লগইন রেজিস্ট্রেশন

এক তালাক, দুই তালাক, তিন তালাক = কয় তালাকে তালাক ?

লিখেছেন: ' shane2k' @ সোমবার, সেপ্টেম্বর ১৪, ২০০৯ (৭:৫৭ অপরাহ্ণ)

বিয়ে একটি স্বর্গীও বন্ধন, এই বন্ধনের গুরুত্ত অনেক। অতএব এই বন্ধন নিয়ে হেলাফেলা করা কোন মুসলমানের করনিও নয়। আমাদের খেয়াল রাখতে হবে এই তিন তালাকের বিষয়টি অতো সাধারন নয়, একই সাথে অত জটিল ব্যাপার নয় যতোটুকু জটিল একে সমাজ করেছে

কুর্‌আনের নিয়ম অনুজায়ি কোন বন্ধন বিরধের পরিস্থিতে পোছলে তালাকের পুর্বে আমাদের সর্ব প্রকার কুর্‌আনিক পদক্ষেপ নিতে হবে এবং সর্বশেষে তালাকের সিদ্ধান্ত নিতে হবে। প্রচলিত এবং জনপ্রিয় প্রথা অনুজায়ি তিন তালাক উচ্চারিত হলেই বাংলাদেশে ঘটনা পরিস্থিতি পর্যালচনা না করেই ছেলে মেয়েকে আলাদা করে দেয়া হয়। অথচ কুর্‌আনের হীক্‌মা অনুজায়ি একটি বীবাহকে টিকিয়ে রাখা হলো প্রধান গুরুত্ত, বন্ধঙ্কে ভেঙ্গে দেয়া নয়। এবার তাহলে দেখাযাক আমাদের আসলে কি করা উচিত।

Sheikh Yusuf Al-Qaradawi তার “The Lawful and the Prohibited in Islam” বলেছেন,
” মুসল্‌মান্‌দের তিনটি ভিন্ন পরিস্থিতে তিনবার তালাক উচ্চারন করার সুযোগ দেয়া হয়েছে যদি কিনা স্ত্রী is in the period of purity and he has had no intercourse with her। যে সকল মুসলমানরা প্রথমবারেই তিন তালাক দিয়ে বসে তারা আল্লাহ্‌র চোখে বিদ্রহী এবং ইস্‌লামের পথ হথে ভ্রস্ট। “একদা রাসুল (সাঃ) জানতে পারলেন একজন তিন তালাক দিয়েছে, এই কথা শুনে তিনি রেগে দাড়িয়ে গিয়ে বললেন, “আমার জীবদ্দসায় কি আল্লাহ্‌র কীতাব নিয়ে তোমরা খেলছো ?”। এই দেখে উপশ্তিথ একজন দারিয়ে বললেন, “ও আল্লাহ্‌র রাসুল (সাঃ), আমি কি তাকে মৃত্তুদন্দো দিবো না ?” – আন-নাসা’ই বর্নিত।”

পরপর তিনবার উচ্চারিত তালাকের ব্যাপারে আলেমেরা কি বলেন বা তাদের কি মতামত বা তাদের কি ইজ্‌তিহাদ ?

Sheikh Ahmad Kutty, a senior lecturer and an Islamic scholar at the Islamic Institute of Toronto, Ontario, Canada বলেন,
“There remains the question: Whether the triple divorce pronounced concurrently by the husband shall be considered as a single divorce or three separate divorces. If it is considered as three separate divorces, then the couple cannot be married again unless someone else has married the woman, and he has, on his own free will, divorced her.

According to scholars such as Ibn Taymiyyah and Ibn al-Qayyim, triple divorces that are pronounced concurrently shall be considered only as a single divorce. They base themselves on the evidence that it was treated by the Prophet (peace and blessings be upon him) as single divorce. It is further supported by other clear evidences from the Qur’an and the Sunnah.”

অনুবাদ ঃঃ প্রশ্ন থেকে যায়, উচ্চারিত তিন তালাককে কি আমরা একটি তালাক হিসাবে ধরবো নাকি তিনটি ভিন্ন তালাক রুপে ধরব। যদি তিনটি ভিন্ন তালাক রুপে ধরা হয় তবে একি ছেলে মেয়ে পুনরায় একে অপরের সাথে বিবাহ বন্ধনে আবধ্য হতে পারবেনা।

ইমাম ইব্‌নে তায়্‌মীয়া এবং ইমাম ইব্‌নে আল্‌-কায়্‌ঈম এর মতবাদ অনুযায়ী একে একটি তালাক রুপে ধরতে হবে। তাদের এই সিদ্ধান্তের পেছনে কারন রাসুল(সাঃ) এইরুপ ঘটনাকে একটি তালাক রুপে গন্য করতেন এবং কুর্‌আন এবং সুন্নাহ্‌তেও তদ্রুপ প্রমান রয়েছে।

