লগইন রেজিস্ট্রেশন

কারবালার নরপশু ইয়াজিদ লা’নাতুল্লাহি আলাইহি-এর বন্দনায় কাফির জোকার নায়েক

লিখেছেন: ' তুষার (ﭡﺸر)' @ শুক্রবার, জানুয়ারি ১, ২০১০ (৯:২৮ অপরাহ্ণ)

ভারতের তথাকথিত জাকির নায়েক ওরফে জোকার নায়েক একজন উচুদরের কাফির। কারণ সে বিভিন্ন সময় কারবালার জিহাদকে “Political Battle” বলে উল্লেখ করেছে। অথচ ইতিহাস ভিন্ন কথা বলে। ইতিহাস মতে, হযরত ইমাম হুসাইন রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু হক্বকে প্রতিষ্ঠা করার জন্য নিজের জীবন কারবালার ময়দানে দান করে শাহাদাৎ বরণ করেছেন। জোকার নায়েক কারবালার ময়াদানের ঘৃনিত পশু ইয়াজিদের নামের শেষে “রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু” উচ্চারণ করে থাকে। অথচ কুরআন শরীফ-এর সূরা নিসার ৯৩ নম্বর আয়াত শরীফ-এর ইরশাদ হয়েছে, “যে ব্যাক্তি স্বেচ্ছায় কোন মু’মিনকে কতল করে সে জাহান্নামী।” আর বুখারী ও মুসলিম শরীফে ইরশাদ হয়েছে, “হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে মাসঊদ রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, হাবীবুল্লাহ হুযুর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ইরশাদ করেন, মুসলমানকে গালি দেয়া ফাসিকী ও কতল করা কুফরী।” কাজেই সাধারণ মু’মিন মুসলমানকে কতল করা যদি কুফরী ও জাহান্নামী হওয়ার কারণ হয় তাহলে আল্লাহ পাক-এর হাবীব হুযুর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-এর লখতে জিগর ইমাম হুসাইন রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুসহ আহলে বাইত-এর অন্যান্য সম্মানিত সদস্য ও সঙ্গীগণকে যারা শহীদ করেছে তাদের ব্যাপারে বলার অপেক্ষা রাখেনা যে, তারা সকলেই কাট্টা কাফির ও চির জাহান্নামী। কারবালার নরপশু ইয়াজিদ লা’নাতুল্লাহি আলাইহি-এর সাঙ্গপাঙ্গ ও বর্তমানে ইয়াজিদের কায়িমক্বাম জোকার নায়েকের উপর অনন্ত কাল ধরে আল্লাহ পাক-এর লা’নত বর্ষিত হোক।

জোকার নায়েকের সেই কুফরী বক্তব্য

Processing your request, Please wait....
  • Print this article!
  • Digg
  • Sphinn
  • del.icio.us
  • Facebook
  • Mixx
  • Google Bookmarks
  • LinkaGoGo
  • MSN Reporter
  • Twitter
১,১৩৩ বার পঠিত
1 Star2 Stars3 Stars4 Stars5 Stars (ভোট, গড়: ৫.০০)

৪৬ টি মন্তব্য

  1. তুষার ,

    আস-সালামু আলাইকুম,

    একজনকে অন্যায় ভাবে হত্যা করা কবীরা গোনাহ , হ্যা এটা ঠিক । তাই বলে সে “কাফের” হবে এটা আপনি কোথায় পেলেন ? আর ইয়াজীদকে জাকির নাইক PBUH বলেছে রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু নয় । যাহোক এটাও সমর্থনযোগ্য নয় । কিন্তু আমাদের প্রশ্ন হলো একজন একটা কবিরা গোনাহ করলে সে ইসলামের মৌলিক বিশ্বাসে বিশ্বাসি হওয়া সত্বেও তাকে আপনি কিভাবে কাফের বললেন সেই সম্বন্ধে উপযুক্ত দলীল পেশ করুন ।

    ওয়াস সালাম

    কর্তৃপক্ষ [ পিস ইন ইসলাম ]

    তুষার (ﭡﺸر)

    @কর্তৃপক্ষ [ পিস-ইন-ইসলাম ], আগে ভাল করে শুনে মন্তব্য করুন। জাকির peace be upon him বলেছে না May Allah be Pleased with Him।
    May Allah be Pleased with Him এর আরবী হল রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু।

    আর সে বলতে কাকে বুঝিয়েছেন পরিস্কার করুন।

    কর্তৃপক্ষ [ পিস-ইন-ইসলাম ]

