লগইন রেজিস্ট্রেশন

শুদ্ধ আক্বীদাহ বা বিশ্বাসের গুরুত্ব

লিখেছেন: ' মুসলিম৫৫' @ বুধবার, নভেম্বর ৪, ২০০৯ (১০:২৫ অপরাহ্ণ)

بِسْمِ اللَّهِ الرَّحْمَنِ الرَّحِيمِ
السلام عليكم ورحمة الله و بركاته

আমরা সবাই স্বপ্ন দেখে থাকি – না, আভিধানিক অর্থে যে স্বপ্ন, আমরা তার কথা বলছি না, বরং, আমাদের ভালোলাগা বিষয়াদি বাস্তবায়নের স্বপ্নের কথা বলছি আমরা এখানে। আমরা যারা মনে প্রাণে বিশ্বাস করি যে, ইসলাম আল্লাহর কাছ থেকে এসেছে এবং ইসলাম আমাদের জন্য আল্লাহ্-নির্ধারিত এক জীবনব্যবস্থা, যেমনটা তিনি কুর’আনের ৫:৩ আয়াতে বলেছেন, তারা নিশ্চয়ই মনের গোপন কোণে এমন স্বপ্ন লালন করে থাকি যে, আমরা একদিন হয়তো আবারো মদীনার স্বর্ণ-যুগের মত একটা সময়ে ফিরে যাবো – যখন হযরত উমর(রা.) বা উমর বিন আব্দুল আজিজের মত কেউ পৃথিবী শাসন করবেন – পৃথিবীতে কোন অবিচার থাকবে না, অনাহার থাকবে না, থাকবে না মানুষের উপর মানুষের শাসন বা শোষণ…। কিন্তু আপনি কি ভেবে দেখেছেন যে, আপনার এমন স্বপ্ন যদি সত্যিই বাস্তবায়িত হয়, তবু আপনার কোন লাভ নেই – যদি, আপনি ভুল আক্বীদাহ্ বা বিশ্বাসর উপর মৃত্যু বরণ করেন! বিশেষত আপনার আক্বীদায় যদি শিরক বা সমমানের কোন ত্রুটি থেকে যায় – কেননা আল্লাহ্ তো বলেছেনই যে, যারা শিরকের উপর মৃত্যু বরণ করবে, তাদের জন্য জান্নাত হারাম অর্থাৎ তারা নিশ্চিত জাহান্নামী। পৃথিবীকে বদলনোর চেষ্টা করার আগে বা পৃথিবীর মানুষকে আল্লাহর পথে দাওয়াত দেবার আগে, তাই আপনার উচিত নিজের আক্বীদাহ্ বা বিশ্বাসসমূহ ঠিক করে নেয়া। নিজেকে এবং নিজের “আহাল” বা পরিবারবর্গকে আগুন থেকে বাঁচাবার তাগিদ স্বয়ং আল্লাহই আপনাকে দিয়েছেন পবিত্র কুর’আনে।

আল্লাহ্ হাফিজ!

Processing your request, Please wait....
  • Print this article!
  • Digg
  • Sphinn
  • del.icio.us
  • Facebook
  • Mixx
  • Google Bookmarks
  • LinkaGoGo
  • MSN Reporter
  • Twitter
১৩৬ বার পঠিত
1 Star2 Stars3 Stars4 Stars5 Stars ( ভোট, গড়:০.০০)

৪ টি মন্তব্য

  1. ওয়ালিকুম আসসালাম। ভালই বলেছন। তবে আপনি দ্বীনের দাওয়াত দেবার আগে নিজকে নিকের আড়াল থেকে প্রকাশ করুন। আমাদেরকে আগে জানাতে হবে আপনার সম্পর্কে, যে মূল্যবান কথা গুলো নছিয়হত করলেন সেই বিষয়ে আপনি বা আপনার পরিবারে কতটুকু পালন করছেন। তা নিশ্চয় আমাদের জানার অধিকার আছে। মা আসসালামা

  2. আবারো আস সালামু আলাইকুম, ভাই “মর্দে মুমিন”!