Sheikh Sayyed Sabiq তার Fiqh As-Sunnah বইয়ে বলেছেন,
আলেমেরা বলেন যে ব্যক্তি একই সময়ে তিন তালাক দিয়েছে সে গুনাহ্‌ করল। “একদা রাসুল (সাঃ) জানতে পারলেন একজন তিন তালাক দিয়েছে, এই কথা শুনে তিনি রেগে দাড়িয়ে গিয়ে বললেন, “আমার জীবদ্দসায় কি আল্লাহ্‌র কীতাব নিয়ে তোমরা খেলছো ?”। এই দেখে উপশ্তিথ একজন দারিয়ে বললেন, “ও আল্লাহ্‌র রাসুল (সাঃ), আমি কি তাকে মৃত্তুদন্দো দিবো না ?” – আন-নাসা’ই বর্নিত।”

আলেমাদের মাঝে দন্দ রয়ে গেছে যে এই ঘটনাকে কি তারা এক তালাক রুপে ধরবে নাকি তিনটি ভিন্ন তালাক রুপে ধরবে। রাসুল(সাঃ) এর সাহাবীদের, তাদের উত্তরসরিদের এবং ইস্‌লামের চার প্রধান ইমামদের বা মাজ্‌হাবের মতামত, উচ্চারিত তিন তালাককে তিনটি ভিন্ন তালাক রুপে ধরতে হবে।

অন্যান্য আলেমরা, যেমন, ইমাম ইব্‌নে তায়্‌মীয়া এবং ইমাম ইব্‌নে আল্‌-কায়্‌ঈম বলেন একে একটি তালাক রুপে ধরতে হবে।

This is also reported by Ibn al-Munzir from `Ata’, Tawus, Ibn Dinar. Ibn Mughith also reported this opinion of `Ali ibn Abi Talib, Ibn Mas`ud, `Abdur-Rahman ibn `Awf, Az-Zubayr from among the Companions of the Prophet (peace and blessings be upon him).

They quote the following hadith in support of their view: “Ibn `Abbas (may Allah be pleased with him) reports that the (pronouncement) of three divorces during the lifetime of Allah’s Messenger (peace and blessings be upon him) and that of Abu Bakr (may Allah be pleased with him) and two years of the caliphate of `Umar ibn Al-Khattab (may Allah be pleased with him) was treated as once. But `Umar ibn Al-Khattab (may Allah be pleased with him) said: “Verily the people have begun to hasten in the matter in which they are required to observe respite. So if we had imposed this upon them (i.e. regard the divorce pronounced three times in succession as irrevocable divorce, it would have deterred them from doing so)!” So he regarded it as such. This latter view is believed to be the most correct.”

Dr. Muzammil H. Siddiqi, former President of the Islamic Society of North America, states:

“Divorce is the most hateful thing to Allah, but it is allowed (halal) only in the case of absolute necessity. If a couple tried their best to reconcile their differences, but they still could not agree and they found impossible to live with each other, then only in that case they should separate in a proper and decent manner. Divorce can be initiated by the husband or by the wife. The husband has the right to pronounce the words of divorce (talaq) to his wife. He can also give her a statement of divorce in writing. The wife can seek divorce from her husband through khul`, but if he refuses to grant her request then she can seek the dissolution of marriage through the court of law. The Shari`ah has not given the right to a woman to divorce her husband, because only the husband has all the financial obligations of the family. After divorce he will be responsible to provide her maintenance during her `iddah and if there are any children in the family then he will be responsible for their expenses. Thus to grant her that right equally with the husband while she has no financial obligation is unfair and unjust. The wife can, however, divorce her husband if her husband gave her that right either at the time of marriage or afterwards.

A husband who wants to divorce his wife should use the words of divorce with full awareness after much thinking and consideration. Using the words of divorce in haste or anger is not right. The proper procedure is to give divorce when a woman is not pregnant and is not going through her monthly menstrual cycle. Divorce can take place by saying one time “I have divorced you” (talluqtuki) or “You are divorced” (anti taliq). After this the women should spend the time of her `iddah. During the period of `iddah the husband can cancel his divorce and can resume the matrimonial relationship, but if it does not happen then the divorce takes effect and at the end of the `iddah period their marriage ends. There is no need to repeat the words of divorce more than once. Even one divorce is sufficient to terminate the relationship.