    @তুষার (ﭡﺸر),

    জাকির peace be upon him বলেছে না May Allah be Pleased with Him।
    May Allah be Pleased with Him এর আরবী হল রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু।

    এই কথাটা বলার কারনে জাকির নাইক কিভাবে কাফির হলো সেইটাই আপনার কাছে আমরা জানতে চাচ্ছি ।

    ওয়াস সালাম

    কর্তৃপক্ষ [ পিস ইন ইসলাম ]

    তুষার (ﭡﺸر)

    @কর্তৃপক্ষ [ পিস-ইন-ইসলাম ],আগে নিজের ভুল স্বীকার করুন। প্রথমে খুব দৃঢ়তার সাথে বললেন জাকির PBUH বলেছে রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু নয়। এখন আমাকে বলুন কতটুকু বললে বা করলে একজন মুসলমানকে কাফির বলা যাবে। তারপর আমি দলীল দিব সে কত উচু দরের কাফির।

    কর্তৃপক্ষ [ পিস-ইন-ইসলাম ]

    @তুষার (ﭡﺸر)

    সে বলেছে May Allah be Pleased with Him সেটা আপনার রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু নয় এবং আমরা যেটা বলেছি peace be upon him সেটাও নয় ।

    আপনি তাকে কাফের বলেছেন এখন আপনার দায়িত্ব প্রমান করা সে কাফের । আমরা সেটাই জানতি চাচ্ছি ।

    ওয়াস সালাম

    কর্তৃপক্ষ [ পিস ইন ইসলাম ]

    তুষার (ﭡﺸر)

    @কর্তৃপক্ষ [ পিস-ইন-ইসলাম ], জোকার নায়েকের অনেক আক্বীদাই ভূল। তার একটি প্রমাণ হল, সে তার তথাকথিত ইসলামিক লেকচারে বলেছে,জুয়া ইত্যাদি ব্যতীত সকল খেলা ইসলামে হারাম নয় অর্থাৎ জায়িয।
    অথচ মহান আল্লাহ পাক ইরশাদ করেন, “আমি আসমান ও যমীন এবং এতদুভয়ের মধ্যে যা কিছু আছে তা ক্রীড়াচ্ছলে সৃষ্টি করিনি।” (সূরা আম্বিয়া ১৬)
    আল্লাহ পাক-এর হাবীব হুযুর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ইরশাদ করেন, “সর্বপ্রকার খেলাধুলা হারাম। ৩টি বিষয় খেলাধুলার অন্তর্ভুক্ত নয়। যেমনঃ ১) তীর ধনুক চালনা করা ২) অশ্বকে প্রশিক্ষণ দান করা ৩) নিজ স্ত্রীর সাথে শরীয়ত সম্মত হাসি-খুশি করা।” (মুস্তাদরেকে হাকিম)

    আক্বাইদের কিতাবে সুস্পষ্টভাবে উল্লেখ আছে, “হারামকে হালাল বা জায়িয বলা কুফরী। আর যে কুফরী করে সে মুরতাদ বা কাফের হয়ে যায়।”

    তাহলে জোকার কি করে মুসলমান থাকতে পারে। সে তো নিজেকে দাঈ মনে করে। তাহলে কি করে কুরআন শরীফ ও হাদীস শরীফ অস্বীকার করে।
    আর যে কুরআন শরীফ ও হাদীছ শরীফ অস্বীকার করে সে কখনই মুসলমান থাকতে পারেনা।

    naim1983

    @তুষার (ﭡﺸر),

    ভাইজান সালাম রইলো, বিস্তর পড়াশোনা করুন কাকে কাফের ফতোয়া দেয়া যায় আর কাকে দেয়া যায় না। আর আপনি কাউকে কাফের ঘোষণা দেয়ার যোগ্য কিনা তাতো আমরা জানিই না। দয়া করে যদি আপনার বায়োডাটা খানা প্রকাশ করতেন বড়ই ধন্য হতাম। ভালো থাকুন অপরকে কাফির বলা থেকে দূরে থাকুন, কারন বাংলায় একটা প্রবাদ আছে “পাগলের সবচাইতে বড় লক্ষন অন্যকে পাগল বলা”

    জাকির নায়েক ভুল করল্ওে আপনি তাকে কাফির বলতে পারেন না, আপনি তাকে অপছন্দ করতে পারেন।

