লগইন রেজিস্ট্রেশন

আজরফ ভাই এর জিজ্ঞাসার উত্তর

লিখেছেন: ' মুনিস মোর্শেদ' @ বৃহস্পতিবার, অক্টোবর ২৯, ২০০৯ (১:৩৯ পূর্বাহ্ণ)

প্রশ্ন: আমি জানতে চাই যে আল কোরানে বা হাদীসে কোথায় আছে যে ইহুদী বা খৃষ্টানদের ধর্ম ১। বিকৃত হয়ে গেছে , ২। বিলুপ্ত হয়ে গেছে ৩। বা এখন থেকে ( কোরআন নাজিলের পর থেকে ) শুধু কোরআনই একমাত্র আল্লাহর মনোনীত জীবন বিধান ?

উত্তর: আল্লাহপাক এরশাদ করেন :
إِنَّ الدِّينَ عِندَ اللّهِ الإِسْلاَمُ
“নিশ্চয়ই আল্লাহ পাকের কাছে একমাত্র মনোনীত দ্বিন হচ্ছে ইসলাম” ( সুরাহ ইমরান / ১৯ )

আল্লাহতাআলা আরো বলেন:

وَمَن يَبْتَغِ غَيْرَ الإِسْلاَمِ دِينًا فَلَن يُقْبَلَ مِنْهُ وَهُوَ فِي الآخِرَةِ مِنَ الْخَاسِرِينَ

“যে ব্যক্তি দ্বীন ইসলাম ব্যতীত অন্য কোনো ধর্ম বা নিয়ম-নীতি অন্বেষন (অনুসরন) করে, তার থেকে কখনই তা গ্রহন করা হবে না এবং সে পরকালে ক্ষতিগ্রস্হের অন্তর্ভুক্ত হবে ( সুরাহ ইমরান / ৮৫ )

এ প্রসংগে হাদীস শরীফে উল্লেখ আছে : “হযরত জাবের (রা:) হযরত নবী করিম সাল্লাল্লাহু আলাইহে ওয়া সাল্লাম থেকে বর্ননা করেন যে , একবার হযরত ওমর ফারুক (রা:) নবী করিম সাল্লাল্লাহু আলাইহে ওয়া সাল্লাম এর কাছে এসে বললেন ” হে আল্লাহর রসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহে ওয়া সাল্লাম , আমরা ইহূদীদের নিকট থেকে কিছু কথা শুনি, তা আমাদের কাছে আশ্চর্যজনক মনে হয় । তার থেকে কিছু কি আমরা লিখে রাখব ? তখন নবী করিম সাল্লাল্লাহু আলাইহে ওয়া সাল্লাম বললেন , তোমরা কি [ তোমাদের দ্বীন সম্পর্কে ] এমন দ্বিধাগ্রস্হ রয়েছ ? যেমন ইহুদী ও খৃষ্টানরা দ্বিধাগ্রস্হ রয়েছে ? নিশ্চয়ই আমি তোমাদের জন্য পরিপুর্ন উজ্জ্বল দ্বিন নিয়ে এসেছি । এমনকি ইহুদিদের নবী হযরত মুসা (আ:) যদি জীবিত থাকতেন , তবে তার পক্ষেও আমার অনুসরন ছাড়া উপায় ছিল না [ আহমদ, বায়হাকী ]

ইসলাম ধর্ম যে একমাত্র মনোনীত ধর্ম সেটার আরো একটি দলীল:

ٱلۡيَوۡمَ أَكۡمَلۡتُ لَكُمۡ دِينَكُمۡ وَأَتۡمَمۡتُ عَلَيۡكُمۡ نِعۡمَتِى وَرَضِيتُ لَكُمُ ٱلۡإِسۡلَـٰمَ دِينً۬ا‌ۚ

“আজ আমি তোমাদের দ্বীনকে পরিপুর্ণ করে দিলাম , আর তোমাদের উপর আমার নিয়ামতকে সমাপ্ত করলাম, তোমাদের জন্য ইসলামকে দ্বীন হিসেবে মনোনীত করলাম” । ( সুরা মায়েদা / ৩ )

উপরের আয়াত এবং হাদীস এর দলীল দ্বারা বোঝা গেলো ইসলাম একমাত্র মনোনীত দ্বীন এবং অন্য কোনো ধর্মের কিছুই গ্রহন করার দরকার নাই এবং সেটা রহিত হয়ে গেছে । সুতরাং ২ এবং ৩ নং প্রশ্নের সমাধান পাওয়া গেল ।

এখানে একটা জিনিস উল্লেখ্য যে , যেহেতু অন্য ধর্মের কোনো অনুসরন করা ইসলামের দৃষ্টিতে বৈধ নয়, তাই সেটা বিকৃত হোক বা না হোক সেটা অনুসরন করা জায়েজ নেই । তারপরেও অনেক দলীলের মধ্যে একটা দলীল দেয়া হলো যেটাতে বোঝা যায় সেটা বিকৃত হয়েছে :

আল্লাহ পাক বলেন:
مِّنَ الَّذِينَ هَادُواْ يُحَرِّفُونَ الْكَلِمَ عَن مَّوَاضِعِهِ
ইহুদীদের মধ্যে কিছু লোক আল্লাহ পাকের কালামকে বিকৃত করে ” । ( নিসা/৪৬ )

Processing your request, Please wait....
  • Print this article!
  • Digg
  • Sphinn
  • del.icio.us
  • Facebook
  • Mixx
  • Google Bookmarks
  • LinkaGoGo
  • MSN Reporter
  • Twitter
৭৩ বার পঠিত
1 Star2 Stars3 Stars4 Stars5 Stars ( ভোট, গড়:০.০০)

২ টি মন্তব্য

  1. আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ উত্তর দেবার জন্য। (Y)