    আমি বলিনি যে, আমি perfect! আমার কথাগুলো, আমি সহ সকল মুসিলমের জন্য reminder। আমার বা কারো ব্যক্তিগত জীবন সম্বন্ধে জানাটা এখানে গুরুত্বপূর্ণ নয় বলেই আমার বিশ্বাস – তাই, আমি আপনার “মর্দে মুমিন” পরিচয়েই আপাতত সন্তুষ্ট। যতক্ষণ আপনি সঠিক কথা বলছেন – ততক্ষণ আপনি আমার দ্বীনী ভাই।

    এটা ঠিক যে, আল্লাহ সুযোগ দিলে, অবশ্যই কখনো, আপনাদের সবার সাথে পরিচিত হতে ইচ্ছা করবে।

    আমাদের চেয়ে কত বড় মাপের মানুষরা জীবনের শেষ ভাগে পৌঁছে ধ্বংস হয়ে গেছেন। আমি একজনের কথা জানি, যার গোটা পরিবার ‘আলেম – তিনি নিজেও একটা মাদ্রাসার প্রিন্সিপাল ছিলেন। জীবনের অপরাহ্নে এসে তিনি ক্বাদীয়ানী হেয় গেছেন। তার গোটা পরিবার তাকে ত্যাগ করেছে। সেজন্য আমাদের উচিত অন্যের দোষ ধরার আগে, প্রতিনিয়ত নিজের ভিতরে তাকিয়ে দেখা – এটা সব সময়ের জন্য সবার ক্ষেত্রে প্রযোজ্য একটা সাধারণ কথা। একটা হাদীসে এরকম এসেছে যে, মানুষের অন্তর আল্লাহর দুই আঙ্গুলের মাঝে পালকের (feather) মত। যে কোন সময় উল্টে যেতে পারে। যে জন্য আমাদের আল্লাহর কাছেই নিরাপত্তা চাওয়ার দোয়া শিখিয়ে দেয়া হয়েছে:”ইয়া মুকাল্লিবাল ক্বুলুব, সাব্বিত ক্বালবি ‘আলা দ্বীনীক!”

    মর্দে মুমিন

    ওয়ালিকুম সালাম। আমি জানি আপনিও আমাকে এই প্রশ্ন রাখবেন নিকের বিষয়ে। আমাকে এই ব্লগে নিকের আড়াল করে রাখার কারন, আমি আপনাদের মতো ইসলাম বিষয় নিয়ে জ্ঞানি কিংবা তত আমলদার নই, যদি এই বিষয়ে যথাযোগ্য নিজকে বিবেচনা করতে পারতাম, তাহলে অবশ্য নিজ নামেই প্রকাশিত হতাম।
    তবে আল্লাহর ও তার রাসুল সাঃ এর প্রতি দৃঢ় আনুগত্য বোধ থাকায় একজন নগণ্য মুসলিম হিসাবে যখন দেখেছি ইন্টারনেট জগতে এন্টি ইসলামি মতবাদ ব্যাপক প্রচাণার দ্বারা, স্বীয় বাংলাদেশী মুসলমান ভাইয়েরা তাদের ঈমানে ফাটল ধরাবার চেষ্টা চলছে। তখন এই ইন্টারনেট জগতে যাতে আমাদের আধুনিক মনস্ক উলেমা সমাজও এগিয়েন আসেন বাংলাদেশী মুসলিম যুবক তরুণদের এই বিভ্রান্ত থেকে উদ্ধারের জন্য সেই প্রত্যয় নিয়ে এই ব্লগের কর্তৃপক্ষের আমন্ত্রণ ক্রমে এই ব্লগে এসেছি যাতে করে এই ব্লগের খবর যতটুকু পারি অন্য দ্বীনি ভাইদের কাছে পৌঁছাইয়া দিতে পারি।

    যেহেতু আমরা এখানে উপস্থিত হয়েছি নতুন ধরণের এক যুদ্ধে তাই আমরা একে ওপরের পরিচিত হওয়া আমাদের মিশনের জন্য অতিব প্রয়োজন। তাই আমি ঐ ভাবে বলেছি। মনে কষ্ট পেলে ক্ষমা করবেন।

  3. আপনাদের আলোচনা শুনে ভালো লাগল, কারো অসুবিধা না থাকলে অবশ্যই ধীরে ধীরে আমরা পরিচিত হতে পারি । তবে সেটা সময়ই বলে দেবে ।

    তবে এই ব্লগে ইসলামিক বিষয়ে অকুন্ঠচিত্তে মত দিতে পেরে আমি সত্যই আনন্দিত , যেখানে আর কয়েকটি সাইটে মত দিতে যেয়ে অনেক লান্ছনার শিকার হতে হয় ।

    আপনাদের সবাইকে মোবারকবাদ।