  2. ডাঃ জাকির নায়েক একজন মানুষ এবং তিনি সব বিষয়ে ঠিক না । অতএব, তিনি ইয়াজিদের ব্যপারে ভুল করলে ক্ষমা পেতেই পারেন । তাতে কি সমস্যা । সব মানুষ তো সব ব্যপারে ঠিক না । প্রতিটি মানুষ ই কোন না কোন ব্যপারে ভুল করে ।
    ইমাম গাজজালি র: ইয়াজিত সম্পর্কে ঃ
    Imaam Muhammad Gazzalee(d.505H) said he was a Muslim with a correct aqeedah and a complete Muslim and it is not permissible in the sharee’ah to curse and abuse him. (see Ahyaa al-Uloom (3/108), Wafyaat al-A’yaan (1/328), Miratul-Janaan (3/176), al-Bidaayah Wan-Nihaayah (12/173), Hayaat al-Haiwaan (2/176), Sawaa’iq al-Meharqah (pg.222), Dhuu al-Ma’alee (pg.49), Sharh Fiqhul-Akbar (pg.87), Nibraas (pg.551), Shadhraat adh-Dhahab Fee Akhbaar Minal Madhab (1/69), Tafseer Rooh al-Ma’anee (13/73), Fataawa Azeezee (1/100), Fataawa Abdul-Hayy (1/60), Aqaa’id al-Islaam (pg.223)

    ইবনে তাইমিয়া রঃ ইয়ায়াজিদ সম্পর্কে ঃ
    Shaikh ul-Islaam Imaam Ibn Taymiyyah (d.728H) He was neither in favour of cursing Yazeed nor declaring him to be a disbeliever. He says, “And the people who curse Yazeed and other such people like him then it is UPON them to bring evidence, Firstly: that he (Yazeed) was an open sinner and an oppressor and therefore prove he really was an open sinner and an oppressor. As allowing them to be cursed also needs to be proven that he continued this open sinning and oppression to the end up until his death. Secondly: Then after this they must prove that it is permissible to curse specific people like Yazeed.” He goes onto say, “and the verse, “May the Curse of Allaah be upon the oppressors.” Is a general verse like the verses concerning punishment.” He goes onto say, “And the hadeeth of Bukhaari states the first army to wage Jihaad against Constantinople is forgiven and the first army to do Jihaad against Constantinople, their Ameer was Yazeed ibn Mu’waiyyah and the word army entails a specific number and every member of this army is included in this forgiveness………..” (Minhaaj as-Sunnah an-Nabawiyyah Fee Naqdh Kalaam ash-Shee’ah Wal-Qadariyyah (2/252), al-Muntaqa Minhaaj al-Ei’tidaal Fee Naqdh Kalaam ar-Rafdh Wal-Ei’tizaal (pg.290). However, this Hadith clearly did not refer to Yazid as he did not take part in the first battle of Constantinople[5], it was his father Mu’awiya[6] during the reign of Caliph Uthman [7] therefore this verse did not apply at all to Yazid. In fact, according to the reputed scholar Ibn Athir Yazid was unwillingly to take part in the first seven battles against Constantinople, and was eventually forced to attend the eighth by his father as punishment.

    সব মিলিয়ে বলতে পারি, ডাঃ জাকির হয়ত ভুল করেছেন । আর কোন মানুষ ভুলের উর্ধে নয় । আর, যাকে তাকে যখন তখন কাফির বলা থেকে বিরত হন ।

    হাফিজ

    @ফুয়াদ ভাই, আমারো সেই মত । ইয়াজিদ ফাসেক বা ভাল মুসলমান না সেটা ঠিক । তাই বলে তাকে যে ভালো বলবে সে কাফের এটা কোনোমতেই মানা যায় না । এত ছোট একটা ব্যাপারে একজনকে কাফের ফতোয়া দ্যায় এটা আশ্চর্য ।

    ফুয়াদ

    @হাফিজ,
    ধন্যবাদ ।
    মানুষ ভুল করতে পারে । ভুল সব মানুষের ই হয় । ডাঃ জাকির হয়ত ভুল করেছেন । আর কোন মানুষ ভুলের উর্ধে নয় ।

    যাকে তাকে যখন তখন কাফির বলা থেকে বিরত হন

    । এই বিষয় টি সকল মসুলমানদের বুঝতে হবে ।

    হাফিজ

    @ফুয়াদ, জি সহমত ।

    তুষার (ﭡﺸر)