The provision of the second and third divorce is given for a husband who divorces his wife one time and then cancels his divorce, but then after sometime changes his mind and divorces her again second time. Then he changes his mind and resumes the relationship and then again after that he divorces her. The Shari`ah says that now this relationship should end. Marriage is a serious matter. One cannot keep divorcing one’s wife and returning her back. After the third divorce he cannot take her back. The third divorce is called the “irrevocable divorce” (talaq mughallaz). The wife now becomes forbidden to her husband completely. She cannot go back to this husband who has divorced her three times, unless she marries another person who out of his own free will divorces her and then after the `iddah she and her previous husband want to remarry. This is called halalah in the language of the Shari`ah. This rule is given by the Shari’ah to reduce the occurrence of three divorces and to protect the honor of the woman.

Some people misuse this procedure out of ignorance or willingly. There are some people who think that the divorce (talaq) would not happen unless one makes the statement three times. There are others who repeat the words of divorce for emphasis and have no idea that this could be very serious. The jurists (fuqaha’) have discussed this issue for the last fourteen hundred years. There were some jurists who took the strict position that three divorces whether uttered at once or separately would be considered as three divorces. According to them, whether a person misused this right knowingly or unknowingly the affect would be the same. If some one uttered the words of divorce three times, then this would be talaq mughallaz and his wife would become totally forbidden for him and they could not reconcile without a halalah. There are, however, some other jurists who emphasize the role of will in marriage and divorce. They say that if the husband used three divorces intentionally as three, then they will be counted as three, but if he repeated the words in anger or to emphasize his point then this is one divorce and he will have the right to resume the relationship with his wife. I feel that the second position is closer to the spirit of the Shari`ah. I am pleased to see that there are now some Hanafi jurists also who are inclined to this position. There were fatwas issued to this effect by the `Ulama’ of Deoband and Nadwa in India as well the `Ulama in Saudi Arabia.

The issue of a divorce given in anger is also important. The basic rule is that divorce must be uttered with full consciousness and without any coercion. If a person pronounced the words of divorce to his wife, in a fit of anger, while he lost all control over himself or due to the influence of intoxicants which he sinfully consumed, or he was forced by someone else to do so, then in all these cases his words of divorce are null and void and have no effect. In conclusion, let me say that Muslims must protect their family life and must avoid divorce as much as possible. If it becomes necessary to have divorce then use the Islamic methods and procedures. Obviously we cannot give all the details here. Those who need more information they should consult special books on this subject or speak to those who are knowledgeable.”

Sheikh Yusuf Al-Qaradawi তার “The Lawful and the Prohibited in Islam” বলেছেন,

“স্বামী যদি তার স্ত্রীতে কন বিতর্কিত ব্যাবহার দেখে তবে স্বামীকে ধৈর্যশীল হতে হবে। তাকে বুঝতে হবে সে একজন মানুষ্‌কে নিয়ে চলছে যার স্বভাবগত আচারই হল ভুল করা এবং স্বামীকে তার স্ত্রীর ভাল মন্দের মাঝে সমতা বযায়ে রেখে চলতে হবে। রাসুম (সাঃ) বলেছেন, “একজন বিস্বাসী মুসল্‌মান যেন একজন বিস্বাসী মুস্‌লীমাহ্‌কে যেন অপছন্দো না করে। যদি মুস্‌লীমাহ্‌র মাঝে কোন কিছু একটি মন্দ থাকলেও সম্ভবত অন্য আরেকটি ভাল কিছু থাকবে।”

অপরদিকে আল্লাহ্‌ বলেন, “… এবং তাদের সাথে সহানুভুতির সাথে বসবাস কর, কেননা যদি তুমি তাদের অপছন্দ কর, তবে যেন তুমি অপছন্দ করছো এমনই কিছু যার মাঝে আল্লাহ্‌ দিয়েছেন অনেক ভাল।” (আন-নিসা, আয়াত – ১৯)

ইস্‌লাম একদিকে যেমন দাবি করে স্বামীকে স্ত্রীর প্রতি ধৈর্যশীল হতে, তেমন স্ত্রীকে আদেশ করে তার স্বামীকে খুশী রাখতে যথা স্বাধ্য ক্ষমতার মধ্যে এবং তার নিজেস্ব্য মাধুর্য্যের সাথে এবং এও মনে করিয়ে দেয় যেন তার স্বামী একটি রাতও অতিবাহিত না করে তার উপর রাগান্বিত অবস্থায়। কেননা, “তিনজনের (মানুষ্‌) প্রার্থনা তাদের মাথার এক দাগ উপোরেও উঠেনাঃ নামাজ পড়ায় এমন ব্যক্তি যাকে কিনা বাকি সকল ঘৃনা করে, একজন মহিলা যে কিনা রাত অতিবাহিত করে যখন তার স্বামী তার উপর রাগান্বিত এবং বিদ্যেশী দুই ভাই।” (বর্ণিত ইব্‌ণ মাজাহ্‌ এবং ইব্‌ণ হীব্বান)

