ্বাসকে শুদ্ধ করুন – ৪
    * আপনার ধর্ম-বিশ্বাসকে শুদ্ধ করুন – ৩
    * আপনার ধর্ম-বিশ্বাসকে শুদ্ধ করুন – ২
    * আপনার ধর্ম বিশ্বাসকে শুদ্ধ করুন
    * আক্বীদার আরো কিছু পয়েন্ট
    * মুসলিম Set of Beliefs এর বাকী কিছু পয়েন্ট
    * ইসলাম নিয়ে কথা বলা
    * আল্লাহ্ সংক্রান্ত সঠিক বিশ্বাস বা আক্বীদাহ্-৩
    * আল্লাহ্ সংক্রান্ত সঠিক বিশ্বাস বা আক্বীদাহ্-২
    * আল্লাহ্ সংক্রান্ত সঠিক বিশ্বাস বা আক্বীদাহ্।
    * আক্বীদা সম্বন্ধে জানার উপায়
    * শুদ্ধ আক্বীদাহ্ বা বিশ্বাসের গুরুত্ব – ২
    * শুদ্ধ আক্বীদাহ বা বিশ্বাসের গুরুত্ব
    * সঠিক পথ কি একটা না অনেকগুলো?
    * আর কিছুই আল্লাহর মত নয়
    * আল্লাহ্ সম্বন্ধে জ্ঞান
    * সবার আগে কোন বিষয়ে জ্ঞান লাভ করতে হবে?
    * মাইকেল জ্যাকসন সম্বন্ধে বিশ্বসেরা আলেমদের মত কি?
    * Is there a God -1 (repost for some)
    * মুসলিম জীবনে অগ্রাধিকার প্রসঙ্গে
    * উল্টো অগ্রাধিকার
    * Our Inverted Priorities – 2 (repost for some)
    * Our Inverted Priorities – 1

    দ্য মুসলিম

    @muslim55,
    ধন্যবাদ। আগামী ১০তারিখ থেকে ফাইনাল পরীক্ষা শুরু। পরীক্ষার পর আপনার পোষ্টগুলো নিয়ে কয়েকদিন সময় কাটাবো। আশাকরি উপকৃত হব। আল্লাহ তায়ালা আপনাকে উত্তম প্রতিদান দিন। আল্লাহ হাফেজ। (F)