    @ফুয়াদ, জোকার যদি ভুলই বলত তাহলে সে কি করে কারবালার জিহাদকে “political battle” বলল? কারবালার জিহাদ যদি “political battle” হয় তাহলে ইমাম হুসাইন রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু কি জন্য তার পরিবার-পরিজন, সন্তান-সত্ততি সহ কারবালার ময়দানে জিহাদ করেছিলেন? কারবালার জিহাদ যদি “political battle” হতো তাহলে তো ইমাম হুসাইন রদ্বিয়াল্লাহু কখনই পরিবার নিয়ে কারবালার ময়দানে যেতেন না। জোকার ইচ্ছা করেই ইয়াজিদের পরে রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু উচ্চারণ করেছে। কারবালার সেই নরপশু ইয়াজিদের নামের শেষে যে রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু উচ্চারণ করে সে যে কত বড় ধরণের কাফের তা বলার অপেক্ষা রাখেনা।

    তুষার (ﭡﺸر)

    @হাফিজ, আপনার মত গন্ডমূর্খ মানুষের পক্ষেই ইয়াজিদকে ফাসেক বলা সম্ভব। যেখানে কুরআন শরীফ ও হাদীছ শরীফ-এ সাধারণ মু’মিনকে কতল করাকে জাহান্নামী ও কুফরী বলা হয়েছে সেখানে হুযুর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-এর লখতে জিগর ইমাম হুসাইন রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুকে শহীদকারীকে কি করে তাকে ফাসেক বলা যায়? নাকি কাদিয়ানীর মত আপনার ঊপর ওহী নাযিল হওয়া শুরু করেছে।

    ম্যালকম এক্স

    @তুষার (ﭡﺸر), আপনার পীর সাহেবের ওপর ওহী নাজিল হয় , এই কারনে সে বর্তমানে “হজ্ব” করতে নিষেধ করে । এবং কিছু কিছু মুরীদের হজ্বে যাওয়ার টাকা দিয়ে নিজের উদরপূর্তি করেছে । আর কাদিয়ানীর সাথে আপনার পীর সাহেবের কি কি মিল আছে সেটা তো আমি আগের পোস্টে দেখিয়েছি । সেইকারনে আপনার মাথার মধ্যে “কাদিয়ানী” ঢুকে আছে । আর দাজ্জালের সাথেও আপনার পীরের মিল আছে। যেমন:

    প্রথম – দাজ্জাল “মক্কা” , “মদীনা” শরীফ কোনো সময় যেতে পারবে না । আপনার পীরও দিল-দার রহমান কোনো দিন মক্কা মদীনায় যেতে পারবে না । এর প্রমান সে হজ্ব , ওমরাহ করতে নিষেধ করে । ( যেহেতু আপনার খেলাফত বিহীন পীর সবার নাম বিকৃত করে তাই আমিও তার নাম দিলাম দিল-দার রহমান )

    দ্বিতীয় – দাজ্জাল যেমন নিজেকে ছাড়া আর সবাইকে কাফের বলে , আপনার পীরও নিজের দল ছাড়া আর সবাইকে কাফের বলে, তার উদাহরন “জাকির নাইক” কে কাফের বলা।

    কি বলেন ? ঠিক বলেছি না ?

  3. আরে তুষার ভাই যে , আমিতো প্রথমে মনে করেছিলাম আপনি নেটের বাহিরে তাই উত্তর দিচ্ছেন না। এখন বুঝতে পারলাম আসলেই আপনাদের কোনো উত্তর নেই । লা জওয়াব । নিজের পীর যে সুদ খায় সেটার খবর নাই , এখন জাকির নাইক কাফের না মুসলমান সেটা নিয়ে লাগছে । হায়রে দুনিয়া ।

    যারা তুষার খান এবং তার পীর সাহেব জামানার লক্ষচ্যুত লক্ষস্হল দিল্লুর রহমান ওরফে অরুনের ভন্ডামি সম্বন্ধে জানেন না তাদের এই লিংক দুটো পড়ার অনুরোধ রইল ।

    http://www.peaceinislam.com/malcolm-x/3151/

    http://www.peaceinislam.com/malcolm-x/2901/

    তুষার (ﭡﺸر)

    @ম্যালকম এক্স, আপনাকে শ্রীঘই আপনার মিথ্যা দলীলগুলোর উপযুক্ত জবাব দেওয়া হবে। অপেক্ষায় থাকুন।