অতঃপর আলেমদের সকল মন্তব্য পড়ে আমি যা বুঝলাম তার সারমর্ম নীচে দিলাম,

- স্বামীকে অনেক ধৈর্য্যশীল হতে হবে, বিচক্ষন হতে হবে, একই সাথে স্ত্রীকেও।
- বিরোধ বিমচন করার প্রথম ধাপ হিসেবে উভয়কে প্রথমে আপসে আলাপ করার সত চেস্টা করতে হবে।
- আপশে যদি সমাধান না হয় তবে উভয় পক্ষ হতে একজন করে প্রতিনিধি আনতে হবে যেন তারা এর মিমাংসায় সাহায্য করে।
- উপরের সকলের শেষে স্বামী তালাক দিবে।
- তালাক রাগ, নেশাগ্রস্থ অবস্থায় এবং মানষিক ভারসাম্যহীন অবস্থায় দেয়া গুনাহ্‌র কাজ।
- তালাকের সময় স্ত্রী পবিত্র অবস্থায় থাকতে হবে এবং স্বামী স্ত্রীর দৈহিক সম্পর্কহীন অবস্থায় থাকতে হবে।
- স্ত্রী তিন মাস ইদ্‌দত পালন করবে, এই অবস্থায় যদি স্বামী তার স্ত্রীর সাথে দৈহিক স্বান্যিধ্যে আবধ্য হয় তবে তালাক ভেঙ্গে যাবে।
- তিন মাস পার হবার আগেই যদি আপশ হয় তবে খুবই ভাল এবং তালাক ভেঙ্গে যাবে।
- কিন্তু তিন মাস পরে তালাক বহাল থাকবে এবং বিয়ে ভেঙ্গে যাবে, এই অবস্থায় তারা একে অপরের পর হয়ে যাবে।
- তারপরও যদি তারা এক সাথে হতে চায় অথবা ভবিষ্যতে সিদ্ধান্ত নেয় যে আবার এক সাথে হতে চায় তবে নতুন করে তাদের বিয়ে করতে হবে এবং নতুন দেন্মহর ধার্য্য হবে।
- অতঃপর যদি আবার দ্বন্দ হয় তবে প্রথম থেকে আবার সেই সমস্যা সমাধানের প্রতিটি ধাপ অনুসরন করতে হবে এবং সর্বশেষে তালাক।
- এরুপ ত্রীতিও তালাকের পর তারা আর এক হতে পারবেনা। হতে হলে স্ত্রীকে অপরের সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হতে হবে কিন্তু এই সম্পর্ককে বিয়ের পর ভেঙ্গে দিয়ে আগের স্বামীর কাছে যাবার নিয়ত নিয়ে বিয়ে করা যাবে না।

রাসুল(সাঃ) বলেছিলেন কনো সমস্যার সমাধান কোর্‌আনে না পেলে হাদিস দেখতে, তাতেও না হলে ইজমা, কিয়াসের আশ্রয় নিতে এবং পাশাপাশি সাহাবীদের জীবনিতে দেখতে। এই নিয়মের আলোকে আল্লাহ্‌র কোর্‌আন যথাযথ ভাবে বিস্তারিত বুর্ননা দিয়েছে।

আমি দুঃসাহস করে উপরে উল্লেখিত কিছু আলেমদের কথা অনুবাধ করেছি কিন্তু কোর্‌আনের আয়াত অনুবাধ করার সাহস আর নিলাম না। আমি নীচে তালাক জরিত সকল আয়াত আরবী এবং প্রতিটি আয়াতের তিনটি ইংলিশ অনুবাদ সহ দিলাম। সব পড়ে আপনারা নিজেরাই সিদ্ধান্ত নেন।

Surah Baqarah :: Verse 226 - 227

Surah Baqarah :: Verse 226 - 227

[gallery orderby="title"]