    ম্যালকম এক্স

    @তুষার (ﭡﺸر), জ্বী , জ্বী আমি অপেক্ষা করছি । আর আপনার জ্ঞাতার্থে জানাচ্ছি , আমি মাত্র আমার জমাকৃত দলিলের দশ ভাগের এক ভাগ পোস্ট আকার দিয়েছি । সেটার উত্তর দিতেই আপনার পীর সাহেবের ১৩টা বেজে যাচ্ছে । আর বাকী ৯ ভাগ দিলে সব মুরীদ মিলেও উত্তর দিতে পারবেন না ।

  4. কর্তৃপক্ষ , আমার অনুরোধ এই লেখাটা প্রথম পাতা থেকে সরিয়ে দিবেন না । এই ভন্ডদের আকিদা সম্বন্ধে সবাই জানুক এই আমি চাই । এরা কাদিয়ানীদের মতো মনে করে তাদের পীর ও তার মুরীদরা মুসলমান আর সবাই কাফের । আরো প্রমানিত হলো আমি আগে কাদিয়ানীর সাথে তুলনা করে যে পোস্ট দিয়েছিলাম সেটা ঠিক ।

    তুষার (ﭡﺸر)

    @ম্যালকম এক্স, আপনার কর্তৃপক্ষকে একটু জোরে বলবেন। উনারা আবার কানে কম শুনেন। উনারা May Allah be Pleased with Him কে peace be upon him শুনেন।

    ম্যালকম এক্স

    @তুষার (ﭡﺸر), আর আপনি তো ইংরেজীটাকে আরবী শোনেন । তার মানে আপনার ব্রেনে সমস্যা ।
    আচ্ছা তুষার খান , আপনাদের মতিঝিলের বগ ভাংগা নিয়ে যে কেস চলতাছে সেটার খবর কি ? ওই যে , আপনার পীর সাহেবের পানি পড়া নিয়ে বগলা ভাংতে গেছিলেন , “নারায়ে তাকবীর” স্লোগান দিতে দিতে । পড়ে ধরা পরার পর পীর সাহেব পল্টি খেয়ে যে অস্বীকার করল আমরা না ওন্যরা এটা করেছে । অবশ্য এটা নতুন না । কথা ঘুরায়ে নেয়ার স্বভাব আপনার পীর সাহেবের নতুন কিছু না ।

  5. কেউ কোন ভুল করলে কিংবা কবীরা বা সগীরা গুনাহ করলে তাকে কাফের বানিয়ে দেয়াতো খারিজিদের কাজ ছিল।

    ম্যালকম এক্স

    @মালেক_০০১, এই লিংকদুটো পড়ুন , এরা খারেজী , কাদিয়ানী নাকি আরো খারাপ বুঝতে পারবেন ।

    http://www.peaceinislam.com/malcolm-x/3151/

    http://www.peaceinislam.com/malcolm-x/2901/

    মালেক_০০১

    @ম্যালকম এক্স,ধন্যবাদ আপনাকে পোস্টদুটির জন্য।

    তুষার (ﭡﺸر)

    @মালেক_০০১, কাফের কেউ কাউকে বানায় না। একজন লোক তার কথা, আক্বীদার মাধ্যেই কাফেরে পরিণত হয়। যে লোক হারামকে হালাল ফতওয়া দেয় আক্বাইদ সকল কিতাবে সুস্পষ্ট ভাবে লেখা আছে সে লোক মুরতাদ বা কাফের। জোকার তার তথা কথিত লেকচারে খেলাধুলাকে হালাল ফতওয়া দিয়েছে অথচ কুরআন শরীফ ও হাদীছ শরীফ দ্বারা খেলাধুলা হারাম সাবস্ত হয়ে গেছে। তাহলে সে কি করে মুসলমান থাকতে পারে। অন্যদিকে অসংখ্য হাদীছ শরীফ দ্বারা ছবি তোলা হারাম সাবস্ত। অথচ সে টিভিতে অনুষ্ঠান করে সেই হারামকে হালাল হিসেবে মানুষের সামনে তুলে ধরেছে।

    ম্যালকম এক্স

    @তুষার (ﭡﺸر), ছবি তোলা হারাম বললেন , আবার উপরে ভিডিওর লিংক দিলেন । তার মানে চামে আপনারাও ধুমছে জাকির নাইকের ভিডিও দেখেন । সেটা জায়েজ ?

  6. তুষার ভাই, ড. জাকির নায়েক কে সচলায়তন বা সামহোয়ার-ইন-ব্লগ এর স্ব-ঘোষিত অবিশ্বাসীদের গালমন্দ করতে দেখেছি, নাম বিকৃত করতে শুনেছি – আপনিও তাই? একজন মানুষের যত ভুল -ই থাক তিনি মোটামুটি শুদ্ধভাবে ইসলাম প্রচারে যা করছেন আমরা তার কোথায় আছি?

    হাফিজ

    @আব্দুল্লাহ ভাই, এতদিন জানতাম জাকির নাইককে শুধুমাত্র “নাস্তিকরা”ই গালাগালি করে যেহেতু তাদের স্বার্থে আঘাত লেগেছে , আজ দেখলাম ইসলামিক ঘরানার লোকজনও তাকে কাফের বলছে । এটা কোনো স্বার্থে কে জানে ?

    তুষার (ﭡﺸر)

    @আব্দুল্লাহ, যার মধ্যে ভূল থাকে সে কি করে শুদ্ধ (আপনার মতে মোটামুটি শুদ্ধ্ব) ইসলাম প্রচার করে? সে খেলাধুলাকে হালাল ফতওয়া দেয় অথচ খেলাধুলা ইসলামে সম্পূর্ণ হারাম।

  7. ভারতের তথাকথিত জাকির নায়েক ওরফে জোকার নায়েক একজন উচুদরের কাফির।</strong

    আচ্ছা, আচ্ছা তাই নাহি?
    যারা ইসলামের শত্রু, তারা জাকির নায়েককে সহ্য করতে পারেনা। জাকির নায়েক সব সময়ই বলে যেঃ আমার কথা কুরান হাদীসের বিরুধ্বে গেলে তা বর্জন করুন। তিনিও একজন মানুষ, তিনি জানেন ভূল তারো হতে পারে। কিন্তু তাই বলে তাকে কাফির বানিয়ে দিলেন। যদি জাকির নায়েক কাফির হয়, তাহলে আমি মন খুলে দোয়া করি, তার মত লোক যেন প্রতিটি ঘরে জন্মায়।

    জাকির নায়েকর কথায় বহু মানুষ মুসলমান হয়েছে। এখন বলেন আপনার এবং আপনার পীর বাবার কথায় কয়জন মুসলমান হয়েছে? বরং আপনাদের ফান্দে পরে মানুষ তাদের ঈমান হারাচ্ছে।

    সময় আছে ভালো হোয়ে যান। তানাহলে ইহকাল,পরকাল দুইটাই কিন্তু যাইবো। (N)

    তুষার (ﭡﺸر)

    @জ্ঞান পিপাষু, শুধু কলেমা পড়লে যদি মুসলমান হয়ে যায় তাহলে ৭২টি ফিরক্বাহ চির জাহান্নামী হত না। মুসলমান হওয়ার জন্য আক্বীদা একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় কারণ আক্বীদাগত কারণেই ৭২টি দল জাহান্নামী হবে।

  8. তুষার ভাই, আপনার পীরের নামে যে দলীল ম্যালকম এক্স দিয়েছিলেন তার জবাব দিলেন না কেন? এসব ফালতু প্যাচাল বাদ দিয়া আগে উত্তর দেন। আর না হলে ভুল স্বীকার করেন।

    জ্ঞান পিপাষু

    @দ্য মুসলিম,

    উনি বিভিন্ন সময় বিভিন্ন কথা বলেন। কেউ প্রশ্ন করলে তার উত্তর দিতে পারে না। ষেশ পর্যন্ত তিনি নিজেই দৌড়ের উপরে থাকে। মানি লোকের মান নাকি একবার জায়, আর তুষার ভাইর মান যায় বার বার। হেদায়াত এক্মাত্র আল্লাহর কাছে। আল্লাহ তুষার ভাইকে হেদায়াত করুন। সাথে আমাদেরকেও। :)

  9. আস-সালামু আলাইকুম,

    সবার অবগতির জন্য জানানো যাচ্ছে যে “তুষার” কে ব্যান করে দেয়া হয়েছে । জাকির নাইক-কে “কাফের” বলার জন্য তাকে ব্যান করে দেয়া হলো।

    জাকির নাইক এর অনেক মতের সাথে আমাদের নাও মিলতে পারে , কিন্তু একজন মুসলমানকে “কাফের” বলার মতো অন্যায় কোনোক্রমেই সহ্য করা আমরা সমীচিন মনে করিনি । তাছাড়া “তুষার” একটি নির্দিষ্ট গোষ্ঠিকে উপস্হাপন করে যারা বর্তমানে মুসলমানদের “হজ্ব” করাতে নিষেধ করে । যেটা বর্তমানের ইসলামিক স্কলাররা কোনোমতেই মেনে নিতে পারেনি ।