Surah Baqarah, Verse 228

Surah Baqarah, Verse 229

Surah Baqarah, Verse 229

Surah Baqarah, Verse 230

Surah Baqarah, Verse 230

Surah Baqarah, Verse 231

Surah Baqarah, Verse 231

Surah Baqarah, Verse 232

Surah Baqarah, Verse 232

Surah Ahzab, Verse 49

Surah Ahzab, Verse 49

Surah Talaq, Verse 1

Surah Talaq, Verse 1

Surah Talaq, Verse 2 - 3

Surah Talaq, Verse 2 - 3

Surah Talaq, Verse 4 - 5

Surah Talaq, Verse 4 - 5

Surah Talaq, Verse 6

Surah Talaq, Verse 6

Processing your request, Please wait....
  • Print this article!
  • Digg
  • Sphinn
  • del.icio.us
  • Facebook
  • Mixx
  • Google Bookmarks
  • LinkaGoGo
  • MSN Reporter
  • Twitter
১,৩৪৮ বার পঠিত
1 Star2 Stars3 Stars4 Stars5 Stars (ভোট, গড়: ৫.০০)

৯ টি মন্তব্য

  1. মাশাল্লায়, লেখাটা সময় নিয়ে পড়তে হবে , তার আগে আপনাকে ধন্যবাদ জানাই কষ্ট করে এত বড় লেখা দেবার জন্য।

    shane2k

    ধন্যবাধ, এখানে ব্লগ করার সুযোগ দেবার জন্য। আগে কেবল একাই পড়ে মাথায় রাখতাম এখন বাকিদের সাথে share করতে পারছি এবং আলচোনার মাধ্যমে আর শেখার সমুহ সুযোগ পাবো।

    হাফিজ

    ব্লগের মাজাজাই তো এটা :)

  2. লেখা তো পড়লাম , তালাক দেয়া যে অপছন্দনিয় এটা বুঝলাম । কিন্তু বুঝলাম না একটা জিনিস “তিন তালাক দিলে কি তালাক হয়ে যাবে কিনা ? “

  3. আমি যা বুঝলাম, এই তিন তালাকের ড্রামা যে কিভাবে শুরু হল এক আল্লাহ,ই যানে। আপনি যদি খেয়াল করে দেখেন কোর্‌আনে প্রতি তালাকের ধাপ বর্ন্‌না করা আছে, এমন অবস্থায় কেন এক তালাকের জায়গায় তিন তালাক দিয়ে বিয়ে ভাংবে বুঝিনা। অতএব অল্প বিদ্যা এবং প্রচলিত ব্যবহার দেখে মানুষ ধুম করে তিন তালাক দিয়ে বসছে। তাই এক তালাকেয় যখন বিয়ে ভেঙ্গে ফেলা যায় তিন তালাকের নাটকের কি দরকার ? আমি জতদুর দেখলাম হয্‌রত ওমর(রাঃ) মুসল,মানদের আচরন দেখে বলেছিলেন, যাও, তিন তালাক বললে এটাকে তিন ধরা হবে যেহেতু কেঊ আল্লাহ,র দেয়া নিয়ম অনুসরন করছেনা। বিয়ে বাচান যেহেতু জরুরি, আলেমদের কথা পড়ে যা বুঝলাম, যে কেউ যদি ঠান্ডা মাথায় তিন তালাক দেয় তবে সেটাকে তিনটা ভিন্ন তালাক ধরা হবে অতঃপর ছেলে মেয়ে আর চাইলেও এক সাথে হতে পারবেনা, কিন্তু যদি রাগের মাথায় (যা করা একেবারেই ঠিক নয়) বা নেশাগ্রস্থ অবস্থায় বা যখন মানষিক অবস্থা স্বাভাবিক ছিলনা বা কোন বাহ্যিক চাপে পরে তিন তালাক দিয়ে বসে তবে সেটিকে তিন তালাক ধরা হবে না। অতঃপর, তখন ছেলে মেয়ে চাইলে ইদ্‌দতের আগেই একত্ত্রিত হতে পারবে আর তা না হলে তাদের নতুন করে বিয়ে করতে হবে যেখানে নতুন দেন্মহর ধরতে হবে।

    এক মহান আল্লাহ,ই যানেন আমাদের মনের বাসনা কি।

  4. তার মানে তিন তালাক দেয়া যাবে কিন্ত পছন্দনীয় নয় ।

    shane2k

    ঠিক, যাবে। কিন্তু দিলে পুনঃবিবাহ একই ছেলে মেয়ের মধ্যে আর হবেনা, আর এক করে বাড়লে আবার এক সাথে হবার সুযোগ থাকছে।

  5. সানে এলাহি : পাভেল জিজ্ঞেস করছে কয়টা পর্যন্ত আপনি তালাক দিতে পেরেছেন ।

    shane2k

    আমার তালাকের কি দরকার ? যদি লাগে আরো কয়েকটা বিয়ে করবো, তখন দেখা যাবে কয়টা দেয়া যায়।