    সবাইকে ভবিষ্যৎ-এ এ ধরনের বক্তব্য না রাখার জন্য অনুরোধ করা হলো ।

    ওয়াস সালাম ।

    কর্তৃপক্ষ [ পিস ইন ইসলাম ]

    কর্তৃপক্ষ [ পিস-ইন-ইসলাম ]

    আর একটি বিষয় আপনাদের জানানো প্রয়োজন মনে করছি । আমরা বিভিন্ন ব্লগার এবং নন-ব্লগার থেকে সাজেশন, অনুরোধ পেয়েছি তাকে ব্যান করার জন্য । তাদের মতামতও আমাদের যুক্তিযুক্ত মনে হয়েছে ।

    ওয়াস সালাম ।

    কর্তৃপক্ষ [ পিস ইন ইসলাম ]

    ফুয়াদ

    @কর্তৃপক্ষ [ পিস-ইন-ইসলাম ],

    দয়াকরে ব্যন করার কাজ কইরেন না , প্লিজ । মানুষ কে সব বিষয় জানতে দিন , এতে মানুষের মন প্রতিকোল পরিবেশে কিভাবে সত্য বের করতে হয় বুঝতে পারবে । এভাবেই মানুষের মনে ইসলাম শক্তিশালী হবে ।

    এসব ভুল তত্য যদি মানুষ না জানে , তাহলে হঠাত করে যদি শুনতে পারে তাহলে ফিতনায় পরার আশংকা আছে । প্লিজ অন ব্যন করেন ।

    জ্ঞান পিপাষু

    @ফুয়াদ,

    আপনার সাথে একমত পোষন করি। মিথ্যা যদি সত্যের মুখোমুখি না হয় তাহলে মানুষ সত্য মিথ্যার পার্থক্য বুঝবে না।
    যখন মিথ্যাকে সত্য ঠোকর দেয়, তখন মিথ্যার সর্বনাশ হয়, এটাই সাভাবিক।

    আল্লাহ আল-কুরানে বলেনঃ সত্য এসেগেছে মিথ্যা বিলুপ্ত হয়েছে, মিথ্যাতো বিলুপ্ত হওয়ারি ছিল। (Y)

    mahmud

    @কর্তৃপক্ষ [ পিস-ইন-ইসলাম ],ব্যান তো করলেন, তিনি যে আরও ব্লগ গুলোতে সমানে অপপ্রচার চালিয়ে যাচ্ছেন। এখানে তো জবাব দেয়া যাচ্ছিল, অন্য ব্লগে তো দলীলভিত্তক জবাব দেওয়ার লোকের অভাব। আমার মতে তাকে ব্যান না করাই উচিত ছিল। জাতি জানুক রাজারবাগী, দেওয়ানবাগী, আটরশি, মাইজভান্ডারীর ভন্ডামী।

    ম্যালকম এক্স

    @mahmud,অন্য ব্লগে সে কি বলে সেটা আমাকে লিংক দিন ।
    আর অন্য ব্লগে এই লেখাগুলো নিয়ে পোস্ট আকারে দেয়া যায় না ?

    মেরিনার

    @mahmud, না, এখানে benefit ও harm ওজন করে দেখার ব্যাপার আছে । ধরুন, তাকে আমরা বোঝাতে সক্ষম হবো – এমন একটা সম্ভাবনা যদি থাকেও [যেটা অবশ্য খুবই কম - কারণ এরকম লোকরা অন্ধ হয়], তবে তাতে একজন লোক হয়তো ঠিক হবে, কিন্তু অন্যথায় সে অনেক লোককে confused করার এবং বহু মূল্যবান সময় নষ্ট করার কারণ হতে পারে। আমার মনে হয় কর্তৃপক্ষ ঠিকই করেছেন।

    mehroma

    @কর্তৃপক্ষ [ পিস-ইন-ইসলাম ], জ্বি আপনাদের সবার বক্তব্য পড়ে আমি যেটা সহজে বুঝতে পারলাম সেটা হলো, তুষার সাহেব আহলে বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের ইমাম হুসাইন আলাইহিস সালাম উনাকে শহীদ করার কারনে ইয়াজিদ এর উপর স্বাভাবিকভাবেই নাখোশ, এ অবস্থায় জাকির সাহেবের বক্তব্য উনি সহ্য করতে পারেননি তাই ইসলামের উসূল মুতাবিক যে ফতোয়া হয় সেটা তিনি তুলে ধরেছেন মাত্র। বিপরীতে জাকির সাহেবকে হত্যা নয় শুধুমাত্র শরয়ী ফতোয়া দেয়ার কারনে পিস ইন ইসলাম ব্লগ কর্তৃপক্ষ সেটা সহ্য করতে না পেরে তুষার সাহেব কে ব্যান করেছেন। ব্লগ কর্তৃপক্ষ যদি প্যান্ট শার্ট টাই পড়নেওয়ালা, বেপর্দা জাকির সাহেবের পরিবর্তে আহলে বাইত শরীফ তথা আহলাদে রসূল শুহাদায়ে কারবালার প্রতি বেশী মুহব্বত ভালবাসা দেখাতেন তাহলে বুঝতে পারতাম এ ব্লগটি মুমিন মুসলমানদের। এটা আসলে ফাসিক মুসলমান নামধারী.. ইস! আমি কিন্তু আপনাদেরকে কাফের বলিনি ,,আমাকে আবার ব্যান কইরেন না!

  10. @তুষার (ﭡﺸر), ‏ভাই,আপনি যদি ব্লগে থাকতেন ভাল হত।আর যদি কখনো আসতে পারেন,তাহলে আমাকে আপনার মোবাইল নম্বরটা দিবেন।আমার ইমেইল হল anwar.palash@yahoo.com।আমি কারো সাথে তর্ক করতে চাই না।আমি হুজুর কিবলাকে বিশ্বাস করি।আর আপনার দায়িত্ব আপনি পালন করেছেন।বিশ্বাস করা যার যার বেপার।আব হেদায়াত আপনি কাউকে দিতে পারেন না,যদি আল্লাহ না চান।নবীজীর সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম চাচাও হেদাযেত পান নাই।আর হজ্বের ব্যাপারটা একটু যদি তাদের বুঝিয়ে বলতেন ভাল হত।রেগে যাওয়াটা ঠিক না।উনি বলেছেন যখন কোনো ফরয কাজ করতে গেলে আমার কবিরা গুনাহ হয় তখন সেটা ফরয থাকে না ।কিন্তু নিজের অপারগতার জন্য ক্ষমা চাইতে হবে আল্লাহর কাছে ।নবীজীর সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম চাচাও হেদাযেত পান নাই।আর হজ্বের ব্যাপারটা একটু যদি তাদের বুঝিয়ে বলতেন ভাল হত।রেগে যাওয়াটা ঠিক না।উনি বলেছেন যখন কোনো ফরয কাজ করতে গেলে আমার কবিরা গুনাহ হয় তখন সেটা ফরয থাকে না ।কিন্তু নিজের অপারগতার জন্য ক্ষমা চাইতে হবে আল্লাহর কাছে

    ম্যালকম এক্স

    @anwarpalash,

    আপনি বিশ্বাস করেন ভালো কথা, তবে আপনার উচিত শরীয়তের দলীল দ্বারা যাচাই করা আপনার পীর সাহেব হকের ওপর আছে কিনা।

    anwarpalash

    @ম্যালকম এক্স,
    আমি এর আগে একটি লেখা পোষ্ট করেছি।সেখানেই আমি বলেছি যে আমি যাচাই করেছি।সেটা ইংরেজিতে ছিল।দয়া করে পড়ে নিবেন

  11. @ম্যালকম এক্স,
    আমি এর আগে একটি লেখা পোষ্ট করেছি।সেখানেই আমি বলেছি যে আমি যাচাই করেছি।সেটা ইংরেজিতে ছিল।দয়া করে পড়ে নিবেনম্যালকম এক্স,
    আমি এর আগে একটি লেখা পোষ্ট করেছি।সেখানেই আমি বলেছি যে আমি যাচাই করেছি।সেটা ইংরেজিতে ছিল।দয়া করে পড়ে নিবেন

    রাসেল আহমেদ

    @anwarpalash, আপনি তুষার ভাইয়ের পক্ষ নিচ্ছেন অথচ তিনি একজন মুসলমানকে কাফির বলতেছেন। আপনি কি জানেন না? যদি কোন মুসলমান কে একটি পথেও মুসলমান বলা যায় তাহলে তাকে মুসলমান বলাই উচিৎ, যতক্ষণ না তার পক্ষ থেকে সরাসরি কোন কুফরী কথা বের না হবে।

    ম্যালকম এক্স

    @anwarpalash,আমার লেখা ভালো করে পড়ুন এবং তারপর নিজের থেকে বিচার করুন উনি শরীয়তের ওপর আছেন কিনা